বীণাই ধনাম্মাল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
বীণাই ধনাম্মাল
Veena Dhanammal 1.jpg
১৯৩০-এ বীণাই ধনাম্মাল
প্রাথমিক তথ্য
জন্ম১৮৬৭
জর্জটাউন, চেন্নাই
মৃত্যু১৯৩৮
ধরনভারতীয় শাস্ত্রীয় সঙ্গীত
পেশাবীণা বাদক
বাদ্যযন্ত্রসমূহবীণা
কার্যকাল১৮৮০–১৯৩৮

বীণাই ধনম্মাল (তামিল: வீணை தனம்மாள்: ) (১৮৬৭–১৯৩৮) ছিলেন একজন অত্যন্ত দক্ষ কর্ণাটকী সঙ্গীতজ্ঞ। তিনি সরস্বতী বীণার একজন বীণাবাদক এবং কর্ণাটকী শাস্ত্রীয় সঙ্গীতের একজন কন্ঠ শিল্পী ছিলেন। তাঁর নামের উপসর্গ "বীনাই" সরস্বতী বীণা যন্ত্রটিতে তার ব্যতিক্রমী দক্ষতার পরিচায়ক।

১৯১০ নাগাদ বীণাই ধনাম্মাল, তার কন্যা লক্ষ্মীরত্নম এবং দৌহিত্রর সাথে

প্রাথমিক জীবন এবং পটভূমি[সম্পাদনা]

ধনাম্মালের পূর্বপুরুষরা ছিলেন ঐতিহ্যবাহী তাঞ্জাভুর মন্দিরের শিল্পী যারা পরবর্তীকালে "দেবদাসী" নামে পরিচিতি লাভ করে। পরিবারটি পরবর্তীকালে মাদ্রাজে (বর্তমানে চেন্নাই) স্থিত হন।

ধনাম্মালের জন্ম মাদ্রাজের (বর্তমানে চেন্নাই) জর্জ টাউনে পেশাদার সঙ্গীতশিল্পী ও নৃত্যশিল্পীদের পরিবারে। তাঁর ঠাকুমা কামাক্ষী ছিলেন এক নামী নৃত্যশিল্পী, এবং তাঁর মা ছিলেন একজন কণ্ঠশিল্পী যিনি কর্ণাটকী সঙ্গীত রচয়িতা ত্রয়ীর শ্যামা শাস্ত্রীর পুত্র সুব্বারায়া শাস্ত্রীর অধীনে প্রশিক্ষণ নিয়েছিলেন।

তাঁর পরিবারের সদস্যদের প্রশিক্ষণের পাশাপাশি, ধনম্মাল ওয়ালাজাপেত বালাকৃষ্ণ দাস ("পদম বালাদাস") নামে একজন অন্ধ সঙ্গীতশিল্পী যিনি ক্ষেত্রয়ের পদমের ভাণ্ডার ছিলেন এবং সতানুর পঞ্চনাথ আইয়ারের কাছ থেকেও প্রশিক্ষণ নিয়েছিলেন।

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

ধনাম্মল সাধারণত খুব সীমিত সংখ্যক শ্রোতাদের মাঝেই অনুষ্ঠান করতে পছন্দ করতেন। তিনি মাঝে মাঝে তার বোন রূপবতীর সাথেও অনুষ্ঠান করতেন। তাঁর চার কন্যা ছিল, যারা জুটি হিসাবে "ধনম সিস্টার্স" হিসাবে অনুষ্ঠান করতেন। সুতরাং কর্ণাটকী সঙ্গীতের দ্বৈত গায়কের জনপ্রিয়তার ধারণাটি ধনাম্মল পরিবারকে দেওয়া যেতে পারে। প্রয়াত তেলুগু লেখক অরুদ্রর মতানুযায়ী তেলেগু কবি গুরাজদা আপা রাও ধনাম্মলের সঙ্গীত শোনার পরে তাঁর আধ্যাত্মিক নাটক কন্যাসুলকামের দ্বিতীয় সংস্করণে মাদুরাবনীর চরিত্রটি প্রবর্তন করেছিলেন।

স্বয়ংসম্পূর্ণ এবং নিখুঁত একটি যন্ত্র বীণা; ধনাম্মাল বীণার সাথে সাথে প্লেট্রাম দ্বারা সঙ্গতও করতেনএবং প্রায়শই বীণার সাথে নিজের গলায় গানও গাইতেন। তার সঙ্গীত কিছু ঐতিহাসিক রেকর্ডিংয়ের একটি সেটে নথিভুক্ত করা হয়েছে। তাঁর ব্যক্তিগত রীতি, যা বীণাই ধনম্মাল বানী নামে পরিচিত- এখনও বীণা শিক্ষার্থীদের কাছে সঙ্গীত প্রকাশের গভীরতার দিক দিয়ে দিগণির্দেশক হিসাবে বিবেচিত। সঙ্গীতজ্ঞ, সমালোচক এবং সুরকাররা চেন্নাইয়ের তাঁর ব্যক্তিগত অনুষ্ঠানে অংশ নিয়েছিলেন। তার অবিচ্ছিন্ন প্রভাব তার খণ্ডন, জ্ঞান এবং পরিমার্জনার সুযোগ হিসাবে চিহ্নিত করা হয়। নরসিমাহাকারল্লু, মুলিয়ালপেট পোনুস্বামী, তিরোবত্রিয়ার ত্যাগগিয়র, এবং বিশেষত ধর্মপুরী সুব্বারায়ারের মতো শীর্ষস্থানীয় সুরকারদের অনেকগুলি গান ধনাম্মলের জন্য রচিত বা অনুপ্রাণিত হয়েছিল। এই রচনাগুলি মূলত জাওয়ালি এবং পদম সংরক্ষণ করেছেন, শিখিয়েছেন এবং প্রকাশ করেছেন তাঁর নাতি-নাতনিরা, টি শঙ্করন, নৃত্যশিল্পী টি। বালাসরস্বতী, টি। মুক্তা, টি। বৃন্দা এবং টি বিশ্বনাথন[১]

১৯৩৮ সালের ১৫ই অক্টোবর ধনাম্মন শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।তার উপর একটি স্মারক ডাকটিকিট ২০১০-য়ের ৩রা ডিসেম্বর জারি করা হয়েছিল.[২]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Pesch, Ludwig. The Illustrated Guide to South Indian Classical Music, New Delhi: Oxford University Press, 1999, p. 264.
  2. "Stamps – 2010"। Department of Posts, Government of India। ১৪ আগস্ট ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ আগস্ট ২০১৩