ফরায়েয

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

ফারায়েয (আরবি: فَرَائِضُ) হচ্ছে ইসলামী উত্তরাধিকার আইন। এটি ইসলামী ফিকহ শাস্ত্রের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ।

ফারায়েয-এর পরিচয়[সম্পাদনা]

ফরায়েয (فَرَائِضُ) শব্দটি আরবি فَرِيْضَةٌ এর বহুবচন। শাব্দিক অর্থ হচ্ছে: ফরয করা হয়েছে এমন বিষয়, আবশ্যকীয় বিষয়, অকাট্যভাবে প্রমাণিত বিষয়। ইসলামী পরিভাষায় فَرَائِض বলা হয়, মৃত ব্যক্তির উত্তরাধিকার সম্পত্তিকে। আর যে বণ্টন পদ্ধতির আলোকে উত্তারাধিকার সম্পত্তি বণ্টন করা হয় তাকে শরীয়তের পরিভাষায় عِلْمُ الْفَرَائِض বলা হয়।

আল্লামা আইনি রহ. বলেন, উত্তরাধিকার সম্পত্তিকে ইসলামে فَرَائِض নামে নামকরণ করার কারণ হল, শরীয়তে উত্তরাধিকার সম্পত্তির বণ্টন নীতি আল্লাহ তা’লা বিশেষভাবে ফরয করেছেন এবং প্রত্যকের অংশ কুরআন ও সুন্নাহ দ্বারা অকাট্যভাবে প্রমাণিত এবং এর মাঝে কমবেশি করার কোন সুযোগ নেই। তাই উত্তরাধিকার সম্পত্তিকে শরীয়তে فَرَائِض বলা হয়।[১][২]

ফারায়েয শাস্ত্রের গুরুত্ব ও ফযীলত সংক্রান্ত কিছু দুর্বল হাদীস[সম্পাদনা]

ইসলামী শরীয়তে উত্তরাধিকার সম্পত্তির বণ্টন পদ্ধতিকে পরিভাষায় عِلْمُ الْفَرَائِض বা ফারায়েয শাস্ত্র বলা হয়। শরীয়তে عِلْمُ الْفَرَائِض অবশ্যই একটি স্বতন্ত্র গুরুত্বপূর্ণ শাস্ত্র। এ কারণেই عِلْمُ الْفَرَائِض নিজে শেখা এবং অন্যকে শেখানোর গুরুত্ব আছে৷ কিন্তু ইসলামে মিথ্যা এবং অনুমান থেকে সাবধান করা হয়েছে৷ রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের নামে মিথ্যা অপবাদের ব্যাপারে অবশ্যই সাবধান হওয়া উচিত৷

(১) ইবনে মাজাহ এবং ইমাম দারে ক্বুতনী রহ. হযরত আবু হুরায়রা রা. এর সূত্রে বর্ণনা করেন যে, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেনঃ হে আবূ হুরায়রা! ফারায়েয শিক্ষা করো এবং (অন্যদের) তা শিক্ষা দাও। কেননা তা জ্ঞানের অর্ধেক। আর এটা ভুলিয়ে দেয়া হবে এবং এটাই প্রথম জিনিস যা আমার উম্মাত থেকে (শেষ যুগে) ছিনিয়ে নেয়া হবে।[৩][৪][৫] তিরমিযী ২০৯১, ইরওয়া ১৬৬৪, ১৬৬৫। তাহকীক আলবানীঃ যইফ। উক্ত হাদিসের রাবী হাফস বিন উমার বিন আবুল ইতাফ সম্পর্কে আবু বাকর আল-বায়হাকী ও আবু হাতিম আর-রাযী বলেন, তিনি কুফুরী নয় এমন কওলী বা আমলী কোন ফিসক এর সাথে জড়িত। আহমাদ বিন শু'আয়ব, ইবনু হাজার আল-আসকালানী ও ইমাম যাহাবী বলেন, তিনি দুর্বল। (তাহযীবুল কামালঃ রাবী নং ১৪০৩, ৭/৩৮ নং পৃষ্ঠা)[৬]

(২) ইমাম তিরমিযি, ইমাম নাসাঈ, ইমাম আহমাদ, ইমাম হাকিম রহ. সহ অনেকেই বর্ণনা করেন যে, রাসূল সা. ইরশাদ করেছেন, তোমরা মীরাস বন্টন নীতি ও কুরআন শিক্ষা কর এবং তা অন্য লোকদেরও শিক্ষা দাও। কেননা আমি তো অবশ্যই মরণশীল। যঈফ, মিশকাত (২৪৪)। ইরওয়া (১৬৬৪) [৭][৮][৯] আবূ ঈসা বলেন, এ হাদীসের সনদে গরমিল আছে। এ হাদীস রিওয়ায়াত করেছেন আবূ উসামা-আওফ হতে তিনি জনৈক ব্যক্তি হতে তিনি সুলাইমান ইবনু জাবির হতে তিনি ইবনু মাসউদ (রাঃ) হতে তিনি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের সূত্রে। আল-হুসাইন ইবনু হুরাইস-আবূ উসামা হতে তিনি আওফ হতে উক্ত মর্মে একই রকম হাদীস বর্ণনা করেছেন। মুহাম্মাদ ইবনুল কাসিম আল-আসাদীকে আহমাদ ইবনু হাম্বল (রহঃ) প্রমুখ হাদীস শাস্ত্রে দুর্বল বলেছেন।[১০]

