প্লে-ডো

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
প্লে-ডো
Play-Doh Retro Canister
ধরণ মডেলিং ক্লে
উদ্ভাবক জো ম্যাকভিকার
বিল রডেনবাগ
কোম্পানি কুটল (১৯৫৫)
রেইনবো ক্র্যাফটস (১৯৫৬ থেকে)
হাশব্রো (১৯৯১ থেকে)
দেশ যুক্তরাষ্ট্র
উপলব্ধতা ১৯৫৬–বর্তমান
অফিসিয়াল ওয়েবসাইট

প্লে-ডো হলো একধরণের মডেলিং কম্পাউন্ড বা মডেলিং ক্লে যা দিয়ে বাচ্চারা বাসায় এবং স্কুলে নানা রকম জিনিস তৈরি করে থাকে। ত্রিশের দশকে যুক্তরাষ্ট্রের সিনসিনাটি, ওহাইও-এ ময়দা, বরিক এসিড, লবণ, পানি এবং খনিজ তেল এর সমন্বয়ে এটি তৈরি হয়েছিল ওয়ালপেপার পরিষ্কার করার কাজে।[১] পঞ্চাশ-এর দশকের মধ্যভাগ থেকে এটি নতুনভাবে তৈরি এবং বাজারজাত করা শুরু হয়েছিল সিনসিনাটির স্কুলগুলিতে, তখন একদল স্কুলের বাচ্চাকে এই ওয়ালপেপার পরিষ্কারক দিয়ে বিভিন্ন মডেল তৈরি করতে দেখা যায়। ১৯৫৬ সালের এক শিক্ষা বিষয়ক সম্মেলনে প্লে-ডো প্রদর্শিত হওয়ার পর থেকে নামকরা ডিপার্মেন্টাল ষ্টোরগুলি খুচরা বিক্রয় করা শুরু করে।[২] ১৯৫৭ সালে প্রভাবশালী শিশুতোষ টেলিভিশন অনুষ্ঠানগুলিতে প্লে-ডো এর বিজ্ঞাপন প্রচারের ফলে এর বিক্রয় আরো প্রসারিত হয়েছিল।[১] পঞ্চাশ-এর দশকের মধ্যভাগে খেলনার বাজারে প্লে-ডো এর যাত্রা শুরুর পর থেকে আরো নানা সহায়ক সামগ্রীর উৎপাদন শুরু হয়েছিল, যেমন ফান কারখানা।[৩] ২০০৩ সালে খেলনা শিল্প সমিতি "সেঞ্চুরি অফ টয় লিস্ট"-এ প্লে ডো-এর এর নাম যুক্ত করে।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

উৎপত্তি[সম্পাদনা]

প্লে-ডো দিয়ে তৈরি জিনিস

বিষক্রিয়া নেই, দাগ পড়ে না এবং পুনরায় ব্যবহারযোগ্য মডেলিং কম্পাউন্ড যা প্লে-ডো নামে পরিচিতি পেয়েছে, মূলত তার নাম রাখা হয়েছিল 'রেইনবো মডেলিং কম্পাউন্ড'।[৪] সিনসিনাটির সাবান উৎপাদনকারী কুটল প্রোডাক্টস এর নোয়াহ ম্যাকভিকার এই পুটির মতো নরম জিনিসটি বানান। তারা আসলে চাইছিলেন এমন একটি জিনিস যা দিয়ে ওয়ালপেপার থেকে কয়লার ঝুল অপসারণ করা যাবে।[৫] দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পরে ওয়ালপেপার পরিষ্কার করার জন্য পুটির চাহিদা ব্যাপকভাবে কমে যায়। কারণ সে সময় বাসাবাড়ীতে কয়লা ভিত্তিক তাপ উৎপাদন ব্যবস্থা, প্রাকৃতিক গ্যাস ভিত্তিক তাপ উৎপাদন ব্যবস্থায় পরিবর্তিত হচ্ছিল। ফলে ওয়ালপেপারে কয়লার ঝুল এর পরিমাণ কমে আসছিল। এছাড়া সেসময় পরিস্কারযোগ্য ভিনাইল ওয়ালপেপারও বাজারে চলে এসেছিল। ম্যাকভিকারের ভাগ্নে জো ম্যাকভিকার, যিনি কুটলে যোগদান করেছিলেন কোম্পানিকে দেউলিয়া হওয়ার হাত থেকে বাঁচানোর জন্য - একদিন আবিষ্কার করেন যে নার্সারি স্কুলের বাচ্চারা এই ওয়াল পেপার পরিষ্কারক দিয়ে বড়দিনে সাজানোর নানা জিনিস তৈরি করছেন।[১]

