ফারুক হায়দার খান

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
রাজা ফারুক হায়দার
Raja Farooq Haider Khan.jpg
আজাদ কাশ্মীরের প্রধানমন্ত্রী
দায়িত্বাধীন
অধিকৃত কার্যালয়
৩১ জুলাই ২০১৬
পূর্বসূরীচৌধুরী আবদুল মজিদ
কাজের মেয়াদ
২৯ অক্টোবর ২০০৯ – ২৯ জুলাই ২০১০
পূর্বসূরীসরদার মুহাম্মদ ইয়াকুব খান
উত্তরসূরীআতিক আহমেদ খান
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্ম (1955-02-14) ১৪ ফেব্রুয়ারি ১৯৫৫ (বয়স ৬৭)
মোজাফফারাবাদ, আজাদ কাশ্মীর, পাকিস্তান
রাজনৈতিক দলপাকিস্তান মুসলিম লীগ (এন)
দাম্পত্য সঙ্গীরবিনা ফারুক
সন্তানমদিহা ফারুক
উসমান ফারুক
মুহাম্মদ হায়দার

রাজা ফারুক হায়দার খান ( উর্দু: فاروق حیدر خان‎‎ راجہ) একজন পাকিস্তানি রাজনীতিবিদ যিনি আজাদ জম্মু ও কাশ্মীরের (এজেকে) দ্বাদশ ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী । তিনি পাকিস্তান মুসলিম লীগ (এন) (পিএমএল-এন) এর অন্তর্ভুক্ত। [১]

প্রাথমিক জীবন[সম্পাদনা]

রাজা মুহাম্মদ ফারুক হায়দার খান ১৯৫৫ সালের ১৪ জানুয়ারি রাজপুত পরিবারে মোজাফফারাবাদে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি বিদ্যালয়ের শিক্ষা অ্যাবটাবাদ পাবলিক স্কুল (এপিএস) থেকে পান। এপিএস থেকে ইন্টারমিডিয়েট করার পরে তিনি সরকারী কলেজ লাহোর থেকে স্নাতক শেষ করেন।

রাজনৈতিক পেশা[সম্পাদনা]

তিনি পাকিস্তান মুসলিম লীগ (এন) এর এজেকের আঞ্চলিক সভাপতি হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছেন। ২০১৬ সালের আজাদ কাশ্মীরি সাধারণ নির্বাচনের পরে, যেখানে পিএমএল-এন ৪৯ টি আসনে আজাদ কাশ্মীর বিধানসভায় ৩১ টি আসন লাভ করে, হায়দারকে এজেকের প্রধানমন্ত্রী মনোনীত করা হয়েছিল। [২] ৩১ জুলাই ২০১৬, হায়দার দলীয় নেতা হিসাবে নির্বাচিত হওয়ার জন্য ৩৮ টি ভোট পেয়েছিলেন। তার প্রতিপক্ষ পাকিস্তান পিপলস পার্টির চৌধুরী চৌধুরী মোহাম্মদ ইয়াসিন এবং পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফের দেওয়ান গোলাম মহিউদ্দিন, যিনি মুসলিম সম্মেলনে সমর্থন পেয়েছিলেন, তাদের পক্ষে পাঁচটি ভোট পেয়েছেন। একই দিন তিনি আজাদ জম্মু ও কাশ্মীরের ১২ তম প্রধানমন্ত্রী হিসাবে শপথ গ্রহণ করেছিলেন। [৩]

হেলিকপ্টারে গুলির ঘটনা[সম্পাদনা]

৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৮ এ, হায়দারের হেলিকপ্টারটি ভারতীয় সেনাবাহিনীর কাছ থেকে গুলির মুখে পড়েছিল যখন তিনি নিয়ন্ত্রণ রেখার নিকটবর্তী ফরওয়ার্ড কাহুটা গ্রামে যাচ্ছিলেন। বেসামরিক হেলিকপ্টারটিতে দু'জন এজেকে মন্ত্রী এবং তার ব্যক্তিগত কর্মচারীর সাথে ভ্রমণের সময় আব্বাসপুর গ্রামের কাছে সবেই আক্রমণ থেকে তিনি পালিয়ে যান। তাঁর মতে, ঘটনাটি পিএসটি বেলা বারোটার দিকে ঘটে। [৪][৫]

