পোকেমন (অ্যানিমে)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পোকেমন
International Pokémon logo.svg
ইংরেজিতে পোকেমন লোগো
ポケットモンスター
(Pokemon)
ধরনভ্রমণ, কৌতুক, অলীক কল্পকাহিনী[১][২]
আনিমে টেলিভিশন সিরিজ
পরিচালক
  • কুনিহিকো ইউয়ামা (প্রধান পরিচালক: First Series – SM)
  • মাসামিতসু হিকাডা (First Series; AG #১–১৫৮)
  • নোরিহিকো সুডো (AG #১৭০, DP, BW)
  • ইয়ুজি আসাডা (Diamond & Pearl #১৭১–১৯৩)
  • টেটসুয়ো ইয়াজিমা (XY)
  • ডাইকি টোমিয়াসু (সহকারী পরিচালক: XY #৯৪–১২৩; পরিচালক: XY #১২৪, #১৪১–১৪২; SM; প্রধান পরিচালক: PM২০১৯ #১–চলমান)
  • মাকি কোডাইরা (সহকারী পরিচালক: SM #৫৩–১৪৬; পরিচালক: PM২০১৯ #১–চলমান)
লেখক
  • তাকেশি সুডো (First Series #১–১৫৭)
  • জুঙ্কি তাকেগামি (First Series #১৫৮-২৭৪,AG)
  • আতসুহিরো টোমিয়োকা (DP, BW, XY)
  • আয়া মাতসুই (SM)
  • শোজি ইয়োনেমোরা (PM২০১৯)
সঙ্গীত
চিত্রশালা
  • OLM, Inc.
  • Team Ota (১৯৯৭–২০০৬)
  • Team Iguchi (২০০৬–২০০৯)
  • Team Kato (২০১০–বর্তমান)
অনুমতিপ্রাপ্ত
নেটওয়ার্কTV Tokyo
ইংরেজি নেটওয়ার্ক
চলিত সময় ১ই এপ্রিল, ১৯৯৭ চলমান
Specials
  • ৮টি বিশেষ টেলিভিশন সিরিজ (৩টি পূর্ণদৈর্ঘ্য, ৫টি স্বাভাবিক দৈর্ঘ্য)
  • ২৫টি পার্শ্বগল্প
প্রবেশদ্বার আইকন আনিমে এবং মাঙ্গা প্রবেশদ্বার

পোকেমন হলো একটি জাপানভিত্তিক অ্যানিমেটেড সিরিজ। পোকেমন নামটি জাপানি ব্র্যান্ড পকেট মন্সটার (ポケットモンスター, পোকেত্তোমনসুতা)-এর সংক্ষিপ্ত রূপ। অ্যানিমেটি সর্বপ্রথম সম্প্রচারিত হয় ১৯৯৭ সালের ১ এপ্রিল জাপানের টিভি টোকিওতে। পরবর্তীতে ১৯৯৮ সালের ৮ সেপ্টেম্বর যুক্তরাষ্ট্রে ইংরেজি ভাষায় অনূদিত ও সম্প্রচারিত হয়।

সিরিজটি ৮টি প্রজন্ম দ্বারা বিভক্ত, এই প্রজন্মগুলোর প্রত্যেকটিই পোকেমন ভিডিও গেমসের ওপর ভিত্তি করে তৈরি. এখনও পর্যন্ত সিরিজটিতে ২৩টি সিজন বিদ্যমান যার প্রত্যেকটিই আন্তর্জাতিকভাবে সম্প্রচারিত হয়েছে, যার মধ্যে সিজন ২৩ যুক্তরাষ্ট্রে নেটফ্লিক্স দ্বারা ২০২০ সালের ১২ জুন থেকে সম্প্রচারিত হচ্ছে.[৪] প্রত্যেকটি সিরিজ অ্যাশ কেচম নামক কল্পিত একজন বালককে কেন্দ্র করে তৈরি, যে কিনা একজন পোকেমন প্রশিক্ষক। এবং তার সঙ্গী পোকেমন হলো পিকাচু যে কিনা প্রত্যেকটা সিরিজেই তার সাথে অবস্থান করেছে। এছাড়াও বর্তমানে চলমান সিরিজে গোহ নামক একটি মানব চরিত্রকে দেখা যাচ্ছে। অ্যাশ পোকেমন লীগে অংশগ্রহণের জন্য বিভিন্ন অঞ্চলে (ক্যান্টো, জোহটো, হোয়েন, সিনোহ, ইউনোভা, কালোস) ভ্রমণ করেছে এবং সবশেষে আলোলা অঞ্চলে এসে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে। বর্তমানে সে বিশ্ব করোনেশন সিরিজ নামক চ্যাম্পিয়ন লীগে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে এবং গ্যালার অঞ্চলের চ্যাম্পিয়ন লিওনকে হারানোর জন্য তার প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। তার জীবনের মূল লক্ষ্য হলো পোকেমন মাস্টার অর্থাৎ দুনিয়ার সেরা পোকেমন প্রশিক্ষক হওয়া।