(৩) ইমাম ত্ববরানী রহ. আবু বাকরাহ রা. এর সূত্রে বর্ণনা করেন যে, রাসূল সা. ইরশাদ করেছন, তোমরা কোরআন এবং عِلْمُ الْفَرَائِض নিজে শিখ এবং লোকদেরকে শেখাও। অদূর ভবিষ্যতে লোকদের কাছে এমন এক সময় আসবে যখন দুই ব্যক্তি তাদের উত্তরাধিকার সম্পদ নিয়ে বিবাদে লিপ্ত হবে কিন্তু তারা এ বিষয়ে শরয়ী সমাধান দেয়ার মত লোক খোঁজে পাবে না। [১১]

ফরায়েয শাস্ত্রের বিশেষ বৈশিষ্ট্য[সম্পাদনা]

প্রতিটি ধর্ম এবং সমাজ ব্যবস্থায় উত্তরাধিকার সম্পত্তির বণ্টন পদ্ধতি একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। তাই ইসলামী শরীয়তে উত্তারাধিকার সম্পত্তির বণ্টন পদ্ধতির বিষয়টি বেশ গুরুত্ব সহকারে আলোচিত হয়েছে। আত্মীয়দের মাঝে এই সম্পত্তি কিভাবে বণ্টন হবে এবং কার অংশ কতটুকু হবে, তার সম্পর্কে আল্লাহ তা’আলা আল কুরআনে বলেন:

আল্লাহ তোমাদেরকে তোমাদের সন্তানদের সম্পর্কে নির্দেশ দিচ্ছেন, এক ছেলের জন্য দুই মেয়ের অংশের সমপরিমাণ। তবে যদি তারা দুইয়ের অধিক মেয়ে হয়, তাহলে তাদের জন্য হবে, যা সে রেখে গেছে তার তিন ভাগের দুই ভাগ; আর যদি একজন মেয়ে হয় তখন তার জন্য অর্ধেক। আর তার মাতা পিতা উভয়ের প্রত্যেকের জন্য ছয় ভাগের এক ভাগ সে যা রেখে গেছে তা থেকে, যদি তার সন্তান থাকে। আর যদি তার সন্তান না থাকে এবং তার ওয়ারিছ হয় তার মাতা পিতা তখন তার মাতার জন্য তিন ভাগের এক ভাগ। আর যদি তার ভাই-বোন থাকে তবে তার মায়ের জন্য ছয় ভাগের এক ভাগ। অসিয়ত পালনের পর, যা দ্বারা সে অসিয়ত করেছে অথবা ঋণ পরিশোধের পর। তোমাদের মাতা পিতা ও তোমাদের সন্তান-সন্ততিদের মধ্য থেকে তোমাদের উপকারে কে অধিক নিকটবর্তী তা তোমরা জান না। আল্লাহর পক্ষ থেকে নির্ধারিত। নিশ্চয় আল্লাহ সর্বজ্ঞ, প্রজ্ঞাময়। আল-বায়ান

রাসূল সা. প্রতিটি বিষয়ে বিশদ বিবরণ হাদীসে উল্লেখ করেছেন। ফলে ইসলামী শরীয়তে عِلْمُ الْفَرَائِض বা উত্তরাধিকার সম্পদ বণ্টন পদ্ধতি পৃথিবীর অন্য সকল ধর্ম এবং মতবাদের বণ্টন পদ্ধতি থেকে সবদিকে থেকে মানুষের জন্য উপযোগী এবং সমতাভিত্তিক ও ভারসাম্যপূর্ণ একটি পদ্ধতি। নিচে ইসলামী শরীয়তের উত্তরাধিকার সম্পদের বণ্টন পদ্ধতির কিছু গুরুত্বপূর্ণ বৈশিষ্ট্য তুলে ধরা হল:

১ম বৈশিষ্ট্য : মৃত ব্যক্তির সকল সম্পদই উত্তরাধিকার সম্পত্তি।

ইসলামী উত্তরাধিকা বণ্টন পদ্ধতির প্রথম এবং অন্যতম বৈশিষ্ট্য হল: মৃত ব্যক্তি যত ধরনের সম্পদ রেখে গিয়েছে সকল সম্পদই ইসলামী শরীয়তে মিরাসের সম্পদ হিসেবে গণ্য করা হয়। চাই সেটা মৃত ব্যক্তি ব্যক্তিগত ব্যবহারের জিনিসপত্র হোক; যেমন: মৃতের ব্যবহারে পোশাক-আশাক ইত্যাদি, অথবা লাভজনক কোন ব্যবসায়িক সম্পদ হোক; যেমন: জমি, বাড়ি, বাগান, অর্থ-সম্পদ ইত্যাদি। ইসলামী শরীয়তে এই ধরনের সকল সম্পদই উত্তরাধিকা সম্পদ হিসেবে গণ্য করা হয়।

