বিবি আয়শা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

বিবি আয়শা (পশতু: بي بي عایشه‎; বিবি সম্মানিত একটি শব্দ যার অর্থ "মহিলা"; জন্মনাম আয়েশা মোহাম্মদজাই;[১] মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে আইনি নাম:আইশা মোহাম্মদজাই(ইংরেজি: Aesha Mohammadzai)) একজন আফগান মহিলা যিনি কিশোর বয়সে জোরপূর্বক একটি অপমানজনক বিয়ে থেকে পালিয়ে এসেছিলেন, কিন্তু তাকে পালিয়ে যাওয়ার প্রতিশোধ হিসেবে তাকে ধরা হয়েছিল, জেল খাটানো হয়েছিল, সমাজ থেকে বিচ্ছিন্ন করা হয়েছিল এবং মৃত্যুর জন্য ছেড়ে দেওয়া হয়েছিল। পরে তাকে সাহায্যকর্মীরা উদ্ধার করে এবং তার গল্পটি আমেরিকান সংবাদে নারীদের উপর তালেবান সন্ত্রাস রাজত্বের বিরূপ প্রভাবের উদাহরণ হিসেবে তুলে ধরা হয়েছিল। ২০১৪ সাল পর্যন্ত, তিনি মেরিল্যান্ডে একজন আফগান-আমেরিকান দম্পতির দত্তক কন্যা হিসেবে বসবাস করতেন এবং তার বিকৃত মুখের জন্য পুনর্গঠন অস্ত্রোপচার করিয়েছিলেন।

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

আয়শা আফগানিস্তানে একটি আফগান পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন।[১] তিনি অল্প বয়সে মাকে হারিয়েছেন।[১] যখন তার বয়স বারো, তখন তার বাবা তাকে একটি তালেবান যোদ্ধার কাছে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন যে, বাদ নামক একটি অনুশীলনে ক্ষতিপূরণ হিসেবে, আয়শার পরিবারের একজন সদস্যের দ্বারা হত্যার জন্য তিনি ঐ তালেবান যোদ্ধার হাতে আয়শাকে তুলে দিবেন।[২] আয়শা চৌদ্দ বছর বয়সে এই ব্যক্তিকে বিয়ে করতে বাধ্য হয়েছিলেন।[২] তার স্বামী ও তার স্বামীর পরিবার তাকে নির্যাতন করতো।[১][২] আঠারো বছর বয়সে, তিনি নির্যাতন থেকে পালিয়ে যান, কিন্তু তিনি পুলিশের হাতে ধরা পড়েন, পাঁচ মাসের জন্য জেল খাটেন এবং তার পিতার কাছে ফিরে আসেন, যিনি আবার তাকে তার স্বামীর কাছে ফিরিয়ে দিয়েছিলেন।[২] তার পালানোর প্রতিশোধ হিসাবে, আয়েশার শ্বশুর, স্বামী এবং পরিবারের অন্য তিনজন লোক আয়শাকে পাহাড়ে নিয়ে যায়, তার নাক এবং কান কেটে ফেলেছিল এবং তাকে মৃত্যুর জন্য ছেড়ে দিয়েছিল। সে তার দাদার বাড়িতে হামাগুড়ি দিয়ে গিয়েছিল কিন্তু সেখানে তাকে সাহায্য করার প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করা হয়েছিল। শেষ পর্যন্ত, তিনি একটি মার্কিন সামরিক ঘাঁটিতে সাহায্য পেয়েছিলেন।[২][৩][৪]

মার্কিন গণমাধ্যমে উপস্থিতি[সম্পাদনা]

টাইম পত্রিকায় প্রচ্ছদ ছবিতে বিবি আয়শা
২০১১ সালে ওয়ার্ল্ড প্রেস ছবির উপস্থাপনায় আয়শার ছবি দেখানো হয়েছিল।

আয়শার গল্পটি প্রথম প্রকাশিত হয় ২০০৯ সালের ডিসেম্বরে দ্য ডেইলি বিস্টে, যার ফলে অনেক ডাক্তার তাকে বিনামূল্যে সাহায্য এবং পুনর্গঠনমূলক অস্ত্রোপচারের প্রস্তাব দিয়েছিল। ক্যালিফোর্নিয়ার গ্রসম্যান বার্ন ফাউন্ডেশন প্রয়োজনীয় অস্ত্রোপচার করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল এবং ২০১০ সালের বসন্তে তার ভিসার জন্য আয়োজন শুরু করেছিল।

২০১০ সালের মার্চে, এবিসি নিউজের ডায়ান সায়েয়ার তার গল্পটি অন্তর্ভুক্ত করেছিলেন, যা তিনি ২০১৪ সালে পুনরায় সাক্ষাৎ করার কথা ছিল।

টাইম ম্যাগাজিনের আগস্ট ২০১০ এর প্রচ্ছদে এবং "আফগান উইমেন অ্যান্ড দ্য রিটার্ন অফ দ্য তালিবান" এ আয়শাকে দেখানো হয়েছিল।[৫] প্রচ্ছদ ছবিটি ব্যাপক আন্তর্জাতিক বিতর্কের জন্ম দিয়েছিল।[৬] এই ছবি এবং এর সাথে থাকা প্রচ্ছদ শিরোনাম "আমরা আফগানিস্তান ত্যাগ করলে কি হবে", আফগান যুদ্ধ নিয়ে বিতর্কে ইন্ধন যুগিয়েছিল।[৭] তার প্রচ্ছদ ছবিটি দক্ষিণ আফ্রিকার ফটোগ্রাফার জোডি বিবার তুলেছিলেন এবং ২০১০ সালে এই ছবির জন্য তিনি ওয়ার্ল্ড প্রেস ফটো পুরস্কারে ভূষিত হয়েছিলেন।[৮] আয়শার এই ছবিটি কখনও কখনও স্টিভ ম্যাককুরির তোলা শরবত গুলার আফগান গার্ল ছবির সঙ্গে তুলনা করা হয়।[৯]

