নাচিয়ারকোইল প্রদীপ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
নাচিয়ারকইল চাকি
ভৌগোলিক নির্দেশক
KuthuVilakku.JPG
নাচিয়ারকোইল চাকির শীর্ষভাগ
বিকল্প নামনাচিয়ারকোইল কুথুভিলাক্কু, আন্নাম চাকি আরু কাম্মালার চাকি
বর্ণনাহস্তশিল্প
ধরনচাকি
অঞ্চলতামিলনাডুর নাচিয়ারকোইল শহরের কাম্মালার স্ট্রীট
দেশভারত
নথিবদ্ধ৮ ফেব্রুৱারী ২০১০
উপাদানপিতল ধাতু

নাচিয়ারকোইল প্রদীপ (ইংরেজি: Nachiarkoil lamp) হচ্ছে ভারতের তামিলনাডুর নাচিয়ারকোইল শহরের পাথের (কাম্মালার) সম্প্রদায়ের তৈরি করা এক প্রকারের অলংকারিক পিতলের প্রদীপ। এই ঐতিহ্যবাহী হস্তশিল্পটিতে পিতলের দীর্ঘ স্তম্ভের ওপরে কারুকার্য খচিত প্রদীপ থাকে।[১][২][৩] বিভিন্ন আকারে তৈরি করা এই প্রদীপের চারটি অংশ থাকে। এই অংশগুলো পিছনদিকে একেসাথে যুক্ত করা হয়। স্তম্ভশীর্ষে "প্রভাই" নামক একটি কেন্দ্রীয় মুকুট থাকে। এই মুকুটটি সাধারণতে হংস বা হাঁসরূপে তৈরি করা হয়।[২][৩] এছাড়াও এটি দাঁড়িয়ে থাকা প্রদীপ ধরে রাখা নারীমূর্তির ভঙ্গিতে বা গাছের ডালের রূপে তৈরি করা হতে পারে। এই অলংকারিক প্রদীপগুলো দক্ষিণ ভারতের মন্দিরগুলোতে অধিক হারে ব্যবহার করা হয়।[২][৩][৪]

এই সামগ্রীটি বাণিজ্য সম্পর্কিত বৌদ্ধিক সম্পত্তি অধিকার (টি.আর.আই.পি.এস) চুক্তির ভৌগোলিক নির্দেশকের আওতায় সুরক্ষার জন্য নিবন্ধিত হয়েছে। ৮ই ফেব্রুয়ারি, ২০১০ সালে এটি ভারত সরকারের ভৌগোলিক নির্দেশক আইন ১৯৯৯-এর অধীনে "নাচিয়ারকোইল কুতুভিলাক্কু প্রদীপ" নামে নিবন্ধিত হয়েছে।[৩] নাচিয়ারকোইলে তামিলনাড়ু হস্তশিল্প বিকাশ কর্পোরেশন লিমিটেড কর্তৃক পুম্পুহার নামে শিক্ষানবিশ কারিগরদের জন্য দুই বছরের একটি প্রশিক্ষণ কর্মসূচি আয়োজিত হয়।[৫]

অবস্থান[সম্পাদনা]

নাচিয়ারকোইল প্রদীপ তামিলনাডুর তাঞ্জোর জেলার কুম্বাকোনাম তালুকের নাচিয়ারকোইল শহরে তৈরি করা হয়। শহরটি কুম্বাকোনাম–তিরুভারুর প্রধান সড়ক কুম্বাকোনাম থেকে প্রায় ৬ মাইল (৯.৭ কিলোমিটার) দক্ষিণ-পূর্বে অবস্থিত।পাথের নামক স্থানীয় শিল্পীরা প্রদীপগুলো তৈরি করে।[৩][৬]

প্রক্রিয়া[সম্পাদনা]

নাচিয়ারকোইল প্রদীপ কাঁসা ও পিতল উভয় প্রকার ধাতু ব্যবহার করে তৈরি করা হয় যদিও পিতলের ব্যবহারই অধিক প্রচলিত। পিতল সহজে উপলব্ধ ও সস্তা হওয়ায় এর ব্যবহার বেশি হয়। এই প্রদীপের চারটি অংশ আছে, সেইগুলো হ'ল: —মূল আধার 'কীঝবাগাম', গুরুত্বপূর্ণ স্তম্ভ "কান্দম", থালার মত "থাংগুলী" যাতে তেল রাখা হয় ও "প্রবাই" অর্থাৎ মুকুট। প্রদীপগুলো সাধারণত খাড়া রূপে তৈরি করা হয়। অন্যভাবেও নাচিয়ারকোইল প্রদীপ তৈরি করা হয় যেগুলো মন্দির বা দীপমের ছাদ থেকে ঝুলিয়ে বা টানিয়ে রাখা হয়। এই প্রদীপগুলো ব্যাপকভাবে অলংকৃত করা হয়।[৩][৪]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. PM Narendra Modi gifts Xi Jinping Annam lamp, Times of India, 11 october 2019.
  2. K. Lakshminarayanan; R. Kannan (২০০৪)। A Guide to the Exposition on the Progress of Industries and Handicrafts of Tamilnadu, Government Museum, Chennai। Commissioner of Museums, Government Museum। পৃষ্ঠা 28। 
  3. "Geographical Indication Journal No. 47" (PDF)। Ministry of Commerce and Industry, Government of India। ৩০ অক্টোবর ২০১২। ৯ আগস্ট ২০১৩ তারিখে মূল (pdf) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ এপ্রিল ২০১৬ 
  4. Sivaraman, R. (৭ মার্চ ২০১৩)। "GI tag for Nachiarkoil brass lamp, Pattamadai mat"The Hindu। সংগ্রহের তারিখ ২ মার্চ ২০১৬ 
  5. "Where artisans learn intricacies of handicrafts"The Hindu। ২৭ জুলাই ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ২ মার্চ ২০১৬ 
  6. Kamaladevi Chattopadhyaya (১৯৯৫)। Handicrafts of India। Indian Council for Cultural Relations। পৃষ্ঠা 76। আইএসবিএন 978-81-224-0797-6