বংশগতীয় সঙ্কেত

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
একটি বাহক আরএনএ (এমআরএনএ) অণুর অংশবিশেষে কতগুলি কোডন তথা বংশগতীয় সঙ্কেত-এককের ধারা। প্রতিটি কোডন তিনটি নিউক্লিওটাইড নিয়ে গঠিত এবং সাধারণত একটি কোডন একটি বিশেষ অ্যামিনো অ্যাসিডের সাথে সম্পর্কিত। নিউক্লিওটাইডগুলিকে A, U, G এবং C বর্ণগুলি দিয়ে নির্দেশ করা হয়েছে। উৎস ডিএনএ অণুতে U-এর পরিবর্তে T নিউক্লিওটাইড ছিল। এই বাহক আরএনএ অণুটি একটি রাইবোজোমকে (কোষীয় অঙ্গাণু) কীভাবে একটি প্রোটিন সংশ্লেষণ করতে হবে, সে ব্যাপারে কোডনে ধারণকৃত বংশগতীয় সঙ্কেতের মাধ্যমে নির্দেশনা দেবে।

বংশগতীয় সঙ্কেত (ইংরেজিতে Genetic code জেনেটিক কোড) বলতে কোষের বংশগতীয় উপাদান যেমন ডিএনএ ও আরএনএ অণুর ভেতরে নিউক্লিওটাইডের অনুক্রমকে বোঝায়, যা দেহকোষের রাইবোসোম নামক অঙ্গাণুতে বিভিন্ন ধরনের প্রয়োজনীয় প্রোটিন সংশ্লেষণের সময় অ্যামিনো অ্যাসিডগুলির ক্রম নির্ধারণ করে।[১] তবে প্রোটিন সরাসরি ডিএনএ থেকে উৎপন্ন হয় না। ডিএনএ কোষকেন্দ্রে বা নিউক্লিয়াসে অবস্থান করে (কিছু ডিএনএ কোষের মাইটোকন্ড্রিয়া নামের শক্তি উৎপাদন ও সঞ্চয়কারী অঙ্গাণুতেও থাকতে পারে)। প্রথমে ডিএনএ অণু থেকে একটি বাহক আরএনএ অণু সংশ্লেষণ করা হয়। এই বংশগতীয় সঙ্কেতবাহক আরএনএ অণুটি কোষের সাইটোপ্লাজমে (বা অন্যত্র) অবস্থিত রাইবোসোম অঙ্গাণুতে বাহিত হয়, যেখানে প্রোটিন নির্মাণ বা সংশ্লেষণ করা হয়। আরএনএ অণুটিতে চার ধরনের নিউক্লিওটাইড থাকে, অ্যাডেনিন, গুয়ানিন, সাইটোসিন ও ইউরাসিল। আরএনএ অণুর তিনটি পরস্পর-সংলগ্ন নিউক্লিওটাইড একটি সাঙ্কেতিক একক বা কোডন গঠন করে, যা প্রোটিন সংশ্লেষণের পরবর্তী ধাপে কোন্‌ অ্যামিনো অ্যাসিড যোগ করতে হবে, তা নির্ধারণ করে। যেমন GCU কোডনটি অ্যালানিন নামক অ্যামিনো অ্যাসিডের জন্য সঙ্কেত বহন করে। সব মিলিয়ে এরকম ৬৪টি সম্ভাব্য কোডন আছে; এদের মধ্যে তিনটি কোডন কোনও অ্যামিনো অ্যাসিডের সাথে সম্পর্কিত নয়, বরং প্রোটিনের পরিসমাপ্তি নির্দেশ করে। বাকি ৬১টি কোডন প্রোটিন তৈরিতে ব্যবহৃত ২০ ধরনের অ্যামিনো অ্যাসিডের জন্য সঙ্কেত বহন করে। অর্থাৎ একটি অ্যামিনো অ্যাসিড দুই বা তার অধিক কোডন দ্বারা নির্দিষ্ট হতে পারে। বিজ্ঞানীরা একে সঙ্কেতের বাহুল্য বা প্রয়োজনাতিরিক্ততা নাম দিয়েছেন।

বংশগতীয় সঙ্কেত সমস্ত জীবের জন্যই প্রায় একই রকম হয়; অর্থাৎ একই কোডনগুলি একই ধরনের অ্যামিনো অ্যাসিডকে নির্দেশ করে।

মার্কিন প্রাণরসায়নবিদ মার্শাল নিরেনবার্গ, রবার্ট হলি এবং হরগোবিন্দ খোরানা ১৯৬০-এর দশকের শুরুর দিকে বংশগতীয় সঙ্কেত কীভাবে কাজ করে, তা উদ্ঘাটন করেন।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Elizabeth Martin; Robert Hine, সম্পাদকগণ (২০১৫), A Dictionary of Biology (৭ম সংস্করণ), Oxford University Press, পৃষ্ঠা ২৪৬