পোকেমন অ্যানিমে সিরিজটি মূলত বিশ্বজুড়ে অ্যানিমেকে আরও বেশি জনপ্রিয় ও পরিচিত হয়ে ওঠার জন্য কৃতিত্ব পেয়েছিল, বিশেষত যুক্তরাষ্ট্রে, যেখানে দুইটি সর্বাধিক উপার্জনকারী অ্যানিমে ছিলো দুইটি পোকেমন চলচ্চিত্র।[৫] মূলধারার পশ্চিমা শ্রোতাদের কাছে অ্যানিমেকে সাফল্যের স্তরে পৌঁছানোর জন্য এটি টেলিভিশনে প্রথম অ্যানিমে সিরিজগুলির একটি হিসাবেও বিবেচিত হয়েছিল,[৬][৭] একই সাথে গেম সিরিজকে জনপ্রিয়তার অন্য মাত্রায় পৌঁছানোর জন্য এই অ্যানিমেটাকে কৃতিত্ব দেওয়া হচ্ছে।[৮][৯] সফল ভিডিও গেম থেকে অ্যানিমে তৈরির জন্য পোকেমনকে সর্বকালের সবচেয়ে সেরা ফ্রাঞ্জাইন্জি হিসেবে বিবেচনা করা হয়,[১০] যার কিনা ১০০০ এর বেশি পর্ব রয়েছে, যা কিনা আন্তর্জাতিক বাজারে সহজে খাপ খাইয়ে নিয়েছে। বর্তমানে বিশ্বব্যাপী ১৬৯টি দেশে সম্প্রচারিত হচ্ছে, এবং ২০১৬ সালে নেটফ্লিক্সের দেওয়া তথ্যমতে, এটি বিশ্বব্যাপী সবচেয়ে বেশি দেখা অনুষ্ঠানগুলোর মধ্যে একটি।[১১]

পটভূমি[সম্পাদনা]

চরিত্রসমূহ[সম্পাদনা]

  • প্রধান মানবচরিত্রসমূহ

মূল সিরিজ/প্রথম সিরিজ:

১. অ্যাশ কেচম - প্রধান চরিত্র। জাপানি নাম সাতোশি থেকে এই নামটি নেওয়া হয়েছে। মূলত পোকেমনের নির্মাতা সাতোশি তাজিরির নাম থেকে এই নাম নেওয়া হয়েছে। এই সিরিজের মূল চরিত্র যে কিনা পোকেমন মাস্টার হওয়ার লক্ষ্য নিয়ে ১০ বছর বয়সে ভ্রমণে বেরিয়ে পড়ে। প্রথমে তার এই যাত্রা সহজ না হলেও ধীরে ধীরে সে একজন শক্ত প্রতিযোগী হয়ে উঠছে। তার নিজবাড়ি হলো ক্যান্টো অঞ্চলের প্যালেট টাউনে

২. মিস্টি - অ্যাশের বন্ধু। জাপানি নাম কাসুমি। বাড়ি: ক্যান্টো অঞ্চলের সুরেলিয়ান সিটিতে। সে সিজন (১-৫) পর্যন্ত পার্শ্বপ্রধানচরিত্র হিসেবে (প্রধান মেয়ে চরিত্র) অ্যাশের সাথে যোগ দেয়। বর্তমানে সে সুরেলিয়ান সিটি জিম লিডার।

