বুরহানউদ্দিন রব্বানী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
বুরহানউদ্দিন রব্বানী
চিত্র:Brnw.jpg
আফগানিস্তানের প্রেসিডেন্ট
কার্যালয়ে
১৩ নভেম্বর, ২০০১ – ২২ ডিসেম্বর, ২০০১
প্রধানমন্ত্রী রবন এ. জি. ফারহাদী
পূর্বসূরী মোহাম্মদ ওমর
উত্তরসূরী হামিদ কারজাই
কার্যালয়ে
২৮ জুন, ১৯৯২ – ২৭ সেপ্টেম্বর, ১৯৯৬
প্রধানমন্ত্রী আব্দুল সবুর ফরিদ কোহিস্তানী
গুলবুদ্দীন হেকমতিয়ার
আরসালা রাহমানী
আহমদ শাহ আহমাদজাই
পূর্বসূরী সিবঘাতুল্লাহ মোজাদ্দেদী
উত্তরসূরী মোহাম্মদ উমর
President of the Northern Alliance
কার্যালয়ে
২৭ সেপ্টেম্বর, ১৯৯৬ – ১৩ নভেম্বর, ২০০১
প্রধানমন্ত্রী গুলবুদ্দীন হেকমাতিয়ার
আব্দুল রহিম গফুরজাঈ
রবন এ. জি. ফারহাদী
পূর্বসূরী Position established
উত্তরসূরী Position abolished
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্ম ১৯৪০
বাদাখসান প্রদেশ, আফগানিস্তান রাজতন্ত্র
মৃত্যু ২০ সেপ্টেম্বর ২০১১ (বয়স ৭০–৭১)
কাবুল, আফগানিস্তান
রাজনৈতিক দল জামিয়াত-ই ইসলামী
অধ্যয়নকৃত শিক্ষা
প্রতিষ্ঠান
কাবুল বিশ্ববিদ্যালয়
আল-আজহার বিশ্ববিদ্যালয়
ধর্ম সুন্নী, ইসলাম

বুরহানউদ্দিন রব্বানী (ফার্সি: برهان الدين رباني (জন্মঃ ১৯৪০ - মৃত্যুঃ ২০ সেপ্টেম্বর, ২০১১) আফগানিস্তানের প্রেসিডেন্ট। তিনি ১৯৯২ থেকে ১৯৯৬ সাল পর্যন্ত ১ম মেয়াদে এবং ২০০১ সালে ২য় মেয়াদে আফগান রাষ্ট্রপ্রধান ছিলেন।[১]

শৈশবের বছরগুলোয়[সম্পাদনা]

১৯৪০ সালে আফগানিস্তানের উত্তরাঞ্চলীয় প্রদেশ বাদাখশানে রব্বানী জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতার নাম মুহাম্মদ ইউসুফ। তিনি একজন তাজিক জনগোষ্ঠীর অধিবাসী ছিলেন।

হত্যাকাণ্ড[সম্পাদনা]

২০ সেপ্টেম্বর, ২০০১ সালে বুরহানউদ্দিন রব্বানী নিহত হন। একদল তালিবান প্রতিনিধির সাথে নিজ বাড়ীতে আলাপ-আলোচনার সময় আত্মঘাতী বোমা হামলায় তিনি মারা যান। দু'জন তালিবান তাঁর সাথে হাত মেলানোর সময় এ নির্মম ঘটনাটি ঘটে। তাঁদের মধ্য থেকে কমপক্ষে একজন পাগড়ীতে লুক্কায়িত বোমা বিস্ফোরণ ঘটানোর মাধ্যমে তাঁকে হত্যা করে। [২][৩]

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা এবং ন্যাটো নেতৃবৃন্দ বুরহানউদ্দিন রব্বানী'র হত্যকাণ্ডে শোক প্রকাশ ও নিন্দাজ্ঞাপন করেন।[৪]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Rabbani's Afghan comeback"BBC News। ২০০১-১১-১৪। সংগৃহীত ২০০৯-০৯-১০ 
  2. "Former Afghan president assassinated"Aljazeera English। ২০১১-০৯-২০। সংগৃহীত ২০১১-০৯-২০ 
  3. "Turban bomb kills key Afgan political leader"CNN। ২০১১-০৯-২০। সংগৃহীত ২০১১-০৯-২১ 
  4. http://www.defense.gov//News/NewsArticle.aspx?ID=65391

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]