ভ্যালেন্তিনা গ্রিজোদুবোভা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ভ্যালেন্তিনা গ্রিজোদুবোভা
জন্ম১০ মে, ১৯০৯
খারকিভ, খারকোভ গভার্নোরেট, রুশ সাম্রাজ্য
মৃত্যু২৮ এপ্রিল ১৯৯৩(1993-04-28) (বয়স ৮৩)
মস্কো, রাশিয়া
আনুগত্যসোভিয়েত ইউনিয়ন সোভিয়েত ইউনিয়ন
সার্ভিস/শাখাRed star.svg সোভিয়েত বিমানবাহিনী
পদমর্যাদাপলকোভনিক Red Air Force Polkovnik-1940 & Podpolkovnik-1943h.png RA AF F5-Polkovnik 1943h.png
নেতৃত্বসমূহ১০১তম লং-রেঞ্জ এভিয়েশন রেজিম্যান্ট
পুরস্কারHero of the Soviet Union Order of Lenin (২)

ভ্যালেন্তিনা স্তেপানোভনা গ্রিজোদুবোভা (রুশ: Валентина Степановна Гризодубова; ইউক্রেনীয়: Валентина Степанівна Гризодубова; জন্ম: ১০ মে, ১৯০৯ - মৃত্যু: ২৮ এপ্রিল, ১৯৯৩) খারকোভে জন্মগ্রহণকারী তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়নের প্রমিলা বিমান চালক ছিলেন। সোভিয়েত ইউনিয়নের শুরুর দিককার অন্যতম বিমান চালনাকারী হিসেবে স্মরণীয় হয়ে রয়েছেন ভ্যালেন্তিনা গ্রিজোদুবোভা। এছাড়াও, তিনি সোভিয়েত ইউনিয়নের হিরো পুরস্কারে ভূষিত হন ও সোশ্যালিস্ট লেবার হিরো খেতাব লাভ করেন।

শৈশবকাল[সম্পাদনা]

রুশ সাম্রাজ্যভূক্ত খারকোভ গভর্নরেটের (বর্তমানে - ইউক্রেন) অধীনে খারকিভে জন্মগ্রহণ করেন তিনি। বিমান-নকশাকারীদের পথিকৃৎ স্তেপান ভাসিল’ইয়েভিচ গ্রিজোদুবোভের কন্যা ছিলেন তিনি। চৌদ্দ বছর বয়সে তিনি একাকী ইঞ্জিনবিহীন বিমান চালনা করেছিলেন। পিয়ানো বাজাতে পারতেন তিনি। সঙ্গীতে স্নাতক ডিগ্রী লাভের পাশাপাশি খারকোভ টেকনিক্যাল ইনস্টিটিউটে অধ্যয়ন করেন। তিনি বেশকিছু বিদেশী ভাষায় কথা বলতে পারতেন। ১৯২৯ সালে অসোয়াভিয়াখিম নামীয় সামরিকবাহিনীর অনুরূপ সংস্থা পেঞ্জা ফ্লাইং ক্লাবে স্নাতক ডিগ্রী লাভ করেন। এছাড়াও খারকোভ ফ্লাইং স্কুল থেকে প্রশিক্ষণ নিয়েছেন।

১৯৩৩ সালে তিনি তুলা অ্যাডভান্সড ফ্লাইং স্কুল থেকে স্নাতক ডিগ্রি লাভ করেন। সেখানে তিনি ফ্লাইট প্রশিক্ষক হন এবং ৮৬জন পুরুষ পাইলটকে প্রশিক্ষণ দেন। তাদের অনেকেই সোভিয়েত ইউনিয়নের বীর হন। ১৯৩৪ থেকে ১৯৩৮ সময়কালে মাক্সিম গোর্কির নাম অনুসরণে একটি "প্রোপাগান্ডা" স্কোয়াড্রনে যোগ দেন।[১]

বিমান চালনা[সম্পাদনা]

তিনি অনেক ধরনের বিমান চালনা করেন এবং সাতটি বিশ্বরেকর্ড স্থাপন করেন।[২] তন্মধ্যে, দুই আসনবিশিষ্ট সীপ্লেনে মহিলা পাইলট হিসেবে সর্বোচ্চ উচ্চতায় পৌঁছেন। ১৫ অক্টোবর, ১৯৩৭ তারিখে ৩,২৬৭ মিটার বা ১০৭১৮.৫ ফুট উচ্চতায় পৌঁছেন যা এফএআই রেকর্ড ফাইল নম্বর ১২১.১৬ উল্লেখ রয়েছে। তিনটি গতির রেকর্ড ও মস্কো এবং কাজাখস্তানের আকতুবিনস্কের মধ্যে দীর্ঘ দূরত্বের বিমান পরিচালনায় মারিনা রাস্কোভাকে নিয়ে রেকর্ড স্থাপন করেন।[৩]

