মেটেবুক প্রিনা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
মেটেবুক প্রিনা
Grey-breasted Prinia (Prinia hodgsonii) eyeing Lannea coromandelica fruit W IMG 7890.jpg
eyeing Lannea coromandelica fruit in Shamirpet, Rangareddy district, Andhra Pradesh, India.
বৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস
জগৎ: Animalia
পর্ব: কর্ডাটা
শ্রেণী: পক্ষী
বর্গ: Passeriformes
পরিবার: Cisticolidae
গণ: Prinia
প্রজাতি: P. hodgsonii
দ্বিপদী নাম
Prinia hodgsonii
Blyth, 1844

মেটেবুক প্রিনা (বৈজ্ঞানিক নাম: Prinia hodgsonii) ছোট আকৃতির পাখি।[২]

আকার[সম্পাদনা]

মেটেবুক প্রিনা ছোট আকৃতির তৃণচারী পাখি। গায়ের রং মেটে-বাদামি। প্রাপ্তবয়স্ক পাখির পিঠের দিকে জলপাই-বাদামি পালক থাকে। দেহের নিচের দিক সাদা, বুকের পাশ ধূসর, তলপেট পীতাভ বর্ণের। লেজ লম্বায় ৫ সেন্টিমিটার। দেহের দৈর্ঘ্য ১১ সেন্টিমিটার। ওজন ৬ গ্রাম। ছেলে ও মেয়ে পাখির চেহারা অভিন্ন। চোখ অনুজ্জ্বল, সামান্য বাদামি-কমলা, ঠোঁট কালো। অপ্রাপ্তবয়স্ক পাখির দেহতলে হলদে আভা থাকে। ডানা ও লেজের প্রান্তদেশ লালচে হয়।[২]

স্বভাব[সম্পাদনা]

মেটেবুক প্রিনা প্রধানত দল বেঁধে চলে ও বসবাস করে। এরা সাধারণত আবাদি জমির ধারে, বৃক্ষতলে, লতাগুল্মের ঝোপে, কাশবনের পরিষ্কার জায়গায় বিচরণ করে।[২]

খাদ্য[সম্পাদনা]

পিঁপড়া, শুঁয়ো পোকা, গুবরে পোকা ও ফুলের মধু আছে এদের খাবারের প্রধান তালিকায়।[২]

প্রজননকাল[সম্পাদনা]

প্রজনন মৌসুমে পালকের রং পরিবর্তন হয় এবং কাছাকাছি অনেক পাখি দেখা যায়। ঘাসবনে শুকনো ঘাস, পাতা ও নল দিয়ে মাটির কাছে মোচা আকৃতির বাসা বানায়। তিন-চারটি ডিম দেয়। ডিম ফোটে ১১ দিনে বা তারও বেশি সময়ে। মা ও বাবা পাখি উভয়ে মিলে সংসারে কাজ করে।[২]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. BirdLife International (২০১২)। "Prinia hodgsonii"বিপদগ্রস্ত প্রজাতির আইইউসিএন লাল তালিকা। সংস্করণ 2012.1প্রকৃতি সংরক্ষণের জন্য আন্তর্জাতিক ইউনিয়ন। সংগৃহীত ১৬ জুলাই ২০১২ 
  2. মেটেবুক প্রিনা,সৌরভ মাহমুদ, দৈনিক প্রথম আলো। ঢাকা থেকে প্রকাশের তারিখ: ২১-১২-২০১২ খ্রিস্টাব্দ।