৩. ব্রক - অ্যাশের বন্ধু। জাপানি নাম তাকেশি। বাড়ি: ক্যান্টো অঞ্চলের পিউটার সিটি এবং সেখানকার সাবেক জিম লিডার। অ্যাশের সাথে সবচেয়ে বেশি সময় সে ভ্রমণ করেছে। সে সিজন ১ এবং (৩-১৩) পর্যন্ত পার্শ্বপ্রধান চরিত্র হিসেবে অবস্থান করেছিলো। বর্তমানে সে পোকেমন ডাক্তার হওয়ার জন্য লেখাপড়া করছে।

৪. ট্রেইসি - জাপানি নাম কেনজি। একজন পোকেমন অবজারভার। সিজন ২তে অরেঞ্জ আইল্যান্ডে অ্যাশের সাথে ভ্রমণ করেছিলো।


অ্যাডভান্সড সিরিজ

৫. মে - জাপানি নাম হারুকাহোয়েন অঞ্চলের পিটালবার্গ সিটির বাসিন্দা। একজন পোকেমন কো-অর্ডিনেটর হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে পোকেমন কনটেস্ট নামক প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করছে এবং অ্যাশের মতোই নিজের লক্ষ্যপূরণের জন্য বিভিন্ন অঞ্চলে ভ্রমণ করছে। সিরিজের প্রধান মেয়ে চরিত্র। সিজন (৬-৯) পর্যন্ত পার্শ্বপ্রধানচরিত্র হিসেবে দেখা যায়।

৬. ম্যাক্স - জাপানি নাম মাসাটো। ৭ বছর বয়সে ভ্রমণ শুরু করে। মে-এর ছোট ভাই। সিজন (৬-৯) পর্যন্ত অন্যতম পার্শ্বপ্রধানচরিত্র হিসেবে দেখা যায়।


ডায়মন্ড এন্ড পার্ল সিরিজ

৭. ডন - জাপানি নাম হিকারিসিনোহ অঞ্চলের টুইনলিফ সিটির বাসিন্দা। সে তার মায়ের মতো সেরা পোকেমন কো-অর্ডিনেটর হতে চায়। বর্তমানে সে তার লক্ষ্যপূরণের জন্য বিভিন্ন অঞ্চলে ভ্রমণ করছে। সিজন (১০-১৩) পর্যন্ত অন্যতম পার্শ্বপ্রধানচরিত্র হিসেবে দেখা যায়।


বেস্ট উইশেস সিরিজ

৮. আইরিস - জাপানি নাম আইরিসকে ইংরেজিতে অপরিবর্তিত রাখা হয়েছে। ইউনোভা অঞ্চলের ভিলেজ অব ড্রাগনস নামক গ্রামের বাসিন্দা। তার জীবনের লক্ষ্য হলো একজন ড্রাগন মাস্টার হওয়া। সিজন (১৪-১৬) পর্যন্ত অন্যতম পার্শ্বপ্রধানচরিত্র হিসেবে দেখা যায়।

৯. সাইলান - জাপানি নাম ডেন্টইউনোভা অঞ্চলের স্ট্রাইটোন সিটির বাসিন্দা এবং তার আরও দুইভাইয়ের মতো ঐ শহরের বাসিন্দা। বর্তমানে সে একজন সেরা মানের পোকেমন কননিউসিয়র হওয়ার জন্য চেষ্টা করে চলেছে। সিজন (১৪-১৬) পর্যন্ত অন্যতম পার্শ্বপ্রধানচরিত্র হিসেবে দেখা যায়।


এক্স ওয়াই সিরিজ

১০. সেরিনা - জাপানি নাম সেরেনা (ইংরেজি এবং জাপানি নাম মূলত একই, শুধুমাত্র উচ্চারণে ভিন্নতা রয়েছে)। কালোস অঞ্চলের ভ্যানিভিল টাউনের বাসিন্দা। পুরো অ্যানিমেতে একমাত্র পার্শ্বপ্রধান চরিত্র যে কিনা অ্যাশের ছোটবেলার বন্ধু। কালোস কুইন হওয়ার জন্য পোকেমন শো-কেস নামক প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করতে দেখা যায়। অন্যান্য চরিত্রগুলোর চেয়ে সে একটু আলাদা কেননা অ্যাশের প্রতি তার আকর্ষণ/ ভালোবাসা রয়েছে। অ্যানিমেতে তাকে সর্বশেষ হোয়েন অঞ্চল ভ্রমণ করতে দেখা যায়।