কিন্তু ইসলামের পূর্ব থেকেই এমন অনেক ধর্ম এবং মতবাদ আছে যেখানে মৃত ব্যক্তির ব্যক্তিগত জিনিসপত্রকে মিরাসের সম্পদ হিসেবে গণ্য করে না। তারা এগুলোকে হয়ত কবরের সাথে দাফন করে দেয় কিংবা স্মৃতি হিসেবে রেখে দেয়। ফলে এতে অনেক সময় ওয়ারিশরা বিপুল পরিমাণ সম্পদ থেকে বঞ্চিত হয়।

২য় বৈশিষ্ট্য : উত্তরাধিকার সম্পদ শুধুমাত্র আত্মীয়দের মাঝে বণ্টিত হবে; অনাত্মীয়দের মাঝে নয়।

ইসলামী উত্তরাধিকা বণ্টন পদ্ধতির একটি অন্যতম বৈশিষ্ট্য হল: শরীয়তে উত্তরাধিকার সম্পত্তিতে শুধুমাত্র আত্মীয়দের অংশ আছে এবং আত্মীয়রা যতক্ষণ জীবিত আছে ততক্ষণ অনাত্মীয় কোন ব্যক্তি মৃতের যতই কাছের হোক তাদের জন্য উত্তরাধিকার সম্পদে কোন অংশ থাকবে না। কিন্তু অনেক ধর্ম এবং মতবাদ এমন আছে যারা মৃতের প্রতিবেশী এবং ঘনিষ্ট বন্ধু-বান্ধবের জন্যও মিরাসের সম্পদের একটি অংশ নির্ধারণ করে থাকে। ফলে প্রকৃত হকদার অনেক আত্মীয়-স্বজন উত্তরাধিকার থেকে বঞ্চিত হয়।

৩য় বৈশিষ্ট্য : উত্তরাধিকার সম্পদে নারী-পুরুষ, বড়-ছোট সকলের অংশই নির্ধারিত।

ইসলামী উত্তরাধিকা বণ্টন পদ্ধতির আরেকটি বৈশিষ্ট্য হল: শরীয়তে নারী-পুরুষ, বড়-ছোট সকলের জন্যই তাদের অংশ অনুপাতে উত্তরাধিকার সম্পদ নির্ধারণ করেছে। তাই শরীয়তে শুধুমাত্র নারী হওয়ার কারণে কিংবা ছোট হওয়ার কারণে তাদের প্রাপ্য অংশ থেকে বঞ্চিত করা কিংবা তাদেরকে কম দেয়ার কোন সুযোগ নেই।

কিন্তু ইসলামের আগমনের পূর্বে জাহেলী সমাজে নারী এবং ছোট সন্তানের জন্য উত্তরাধিকার সম্পত্তিতে কোন অংশ ছিল না। তাদেরকে উত্তরাধিকার সম্পত্তি থেকে বঞ্চিত করা হত।

৪র্থ বৈশিষ্ট্য : উত্তরাধিকার সম্পদ পাওয়ার ক্ষেত্রে অগ্রাধিকারের মাপকাঠি হল নিকটাত্মীয়তা; বয়সে বড় হওয়া নয়।

ইসলামী উত্তরাধিকা বণ্টন পদ্ধতির আরেকটি অন্যতম বৈশিষ্ট্য হল: শরীয়তে কে কতটুকু অংশ পাবে তার মাপকাঠি হল মৃতের নিকটাত্মীয়তা। অর্থাৎ যে মৃতব্যক্তির যতবেশি নিকটাত্মীয় হবে সে ততবেশী মিরাস পাবে। এক্ষেত্রে বয়সে বড়-ছোট হওয়ার মাঝে শরীয়ত কোন তারতম্য করে নি।

কিন্তু খৃষ্টধর্মের বণ্টন পদ্ধতিতে বড়-ছোটর মাঝে তারতম্য করা হয়ে থাকে। এতে অনেক সময় মৃতের দূরের আত্মীয়রা শুধুমাত্র বয়সে বড় হওয়ার কারণে বেশি পরিমাণ মিরাস পায় আর নিকটাত্মীয় হওয়া সত্ত্বেও বয়সে ছোট হওয়ার কারণে সম্পদ কম পায়।

৫ম বৈশিষ্ট্য : উত্তরাধিকার সম্পত্তি সম্পূর্ণরূপে বণ্টন করা; শরীকানাধীন কোন সম্পদ না রাখা।