২৪-২৫ সেপ্টেম্বর, ১৯৩৮ তারিখে কমান্ডার হিসেবে মারিনা রাস্কোভা ও পলিনা অসিপেঙ্কোকে সাথে নিয়ে ৫,৯০৮.৬১ কিলোমিটার দূরত্ব অতিক্রম করেন। অ্যান্টোনভ এএনটি-৩৭ রোদিনা পরিচালনা করেন। বিরতীহীন বিমান চালনা করে আন্তর্জাতিক মহিলা রেকর্ড স্থাপন করেন যা এফএআই রেকর্ড ফাইল নম্বর ১০৪৪৪-এ উল্লেখ রয়েছে।[৩] ঐতিহাসিক বিমান চালনার পূর্বেই ৫,০০০ ঘন্টা অবস্থানের রেকর্ড গড়েন। দুই ক্রু সদস্যসহ অন্যতম প্রথম মহিলা হিসেবে ২ নভেম্বর, ১৯৩৮ তারিখে সোভিয়েত ইউনিয়নের বীর পদবীতে ভূষিত হন। এরফলে ২৫,০০০ রুবল লাভ করেন তিনি।[৩]

জার্মান-সোভিয়েত যুদ্ধ[সম্পাদনা]

মার্চ, ১৯৪২ সালে জার্মান-সোভিয়েত যুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন তিনি। মে, ১৯৪২ সালে গঠিত ১০১তম লং-রেঞ্জ এয়ার রেজমেন্টের কমান্ডিং অফিসার মনোনীত হন। এতে পাইলট, নৌযানকারী, প্রকৌশলী ও ভূমিতে অবস্থানকারী কর্মকর্তাসহ তিন শতাধিক ব্যক্তির অবস্থান ছিল।[৪] লিসুনভ লি-২, ডগলাস ডিসি-৩ নির্মিত পরিবহনকারী বিমান ও সিভিল এয়ার ফ্লিটের পাইলটদের নিয়ে তার ইউনিটটি সাজানো হয়েছিল।[৪]

গ্রিজোদুবোভার লি-২-এ ছয়জন ক্রু আরোহী ছিল। পাইলট, সহ-পাইলট, নেভিগ্যাটর, ফ্লাইট-টেকনিশিয়ান, রেডিও অপারেটর ও এয়ার গানার। মূলতঃ শত্রু ঘাঁটিতে বোমা নিক্ষেপ করাই এ ইউনিটের কাজ ছিল। জুন, ১৯৪২ সালে লেনিনগ্রাদের অবরুদ্ধদের সহায়তা করেন। পরবর্তীতে, ১০১তম লং-রেঞ্জ বোম্বার এয়ার রেজিমেন্টকে ব্রায়ানস্ক ও দক্ষিণ-পশ্চিম ফ্রন্টকে ছত্রভঙ্গ করে দেয়া ওয়েরমাখট ইউনিটে বোমা ফেলার নির্দেশ দেয়া হয় ও ভরোনেঝকে অনুসরণ করতে বলা হয়। গ্রিজোদুবোভা প্রত্যেক রাত্রেই তার রেজিমেন্টকে নেতৃত্ব দিতেন, শক্ত প্রতিরক্ষাব্যুহ ভেদ করে অগ্রসর হতেন ও কুরস্ক, ওরেলএল'গভে নিশাচর লুফতাফে বিমানগুলোকে গুড়িয়ে দিতেন।[৫]

