মহারাজা মনীন্দ্রচন্দ্র কলেজ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
মহারাজা মনীন্দ্রচন্দ্র কলেজ
ধরনস্নাতক কলেজ
স্থাপিত১৯৪১
অবস্থান, ,
শিক্ষাঙ্গননগর
অধিভুক্তিকলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়, ইউজিসি, এনএএসি
ওয়েবসাইটMaharaja Manindra Chandra College

মহারাজা মনীন্দ্রচন্দ্র কলেজ[১] হল ভারতের উত্তর কলকাতার একটি স্নাতক কলেজ, ২০ রামকান্ত বোস স্ট্রিট কলকাতা-৭০০০০৩ এই কলেজটি ১৯৪১ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। এটি কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে অনুমোদিত।[২] এই কলেজের একটি নতুন ভবন হয়েছে ১২ পদ্মনাথ লেন কলকাতা-৭০০০০৪ এর দ্বিতীয় কলেজ রয়েছে। কলেজের প্রাক্তন অধ্যক্ষ শ্রী বিশ্বনাথ মুখোপাধ্যায়ের কন্যা শ্রীমতি বন্দিতা মুখোপাধ্যায় দান করে ছিলেন।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

প্রখ্যাত শিক্ষা প্রবর্তক ডাঃ পঞ্চানন নেওগী (আই.ই.এস) কলেজটি ১৯৪১ সালের ১৫ জুলাই প্রতিষ্ঠিত করেছিলেন এবং বেশিরভাগটাই মহারাজা শ্রীশচন্দ্র নন্দীর কল্যাণে কলেজের গভর্নিং বডিকে প্রস্তাব করেছিলেন।[৩] ফলস্বরূপ কাশিমবাজারের মহামান্য পিতা মহারাজা মনীন্দ্র চন্দ্র নন্দীর স্মরণে এটির নামকরণ করা হয়েছিল মহারাজা মনীন্দ্র চন্দ্র কলেজ। এটি যথাসময়ে কলকাতায় একটি প্রধান কলেজের মর্যাদা অর্জন করেছিল।

বিভাগ এবং কোর্স[সম্পাদনা]

কলেজটি বি.এ., বি.এসসি. এবং বি.কম. কোর্স প্রদান করা হয়। এবং এর প্রধান লক্ষ্য ছিল কোলকাতা এবং এর আশেপাশের অঞ্চলের নিম্ন-মধ্যবিত্ত শ্রেণীর সকল স্নাতককে শিক্ষা প্রদান করা।

এই গতানুগতিক কোর্সগুলি ছাড়াও এই কলেজে কিছু উদীয়মান পেশা শংসাপত্র কোর্স যুক্ত করা হয়, যা বিশ্ববিদ্যালয় অনুদান কমিশন (ইউজিসি) স্পনসর করেন। এগুলি হল ফাংশনাল ইংলিশ, ট্যুরিজম অ্যান্ড ট্র্যাভেল ম্যানেজমেন্ট, সাংবাদিকতা (ভিডিও এডিটিং) এবং মাস কমউনিকেশান, ভিডিওগ্রাফি এবং ভিডিও এডিটিং, কম্পিউটারাইজড অফিস ম্যানেজমেন্ট, কম্পিউটারাইজড ফিনান্সিয়াল অ্যাকাউন্টিং, সি ++ এ ভাষা এবং বেসিক জাভা, ভিবি.নেট / লিনাক্স, ইন্টারনেট (ডিপ্লোমা কোর্স) প্রদান করা হয়।

কলেজ বিল্ডিং এর উপযোগি করে অন্য দুটি সুষম বিভাগ চালু আছে।

নেতাজি সুভাষ মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়এর পড়াশোনা কেন্দ্র (এনএসওইউ) তৈরি হয়েছে।

লাইব্রেরী[সম্পাদনা]

এই লাইব্রেরীটি সুন্দর প্রশস্ত পড়ার ঘর সহ ভাল বইয়ের সংগ্রহ আছে। লাইব্রেরীতে প্রায় ৬০,০০০ বইয়ের সংগ্রহ রয়েছে এবং ১১ ধরনের পত্রিকা রয়েছে। লাইব্রেরীর ডাটাবেস কম্পিউটারের মাধ্যমে রক্ষণাবেক্ষণ করা হয়। কলেজটি ব্রিটিশ কাউন্সিল লাইব্রেরী এবং আমেরিকান লাইব্রেরীর সাথে একটি প্রাতিষ্ঠানিক সদস্যতার ব্যবস্থা করেছে। প্রতিটি বিভাগ একটি সেমিনার লাইব্রেরী রক্ষণাবেক্ষণ করে, যা শিক্ষার্থীদের রেফারেন্স বই নেওয়ার জন্য অতিরিক্ত সুবিধা পাওয়া যায়।

ছাত্র জীবন[সম্পাদনা]

কলেজের পত্রিকা বছরে একবার প্রকাশিত হয় এবং শিক্ষার্থীরা একটি করে পত্রিকা পাওয়ার অধিকারী হয়। কলেজ কর্তৃপক্ষ সাময়িক দেওয়াল পত্রিকা প্রকাশ করে।

