মিশরতত্ত্ব

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
১৭৬৫ সালে জ্যঁ বাপ্তিস্ত ব্যুরগঁন দে’আনভিল অঙ্কিত প্রাচীন মিশরের মানচিত্র। মিশরীয় পুরাতত্ত্ব-সংক্রান্ত মানচিত্রাঙ্কণের ক্ষেত্রে এই মানচিত্র ছিল একটি গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ। এই মানচিত্রটির মাধ্যমেই পাঠকেরা প্রাচীন ও আধুনিক স্থানগুলি অতীতের থেকে আরও স্পষ্টভাবে বুঝতে সক্ষম হয়েছিলেন। ১৮০৯-২৯ দেসক্রিপসন দে লে’ইজিপ্তে-এ ব্যবহৃত প্রাথমিক মানচিত্র ছিল এটি।[১]

মিশরতত্ত্ব বা মিশরীয় পুরাতত্ত্ব (ইংরেজি: Egyptology; ইংরেজি Egyptগ্রিক -λογία, -logiaআরবি: علم المصريات‎‎) হল প্রাচীন মিশরের ইতিহাস, ভাষা, সাহিত্য, ধর্ম, স্থাপত্যশিল্পকলা-সংক্রান্ত গবেষণা ও তত্ত্বানুসন্ধান। খ্রিস্টপূর্ব ৫ম সহস্রাব্দ থেকে শুরু করে খ্রিস্টীয় ৪র্থ শতাব্দীতে মিশরের দেশজ প্রথা ও রীতিনীতিগুলির অবসান পর্যন্ত মিশরীয় সংস্কৃতির পর্যালোচনাই মিশরতত্ত্বের প্রধান আলোচ্য বিষয়। মিশরতত্ত্ব নিয়ে যাঁরা গবেষণা করেন তাঁদের বলা হয় "মিশরতত্ত্ববিদ"। ইউরোপে, মূলত মহাদেশীয় ইউরোপে প্রাথমিকভাবে মিশরতত্ত্বকে একটি ভাষাতাত্ত্বিক বিষয় মনে করা হয়। যদিও উত্তর আমেরিকায় মিশরতত্ত্বকে প্রায়শই পুরাতত্ত্বের একটি শাখা হিসেবে গণ্য করা হয়।

পাদটীকা ও তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Thompson 2015, পৃ. 85: “Ancient and modern Egypt became easier to conceptualize because of the prolific French cartographer Jean-Baptiste Bourguignon d’Anville (1697–1782). The greatest mapmaker of his age, Bourguignon d’Anville also had a special interest in ancient geography, one that he wrote would not permit me to neglect Egypt, this country so celebrated in antiquity." Instead of copying older maps and blindly replicating their errors and speculations as had long been the practice he sought reliable data and was content to leave spaces blank rather than fill them with conjectural features. He had no firsthand experience with Egypt, but he carefully pored over every available source modern ancient and Arab as he explained in his ‘’Memoires sur l’Egypte ancienne et moderne’’ (1766). Bourguignon d’Anville’s map of Egypt allowed readers to see the relationship of ancient and modern sites much more clearly than before. It continued in use well into the nineteenth century. Although the cartographers of Napoleon’s Egyptian expedition made a more accurate map, it was declared a state secret and Bourguignon d’Anville’s map was printed in its place in the great ‘’Description de l’Egypte.’’”

আরও পড়ুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]