ইসলামী উত্তরাধিকা বণ্টন পদ্ধতির আরেকটি অন্যতম বৈশিষ্ট্য হল: শরীয়তে মৃতের সকল সম্পদই ওয়ারিশেদর মাঝে সম্পূর্ণরূপে বণ্টন করে দেয়া হবে। কোন সম্পত্তিই শরিকানাধীন রাখা হবে না।

কিন্তু হিন্দু ধর্ম এবং প্রাচীন রোমক এবং গ্রীক সমাজে সকল সম্পত্তিকে সম্পূর্ণরূপে বণ্টন করা হত না। বরং জমি এবং বসবাসের বাড়ি ইত্যাদি সকলে ওয়ারিশদের মাঝে শরিকানাধীন রেখে দেয়া হত। ফলে পরবর্তীতে এগুলো নিয়ে বিভিন্ন ঝগড়া-বিবাদ, মামলা-মুকাদ্দামা ইত্যাদির সূচনা হত। তাই ইসলাম এই প্রথাকে বিলুপ্ত করে দিয়েছে।[১৩]

ফারায়েযের বণ্টন-পদ্ধতি[সম্পাদনা]

ইসলামী শরীয়তে মৃত ব্যক্তির সকল ওয়ারিশদেরকে তিনভাগে ভাগ করা হয়:

(‌ক) أَصْحَابُ الفُرُوْض বা নির্ধারিত অংশের হকদার।

(খ) العَصَبَة বা অবশিষ্টভোগী।

(গ) أوْلُوْ الأَرْحَام বা মৃতের অন্যান্য নিকটাত্মীয়।

নিচে ধারাবাহিকভাবে এই তিন শ্রেণী ওয়ারিশদের পরিচয় এবং তাদের মাঝে উত্তরাধিকার সম্মত্তি বণ্টনের প্রক্রিয়া উল্লেখ করা হল:

এক. أصحاب الفروض বা নির্ধারিত অংশের হকদার: কুরআনে কারীমে যে সকল ওয়ারিশদের জন্য মিরাসের অংশ নির্দিষ্ট করে দেয়া হয়েছে তাদেরকে أَصْحَابُ الفُرُوْض বলা হয়। মৃত ব্যক্তির দাফন-কাফন, ঋণ পরিশোধ এবং ওসিয়ত পূরণের পর যে সম্পত্তি অবশিষ্ট থাকবে তা সর্বপ্রথম أَصْحَابُ الفُرُوْض এর মাঝে তাদের নির্দিষ্ট অংশ অনুযায়ী বণ্টন করা হবে। এরপর যদি কোন সম্পদ অবশিষ্ট থাকে তাহলে পরবর্তী দু শ্রেণী পর্যায়ক্রমে পাবে।

أَصْحَابُ الفُرُوْض হল মোট ১২ জন। তন্মধ্যে ৪ জন পুরুষ এবং ৮ জন মহিলা। পুরুষ ৪ জন হল:

১. পিতা। 

২. স্বামী।

৩. দাদা (দাদার পিতা, তার পিতা এভাবে ঊর্ধ্বতন পুরষ দাদার অন্তর্ভুক্ত)।

৪. বৈপিত্রেয় ভাই।

আর নারী ৮ জন হল:

১. মা। 

২. স্ত্রী।

৩. আপন কন্যা। 

৪. পুত্রের কন্যা (পুত্রের পুত্রের কন্যা- এভাবে পুরুষযোগে অধস্তন সকল মেয়েই পুত্রের কন্যার অন্তর্ভুক্ত)।

৫. আপন বোন। 

৬. বৈমাত্রেয় বোন।

৭. বৈপিত্রেয় বোন।

৮. দাদী ও নানী (পিতার মা, পিতামহের মা- এভাবে পুরুষযোগে ঊর্ধ্বতন সকল দাদী এবং মাতার মা, মাতার নানী- এভাবে নারীযোগে ঊর্ধ্বতন সকল নানী যথাক্রমে দাদী এবং নানীর অন্তর্ভুক্ত) ।

নিম্নে أَصْحَابُ الفُرُوْض এর প্রত্যেকের সম্পত্তির পরিমাণ এবং কোন অবস্থায় কতটুকু পাবে তা উল্লেখ্য করা হলো:

১। স্বামীঃ স্ত্রীর মৃত্যুর পর স্বামীর দুই অবস্থা হতে পারে:

(ক) যদি স্ত্রীর পক্ষ থেকে তার কোন ঔরষজাত সন্তান না থাকে তাহলে সম্পত্তির ১/২ অংশ (অর্ধেক) পাবেন।

(খ) আর যদি ঔরষজাত কোন সন্তান থাকে তাহলে ১/৪ অংশ (এক চতুর্থাংশ) পাবেন।

৪। পিতাঃ সন্তান মারা গেলে পিতার তিন অবস্থা:

(ক) যদি মৃত সন্তানের কোন পুত্র (আপন পুত্র বা পুত্রের পুত্র- এভাবে অধস্তন কোন পুরুষ) থাকে তাহলে পিতা সম্পত্তির ১/৬ অংশ (এক ষষ্ঠাংশ) পাবেন।