১১. ক্লেমেন্ট - জাপানি নাম সাইট্রোনকালোস অঞ্চলের লুমিওজ সিটির বাসিন্দা এবং জিম লিডার। রোবট ও কম্পিউটার সহ ইলেকট্রনিক বিজ্ঞানে তার দারুণ দক্ষতা রয়েছে। বর্তমানে সে জিম লিডার হিসেবে নিজের দায়িত্বপালন করে যাচ্ছে।

১২. বনি - জাপানি নাম ইউরেকাক্লেমেন্ট এর ছোট বোন।


সান এন্ড মুন সিরিজ

১৩. লিলি - জাপানি নামকে ইংরেজিতে অপরিবর্তিত রাখা হয়েছে। আলোলা অঞ্চলের হাউওলি সিটির বাসিন্দা। প্রথমদিকে পোকেমনের প্রতি সে ভীষণ রকমের ভয় অনুভব করতো। পরবর্তীতে সে এই ভয় কাটিয়ে উঠতে সমর্থ হয়। বর্তমানে সে তার বাবার খোঁজ পাওয়ার জন্য অনুসন্ধান করছে।

১৪. ম্যালো - জাপানি নাম মাওআলোলা অঞ্চলের হাউওলি সিটির বাসিন্দা। একজন রন্ধনশিল্পী হিসেবে সে নিজেকে গড়ে তুলতে চায়।

১৫. লানা - জাপানি নাম সুইরেনআলোলা অঞ্চলের হাউওলি সিটির বাসিন্দা। ওয়াটার টাইপ পোকেমনের প্রতি তার ঝোঁক রয়েছে।

১৬. কিয়াওয়ে - জাপানি নাম কাকিআলোলা অঞ্চলের পানিওলা রাঞ্চের বাসিন্দা। অ্যাশের একজন প্রতিদ্বন্দ্বী। সে নিজেকে অ্যাশের চেয়েও শক্তিশালী পোকেমন প্রশিক্ষক হিসেবে গড়ে তোলার জন্য চেষ্টা করে যাচ্ছে।

১৭. সফোক্লিস - জাপানি নাম মামানেআলোলা অঞ্চলের হাউওলি সিটির বাসিন্দা। ইলেকট্রিক বিষয় এবং পোকেমন নিয়ে তার কর্মকাণ্ড বিদ্যমান।


জার্নি সিরিজ

১৮. গোহ - জাপানি নাম গোক্যান্টো অঞ্চলের ভার্মিলিয়ন সিটির বাসিন্দা। মিউ নামক পৌরাণিক পোকেমন ধরা তার স্বপ্ন। সিরিজ ল্যাবরেটরির "রিসার্চ ফেলো" হিসেবে কাজ করছে।

১৯. ক্লোয়ি - জাপানি নাম কোহারুক্যান্টো অঞ্চলের ভার্মিলিয়ন সিটির বাসিন্দা। সিরিজে এখনও পর্যন্ত সে প্রধান মেয়েচরিত্র এবং পার্শ্বপ্রধান চরিত্র হিসেবে বিদ্যমান, যদিও তাকে অ্যাশ এবং গোহ এর মতো নিয়মিত দেখা যাচ্ছে না। এ এই সিরিজের শুরুর দিকে পোকেমনের প্রতি তার আগ্রহ না থাকলেও ধীরে ধীরে সে তার মানসিকতা পরিবর্তন করছে এবং আশা করা যায় সামনের দিনগুলোতে তার ব্যাপারে নতুন কিছু জানা যাবে।

পর্ব[সম্পাদনা]

