মেন ইন ব্ল্যাক

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
মেন ইন ব্ল্যাক এর একটি শৈলীকৃত প্রতিকৃতি

জনপ্রিয় সংস্কৃতি (popular culture) এবং ইউএফও ষড়যন্ত্র তত্ত্বে মেন ইন ব্ল্যাক (MIB) দ্বারা কালো স্যুট পরিহিত লোকদেরকে বোঝানো হয় যারা নিজেদেরকে সরকারী এজেন্ট বলে দাবী করেন, ইউএফও সাক্ষীদেরকে (যারা ইউএফও এর সাক্ষ্যপ্রমাণ পেয়েছেন বলে দাবী করেন) হয়রান করেন এবং ইউএফও সাক্ষীগণ যা দেখেছেন সেই বিষয়ে নীরব থাকার জন্য হুমকি দেন। কখনও কখনও বলা হয়, তারা নিজেরাই ভীনগ্রহবাসী (alien)। এই শব্দটি কোন অজানা সংগঠন বা সরকারের বিভিন্ন শাখায় কাজ করা রহস্যময় ব্যক্তিকে বোঝাতেও বারবার ব্যবহার করা হয়, যেখানে সেই ব্যক্তিকে কোন গোপনীয়তা রক্ষার জন্য বা অদ্ভূত কার্য পরিচালনার জন্য নিযুক্ত করা হয়ে থাকে। এই শব্দটি জাতিবাচক (generic), বিভিন্ন অস্বাভাবিক, হুমকিস্বরূপ অথবা অদ্ভূত আচরণ করা ব্যক্তিকে বোঝাতে শব্দটি ব্যবহার করা হয়, যার হাবভাব, প্রকাশ বা উপস্থিতিকে ইউএফও দর্শনের সাথে কোনভাবে সম্পর্কযুক্ত করা যায়।[১] ইউএফও গবেষক এবং ইউএফও কৌতূহলীগণ অনেক সময়ই তাদের সাথে মেন ইন ব্ল্যাক এর সাক্ষাত ও মোকাবেলার কথা বলেছেন।

বাস্তব জীবনের এই মেন ইন ব্ল্যাক এর গল্পগুলো একটি আধা-কমিক বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনী (semi-comic science fiction) মেন ইন ব্ল্যাক নামক কমিক বই, চলচ্চিত্র এবং অন্যান্য মিডিয়া ফ্র্যাঞ্চাইজ তৈরি করার উৎসাহ জুগিয়েছিল।

লোকাচার (Folklore)[সম্পাদনা]

লোকাচারবিদ (Folklorist) পিটার রোজসেউইজ মেন ইন ব্ল্যাক এর ধারণাকে মানুষের মাঝে লুসিফার (বাইবেল বর্ণিত শয়তান বা ডেভিল) সম্পর্কিত ধারণার সাথে তুলনা করেছেন এবং বলেছেন, এদেরকে একধরণের "মনোবিজ্ঞানগত নাটক" ("psychological drama") হিসেবে বিবেচনা করা যায়।[২]

ইউফোবিদগণ (Ufologists)[সম্পাদনা]

মেন ইন ব্ল্যাক এর ধারণা ইউফোলজি (ufology) এবং ইউএফও লোকাচারেই বেশি পাওয়া যায়। ১৯৫০ এবং ১৯৬০ এর দশকে ইউফোবিদ্গণ একটি চক্রান্তমূলক মানসিকতা (conspiratorial mindset) অবলম্বন করা শুরু করে এবং "ইউএফোও সংক্রান্ত সত্যতা" আবিষ্কারের জন্য তাদের উপর কোন সংগঠিত হুমকি আসতে শুরু করবে বলে ভয় পেতে শুরু করেন।[৩]

