পাসেও আ ওরিইয়াস দেল মার

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পাসেও আ লা ওরিয়া দেল মার
Joaquin Sorolla - Paseo a la orillas del mar.jpg
শিল্পীহোয়াকিন সোরোইয়া
বছর১৯১১ (1911)
উপাদানতৈল চিত্র
আয়তন২০৫ cm × ২০০ cm (৮১ ইঞ্চি × ৭৯ ইঞ্চি)
অবস্থানসরল্লা জাদুঘর, মাদ্রিদ

পাসেও আ লা ওরিয়া দেল মার স্প্যানিশ চিত্রশিল্পী হোয়াকিন সোরোইয়া(১৮৬৩–১৯২৩) আঁকা একটি রঙিন তৈল চিত্র যা ১৯০৯ সালে আঁকা হয়েছিল।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

১৯০৯ সালের, চার চারটি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের শহরগুলিতে প্রদর্শনী থেকে ফিরে এসে, হোয়াকিন সোরোইয়া বসন্ততে, পাসেও আ লা ওরিয়া দেল মার রঙিন তৈল চিত্র চিত্রাঙ্কন করেন। নিউইয়র্কে তার সাফল্যের কথা ধরা পরে, তার চিত্রের স্পন্দনশীল রঙের ব্যবহারে যেমন মুক্ত ব্রাশ এবং হালকা রঙ।

১৯১১ সাল থেকে, চিত্রকলা স্টুডিওতে ক্যানভাসটি পাওয়া যায় এবং ১৯৩২ সাল থেকে হোয়াকিন সোরোইয়ার জাদুঘর সংগ্রহের সংখ্যা ০০৮৩৪।

বিবরণ[সম্পাদনা]

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে তার সাফল্যের পর, হোয়াকিন সোরোইয়া ১৯০৯ সালে ভ্যালেন্সিয়া উপকূলে "ক্যানো অন দ্য কোস্ট" বা "পাসেও আ লা ওরিয়া দেল মার" বা ইংরাজিতে "বিচ অফ দ্য ওয়াক" নামেও পরিচিত রঙিন তৈল চিত্র চিত্রাঙ্কন করেন। তৈল চিত্রটিতে উঠে আসে, ভ্যালেন্সিয়া সৈকতে সূর্যাস্ত সময়ে হাতে একটি ছাতা নিয়ে চিত্রশিল্পীর স্ত্রী, জোয়াকিম সঙ্গে তাদের বড় মেয়ে ক্লোথিল্ড গার্সিয়ার হাঁটার দৃশ্য।[১] রঙিন তৈল চিত্রটির উচ্চতা ২০৫ সেমি এবং প্রস্থ ২০০ সেমি। এখন এটি মাদ্রিদের মেসো সোরোলার সংগ্রহের অংশ।

প্রমাণ[সম্পাদনা]

শিল্পীর মৃত্যু পর্যন্ত ক্যানভাসটি তার কাছে ছিল। তার উইল অনুসারে তিনি তার পুত্র হোয়াকিন সোরোইয়া গার্সিয়াকে ছবিটি দিয়ে যান এবং তিনি তার পিতামাতার পূর্বের বাড়িতে, যা সোরোইয়া জাদুঘর রুপান্তরিত হয়েছিল, তার প্রথম পরিচালকও ছিলেন। ১৯৩১ সালে, সোরোইয়ার স্ত্রী ক্লটিল্ড, উইল করে যান, যার অনুসারে স্প্যানিশ সরকারকে তার বাড়িটি দান করা এবং বর্ণনামূলক তালিকা দিয়েছিলেন যাতে হোয়াকিন সোরোইয়া জাদুঘরের প্রতিষ্ঠিা করতে সুবিধা হয়। তার পুত্রও হোয়াকিন সোরোইয়া গার্সিয়া তার মায়ের উদার উদাহরণ অনুসরণ করেছিলেন এবং ১৯৪৮ সালে তার মৃত্যুর পর স্প্যানিশ সরকারকে "পাসেও আ লা ওরিয়া দেল মার" চিত্রকলার পাশাপাশি তার পিতার অন্যান্য কাজগুলিও দান দিয়েছিলেন। যে সময় থেকে, এটি মাদ্রিদের সোরোইয়া জাদুঘরের সংগ্রহের অংশ।

উৎস্য[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]