বিষয়বস্তুতে চলুন

ন্যাশনাল এডুকেশনাল টেলিভিশন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ন্যাশনাল এডুকেশনাল টেলিভিশন
দেশযুক্তরাষ্ট্র
প্রতিষ্ঠিতনভেম্বর ১৯৫২ (1952-11)
প্রচারের স্থান
যুক্তরাষ্ট্র
কানাডা
মালিকানাফোর্ড ফাউন্ডেশন (১৯৫৪-১৯৭০)
কর্পোরেশন অফ পাবলিক ব্রডকাস্টিং (১৯৬৭-১৯৭০)
আরম্ভের তারিখ
১৬ মে ১৯৫৪ (1954-05-16)
বিলুপ্ত৪ অক্টোবর ১৯৭০; ৫৩ বছর আগে (1970-10-04)
প্রাক্তন নাম
এডুকেশনাল টেলিভিশন অ্যান্ড রেডিও সেন্টার
ন্যাশনাল এডুকেশনাল টেলিভিশন অ্যান্ড রেডিও সেন্টার
প্রতিস্থাপিতপিবিএস

ন্যাশনাল এডুকেশনাল টেলিভিশন, সংক্ষেপে এনইটি (ইংরেজি: National Educational Television জাতীয় শিক্ষাবিষয়ক টেলিভিশন), একটি যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক শিক্ষাবিষয়ক টেলিভিশন সংস্থা ছিল। এনইটির মালিকসমূহ ছিল ফোর্ড ফাউন্ডেশন এবং কর্পোরেশন অফ পাবলিক ব্রডকাস্টিং। এটি সম্প্রচার শুরু করে ১৯৫৪ সালের ১৬ মেতে, এবং বন্ধ হয় ১৯৭০ সালের ৪ অক্টোবরে। বন্ধের পর এটির জায়গায় পিবিএসের যাত্রা শুরু হয়।

ইতিহাস

[সম্পাদনা]

এনইটি এডুকেশনাল টেলিভিশন অ্যান্ড রেডিও সেন্টারের নামে (ইটিআরসি) স্থাপন করা হয় ১৯৫২ সালের নভেম্বরে। আগে নিজ অনুষ্ঠান তৈরি করতো না,‌ কিন্ত লোকাল টেলিভিশন কেন্দ্রের তৈরি অনুষ্ঠান ডিস্ট্রিবিউট অথবা এক্সচেঞ্জ করতো।[১]

১৯৫৪ সালের ১৬ মেতে ইটিআরসি টেলিভিশনে যাত্রা শুরু করে। ১৯৫৬ সালে ইটিআরসির ২২ টেলিভিশন কেন্দ্র স্থাপিত আছিল, এবং ১৯৫৭ সালের মার্চের মধ্যে আরো ৪টি কেন্দ্রের স্থাপন করার দায়িত্ব নেয়।[২] এটির বেশি কিছু অনুষ্ঠানসমূহেরকে "অ্যাডাল্ট এডুকেশন" বলা হয়েছিল, আর এটির ডাকনাম দেওয়া হয় "বাতাসের বিশ্ববিদ্যালয়"।[৩]

১৯৫৮ সালে ইটিআরসিকে ন্যাশনাল এডুকেশনাল টেলিভিশন অ্যান্ড রেডিও সেন্টারের নামে (এনইটিআরসি)[১] পরিবর্তন করা হয়, এবং যুক্তরাষ্ট্রের চতুর্থ টেলিভিশন সংস্থা হওয়ার দায়িত্ব নেয়। ১৯৬১ সালে বিবিসির থেকে অনুষ্ঠান প্রচার করা শুরু করে।[৪] এনইটিআরসির নিজ প্রডাকশন স্টাফ এবং ফ্যাসিলিটিস না থাকার কারনে বেশিরভাগ অনুষ্ঠান তৈরি করে এটির কেন্দ্রসমূহ, এবং বিভিন্ন দেশ থেকে অনুষ্ঠান প্রচারিত করেছে।[৫]

