পুরুলিয়ায় অস্ত্র বর্ষণের ঘটনা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

পারুলিয়ায় অস্ত্র বর্ষণের ঘটনা হল ১৭ ডিসেম্বর ১৯৯৫ সালে ভারতে পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের পুরুলিয়া জেলায় অ্যান্টোনোভ এন-২৬ উড়োজাহাজ থেকে অননুমোদিত অস্ত্র অপসারণ করার একটি ঘটনার বিষয়ে আইনগত মামলা। [১][২] প্রধান অভিযুক্ত "কিম ডেভি" (প্রকৃত নাম নিলস হোলক, উয়েস নিলস ক্রিশ্চিয়ান নেলসন) দাবি করে যে, কংগ্রেস পরিচালিত ভারতীয় সরকার রিসার্চ অ্যান্ড অ্যানালাইসিস উইং ও এমআই৫ এর সাথে যুক্ত হয়ে পশ্চিমবঙ্গের কমিউনিস্ট সরকারকে উৎখাত করার ষড়যন্ত্র করেছিল এবং কেন্দ্রীয় সরকারের নিরাপত্তার দ্বারা তিনি ডেনমার্কে ফিরে আসেন। তিনি আরো অভিযোগ করেন যে, ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী পি ভি নারসীমা রাও সহ সংসদ সদস্য পাপ্পু যাদব ভারত থেকে তার নিরাপদ প্রস্থানের ব্যবস্থা করে ছিল। [৩][৪]

পটভূমি[সম্পাদনা]

একটি অ্যান্টোনোভ বিমান ১৭ ই ডিসেম্বর ১৯৯৫ সালের রাতে পুরুলিয়া জেলার ঝালদা, ঘাটাঙ্গা, বেলামু, মারামু গ্রামের একটি বৃহত এলাকায় সাতশো একে-৪৭ রাইফেল এবং ১৬ হাজারেরও বেশি গোলাবারুদ সহ অস্ত্র ফেলে দেয়। অনেক দিন পরে, যখন বিমানটি ভারতীয় আকাশসীমা পুনরায় প্রবেশ করে, তখন এটি ভারতীয় বিমান বাহিনীর মিগ-২১ এর দ্বারা আটক করা হয় এবং জোরপূর্বক অবতরণ করতে বাধ্য করা হয়।

উদ্দেশ্য এবং প্রাপক[সম্পাদনা]

সত্যিকারের উদ্দেশ্যটি রহস্য এবং অনুমানে বিভ্রান্তিকর। বিবিসির তদন্তের পর, অভিযোগ করা হয় যে অস্ত্রগুলি সামাজিক-আধ্যাত্মিক সংগঠন আনন্দ মার্গ-এর উদ্দেশ্যে ফেলা হয়ে ছিল। [৫] মামলার প্রধান আসামি কিম ডেভি, যিনি দাবি করে যে কেন্দ্রীয় সরকার নিজেই অস্ত্র বর্ষণের ঘটনার পিছনে ছিল, সেসময় বিচ্ছিন্নতাবাদী ও সিপিআই (এম) সমর্থকদের উৎখাত করার জন্য অন্ত্র বর্ষণ করা হয়েছিল। [৬][৭]

১৯৯৭ সালে একটি ভারতীয় আদালত ঘোষণা করে যে আনন্দ মার্গ নামে একটি গোষ্ঠী প্রকৃতপক্ষে বন্দুক ও গোলাবারুদ গ্রহণ করে। [৮] পাইলট এর সাক্ষ্য উপর ভিত্তি করে, যেমন বিমান এ আনন্দ মার্গ সদর দফতর একটি ছবি ও অন্যান্য প্রমাণ থেকে, বিচারক ঘোষণা করেন যে :[৯] "উপলব্ধ উপকরণ থেকে আমি একটি সিদ্ধাতে প্রতিষ্ঠিত হয়েছি, তা হল- যে অস্ত্রগুলি ফেলা হয়ে ছিল তার লক্ষ্য ছিল আনন্দ মার্গ এবং সঠিকভাবে বলতে হয় তিনটি তলাবিশিষ্ট সাদা ভবন ছিল লক্ষ্য এবং সেই লক্ষ্যে অস্ত্রগুলি উড়ন্ত উড়োজাহাজ থেকে অস্ত্রগুলি ফেলার চেষ্টা করা হয়েছিল এবং বিমানগুলি বিমানে উপকরণের ভিত্তিতে লক্ষ্যকে চিহ্নিত করে।" যাইহোক, ঘটনার বহু বছর পরেও, ঘটনার উদ্দেশ্য ও পদ্ধতির বিস্তারিত বিবরণ রহস্যের মধ্যে আবৃত করে রাখা হয়েছে।

গ্রেফতার এবং শাস্তি[সম্পাদনা]

জনপ্রিয় মিডিয়া[সম্পাদনা]

২০১৭ সালে, মুক্তি প্রাপ্ত জগ্গা জাসুস[১০][১১] চলচ্চিত্রের গল্পে কুখ্যাত পুরুলিয়ায় অস্ত্র বর্ষণের ঘটনা'টি তুলে ধরা হয়েছে। এই চলচ্চিত্রে দেখানো হয় যে একটি উড়োজাহাজ থেকে অস্ত্র ও গোলাবারুদের বাক্স খোলা মাঠের মাঝে ফেলে দিয়ে চলে যেতে। চলচ্চিত্রটিতে অভিনয় করেছেন অভিনেতা রণবীর কাপুর, ক্যাটরিনা কাইফ, শাশ্বত চট্টোপাধ্যায়সহ আরও অনেকে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Purulia Expose: India's best kept secret" 
  2. "Purulia arms drop case resurfaces with new set of revelations" 
  3. "Delhi okayed Purulia arms drop: Davy"The Times Of India। ২৯ এপ্রিল ২০১১। ৩ জানুয়ারি ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৭ এপ্রিল ২০১৮ 
  4. "Purulia arms drop had govt sanction: Davy" 
  5. "Alleged gun runner's conspiracy claims"BBC Online। জুলাই ২৩, ১৯৯৮। সংগ্রহের তারিখ ১৩ মার্চ ২০১৩ 
  6. Apr 28, 2011, 01.22pm IST (১৯৯৫-১২-১৮)। "Purulia Expose: India's best kept secret"। The Times of India। ২০১২-০৯-০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৩-০৩-১৩ 
  7. "Purulia arms drop: Niels Holck aka Kim Davy tells his story"। ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৭ এপ্রিল ২০১৮ 
  8. "Purulia arms case: Kim Davy is a terrorist, we will get him extradited, says CBI"The Economic Times। ৩০ এপ্রিল ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ১৩ মার্চ ২০১৩ 
  9. "June 1997 Judgment" (PDF)। ২৯ এপ্রিল ২০১১ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৯ এপ্রিল ২০১১ 
  10. staff (২৮ জানুয়ারি ২০১৪)। "Katrina Kaif-Ranbir delay film: They have pushed dates of 'Jagga Jasoos' together ahead"Daily News & Analysis। সংগ্রহের তারিখ ৬ জুলাই ২০১৪ 
  11. staff (২৯ জানুয়ারি ২০১৪)। "Katrina and Ranbir deferring Jagga Jasoos?"India Today। সংগ্রহের তারিখ ৬ জুলাই ২০১৪ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]