(খ) যদি মৃত সন্তানের কোন পুত্র (আপন পুত্র বা পুত্রের পুত্র- এভাবে অধস্তন কোন পুরুষ) না থাকে কিন্তু তার কোন কন্যা (আপন কন্যা বা কন্যার কন্যা- এভাবে অধস্তন কোন নারী) থাকে তাহলে পিতা أَصْحَابُ الفُرُوْض হিসেবে ১/৬ অংশ (এক ষষ্ঠাংশ) পাবে এবং العَصَبَة হিসেবে অবশিষ্ট অংশ পাবেন।

(গ) যদি মৃত ব্যক্তির কোন সন্তানই না থাকে (চাই তা যত অধস্তনই হোক না কেন) তাহলে পিতা শুধুমাত্র العَصَبَة হিসেবে অবশিষ্ট সকল অংশ পাবেন।

৩। দাদাঃ যদি পিতা জীবিত না থাকে তাহলে পিতার অংশ পিতার পিতা বা তার পিতা পাবে। যদি মৃত ব্যক্তির পিতা জীবিত থাকে তাহলে দাদা বঞ্চিত হবে। তবে মৃত ব্যক্তির পিতা যদি জীবিত না থাকে তাহলেই শুধুমাত্র দাদা মিরাসের সম্পত্তি পাবে। আর দাদার মিরাসের সম্পত্তির ক্ষেত্রে পিতার ন্যায় অর্থাৎ পিতা যে পরিমান সম্পত্তি পেত দাদা সে অংশ পাবে।

৪। বৈপিত্রেয় ভাইঃ বেপিত্রেয় ভাই দ্বারা উদ্দেশ্য হল মৃত ব্যক্তির মায়ের গর্ভজাত ভাই কিন্তু পিতা ভিন্ন। বৈপিত্রেয় ভাইয়ের তিন অবস্থা হতে পারে:

(ক) যদি মৃত ব্যক্তির পুত্র, কন্যা, নাতি-নাতনী বা অধস্তন কেউ কিংবা পিতা, পিতামহ, প্রপিতামহ বা ঊর্ধ্বতন কোন পুরষ না থাকে এবং শুধুমাত্র একজন বৈপিত্রেয় ভাই থাকে তাহলে সে সম্পত্তির ১/৬ অংশ (এক ষষ্ঠাংশ) পাবে।

(খ) আর যদি উল্লেখিত অবস্থায় মৃত ব্যক্তির একাধিক বৈপিত্রেয় ভাই থাকে তাহলে সবাই মিলে সম্পত্তির ১/৩ অংশ (এক তৃতীয়াংশ) পাবে।

(গ) আর যদি মৃত ব্যক্তির পুত্র, কন্যা, নাতি-নাতনী বা অধস্তন কেউ কিংবা পিতা, পিতামহ, প্রপিতামহ বা ঊর্ধ্বতন কেউ জীবিত থাকে তাহলে বৈপিত্রেয় ভাইয়েরা বঞ্চিত হবে।

৫। মাতাঃ সন্তান মারা গেলে মায়ের তিন অবস্থা হতে পারে:

(ক) যদি মৃত ব্যক্তির কোন সন্তান থাকে কিংবা একাধিক ভাইবোন থাকে তাহলে মা সমুদয় সম্পত্তির ১/৬ অংশ (এক ষষ্ঠাংশ) পাবেন।

(খ) যদি মৃত ব্যক্তির স্বামী বা স্ত্রীর সাথে পিতা মাতা উভয়ে থাকে তাহলে সম্পত্তি থেকে স্বামী বা স্ত্রীর অংশ দেয়ার পর মা বাকি সম্পত্তির ১/৩ অংশ (এক তৃতীয়াংশ) পবেন।

(গ) যদি মৃত ব্যক্তির কোন সন্তান না থাকে বা ভাইবোন ২ জনের কম থাকে এবং স্ত্রী কিংবা স্বামী জীবিত না থাকে তাহলে মা সমুদয় সম্পত্তির ১/৩ অংশ (এক তৃতীয়াংশ) পাবেন।

৬। স্ত্রীঃ স্বামীর মৃত্যুর পর স্ত্রীর দুই ধরনের অবস্থা হতে পারে:

(ক) যদি মৃত স্বামীর কোন সন্তান না থাকে তাহলে ১/৪ অংশ (এক চতুর্থাংশ) পাবেন।

(খ) আর যদি কোন সন্তান থাকে তাহলে ১/৮ অংশ (এক অষ্টমাংশ) পাবেন।

উল্লেখ্য যে, একাধিক স্ত্রী জীবিত থাকলেও সবাই মিলে এক স্ত্রীর প্র‍্যাপ্য অংশ পাবেন এবং এক স্ত্রীর প্র‍্যাপ্য অংশ সবাই নিজেদের মধ্যে ভাগ করে নিবেন।

৭। কন্যাঃ বাবার মৃত্যুর পর কন্যার তিন অবস্থা হতে পারে:

(ক) যদি শুধুমাত্র একজন কন্যা থাকে এবং কোন পুত্র না থাকে তাহলে সে সম্পত্তির ১/২ অংশ (অর্ধেক) পাবে।

(খ) আর কন্যা যদি একাধিক থাকে এবং কোন পুত্র না থাকে তাহলে সবাই ২/৩ অংশ (দুই তৃতীয়াংশ) পাবে।

(গ) আর যদি মৃত ব্যক্তির পুত্র এবং কন্যা একসাথে থাকে তাহলে পুত্র-কন্যা ২:১ অনুপাতে পাবে।

৮। পৌত্রীগণঃ পুত্রের কন্যা দ্বারা উদ্দেশ্য হল আপন পুত্রের কন্যা, পৌত্রের কন্যা, প্রপৌত্রের কন্যা এভাবে অধস্তন সকল পুত্রের কন্যা। তারা একে অপরের অবর্তমানে দাদার সম্পত্তি থেকে মিরাস লাভ করবে। এদের মিরাস পাওয়ার জন্য শর্ত হল মৃত ব্যক্তির কোন পুত্র কিংবা একাধিক কন্যা জীবিত না থাকা। পুত্রের কন্যাদের ছয়টি অবস্থা হতে পারে:

(ক) যদি মৃত ব্যক্তির কোন পুত্র-কন্যা না থাকে এবং শুধুমাত্র একজন পৌত্রী থাকে তাহলে সে সম্পত্তির ১/২ অংশ (অর্ধেক) পাবে।

(খ) আর যদি উল্লেখিত অবস্থায় মৃত ব্যক্তির একাধিক পৌত্রী থাকে তাহলে সবাই মিলে সম্পত্তির ২/৩ অংশ (দুই তৃতীয়াংশ) পাবে।

(গ) আর যদি উল্লেখিত অবস্থায় মৃত ব্যক্তির কোন পৌত্র থাকে এবং সাথে এক বা একাধিক পৌত্রী থাকে তাহলে পৌত্রীগণ আসাবা হয়ে যাবে এবং আসহাবুল ফুরুযকে তাদের অংশ দেয়ার পর যা অবশিষ্ট থাকবে তা পৌত্র এবং পৌত্রীগণ ১:২ অনুপাতে পাবে।

(ঘ) যদি মৃত্যু ব্যক্তির কোন পুত্র না থাকে কিন্তু একজন মাত্র কন্যা থাকে এবং সাথে এক বা একাধিক পৌত্রী থাকে তাহলে পৌত্রীগণ সবাই মিলে সম্পত্তির ১/৬ অংশ (এক ষষ্ঠাংশ) পাবে।

(ঙ) আর যদি উল্লেখিত অবস্থায় মৃত ব্যক্তির একাধিক কন্যা থাকে তাহলে পৌত্রীগণ বঞ্ছিত হবে।

(চ) আর যদি মৃত্যু ব্যক্তির কোন পুত্র থাকে তাহলেও পৌত্রীণন বঞ্ছিত হবে।

৯। আপন বোনঃ আপন বোনের পাঁচ অবস্থা হতে পারে:

(ক) যদি মৃত ব্যক্তির পুত্র-কন্যা, পিতা-ভাই কেউ জীবিত না থাকে এবং আপন বোন শুধুমাত্র একজন থাকে তাহলে বোন আসহাবুল ফুরুয হিসেবে সম্পত্তির  ১/২ অংশ (অর্ধেক) পাবে।

(খ) যদি মৃত ব্যক্তির পুত্র-কন্যা, পিতা-ভাই কেউ জীবিত না থাকে এবং আপন বোন একের অধিক থাকে তাহলে তারা সবাই মিলে সম্পত্তির   থাকলে ২/৩ অংশ (দুই তৃতীয়াংশ) পাবে।

(গ) যদি মৃত ব্যক্তির পুত্র-কন্যা এবং পিতা জীবিত না থাকে এবং আপন বোনের সাথে আপন ভাই জীবিত থাকে তাহলে বোনেরা ভাইয়ের কারণে আসাবা হয়ে যাবে। তখন আসহাবুল ফুরুযের অংশ বণ্টনের পর অবশিষ্ট অংশ আসবা হিসেবে ভাই-বোন ২:১ অনুপাতে পাবে।

(ঘ) যদি মৃত্যু ব্যক্তির আপন ভাই না থাকে কিন্তু একজন মাত্র কন্যা থাকে তাহলে আপন বোনেরা ১/৬ অংশ পাবেন। আর একাধিক কন্যা থাকলে এবং অন্য কোন ওয়ারিশ না থাকলে আপন কন্যাকে দেয়ার পর যা অবশিষ্ট থাকবে বোনেরা তা আসাবা হিসেবে পাবে।

(ঙ) যদি মৃত ব্যক্তির পুত্র কিংবা পিতা কেউ জীবিত থাকে তাহলে আপন বোনেরা বঞ্ছিত হবে।