১৯৪৭ সালে, হ্যারল্ড ডাল দাবী করেন, কালো রং এর স্যুট পরিহিত এক ব্যক্তি তাকে সতর্ক করে গেছেন যাতে তিনি তার দাবীকৃত মউরি দ্বীপে ইউএফও দেখার কথা প্রকাশ না করেন। ১৯৫০ এর দশকের মাঝামাঝি সময়ে ইউফোলজিস্ট আলবার্ট কে বেন্ডার দাবী করেন, একজন কালো স্যুট পরিহিত ব্যক্তি তার সাথে দেখা করেছেন যিনি তাকে হুমকি প্রদান ও সতর্ক করে গেছেন যাতে তিনি আর ইউএফও নিয়ে তদন্ত না করেন। বেন্ডার বিশ্বাস করতেন, সেই মেন ইন ব্ল্যাক ছিলেন একজন গোপন সরকারী এজেন্ট যার কাজ ছিল ইউএফও সম্পর্কিত সাক্ষ্যপ্রমাণগুলোকে ধামাচাপা দেয়া। ইউফোলজিস্ট জন কিল দাবী করেন তার সাথে মেন ইন ব্ল্যাকের সাক্ষাত হয়েছিল যাদেরকে তিনি "ভৌতিক অতিপ্রাকৃতিক" ("demonic supernaturals") বলেছেন যাদের গায়ের রং ছিল কালো এবং মুখমণ্ডলের গঠন ছিল "বহির্জাগতিক" (“exotic”)। ইউফোলজিস্ট জেরোম ক্লার্কের মতে, মেন ইন ব্ল্যাক সম্পর্কিত ঘটনাসমূহ সেই সব অভিজ্ঞতার প্রতিনিধিত্ব করে যেগুলো "বাস্তব জগতে সাধারণ ঘটনার মত ঘটতে দেখা গেছে বলে মনে হয় না"।[৪]

ঐতিহাসিক এরন গুলিয়াস লেখেন, "সত্তর, আশি ও নব্বই এর দশকে ইউএফো ষড়যন্ত্র তাত্ত্বিকগণ (UFO conspiracy theorists) মেন ইন ব্ল্যাক এর ধারণাকে তাদের বর্ধিষ্ণু জটিল এবং ভ্রমাত্মক কল্পনায় প্রবেশ করান।"[৩]

জন সি শেরউড তার প্রবন্ধ Gray Barker: My Friend, the Myth-Maker এ লেখেন, ১৯৬০ এর দশকের শেষের দিকে তার ১৮ বছর বয়সে, গ্রে বার্কার তাকে একটি গল্প তৈরি করতে প্ররোচিত করলে তিনি গ্রে বার্কারকে সাহায্য করেছিলেন। পরে সেই গল্পটিকে বার্কার তার বইতে প্রকাশিত করেছিলেন। সেখানে বার্কার "ব্ল্যাকমেন" এর কথা উল্লেখ করেন। গল্পটি অনুসারে এই ব্ল্যাকমেন হলেন তিনজন রহস্যজনক ইউএফও অধিবাসী যারা শেরউডের ছদ্মনামী পরিচয় "ডঃ রিচার্ড এইচ প্র্যাট" কে ইউএফও সম্পর্কে প্রকাশ করতে বিরত করেছিল।[৫]

টীকা[সম্পাদনা]

  1. Clark, Jerome (1996). The UFO Encyclopedia, volume 3: High Strangeness, UFO’s from 1960 through 1979. Omnigraphis. 317–18.
  2. James R. Lewis (৯ মার্চ ১৯৯৫)। The Gods Have Landed: New Religions from Other Worlds। SUNY Press। পৃষ্ঠা 218–। আইএসবিএন 978-0-7914-2330-1 
  3. Aaron John Gulyas (২৫ জানুয়ারি ২০১৬)। Conspiracy Theories: The Roots, Themes and Propagation of Paranoid Political and Cultural Narratives। McFarland। পৃষ্ঠা 86–। আইএসবিএন 978-1-4766-2349-8 
  4. Harris, Aisha। "Do UFO Hunters Still Report "Men in Black" Sightings?"Slate। Slate.com। সংগ্রহের তারিখ ৩ জুলাই ২০১৪ 
  5. Sherwood, John C."Gray Barker: My Friend, the Myth-Maker"Skeptical Inquirer। সংগ্রহের তারিখ ২০০৬-১০-১০ 

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

আরও পড়ুন[সম্পাদনা]