শিক্ষার্থীরা বার্ষিক আন্তঃ-শ্রেণী এবং আন্ত-কলেজ সাংস্কৃতিক এবং সাহিত্য প্রতিযোগিতায় অংশ নেয়। একটি সংবাদ বিবৃতির পদক্ষেপে নিয়মিত প্রকাশ এবং একটি পর্যায়বৃত্ত বৃদ্ধি নিয়ে কলেজ গর্বিত। এছাড়াও কলেজের শিক্ষার্থী ও কর্মীদের জন্য একাডেমিক ক্যালেন্ডার এবং ডায়েরি প্রকাশিত হয়। কলেজটি দরিদ্র ও মেধাবী শিক্ষার্থীদের জন্য বইয়ের ব্যবস্থা করা আছে।

কলেজের দ্বায়িত্বপাপ্ত কর্মীরা একটি বিনোদনমূলক ক্লাব পরিচালনা করেন যা অনেক বিনোদনমূলক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে থাকে। ছেলে এবং মেয়েদের জন্য আলাদা সাধারণ ঘর রয়েছে। শিক্ষার্থীরা সামাজিক এবং সম্প্রসারণমূলক ক্রিয়াকলাপে অংশ নিতে উত্সাহিত হয়।

ইউজিসি এমন সেবা গ্রহণের জন্য সহায়তা দিয়েছে। একটি জাতীয় পরিষেবা প্রকল্প দিয়েছে যা ইউজিসি দ্বারা স্বীকৃত। দুটি এনসিসি ইউনিট রয়েছে একটি মেয়েদের জন্য এবং অন্যটি ছেলে এবং মেয়ে উভয়দের জন্য।

কলেজের প্রাক্তন ছাত্র অ্যাসোসিয়েশন প্রাক্তনী হিসাবে পরিচিত যা কলেজের সাথে সম্পর্কিত একাডেমিক, প্রশাসনিক, সাহিত্যিক এবং সাংস্কৃতিক প্রোগ্রামগুলিতে স্বাধীনভাবে এবং সক্রিয়ভাবে অংশ নিয়েছে। সমস্ত প্রাক্তন শিক্ষার্থীরা অ্যাসোসিয়েশনে যোগ দেন যাতে তারা প্রতিষ্ঠানের সাথে সংযোগ রাখতে পারে।

রসায়ন বিভাগ কেন্দ্রীয় সরকার অনুমোদিত একটি এনজিও পরিচালনা করেন যা ভিশন নামে পরিচিত। ভিশন থেকে প্রতিবছর একটি বার্ষিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়, যেখানে কিছু মেধাবী শিক্ষার্থী তার প্রতিষ্ঠান নির্বিশেষে বিভাগের পক্ষ থেকে কলারশিপ দেওয়া হয়। প্রতি বছর তহবিল প্রতিষ্ঠার জন্য বিভিন্ন কলেজ থেকে কিছু অনুদান নেওয়া হয় যা থেকে দফতরের শিক্ষার্থীরা এবং অধ্যাপকরা দরিদ্র শিশুদের জন্য কিছু প্রয়োজনীয় অনুদান দান করেন।

কলেজের এনএসএস ইউনিটটি সক্রিয়। প্রতিবছর এনএসএস ইউনিটের সদস্যরা কলকাতার অনাথ শিশুদের নিয়ে ১২/১ বলরাম ঘোষ স্ট্রিট, শ্যামবাজারে একটি তিন দিনের কর্মশালার আয়োজন করা হয় যার মধ্যে একটি সিট অ্যান্ড ড্র প্রতিযোগিতা, অনাথ শিশুদের মধ্যাহ্নভোজন এবং একটি সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান করা হয়৷

স্বীকৃতি[সম্পাদনা]

মহারাজা মনীন্দ্রচন্দ্র কলেজ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি) দ্বারা স্বীকৃত।[১] ২০১২ সালে এটি জাতীয় মূল্যায়ন ও স্বীকৃতি কাউন্সিল (এনএএসি) দ্বারা পুনরায় স্বীকৃত এবং বি গ্রেড প্রদান করেছিল।[৪]

প্রাক্তন ছাত্র[সম্পাদনা]

  1. মনু মুখোপাধ্যায়, অভিনেতা
  2. চয়ন মুখার্জী, পুলিশকর্মী পরিণত হয়েছেন লেখক
  3. চিন্ময় রায়, অভিনেতা (টালিউডের অন্যতম সেরা কৌতুক অভিনেতা)
  4. নচিকেতা চক্রবর্তী, বাঙালি গায়ক-গীতিকার ও সুরকার
  5. সম্রাট চ্যাটার্জী, অনুষদ, অনুবাদক স্বাস্থ্য বিজ্ঞান এবং প্রযুক্তি ইনস্টিটিউট
  6. রাজীব দত্ত, অনুষদ, ভারতীয় বিজ্ঞান শিক্ষা এবং গবেষণা ইনস্টিটিউট, কলকাতা
  7. পিনাকপানি পাল, ভারতীয় স্ট্যাটিস্টিকাল ইনস্টিটিউট

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Colleges in West Bengal, University Grants Commission"। ১৬ নভেম্বর ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ নভেম্বর ২০১৯ 
  2. "Affiliated College of University of Calcutta"। ২০১২-০২-১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  3. "College History"Maharaja Manindra Chandra College - Official। ২৩ জানুয়ারি ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২২ জানুয়ারি ২০১৯ 
  4. "Institutions Accredited / Re-accredited by NAAC with validity" (PDF)National Assessment and Accreditation Council। ১২ মে ২০১২ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১২ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]