চকোঠির জিসকুল[সম্পাদনা]

জে কেএলএফ তাদের নেতা ডক্টর তোকির গিলানির অধীনে ৫ অক্টোবর ২০১৮ তারিখে লাইন অফ কন্ট্রোল থেকে ৫ কিলোমিটার দূরের চখোঠিতে একটি বৈঠকের আয়োজন করেছিল এবং দাবি করেছিল যে ভারতের জম্মু ও কাশ্মীরের কার্ফিউভ অপসারণ করা উচিত এবং জাতিসংঘের প্রতিনিধিদের কাশ্মীর ইস্যুতে তাদের উদ্বেগ নিয়ে আলোচনা করতে আসা উচিত । এক্ষেত্রে ফারুক হায়দার ইসলামাবাদে জাতিসংঘের অফিসগুলোতে একটি চিঠি পাঠিয়েছিলেন এবং এই বৈঠকটি ভেঙে দেওয়ার জন্য তাদের সহায়তা চেয়েছিলেন। জাতিসংঘের প্রতিনিধিরা জেকেএলএফ নেতাদের সাথে সাক্ষাত করেছেন এবং তাদের আশ্বাস দিয়েছিলেন যে তারা তাদের সমস্যা সমাধানে সহায়তা করতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেবে। এটির সাহায্যে তারা শান্তিপূর্ণভাবে এই সভাটি ভেঙে ফেলতে সক্ষম হয়েছিল যা ১০ দিন অব্যাহত ছিল।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

জে কেপিএনএ-তে ব্রুটুল আক্রমণ[সম্পাদনা]

ফারুক হায়দার ২২ ই অক্টোবর ২০১৯-এ মুজাফফরাবাদে জেপিএনএ-এর শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদকারীদের উপর নৃশংস হামলা চালিয়েছিলেন। জেকেপিএনএ হ'ল পাকিস্তানের আজাদ কাশ্মীরের জাতীয়তাবাদী দলগুলির একটি জোট, যার লক্ষ্য উভয় পক্ষের (ভারত ও পাকিস্তান থেকে) কাশ্মীরের স্বাধীনতার জন্য কাজ করা। চেয়ারম্যান জে কেপিএনএ জানিয়েছিল যে তারা কাশ্মীরের জন্য একটি স্বাধীন সংসদ চায় যার মধ্যে গিলগিত বাল্টিস্তানের প্রতিনিধিত্ব রয়েছে। তিনি আরও জোর দিয়েছিলেন যে ধার করা কর্মকর্তাদের ফিরে যেতে হবে এবং দেশটি সম্পূর্ণ স্বাধীন হতে হবে। যাইহোক, এই অ-রাষ্ট্রীয় অভিনেতাদের (আইজি পুলিশ এবং চিফ সেক্রেটারি, যারা পাকিস্তান থেকে আসা) পোলিশ করে সমাবেশে নৃশংসভাবে আক্রমণ করা হয়েছিল।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Mir, M A (১ আগস্ট ২০১৬)। "Raja Farooq Haider takes mantle of AJK PM"The Express Tribune 
  2. "Raja Farooq Haider to be Azad Kashmir's new PM"The News International। ২৭ জুলাই ২০১৬। 
  3. Naqash, Tariq (১ আগস্ট ২০১৬)। "Haider takes oath as AJK PM"Dawn 
  4. Junaidi, Ikram (১ অক্টোবর ২০১৮)। "Indian army fires at AJK premier's copter near LoC"Dawn 
  5. "AJK PM's helicopter escapes Indian attack"The Express Tribune। ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৮।