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে জীবন[সম্পাদনা]

২০১০ সালের আগস্টে টাইমস কভারের কিছুক্ষণ পরেই, আয়শাকে বিনামূল্যে পুনর্গঠন সার্জারি করার জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল।[৬] ক্যালিফোর্নিয়ায় আসার পর, তিনি সাইকোজেনিক মৃগীরোগবিহীন খিঁচুনি, অত্যাতঙ্ক আক্রমণ এবং স্ব-ক্ষতির জন্য মানসিকভাবে অসুস্থ হয়ে গিয়েছিলেন যার জন্য তাকে হাসপাতালে ভর্তির প্রয়োজন ছিল। তিনি যেসব ঘটনার শিকার হয়েছেন তার কারণে, ডাক্তাররা নির্ধারণ করেছিলেন যে তিনি তখন ভয়াবহ পুনর্গঠনকারী অস্ত্রোপচারের জন্য যথেষ্ট স্থিতিশীল ছিলেন না এবং এই আঘাতগুলি তাকে বর্ডারলাইন পারসনালিটি ডিজর্ডার ব্যাধিতে ভুগিয়েছিল।[১০] যখন তার পুনর্গঠন শল্যচিকিৎসা বিলম্বিত হয়েছিল, তখন তাকে নিউইয়র্কের কুইন্সে উইমেন ফর আফগান উইমেনের আশ্রয়কেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল।[১০] ওষুধের পরিবর্তনের সাথে আয়শার অবস্থার উন্নতি হয়েছিল এবং খিঁচুনি বন্ধ হয়েছিল।[১০]

পরে, আয়শার মানসিক অবস্থার যথেষ্ট উন্নতি হয়েছিল যে তিনি তার আচরণ নিয়ন্ত্রণের জন্য ওষুধ খাওয়া বন্ধ করতে সক্ষম হয়েছিলেন। ২০১২ থেকে শুরু করে, আয়েশার জন্য বহুধারা মুখমণ্ডল পুনর্গঠন করার প্রস্তুতি শুরু হয়েছিল।[১০] একটি নতুন নাক তৈরির জন্য পর্যাপ্ত টিস্যু সরবরাহ করার জন্য কয়েক মাস ধরে তার কপাল প্রসারিত করা হয়েছিল। তার নতুন নাকের কাঠামোটি তার নিজের শরীর থেকে কার্টিলেজ ব্যবহার করে তৈরি করা হয়েছিল এবং তার বাম হাতের টিস্যুও অভ্যন্তরীণ আস্তরণের জন্য ব্যবহৃত হয়েছিল।[১০] আয়শা মোট ১২টি সার্জারি সম্পন্ন করেছিলেন।[১১] ২০১৪ সালে এবিসি নিউজ আয়েশাকে পুনরায় সাক্ষাৎ করেছিল এবং প্রকাশ করেছিল কিভাবে তার নতুন নাক তার চেহারা পরিবর্তন এনেছে।

আয়শাকে একজন আফগান-আমেরিকান দম্পতি দত্তক নিয়েছেন এবং ২০১৪ সাল পর্যন্ত তিনি মেরিল্যান্ডে থাকেন।[৩][১১] তিনি ইংরেজি এবং গণিত পড়েন এবং একজন পুলিশ অফিসার হতে চান।[১০]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Ravitz, Jessica (২০ ডিসেম্বর ২০১২)। "For Aesha, healing comes in many forms"CNN। সংগ্রহের তারিখ ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১ 
  2. Grenoble, Ryan (২৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৩)। "Aesha Mohammadzai Photos: Afghan Woman Who Had Nose, Ears Cut Off By Taliban Recovers"The Huffington Post। সংগ্রহের তারিখ ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১ 
  3. "Meet Aesha, a Symbol of Strength and Triumph"ABC News - Youtube। ৩১ জুলাই ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১ 
  4. BATES, KAREN GRIGSBY (১৩ অক্টোবর ২০১০)। "Bibi Aisha, Disfigured Afghan Woman Featured On 'Time' Cover, Visits U.S."NPR.org (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৯-১৪ 
  5. Stengel, Richard (২০১০-০৭-২৯)। "The Plight of Afghan Women: A Disturbing Picture"Time (ইংরেজি ভাষায়)। আইএসএসএন 0040-781X। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৯-১৪ 
  6. Frayer, Lauren (৫ আগস্ট ২০১০)। "Disfigured Afghan on Cover of Time Heads to US"AOL News। ২২ অক্টোবর ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১ 
  7. Nordland, Rod (২০১০-০৮-০৪)। "Portrait of Pain Ignites Debate Over Afghan War"The New York Times (ইংরেজি ভাষায়)। আইএসএসএন 0362-4331। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৯-১৪ 
  8. Staff, Reuters (২০১১-০২-১১)। "Top press award for photo of disfigured Afghan woman"Reuters (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৯-১৪ 
  9. Rubin, Elizabeth (ডিসেম্বর ২০১০)। "Veiled Rebellion"National Geographic। ৬ ডিসেম্বর ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১ 
  10. Ravitz, Jessica। "Saving Aesha - CNN.com"CNN। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৯-১৪ 
  11. "Patients of Courage | Bibi Aisha"। American Society of Plastic Surgeons ASPS। ৫ নভেম্বর ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]