শুরু[সম্পাদনা]

জো ম্যাকভিকার স্কুলের নানা জিনিস প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান সমূহের এক সম্মেলনে এই প্লে-ডো নিয়ে হাজির হন[১] এবং সেখানে প্রদর্শনীর পরেই ওয়াশিংটন ডি.সি.-এর ডিপার্টমেন্টাল ষ্টোর উডওয়ার্ড এন্ড লোথ্রপ এটি বিক্রয় করা শুরু করে।[৬] প্লে-ডো প্রস্তুত এবং বিক্রয়ের জন্য ১৯৫৬ সালে ম্যাকভিকারগন রেইনবো ক্র্যাফট কোম্পানি প্রতিষ্ঠা করেন।[৭] ১৯৫৬ সালেই ৩টি প্যাকের ৭ আউন্স ক্যান তাদের পণ্য তালিকায় যোগ হয় এবং দোকানে প্রদর্শনীর পরেই নিউইয়র্কের ম্যাকি'জ ও শিকাগোর মার্শাল ফিল্ড'স খুচরা বিক্রয় শুরু করে। ১৯৫৭ সালে রসায়নবিদ ড. তিয়েন লিউ প্লে-ডো-এ লবণের পরিমাণ কমিয়ে দেন (ফলে মডেলগুলো রং নষ্ট হওয়া ছাড়াই শুকায়)। ১৯৫৮ সালে প্লে-ডো-এর বিজ্ঞাপন ক্যাপ্টেন ক্যাঙ্গারু, ডিং ডং স্কুল এবং রম্পার রুম-এ প্রদর্শিত হতে থাকে। প্লে-ডো-এর বিক্রয় সেসময় প্রায় তিন মিলিয়ন মার্কিন ডলারে পৌছায়।[১]

পরবর্তী উন্নয়ন[সম্পাদনা]

১৯৬৪ সালে প্লে-ডো যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স এবং ইতালি'তে রপ্তানি করা হয়।[১] আশির দশকে কার্ডবোর্ড ক্যান (যার তলা ছিলো মরিচা-প্রবণ ধাতুর তৈরি) এর বদলে সাশ্রয়ী প্লাস্টিক এর তৈরি আধারে এটি বাজারে আসে।[৮] ১৯৬৫ সালের মধ্যে রেইনবো ক্র্যাফটস প্লে-ডো এর পক্ষে প্যাটেন্ট লাভ করে।[৯] ১৯৬৫ সালে জেনারেল মিলস, রেইনবো ক্র্যাফটস এবং প্লে-ডো-এর সব স্বত্ব ৩ মিলিয়ন মার্কিন ডলারে কিনে নিয়ে এই পণ্যটি তাদের সহযোগী প্রতিষ্ঠান কেনার প্রোডাক্টস এর কাছে ন্যস্ত করে।[১][৬] ১৮৭১ সালে রেইনবো ক্র্যাফটস এবং কেনার প্রোডাক্টস একীভূত করা হয়। ১৯৮৭ সালে টংকা কর্পোরেশন প্রতিষ্ঠান দুটি ক্রয় করে। ১৯৯১ সালে হাশব্রো প্লে-ডো-এর মালিক হন এবং বর্তমানে তাদের প্রি-স্কুল ডিভিশনের মাধ্যমে প্লে-ডো উৎপাদন করছেন।[১] ১৯৯৬ সালে প্লে-ডো-এর ৪০তম বার্ষিকী উদযাপনের সময় সোনালী এবং রুপালী রং তাদের রং, এর প্যালেটে যোগ করেন।

মাস্কট[সম্পাদনা]

