মামলুক

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান

মামলুক (مملوك) দ্বারা রাজার “সম্পত্তি” বা “অধীন দাস” বোঝানো হয়।

আলেপ্পোর একজন মামলুক অভিজাত ব্যক্তি।
যুদ্ধসাজে একজন মিশরীয় মামলুক। বর্শা, ঢাল, তলোয়ার ও পিস্তল সজ্জিত।

আরো নির্দিষ্টভাবে, মামলুক দ্বারা বোঝায়,

মিশরের মামলুকরা সবচেয়ে দীর্ঘস্থায়ী মামলুক শাসন কায়েম করে। কিপচাক ও অন্যান্য অনেক তুর্কীয় জনগোষ্ঠী থেকে সংগৃহীত দাস সৈনিকদের মধ্য থেকে এই শাসন প্রতিষ্ঠিত হয়।[১] এই দাসরা ছিল সিরকাসিয়ান[২] ও জর্জিয়ান[৩][৪][৫] বংশোদ্ভূত। তবে বুরজি মামলুক সালতানাতে বলকান (আলবেনিয়ান, গ্রীক ,দক্ষিণ স্লাভিক) বংশোদ্ভূত অনেক মামলুক ছিল।

সময়ের সাথে সাথে মামলুকরা বিভিন্ন মুসলিম সমাজে শক্তিশালী হয়ে উঠে। মিশর ছাড়াও লেভান্ট, মেসোপটেমিয়াভারতে মামলুকরা রাজনৈতিক ও সামরিক শক্তি অর্জন করেছিল। কিছু ক্ষেত্রে সুলতানের পদ লাভ করে। অন্যান্য ক্ষেত্রে স্থানীয় আমির বা বে হিসেবে তারা দায়িত্ব পায়। মিশর ও সিরিয়ায় মামলুকরা সালতানাত প্রতিষ্ঠা করেছিল যা মামলুক সালতানাত (১২৫০-১৫১৭) বলে পরিচিত। আইন জালুতের যুদ্ধে মামলুক সালতানাত ইলখানাতের সেনাদের পরাজিত করে। ক্রুসেডারদের সাথে লড়াইয়ের মাধ্যমে ১২৯১ সালের মামলুকরা তাদেরকে সিরিয়া থেকে বিতাড়িত করে এবং ১৩০২ সালের মধ্যে ক্রুসেডের যুগ শেষ হয়।[৬]

ক্রয় করার পর মামলুকদের অবস্থান অন্যান্য দাসদের চেয়ে উপরে থাকত। অন্যান্য দাসদেরকে অস্ত্র বহন ও নির্দিষ্ট কিছু কাজ করার অনুমতি ছিল না। আইয়ুবীয় রাজবংশের সময় থেকে মুহাম্মদ আলি পাশার সময় পর্যন্ত মিশরে মামলুকদেরকে “প্রকৃত শাসক” হিসেবে বিবেচিত হত। স্বাধীন মুসলিমদের চেয়ে তাদের সামাজিক মর্যাদা উপরে ছিল।[৭]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Isichei, Elizabeth (১৯৯৭)। A History of African Societies to 1870। Cambridge University Press। পৃ: 192। সংগৃহীত ৮ নভেম্বর ২০০৮ 
  2. McGregor, Andrew James (২০০৬)। A Military History of Modern Egypt: From the Ottoman Conquest to the Ramadan WarGreenwood Publishing Group। পৃ: ১৫। আইএসবিএন 9780275986018। "By the late fourteenth century Circassians from the north Caucasus region had become the majority in the Mamluk ranks." 
  3. Relations of the Georgian Mamluks of Egypt with Their Homeland in the Last Decades of the Eighteenth Century. Daniel Crecelius and Gotcha Djaparidze. Journal of the Economic and Social History of the Orient, Vol. 45, No. 3 (2002), pp. 320—341. ISSN 0022-4995.
  4. গুগল বইয়ে Basra, the failed Gulf state: separatism and nationalism in southern Iraq, পৃ. 19, By Reidar Visser
  5. Hathaway, Jane (ফেব্রুয়ারি ১৯৯৫)। "The Military Household in Ottoman Egypt"। International Journal of Middle East Studies 27 (1): 39–52। ডিওআই:10.1017/s0020743800061572 
  6. Asbridge, Thomas। "The Crusades Episode 3"। BBC। সংগৃহীত ৫ ফেব্রুয়ারি ২০১২ 
  7. Behrens-Abouseif, Doris. Cairo of the Mamluks: A History of Architecture and Its Culture. New York: Macmillan, 2008.

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

  • Janet L. Abu-Lughod (১ ফেব্রুয়ারি ১৯৯১)। Before European hegemony: the world system A.D. 1250–1350। Oxford University Press US। আইএসবিএন 978-0-19-506774-3 
  • A. Allouche: Mamluk Economics: A Study and Translation of Al-Maqrizi's Ighathat. Salt Lake City, 1994
  • Reuven Amitai-Preiss (১৯৯৫)। Mongols and Mamluks: the Mamluk-Īlkhānid War, 1260–1281। Cambridge University Press। আইএসবিএন 978-0-521-46226-6। সংগৃহীত ২০ জুন ২০১১ 
  • Matthew Gordon, "The Breaking of a Thousand Swords: A History of the Turkish Military of Samarra (200-275 Ah/815-889 Ce)", SUNY Press, 2001.
  • Ulrich Haarmann: Das Herrschaftssystem der Mamluken, in: Halm / Haarmann (Hrsg.): Geschichte der arabischen Welt. C.H. Beck (2004), আইএসবিএন ৩-৪০৬-৪৭৪৮৬-১
  • E. de la Vaissière, Samarcande et Samarra. Elites d'Asie centrale dans l'empire Abbasside, Peeters, 2007 Peeters-leuven.be (ফরাসি)
  • James Waterson, "The Mamluks" (History Today March 2006)

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]