সেপ্টেম্বর, ১৯৪২ সালে পার্তিসান আন্দোলনের অংশ হিসেবে কেন্দ্রীয় সদর দফতরে ১০১তম লং-রেঞ্জ এয়ার রেজিমেন্টকে হস্তান্তর করা হয়। এ ইউনিটটি ১,৮৫০-এর অধিক আক্রমণ পরিচালনা করে, ১,৫০০ টন অস্ত্র ফেলে ও শতশত রেডিও নিয়ন্ত্রিত সরঞ্জাম ফেলে, মুদ্রিত মাধ্যম, চলচ্চিত্র ক্যামেরা ও পড়ার বিষয় সরবরাহ করে। ২,৫০০ আহত পার্তিসান ও গৃহহীন অনাথদেরকে উদ্ধার করে।[৬] তবে, দূর্বলমানের আকাশযান পরিচালনা ও শত্রুবিমানের কাছ থেকে লি-২ ও তাদের ক্রু ক্রমাগত হুমকির মুখোমুখি হচ্ছিল। গ্রিজোদুবোভা'র উদ্যোগে মার্চ, ১৯৪৩ সালে দাইপারের ডানদিকের তীরে উন্নত বিমানচালনা নির্মাণকেন্দ্র স্থাপন করা হয়। সেখানে দিবালোকে এক ডজন বিমান অবতরণে সক্ষম হয়।[৭] ২৭ মে, ১৯৪৪ তারিখে লেনিনগ্রাদ অবমুক্তকরণে অংশ নেয়ায় তার রেজিমেন্টকে সম্মানসূচক ক্রাসনোসেলস্কি পুরস্কারে ভূষিত করা হয়। এ সময়ে তাকে মস্কোয় ফিরিয়ে আনা হয়। জুন, ১৯৪৪ সালে তিনি প্রায় ২০০ আক্রমণ পরিচালনা করেন। দুই মাস পর ৩০ আগস্ট এ রেজিমেন্টকে রেড ব্যানার আদেশনামা পুরস্কার প্রদান করা হয় ও পরবর্তীতে সম্মানসূচক গার্ডস দেয়া হয়।[৭]

যুদ্ধ পরবর্তী সময়কাল[সম্পাদনা]

১৯৪০-এর দশকে জার্মান-ফ্যাসিস্ট আগ্রাসনকারী ও তাদের মিত্রদের দ্বারা পরিচালিত অপরাধের তদন্তকার্যে একমাত্র মহিলা সদস্য ছিলেন তিনি।[৮] সোভিয়েত ইউনিয়নে নাজী যুদ্ধ অপরাধের তদন্তকার্য পরিচালনা ও রাষ্ট্রীয় ক্ষয়-ক্ষতি নিরূপণে তাকে মনোনীত করা হয়।[৯] এছাড়াও, প্রশিক্ষিত পাইলট হিসেবে ভবিষ্যতের মহাকাশচারী সভেৎলনা সভিতস্কায়াকে সহায়তা করেন তিনি।[১০]

পুরস্কার[সম্পাদনা]

২০১০ সালে রুশ ডাকটিকিটে গ্রিজোদুবোভা

২০১০ সালে রুশ ডাকটিকিটে তার প্রতিকৃতি অবমুক্ত করা হয়। গ্রিজোদুবোভা পেঞ্জার সম্মানীয় নাগরিক মনোনীত হন। মস্কোয় তার স্মরণে একটি স্মৃতিস্তম্ভ স্থাপন করা হয়েছে। ২ নভেম্বর, ১৯৩৮ তারিখে সোভিয়েত ইউনিয়নের বীর পুরস্কারে ভূষিত হন। ৬ জানুয়ারি, ১৯৮৬ তারিখে সোশ্যালিস্ট লেবার বীর হন। এছাড়াও, লেনিন টু অর্ডার, অক্টোবর বিপ্লব আদেশনামা, মহান দেশপ্রেমের যুদ্ধ, প্রথম শ্রেণী আদেশনামা, লেবার রেড ব্যানার আদেশনামা, রেড স্টার আদেশনামাসহ বিভিন্ন পদকে ভূষিত হন।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Milanetti, Gian Piero (এপ্রিল ২০১১)। Le streghe della notte (Italian ভাষায়) (first সংস্করণ)। Rome: Istituto Bibliografico Napoleone। পৃষ্ঠা 117–120। আইএসবিএন 88-7565-100-0 
  2. Cottam 1998-Selected Biographies, p. 4.
  3. Milanetti, page 117.
  4. Cottam 1998-Selected Biographies, p. 5.
  5. Cottam 1998-Selected Biographies, p. 6.
  6. Cottam 1998-Selected Biographies, p. 7.
  7. Cottam 1998-Selected Biographies, p. 8.
  8. Lawrence Raful (২০০৬)। The Nuremberg Trials: International Criminal Law Since 1945। Walter de Gruyter। পৃষ্ঠা 47। আইএসবিএন 3110944847 – Google Books-এর মাধ্যমে। 
  9. Kolasa, Ingo. 1996. “Where Have all the Volumes Gone? A Contribution to the Discussion of `captured government property’ and ‘trophy commissions.” College & Research Libraries. 11. Volume 57, Issue 6, Page 503. Die Deutsche Bibliothek in Frankfurt, Germany: PDF file, direct download from the Wayback Machine.
  10. Pennington, Reina; Higham, Robin (২০০৩)। Amazons to fighter pilots : a biographical dictionary of military women / Vol. 1, A-Q.। Westport, CT: Greenwood Press। পৃষ্ঠা 187। ওসিএলসি 773504359 

গ্রন্থপঞ্জী[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]