পর্বসমূহের তালিকা (সিজন অনুযায়ী)
সিজন নং নাম পর্ব সংখ্যা প্রথম সম্প্রচার সর্বশেষ সম্প্রচার
০১ ইন্ডিগো লিগ ৮২ ১ এপ্রিল ১৯৯৭ ২১ জানুয়ারি ১৯৯৯
০২ অ্যাডভেঞ্চার্স ইন দি অরেঞ্জ আইল্যান্ড ৩৬ ২৮ জানুয়ারি ১৯৯৯ ৭ অক্টোবর ১৯৯৯
০৩ দি জোহটো জার্নিজ ৪১ ১৪ অক্টোবর ১৯৯৯ ২৭ জুলাই ২০০০
০৪ জোহটো লিগ চ্যাম্পিয়নস ৫২ ৩ আগস্ট ২০০০ ২ আগস্ট ২০০১
০৫ মাস্টার কোয়েস্ট ৬৫ ৯ আগস্ট ২০০১ ১৪ নভেম্বর ২০০২
০৬ অ্যাডভান্সড ৪০ ২১ নভেম্বর ২০০২ ২৮ আগস্ট ২০০৩
০৭ অ্যাডভান্সড চ্যালেঞ্জ ৫২ ৪ সেপ্টেম্বর ২০০৩ ২ সেপ্টেম্বর ২০০৪
০৮ অ্যাডভান্সড ব্যাটল ৫৪ ৯ সেপ্টেম্বর ২০০৪ ২৯ সেপ্টেম্বর ২০০৫
০৯ ব্যাটল ফ্রন্টিয়ার ৪৭ ৬ অক্টোবর ২০০৫ ১৪ সেপ্টেম্বর ২০০৬
১০ ডায়মন্ড এন্ড পার্ল ৫২ ২৮ সেপ্টেম্বর ২০০৬ ২৫ অক্টোবর ২০০৭
১১ ডায়মন্ড এন্ড পার্ল: ব্যাটল ডাইমেনশন ৫২ ৮ নভেম্বর ২০০৭ ৪ ডিসেম্বর ২০০৮
১২ ডায়মন্ড এন্ড পার্ল: গ্যালাকটিক ব্যাটলস ৫৩ ৪ ডিসেম্বর ২০০৮ ২৪ ডিসেম্বর ২০০৯
১৩ ডায়মন্ড এন্ড পার্ল: সিনোহ লিগ ভিক্টর্স ৩৪ ৭ জানুয়ারি ২০১০ ৯ সেপ্টেম্বর ২০১০
১৪ ব্লাক এন্ড হোয়াইট ৫০ ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১০ ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১১
১৫ ব্লাক এন্ড হোয়াইট: রাইভাল ডেসটিনিজ ৪৯ ২২ সেপ্টেম্বর ২০১১ ৪ অক্টোবর ২০১২
১৬ ব্লাক এন্ড হোয়াইট: অ্যাডভেঞ্চার্স ইন ইউনোভা ২৫ ১১ অক্টোবর ২০১২ ১৮ এপ্রিল ২০১৩
ব্লাক এন্ড হোয়াইট: অ্যাডভেঞ্চার্স ইন ইউনোভা এন্ড বিয়োন্ড ২০ ২৫ এপ্রিল ২০১৩ ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৩
১৭ এক্সওয়াই ৪৮ ১৭ অক্টোবর ২০১৩ ৩০ অক্টোবর ২০১৪
১৮ এক্সওয়াই: কালোস কোয়েস্ট ৪৫ ১৩ নভেম্বর ২০১৪ ২২ অক্টোবর ২০১৫
১৯ এক্সওয়াইজেড ৪৭ ২৯ অক্টোবর ২০১৫ ২৭ অক্টোবর ২০১৬
২০ সান এন্ড মুন ৪৩ ১৭ নভেম্বর ২০১৬ ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৭
২১ সান এন্ড মুন: আল্ট্রা অ্যাডভেঞ্চার্স ৪৯ ৫ অক্টোবর ২০১৭ ১৪ অক্টোবর ২০১৮
২২ সান এন্ড মুন: আল্ট্রা লিজেন্ডস ৫৪ ২১ অক্টোবর ২০১৮ ৩ নভেম্বর ২০১৯
২৩ জার্নিজ ৪৮ ১৭ নভেম্বর ২০১৯ ১১ ডিসেম্বর ২০২০
২৪ মাস্টার জার্নিজ ১৭* ৮ জানুয়ারি ২০২১ ঘোষণা করা হবে
  • বর্তমানে চলমান