মধ্য পঞ্চাশের দশকে কিছু সময় প্লে-ডো এর মোড়কে বাচ্চাদের ছবি দিয়ে বাজারজাত করা হতো, কিন্তু পরে তা পরী মাস্কট দিয়ে প্রতিস্থাপিত হয়। ১৯৬০ সালে এটিকে ছাড়িয়ে যায় প্লে-ডো পিট, স্মক (ঢোলা জামা) এবং বেরেট (টুপি বিশেষ) পড়া এক বালক এর কার্টুন চরিত্র।[১] ২০০২ সালে প্লে-ডো পিট এর বেরেট প্রতিস্থাপিত হয় বেসবল ক্যাপ দিয়ে।[১] ২০১১ সাল থেকে বিজ্ঞাপনে ডো-ডোজ নামে পরিচিত জীবন্ত প্লে-ডো ক্যান দেখা যাচ্ছে।

উপকরণ[সম্পাদনা]

প্লে-ডো এর বর্তমান প্রস্তুতকারী হাশব্রো প্রকাশ করেছেন যে, প্লে-ডো এর মূল উপাদান পানি, লবণ এবং ময়দার মিশ্রণ[২] যদিও ২০০৪ সালের যুক্তরাষ্ট্রের প্যাটেন্ট ইঙ্গিত করছে, এটি পানি, শর্করা, লবণ, তেল (লুব্রিক্যান্ট), সুবাস, রং সহ আরো কিছু পদার্থের মিশ্রণ[১০] এক ধরণের পেট্রোলিয়াম জাতীয় পদার্থ ব্যবহারের কারণে এটি মসৃণ মনে হয় এবং বোরাক্স এটিকে মোল্ডের সাথে আটকে যাওয়া থেকে রক্ষা করে।[৩] বাসা-বাড়ীতে প্লে-ডো তৈরির জন্য অনেকেই লবণ, ময়দা বা ভুট্টার ময়দা, সবজির তেল (যেমন ক্যানোলা বা জলপাই এর তেল) এবং ক্রিম অফ টারটার ব্যবহার করে থাকেন।[১১]

সংশ্লিষ্ট পণ্যদ্রব্য[সম্পাদনা]

প্লে-ডো ফান ফ্যাক্টরি

১৯৬০ সালে বব বগগিল্ড এবং বিল ডেল প্লে-ডো ফান কারখানা (একটি খেলনা প্রেস, যা দিয়ে নানা রকম শেপ তৈরি করা যায়) উদ্ভাবন করেন।[১] ১৯৭৭ সালের প্লে-ডো ফাজি পাম্পার বারবার এন্ড বিউটি শপ-এ একটি ছোট পুতুল ছিল যার তৈরি করা চুল নানা ভাবে সাজানো যেতো। কম্পিউটার আসক্ত তরুণ প্রজন্মের জন্য ১৯৯৬ সালে শিক্ষামূলক সফটওয়্যার গেম প্লে-ডো ক্রিয়েশনস এর যাত্রা শুরু হয়। প্লে-ডো ক্রিয়েটিভটি টেবিল ২০০৩ সাল থেকে বাজারজাত করা শুরু হয়। ২০০৭ সালের বার্ষিকীতে প্লে-ডো সম্পর্কিত যে সব পণ্য বাজারে আসে তার মধ্যে আছে দ্য প্লে-ডো বার্থ ডে বাকেট, দ্য প্লে-ডো ফিফটি কালার্স প্যাক, দ্য প্লে-ডো ফাজি পাম্পার ক্রেজি কাট (১৯৭৭ সালের প্লে-ডো ফাজি পাম্পার বারবার এন্ড বিউটি শপের নতুন সংস্করণ) এবং দ্য প্লে-ডো ক্রিয়েটিভটি সেন্টার[৩] ২০১২ সালে 'প্লে-ডো প্লাস' তৈরি করা হয়। এটি সাধারণ প্লে-ডো-এর চাইতে হালকা, নরম এবং মসৃণ।

সাংস্কৃতিক প্রভাব[সম্পাদনা]

প্লে-ডো ১৯৫৫ থেকে ২০০৫ সালের মধ্যে ২ বিলিয়ন-এর বেশি বিক্রি হয়েছে[১] এবং ২০০৫ সালের হিসাব অনুযায়ী, পৃথিবীর ৭৫টি দেশে ৯৫ মিলিয়ন ক্যান প্রতি বৎসর বিক্রি হচ্ছে।[১] বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রের ৬০০-এরও বেশি দোকানে প্লে-ডো পাওয়া যায়।[১২]

