প্রেমভূমি (দক্ষিণ কোরিয়া)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
লাভ ল্যান্ডে একটি মিথষ্ক্রিয় ভাস্কর্য।

চেজু লাভল্যান্ড (제주 러브 랜드) (এটি লাভ ল্যান্ড নামেও পরিচিত) একটি বহিরঙ্গন ভাস্কর্য উদ্যান, যা দক্ষিণ কোরিয়ার চেজু দ্বীপে ২০০৪ সালে খোলা হয়েছিল। যৌনতা উদ্যানটির মূলভাব, যৌন শিক্ষার চলচ্চিত্র প্রদর্শন এবং বিভিন্ন যৌন অবস্থায় মানুষের প্রতিনিধিত্বকারী ১৪০টি ভাস্কর্যের উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করে। এর মধ্যে অন্যান্য উপাদান যেমন বড় লিঙ্গমূর্তি, পাথরের লেবিয়া এবং হস্তচালিত প্রদর্শনী যেমন "হস্তমৈথুন-চক্র" রয়েছে। উদ্যানের ওয়েবসাইটে উদ্যান সম্পর্কে বলা হয়েছে "এটি এমন একটি জায়গা যেখানে প্রেম সম্পর্কিত শিল্প ও যৌনতার মিলন হয়েছে।"

পটভূমি[সম্পাদনা]

১৯৭০-এর দশকে, দ্বীপের উষ্ণ জলবায়ু এবং স্নায়ু যুদ্ধ-যুগে বিদেশে ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞার কারণে জেজু দ্বীপ কোরীয় দম্পতির জন্য চেজু দ্বীপ একটি জনপ্রিয় হানিমুন গন্তব্যে পরিণত হয়। বেশিরভাগ দম্পতি, আয়োজিত বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হতে এখানে আসতেন এবং দ্বীপটি যৌনশিক্ষার কেন্দ্র হিসাবে পরিচিতি লাভ করে। জার্মানির ডের স্পিগেল ম্যাগাজিনের একটি নিবন্ধ অনুসারে, ১৯৮০ এর দশকের শেষের দিকে সাংবাদিক এবং ভ্রমণ লেখক সাইমন উইনচেস্টার জানিয়েছিলেন যে দ্বীপের কিছু হোটেল কর্মচারী "পেশাদার সহায়তা প্রদানকারী" হিসাবে সহায়তা করতেন। সন্ধ্যায় হোটেলটি নবদম্পতিদের আরাম করতে সহায়তা প্রদান করতে কামনা উদ্রেককারী উপাদান সমন্বিত একটি বিনোদন অনুষ্ঠানের আয়োজন করতো।

২০০২ সালে, সিওলের হংগিক বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতকগণ উদ্যানের জন্য ভাস্কর্য তৈরি শুরু করেন, যা ১ নভেম্বর ২০০৪ এ উন্মুক্ত করা হয়। "দুটি ফুটবল মাঠ"-এর সমান আকারের একটি বিস্তৃত জায়গায়, সমস্ত ভাস্কর্য প্রায় এক ঘণ্টার মধ্যে দেখা সম্ভব এবং বিভিন্ন কোরীয় শিল্পীদের কাজ একটি অতিরিক্ত অংশে প্রদর্শিত হয়।

দর্শনার্থীদের কমপক্ষে ১৮ বছর বয়সী হওয়া আবশ্যক এবং প্রাপ্তবয়স্কদের পরিদর্শন করার সময় অপ্রাপ্তবয়স্কদের জন্য একটি পৃথক খেলার জায়গা রয়েছে। খেলার ক্ষেত্রটির বিষয়বস্তু অ্যানিমে

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]