ভরত খবাস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ভরত খবাস
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নাম ভরত খবাস
জন্ম (1992-04-16) ১৬ এপ্রিল ১৯৯২ (বয়স ২৭)
জন্ম স্থান কাঠমান্ডু, নেপাল
মাঠে অবস্থান স্ট্রাইকার
ক্লাবের তথ্য
বর্তমান ক্লাব ত্রিভুবন আর্মি ক্লাব (টি.এ.সি)
জার্সি নম্বর ১০
যুব পর্যায়ের খেলোয়াড়ী জীবন
২০০৬-২০০৭ সংকতা বয়েজ
জ্যেষ্ঠ পর্যায়ের খেলোয়াড়ী জীবন*
বছর দল উপস্থিতি (গোল)
২০০৭-২০১১ ফ্রেন্ডস ক্লাব
২০১১-২০১২ নেপাল পুলিশ ক্লাব
২০১২- ত্রিভুবন আর্মি ক্লাব
জাতীয় দল
২০০৮- নেপাল ৪১ (৯)
  • পেশাদারী ক্লাবের উপস্থিতি ও গোলসংখ্যা শুধুমাত্র ঘরোয়া লিগের জন্য গণনা করা হয়েছে।
† উপস্থিতি(গোল সংখ্যা)।

ভরত খবাস (নেপালি: भरत खवास) (জন্ম ১৬ এপ্রিল ১৯৯২[১]) নেপাল এর একজন ফুটবল খেলোয়াড়। তার জন্মস্থান নেপাল এর রাজধানী কাঠমান্ডু। ফুটবল খেলায় তিনি একজন আক্রমণভাগের খেলোয়াড়। তিনি বর্তমানে নেপালের ঘরোয়া লীগের ক্লাব ত্রিভুবন আর্মি ক্লাব এর হয়ে খেলেন। এছাড়াও তিনি নেপাল জাতীয় ফুটবল দলের নিয়মিত খেলোয়াড় এবং তিনি ২০১৪ ফিফা বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে নেপাল দলের হয়ে অংশগ্রহণ করেছেন।

ক্লাব ক্যারিয়ার[সম্পাদনা]

ভরত খবাস আনফা একাডেমি এর একজন ছাত্র ছিলেন। তিনি নেপালের বিভিন্ন বয়সভিত্তিক দলের হয়ে নেপালের প্রতিনিধিত্ব করেছেন, এবং এর সাথে সাথে জাতীয় দলের হয়েও খেলেছেন।

২০০৬ সালে আনফা একাডেমি থেকে বের হয়ে যুব পর্যায়ে ভরত সংকতা বয়েজ স্পোর্টস ক্লাব দলে যোগ দেন। সেই দলে তিনি একবছর খেলে ২০০৭ সালে তিনি সিনিয়র পর্যায়ে নেপালের ঘরোয়া লীগের আরেক দল ফ্রেন্ডস ক্লাব দলে যোগ দেন। দলটির হয়ে তিনি ৪ বছর নেপালের ঘরোয়া লীগে এবং আন্তর্জাতিক ক্লাব পর্যায়ের ফুটবলে অংশগ্রহণ করেন। এরপর ২০১১ সালে তিনি নেপাল পুলিশ ক্লাব দলে যোগ দেন। পুলিশ ক্লাব দলের হয়ে এক মৌসুম খেলার পর, ২০১২ সালে নেপালের ত্রিভুবন আর্মি ক্লাব দল তাকে নেপাল সেনাবাহিনীতে দ্বিতীয় লেফটেন্যান্ট এর পদ দেয়ার প্রস্তাব দেয়। ভরত এই প্রস্তাব গ্রহণ করেন এবং ত্রিভুবন আর্মি ক্লাব দলে যোগ দেন।[২] তিনি বর্তমানে সেই দলের হয়েই খেলেন।

২০১২ সালে, নেপালের হয়ে ২০১২ এএফসি চ্যালেঞ্জ কাপ খেলার লক্ষ্যে তিনি একটি ইউরোপীয় ক্লাবের দেয়া প্রস্তাব ফিরিয়ে দেন। পরবর্তীতে জানা যায় দলটি ছিল মাল্টা প্রিমিয়ার লীগ এর দল ভ্যালেট্টা এফসি। দলটি তাকে বেতন হিসেবে প্রতি মাসে ১৫০,০০০ নেপালি রুপি দেয়ার প্রস্তাব দিয়েছিল।[৩]

২০১৪ সালের ৭ জুন, ২০১৪ বীর গনেশ মান সিং গোল্ড কাপ টুর্নামেন্টের ফাইনাল ম্যাচে, ভরত তার পুরনো দল, নেপাল পুলিশ ক্লাব এর বিপক্ষে শেষ মিনিটে গোল করেন। ম্যাচটিতে ভরতের দল, নেপাল আর্মি ক্লাব ৩-১ ব্যবধানে জিতে শিরোপা লাভ করে। টুর্নামেন্টে শিরোপা লাভের জন্য নেপাল আর্মি ক্লাব দল অর্থ পুরষ্কার হিসেবে ৫০০,০০০ নেপালি রুপি পায়।[৪][৫][৬] ম্যাচের পর ভরত নেপাল সেনাবাহিনী কে ধন্যবাদ জানান। কারণ, টুর্নামেন্টে খেলার সুবিধার্থে, নেপাল সেনাবাহিনী টুর্নামেন্ট চলাকালীন সময়ে ভরতের ক্যাডেট কোর্স মৌকুফ করে।[৭]

আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ার[সম্পাদনা]

২০০৮ সালে নেপাল জাতীয় ফুটবল দল এর হয়ে আন্তর্জাতিক ফুটবলে ভরতের অভিষেক হয়। তিনি নেপালের হয়ে কয়েকটি সাফ টুর্নামেন্টসহ বহু আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণ করেন। নেপাল জাতীয় দলের হয়ে, তিনি এখন পর্যন্ত ৪১ ম্যাচ খেলে ৯ গোল করেছেন। জাতীয় দলে তার জার্সির নম্বর ২১।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Goal.com ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২৮ এপ্রিল ২০১৯ তারিখে profile
  2. Army Signs Khawash
  3. http://givemegoal.com/np/2013/08/17/bharat-khawas-rejected-european-football-for-national-duty/
  4. "Nepal Army Wins The Title Of Bir Ganesh Man Singh Gold Cup"গোল নেপাল। ৭ জুন ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ৭ জুন ২০১৪ 
  5. "Nepal Army Club vs Nepal Police Club Live Text"গোল নেপাল। ৭ জুন ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ৭ জুন ২০১৪ 
  6. দীপেন্দ্র (৭ জুন ২০১৪)। "Biratnagar – Nepal Army Claim Ganesh Man Singh Memorial Title"গিভমিগোল। সংগ্রহের তারিখ ৭ জুন ২০১৪ 
  7. "Bharat Khawas Thanks Nepal Army Department For Allowing Him To Play During Cadet Course"গোল নেপাল। ৮ জুন ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ৯ জুন ২০১৪ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]