১০। বৈপিত্রেয় বোন। বৈপিত্রেয় বোন বলতে এমন বোনকে বোঝায় যা মৃত ব্যক্তির সহাদোরা অর্থাৎ একই মায়ের সন্তান কিন্তু বাবা ভিন্ন। বৈপিত্রেয় বোন মিরাসের সম্পত্তি লাভের জন্য শর্ত হল মৃত ব্যক্তির পুত্র, পুত্রের পুত্র কিংবা কন্যা, কন্যার কন্যা- এভাবে অধস্তন কেউ কিংবা পিতা, দাদা এভাবে ঊর্ধ্বতন কেউ জীবিত না থাকা। বৈপিত্রেয় বোনের তিন অবস্থা হতে পারে:

(ক) যদি মৃত ব্যক্তির পুত্র-কন্যা কিংবা অধস্তন কেউ অথবা পিতা-দাদা ঊর্ধ্বতন কেউ না থাকে আর বৈপিত্রেয় বোন শুধুমাত্র একজন থাকে তাহলে সম্পত্তির ১/৬ অংশ (এক ষষ্ঠাংশ) পাবে।

(খ) আর উল্লেখিত অবস্থায় যদি বৈপিত্রেয় বোন একাধিক থাকলে তাহলে সবাই মিলে সম্পত্তির ১/৩ অংশ (এক তৃতীয়াংশ) পাবে।

(গ) যদি মৃত ব্যক্তির পুত্র-কন্যা বা অধস্তন কেউ এবং পিতা-দাদা বা ঊর্ধ্বতন কেউ জীবিত থাকে তাহলে বৈপিত্রেয় বোনেরা বঞ্ছিত হবে।

১১। বৈমাত্রেয় বোনঃ বৈমাত্রেয় বোন বলা হয় যাদের বাবা এক কিন্তু মা ভিন্ন। বৈমাত্রে বোনের সাত অবস্থা হতে পারে:

(ক) যদি মৃত্যু ব্যক্তির পুত্র, পুত্রের পুত্র বা অধস্তন কেউ, পিতা, দাদা বা ঊর্ধ্বতন কেউ, আপন ভাই, একাধিক আপন বোন কিংবা একজন আপন বোন; সাথে কন্যা, কন্যার কন্যা বা অধস্তন কেউ যদি জীবিত না থাকে আর বৈমাত্রিয় বোন শুধুমাত্র একজন থাকে তাহলে সে আসহাবুল ফুরুয হিসেবে সম্পত্তির ১/২ অংশ (অর্ধেক) পাবে।

(খ) আর যদি উল্লেখিত অবস্থায় বৈমাত্রেয় বোন একাধিক থাকে তাহলে তারা সবাই মিলে সম্পত্তির ২/৩ অংশ (দুই তৃতীয়াংশ) পাবে।

(গ) আর যদি উল্লেখিত অবস্থায় মৃত ব্যক্তির একজন মাত্র আপন বোন থাকে তাহলে বৈমাত্রেয় বোন ১/৬ অংশ (এক ষষ্ঠাংশ) পাবে।

(ঘ) আর যদি উল্লেখিত অবস্থায় মৃত ব্যক্তির একাধিক আপন বোন থাকে তাহলে বৈমাত্রেয় বোনেরা বঞ্ছিত হবে।

(ঙ) আর যদি উল্লেখিত অবস্থায় মৃত ব্যক্তির একাধিক আপন বোন থাকে এবং বৈমাত্রেয় বোনের সাথে বৈমাত্রেয় ভাইও থাকে তাহলে ভাইয়ের কারণে বোনেরা আসাবা হয়ে যাবে। তখন আসহাবুল ফুরুযের অংশ বণ্টনের পর অবশিষ্ট যা থাকবে তা বৈমাত্রেয় ভাই-বোন ২:১ অনুপাতে পাবে।

(চ) যদি উল্লেখিত অবস্থায় মৃত ব্যক্তির কোন কন্যা, কন্যার কন্যা বা অধস্তন কেউ থাকে এবং আপন বোন না থাকে তাহলে বৈমাত্রিয় বোন আসাবা হয়ে যাবে। তখন আসহাবুল ফুরুযকে দেয়ারপর যা অবশিষ্ট থাকবে তার পুরটাই বৈমাত্রেয় বোন আসাবা হিসেবে পাবে।

(ছ) আর যদি উল্লেখিত অবস্থায় মৃত ব্যক্তির কোন পুরুষ ওয়ারিশ জীবিত থাকে তাহলে বৈমাত্রিয় বোনেরা বঞ্ছিত হবে।

১২। দাদী বা নানীঃ দাদী দ্বারা উদ্দেশ্য হল পিতার মা, পিতামহের মা, পিতা মহীর মা, প্রপিতামহের মা, প্রপিতামহীর মা এভাবে ঊর্ধ্বতন সকলেই দাদীর হুকুমের অন্তর্ভুক্ত। অনুরূপভাবে নানী দ্বারা উদ্দেশ্য মায়ের মা, নানীর মা, নানীর নানী এভাবে ঊর্ধ্বতন সকলেই নানীর হুকুমের অন্তর্ভুক্ত। দাদী ও নানীর তিন অবস্থা হতে পারে:

(ক)  যদি মৃত ব্যক্তির পিতা-মাতা, দাদা বা ঊর্ধ্বতন কেউ যদি জীবিত না থাকে তাহলে দাদী এবং নানী উভয়ে সম্পত্তির ১/৬ অংশ (এক ষষ্ঠাংশ) পাবে।

(ক) যদি মৃত ব্যক্তির মা জীবিত থাকে তাহলে দাদী এবং নানী উভয়ে বঞ্চিত হবে।

(খ) আর যদি মৃত ব্যক্তির পিতা জীবিত থাকে তাহলে দাদী বঞ্চিত হবে কিন্তু নানী যথারীতি ১/৬ অংশ (এক ষষ্ঠাংশ) পাবে।

দুই. العَصَبَة বা অবশিষ্টভোগী। মৃত ব্যক্তির এমন আত্মীয়-স্বজন যাদের কোন অংশ শরীয়ত কর্তৃক নির্দিষ্ট করা হয় নি। তবে أَصْحَابُ الفُرُوْض তাদের নির্দিষ্ট অংশ পাওয়ার পর যা অবশিষ্ট থাকে কিংবা أصحاب الفروض এর অবর্তমানে তাদের সমুদয় সম্পত্তির যারা মালিক হয় তাদেরকে العَصَبَة বা অবশিষ্টভোগী বলা হয়। আসাবাদের মাঝে সম্পত্তি বণ্টনের পদ্ধতি হল الأقرب فالأقرب অর্থাৎ প্রথমে মৃতের নিকটাত্মীয়রা পাবে। এরপর অবশিষ্ট থাকলে দূরের আত্মীয়রা পাবে।

তিন. أولو الأرحام বা মৃতের অন্যান্য আত্মীয়-স্বজন। অর্থাৎ মৃতব্যক্তির যে সমস্ত আত্মীয়-স্বজন أَصْحَابُ الفُرُوْض কিংবা العَصَبَة হিসেবে মিরাস পায় না; বরং এই দুই শ্রেণীর কেউ যদি জীবিত না থাকে তখন যারা মিরাসের সম্পত্তি পায় তাদেরকে أوْلُوْ الأَرْحَام বলা হয়।[১৪][১৫][১৬][১৭]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. ফাতহুল মুলহিম (আরবী)। দেওবন্দ, ইউপি, ইন্ডিয়া: ফয়সাল পাবলিকেশন্স। ১৯৯১। পৃষ্ঠা ৮ম খণ্ড (কিতাবুল ফারায়েয অধ্যায়)। 
  2. "المهذب في اختصار السنن الكبير"। পৃষ্ঠা 5/2361। 
  3. সুনানে ইবনে মাজাহ, ১৭/১; হাদীস নম্বর-২৭১৯। পৃষ্ঠা 9/208। 
  4. سنن الدارقطني। পৃষ্ঠা ৪/৬৭; হাদীস নং–১। 
  5. "نيل الأوطار"। পৃষ্ঠা ৬/৭৫। 
  6. "সুনানে ইবনে মাজাহ | হাদিস নংঃ ২৭১৯ [ ]"www.hadithbd.com। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০২-১০ 
  7. সূনান আত তিরমিজী, ২৭/২; হাদীস নম্বর-২০৯১ 
  8. تحفة الأحوذى। পৃষ্ঠা ৬/২২২। 
  9. "ইসলাম ওয়েব.নেট" 
  10. "সূনান আত তিরমিজী (তাহকীককৃত) | হাদিস নংঃ ২০৯১ [ ]"www.hadithbd.com। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০২-১০ 
  11. "فتح البارى شرح صحح البخاري" 
  12. "সূরা/Surah: [4] আন-নিসা | An-Nisa | سورة النساء - আয়াত নম্বর/Aya number: 11 (4:11) - Bangla Hadith (বাংলা হাদিস)"www.hadithbd.com। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০১-২৩ 
  13. فتح الملهم। পৃষ্ঠা ৮ম খণ্ড; ফারায়েয অধ্যায়। 
  14. السراجى فى الميراث 
  15. "উত্তরাধিকার আইন (বাংলাদেশ সরকারের এটুআই)" 
  16. "মুসলিম উত্তরাধিকার আইনে সম্পত্তি বণ্টন (লেখক: রাইহানুল ইসলাম)"বাংলায় আইন সেবা। ১২ নভেম্বর ২০১৮। 
  17. "সম্পত্তি বণ্টন : আসহাবুল ফারায়েজ, আসাবা ও তাসহীহ (লেখক: মওলানা সাবের চৌধূরী)"ফেইসবুক নোট। ২৬ মার্চ ২০১৭।