বিশ্ব বেতার দিবস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
বিশ্ব বেতার দিবসের শব্দ-প্রতীক, ২০১৮

বিশ্ব বেতার দিবস (ইংরেজিতে World Radio Day ওয়ার্ল্ড রেডিও ডে; ফরাসিতে Le jour mondial de la radio ল্য জুর মোঁদিয়াল দ্য লা রাদিও) একটি আন্তর্জাতিক দিবস যা প্রতি বছর ১৩ ফেব্রুয়ারি পালন করা হয়। এই দিবসের লক্ষ্য জনসাধারণের মাঝে ও সংবাদমাধ্যমে বেতারের গুরুত্ব সম্পর্কে সচেতনতা বৃদ্ধি করা, সিদ্ধান্ত গ্রহণকারীদেরকে বেতারের মাধ্যমে তথ্য যেন সুলভ্যতা নিশ্চিত করা এবং বেতার সম্প্রচারকদের মধ্যবর্তী আন্তর্জাতিক সহায়তা ও পারস্পরিক মতামত ও তথ্য বিনিময় জোরদার করা।[১]

২০১৪ সালে ইউনেস্কোর সাধারণ সম্মেলনের ৩৬তম অধিবেশনে ১৩ ফেব্রুয়ারি তারিখে বিশ্ব বেতার দিবস ঘোষণা করা হয়। ২০১১ সালে স্পেনের আকাদেমিয়া এস্পানিওলা দে রাদিও-র একটি প্রস্তাবের প্রেক্ষিতে ইউনেস্কো পরিচালিত একটি বাস্তবায়নযোগ্যতা সমীক্ষার ভিত্তিতে ইউনেস্কোর নির্বাহী পরিষদ সাধারণ সম্মেলনে বিশ্ব বেতার দিবস ঘোষণার ব্যাপারে সুপারিশ করেন। উল্লেখ্য ১৯৪৬ সালের ১৩ ফেব্রুয়ারি তারিখে জাতিসংঘের নিজস্ব বেতারকেন্দ্রটি যাত্রা শুরু করে।[১]

বেতার এমন একটি গণমাধ্যম পৃথিবীতে যার ব্যাপ্তি অন্য সব গণমাধ্যম অপেক্ষা বেশি। এটি একাধারে যোগাযোগের একটি শক্তিশালী হাতিয়ার এবং সাশ্রয়ী মাধ্যম হিসেবে স্বীকৃত। দূরবর্তী জনসম্প্রদায় ও ঝুঁকিতে থাকা মানুষদের কাছে (নিম্ন সাক্ষরতার হারবিশিষ্ট জনসম্প্রদায়, প্রতিবন্ধী ব্যক্তি, নারী, তরুণ-তরুণী এবং দারিদ্র‍্যের শিকার ব্যক্তি) পৌঁছাতে বেতারের কোনও বিকল্প নেই। একই সাথে এটি প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার স্তর নির্বিশেষে জনবিতর্কে মানুষের অংশগ্রহণের একটি মঞ্চ। অধিকন্তু, জরুরি অবস্থাকালীন যোগাযোগ ও বিপর্যয়কালীন ত্রাণকর্মে বেতার একটি শক্তিশালী ও নির্দিষ্ট ভূমিকা রাখে। বর্তমানে বিভিন্ন গণমাধ্যমের সমধর্মিতা হবার প্রবণতা বেড়ে গেছে, তাই বেতার সেবাগুলিও প্রযুক্তির নতুন নতুন রূপের সাথে খাপ খাইয়ে নিয়ে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট, মুঠোফোন ও ট্যাবলেটে ভিন্ন ভিন্ন রূপে আবির্ভূত হচ্ছে। এত কিছু সত্ত্বেও বলা হচ্ছে যে বিশ্বের প্রায় ১ শত কোটি লোকের কাছে এখনও বেতার সেবা লভ্য নয়।[১]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Why World Radio Day?"। UNESCO।