'সাময়িক বিরতি

পার্শ্ব ও স্পিন-অফ সিরিজসমূহ[সম্পাদনা]

পোকেমন ক্রনিকলস

২২-১০-২০০৩ থেকে ২৮-০৯-২০০৪ পর্যন্ত জাপানে টিভি টোকিওতে সম্প্রচারিত হয়। পরবর্তীতে ২০০৫-২০০৬ সালে বিভিন্ন দেশে ইংরেজিতে অনূদিত ও সম্প্রচারিত হয়। জাপানি ভাষায় এর নাম পকেট মন্সটার্স সাইড স্টোরিজ (ポケットモンスター サイドストーリー, পোকেত্তো মনসুটা সাইড স্টোরি)। এর এপিসোড সংখ্যা ২২টি। এটি মূল সিরিজের সাথে সরাসরি সম্পর্কযুক্ত যা কিনা অ্যাশের বন্ধু, প্রতিযোগী, প্রতিদ্বন্দ্বী, তার পরিবার এবং টিম রকেটের বিভিন্ন কাহিনীকে ফুটিয়ে তুলেছে। মূলত সিরিজটি অ্যাশের অনুপস্থিতিতে অন্যান্য চরিত্রসমূহের কর্মকান্ডকে তুলে ধরেছে।

পোকেমন অরিজিন

পোকেমন পার্পল

পোকেমন জেনারেশনস

এটিও মূল সিরিজের সাথে সম্পৃক্ত একটি সিরিজ। এর এপিসোড সংখ্যা মাত্র ৩টি। এটি সিজন ১৭ এর সাথে সরাসরি যুক্ত। সিরিজটি মূলত অ্যাশের প্রতিদ্বন্দ্বী আলানকে কেন্দ্র করেই তৈরি করা।

পোকেমন মেগা এভালুশন স্পেশাল

পোকেমন টুয়াইলাইট উইংগস

সিরিজটি ২০২০ সালের ১৫ই জানুয়ারি সর্বপ্রথম সম্প্রচার করা হয়। এই সিরিজটি বিভিন্ন সময়ে ইউটিউবের মাধ্যমে প্রচার করা হয়েছে। এর এপিসোড সংখ্যা বর্তমানে ৯টি। সিরিজটি গ্যালার অঞ্চলকে কেন্দ্র করেই তৈরি করা।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Pokémon Manga & Anime"Viz Media। সংগ্রহের তারিখ এপ্রিল ২৯, ২০১৯ 
  2. Stephenson, Brad। "What is Pokemon?"About.com। সেপ্টেম্বর ৬, ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  3. Sofka, Samantha (নভেম্বর ১৭, ২০১৬)। "Breaking: Pokemon the Series Sun and Moon to debut on Disney XD"। Oh My Disney। 
  4. Porter, Rick। "Netflix Snags Rights to 'Pokémon' Animated Series"The Hollywood Reporter। সংগ্রহের তারিখ ২৩ এপ্রিল ২০২০ 
  5. "Animation – Anime Movies at the Box Office"Box Office Mojo (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১২-০৪-২৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৫-১৭ 
  6. "The 'Pokemon' Anime Is Still Great After All These Years"Inverse। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৫-১৯ 
  7. Chua-Eoan, Howard; Larimer, Tim (১৯৯৯-১১-১৪)। "Beware of the Pokemania"Timeআইএসএসএন 0040-781X। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৫-১৯ 
  8. Bailey, Kat। "Why the Pokemon Anime is the Most Successful Adaptation of a Videogame Ever"USgamer (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৫-১৯ 
  9. "How the Pokémon cartoon and games form one of media's best symbiotic relationships"VentureBeat। ২০১৬-০৩-০২। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৫-১৯ 
  10. "Why the Pokemon Anime is the Most Successful Adaptation of a Videogame Ever"USgamer (ইংরেজি ভাষায়)। নভেম্বর ১৭, ২০১৬। 
  11. "Business Summary"The Pokémon Company। মার্চ ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ জুন ১১, ২০১৮