১৯৬৩ সালের নভেম্বর মাসে এনইটিআরসির রেডিও অ্যাসেটস আলাদা এক সংস্থা করে এটির নাম পরিবর্তন হয় এনইটি। ১৯৬৭ সালে এনইটিকে এক "পাবলিক টেলিভিশন" সংস্থা বানানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। মার্কিন সরকারের স্থাপিত কর্পোরেশন অফ পাবলিক ব্রডকাস্টিং এনইটির কো-ওনার হয়, এবং এনইটি সরকার এবং অন্যান্য উৎস থেকে তহবিল নেয়।

১৯৬৯ সালে পিবিএসের উদ্বোধন হয়। ফোর্ড এবং সিপিবি এনইটিকে বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নেয়, এটিকে পিবিএস দিয়ে বদলানোর জন্য। নিউইয়র্কের ডাবল-ইউ এনডিটি এর সাথে যুক্ত হয় এনইটি ১৯৭০ এর প্রথম দিকে, এবং টেলিভিশন কেন্দ্রের নাম পরিবর্তন হয় ডাবল-ইউ এনইটি ১লা অক্টোবরে, যখন ডাবল-ইউ এনডিটি এবং এনইটির একত্রিত শেষ হয়।[৬] ৪ অক্টোবরে এনইটির সম্প্রচার বন্ধ করে দেওয়া হয়, এবং পরের দিনে পিবিএসের যাত্রা শুরু হয়। কিন্ত পিবিএসের কিছু অনুষ্ঠান এনইটির নামে প্রচারিত হত, তারপর এনইটির নামটি সরিয়ে দেওয়া হয়।

অনুষ্ঠানসমূহ

[সম্পাদনা]
  • এনইটি প্লেহাউজ (১৯৬৬-১৯৭০)
  • ওয়াশিংটন ওইক (১৯৬৭-১৯৭০)
  • জ্যাজ ক্যাসুয়াল (১৯৬১-১৯৬৮)
  • দ্য ফ্রেঞ্চ শেফ (১৯৬৩-১৯৬৬)
  • দ্য ফ্রেন্ডলি জাইয়ান্ট (১৯৫৪-১৯৬৮)
  • পাবলিক ব্রডকাস্টিং ল্যাবরেটরি (১৯৬৭-১৯৬৯)
  • ব্ল্যাক জার্নাল (১৯৬৮-১৯৭০)
  • মিস্টার রজার্স নেইবারহুড (১৯৬৮-১৯৭০)
  • সোল! (১৯৬৮-১৯৭০)
  • সেসামি স্ট্রিট (১৯৬৯-১৯৭০)

তথ্যসূত্র

[সম্পাদনা]
  1. "National Educational Television (NET)"। National Public Broadcasting Archives। ২২ আগস্ট ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৪ জানুয়ারি ২০২২ 
  2. "Tired of Banal Television? Try Tuning in to Educational Station"Labor's Daily। ২৪ ডিসেম্বর ১৯৫৬। পৃষ্ঠা ৫। সংগ্রহের তারিখ ৪ জানুয়ারি ২০২২ 
  3. Carolyn N. Brooks (২৯ নভেম্বর ২০০৭)। "National Educational Television Center (NET)"। Museum of Broadcast Communications। ২৩ সেপ্টেম্বর ২০০৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ ডিসেম্বর ২০০৮ 
  4. An Age of Kings: an import becomes public TV’s first hit, David Stewart, Current, December 21, 1998
  5. Saettler, Paul (২০০৪)। The Evolution of American Educational Technology। পৃষ্ঠা ৩৭৬। 
  6. "News Around the Dial"ডেইলি নিউজ। ১ অক্টোবর ১৯৭০। পৃষ্ঠা ২৩৪। সংগ্রহের তারিখ ৫ জানুয়ারি ২০২২