ফরিদা খালাফ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

ফরিদা খালাফ (জন্ম আনুমানিক ১৯৯৫) হল একজন ইয়াজিদি [১] যাকে ২০১৪ সালে আইএসআইএস দ্বারা অপহরণ করা হয়েছিল এবং দাসত্বের মধ্যে বিক্রি করা হয়েছিল। তিনি একটি শরণার্থী শিবিরে পালিয়ে যান এবং ২০১৬ সালে তার অভিজ্ঞতা সম্পর্কে একটি বই প্রকাশ করেন, দ্য গার্ল হু এসকেপড আইএসআইএস

খালাফ ইরাকের পর্বতমালার কোচো গ্রামে বড় হয়েছেন। ২০১৪ সালে, যখন তার বয়স ১৮ বছর, আইএসআইএস তার গ্রামে আক্রমণ করে। জিহাদিরা তার বাবা এবং বড় ভাই সহ গ্রামের সমস্ত পুরুষ ও ছেলেদের হত্যা করে। ফরিদা এবং তার বন্ধু এভিনসহ অবিবাহিত নারী ও মেয়েদের বন্দুকের মুখে একটি বাসে চাপিয়ে রাক্কায় নিয়ে আসা হয়, যেখানে তাদের যৌন দাসত্বে বিক্রি করা হয়। [২] তাকে একবার তার বন্দীদের দ্বারা এতটাই মারধর করা হয়েছিল যে সে এক চোখের দৃষ্টি হারিয়ে ফেলেছিল, এবং দুই মাস ধরে হাঁটতে পারছিল না। [৩] এই তরুণীরা উত্তর ইরাকের একটি শরণার্থী শিবিরে পালিয়ে যেতে সক্ষম হয় এবং খালাফ পরিবারের জীবিত সদস্যদের সাথে পুনরায় মিলিত হয়। তবে তার সম্প্রদায়ের সদস্যদের মধ্যে তাকে ধর্ষণ করে তার পরিবারের প্রতি অসম্মান প্রকাশ করেছে বলে দেখা যায়। পরবর্তীতে তিনি জার্মানিতে চলে যান, যেখানে তিনি গণিতের শিক্ষক হওয়ার আশা করেন। তার বই, দ্য গার্ল হু এস্কেপড আইএসআইএস, ইতিবাচক পর্যালোচনার জন্য ২০১৬ সালে প্রকাশিত হয়েছিল। এটি জার্মান লেখক আন্দ্রেয়া সি হফম্যান যৌথভাবে রচনা করেন এবং জেমি বুলোচ ইংরেজিতে অনুবাদ করেন। [২][৪][৫][৬][৭]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "The Girl Who Beat Isis by Farida Khalaf" 
  2. Aspden, Rachel (জুলাই ১, ২০১৬)। "The Girl Who Beat Isis: My Story by Farida Khalaf and Andrea C Hoffmann – review"The Guardian 
  3. Ayed, Nahlah (জানুয়ারি ৯, ২০১৭)। "'They raped us; they killed our men': Psychologist helps Yazidi women recover from trauma of ISIS captivity"CBC News 
  4. Khalaf, Farida (২০১৬)। The Girl Who Beat ISIS। Random House। আইএসবিএন 9781910931011 
  5. MacGabhann, Frank (অক্টোবর ২৯, ২০১৬)। "The Girl Who Beat Isis by Farida Khalaf"The Irish Times 
  6. Philp, Catherine (জুলাই ১৬, ২০১৬)। "The Girl Who Beat Isis: My Story by Farida Khalaf"The Times 
  7. Sheridan, Colette (জানুয়ারি ২৮, ২০১৭)। "Book review: The Girl Who Beat Isis"The Irish Examiner