প্লে-ডো এর গন্ধ দ্বারা অনুপ্রাণিত হয়ে এর ১৫তম বার্ষিকী উদযাপনে ডিমিটার ফ্র্যাগন্যান্স লাইব্রেরি সৃজনশীল মানুষদের তাদের ছোটবেলার কিম্ভূতকিমাকার ঘ্রাণ মনে করিয়ে দেয়ার উদ্দেশ্যে কিছু সীমিত সংস্করণের সুবাস বাজারে আনে।[২]

প্লে-ডো ১৯৯৮ সালে রচেষ্টার, নিউইয়র্কের দ্য ষ্ট্রং-এ ন্যাশনাল টয় হল অফ ফেমে অভিষিক্ত হয়। ২০০৩ সালে খেলনা শিল্প সমিতি তাদের 'সেঞ্চুরি অফ টয়জ লিস্ট' এ প্লে-ডো অন্তর্ভুক্ত করে, যেখানে বিশ শতকের ১০০টি সৃজনশীল ও স্মরণীয় খেলনার নাম আছে।

২০১৪ সালের শেষ দিকে অভিযোগ পাওয়ার পর কোম্পানিটি নতুন 'প্লে-ডো কেক মাউন্টেন' এক্সট্রুডার টুল বিনামূল্যে প্রতিস্থাপন করার ঘোষণা দেয়।[১৩]

চলচ্চিত্র[সম্পাদনা]

চেরনিন প্রোডাকশন্স এর প্রযোজনায়, জেসন মিকালেফ এর রচনায় এবং ফিগোর পল ফিগের পরিচালনায় ২০১৫ সালের এপ্রিল মাসে টুয়েন্টিথ সেঞ্চুরি ফক্স,হাশব্রো এর সাথে যৌথভাবে প্লে-ডো চলচ্চিত্র তৈরির কাজ শুরুর ঘোষণা প্রদান করে।[১৪]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Walsh, Tim (২০০৫)। "Play-doh"Timeless Toys: Classic Toys and the Playmakers Who Created Them। Kansas City: Andrews McMeel Publishing। পৃ: 115–120। আইএসবিএন 978-0-7407-5571-2 
  2. Wilson, Tracy V.। "How Play-Doh Modeling Compound Works"। How Stuff Works। সংগৃহীত ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০০৯ 
  3. Sobey, Edwin J.C.; Woody Sobey (২০০৮)। The Way Toys Work: The Science Behind the Magic 8 Ball, Etch A Sketch, Boomerang, and More। Chicago Review Press। পৃ: ৯৬। আইএসবিএন 978-1-55652-745-6 
  4. Coopee, Todd। "National Play-Doh Day"ToyTales.ca 
  5. "Accidental Brands", from Under the Influence, by Terry O'Reilly, on CBC.ca; first broadcast March 17, 2012
  6. "Rainbow Crafts Company, Inc."। Ohio History Central। ২৮ জুলাই ২০০৬। সংগৃহীত ৩০ অক্টোবর ২০০৮ 
  7. Phil Ament। "Play-Doh History - Invention of Play-Doh"। Ideafinder.com। সংগৃহীত ২০১১-০৫-২৩ 
  8. "The 50 Year History of Play-Doh"। ২০০৬। সংগৃহীত ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০০৯ 
  9. Noah W. McVicker and Joseph S. McVicker, "Plastic modeling composition of a soft, pliable working consistency," U.S. patent no. 3,167,440 (filed: May 17, 1960; issued: January 26, 1965).
  10. "Google Patents"। সংগৃহীত ২৮ জুলাই ২০১৪ 
  11. How to Make Playdough, How to Make Playdough Dot Net
  12. HowStuffWorks "How Play-Doh Modeling Compound Works"
  13. Respers France, Lisa। "Play-Doh will exchange phallic-shaped toy - CNN.com"CNN। সংগৃহীত ৩ জানুয়ারি ২০১৫ 
  14. Fleming, Jr, Mike (এপ্রিল ২, ২০১৫)। "Fox Molding ‘Play-Doh’ Film With Paul Feig Circling; Another Hasbro Toy Brand Making Movie Transfer"। Deadline। 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]