নর্মান জাতি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
নর্মানদের জয় করা অঞ্চল

নর্মান জাতি ছিল স্ক্যান্ডিনেভিয়া থেকে আগত ভাইকিং দস্যুর দল। এরা ৯ম শতকের প্রথমভাগে উত্তর ফ্রান্সের নরম্যান্ডিতে বসবাস করতে শুরু করেছিল।

নর্ম্যানস (নরম্যান: নরম্যান্ডস; ফরাসি: নরমান্ডস; লাতিন: নর্টম্যানি / নরম্যানি) আদি মধ্যযুগীয় নরম্যান্ডির ডুচির বাসিন্দা এবং নর্স ভাইকিংস (যার নাম অনুসারে নর্ম্যান্ডির নামকরণ করা হয়েছিল), আদিবাসী ফ্রাঙ্কস এবং গ্যালো-রোমান্সের উত্তরসূরি।[১][২] এই শব্দটি ডুচির প্রবাসীদের বোঝাতেও ব্যবহৃত হতো যারা ইংল্যান্ড এবং সিসিলির মতো অন্যান্য অঞ্চলও জয় করেছিল। ফরাসী উপকূলে ফ্রান্সের জনবসতিগুলি মূলত ডেনমার্ক থেকে একাধিক অভিযানের শিকার হয়েছিল - যদিও কিছু নরওয়ে এবং সুইডেন থেকেও এসেছিল এবং রাজনৈতিক বৈধতা লাভ করেছিল যখন ভাইকিং নেতা রোলো ৯১১ খ্রিস্টাব্দে চার্ট্রেস অবরোধের পর পশ্চিম ফ্রান্সিয়ার রাজা তৃতীয় চার্লসের কাছে বিশ্বাসভাজন থাকার শপথ গ্রহণে রাজি হন।[৩] নরম্যান্ডিতে নর্স অধিবাসী এবং স্থানীয় ফ্রাঙ্কস এবং গ্যালো-রোমানদের সংমিশ্রণের ফলে দশম শতাব্দীর প্রথমার্ধে একটি নৃতাত্ত্বিক এবং সাংস্কৃতিক "নর্ম্যান" পরিচয় তৈরি হয়েছিল, যা পরবর্তী বহু শতাব্দী ধরে দীপ্তিমান ছিল।[৪]

মধ্যযুগীয় ইউরোপ এবং নিকট প্রাচ্যে নর্মান রাজবংশের একটি বড় রাজনৈতিক, সাংস্কৃতিক এবং সামরিক প্রভাব ছিল।[৫][৬] নরম্যানরা তাদের লড়াকু স্বতস্ফূর্ততার জন্য এবং শেষ পর্যন্ত তাদের ক্যাথলিক ধার্মিকতার জন্য খ্যাতি লাভ করেছিল এবং রোম্যান্স সম্প্রদায়ের ক্যাথলিক রক্ষণশীলতার সমর্থকে পরিণত হয়েছিল। মূল নর্স অধিবাসীরা ফ্রাঙ্কিশ যে ভূমিতে বসতি স্থাপন করেছিল সেখান থেকে গ্যালো-রোমান্স ভাষা গ্রহণ করেছিল আর তাদের পুরোনো নরম্যান উপভাষা নরম্যান, নরম্যান্ড বা নরম্যান ফরাসী নামে পরিচিত হয়ে উঠেছিল যা একটি গুরুত্বপূর্ণ সাহিত্যিক ভাষা হিসেবে আজও (কোটেনটিইনস এবং কচোইস উপভাষা) নরম্যান্ডির কিছু অংশে এবং নিকটস্থ সংযুক্ত দ্বীপপুঞ্জে (জেরিয়াস এবং গের্নেসিয়াস) কথিত। তারা ফরাসী শক্তির সাথে চুক্তি করে নর্ম্যান্ডিতে ডুচি গঠন করেছিল, যা মধ্যযুগীয় ফ্রান্সের সামন্তবাদের মূল কেন্দ্রে পরিণত হয়েছিল এবং নর্ম্যান্ডি প্রথম রিচার্ডের অধীনে সামন্তকালীন সময়ে দোর্দন্ড প্রতাপসম্পন্ন ঐক্যবদ্ধ একটি রাজ্য হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল।[৭][৮] কেমব্রিজ মেডিইভাল হিস্ট্রি (পঞ্চম খন্ড, পঞ্চদশ অধ্যায়) অনুসারে, ৯৯৬ সালে প্রথম রিচার্ডের ("যাঁর নাম ছিল রিচার্ড সান পিউর" বা অকুতোভয় রিচার্ড) রাজত্বের শেষে প্রদেশটির নর্স অধিবাসীদের উত্তরসূরিরা, "কেবল খ্রিস্টানই নয়, পুরোপুরি ফরাসীতে পরিণত হয়েছিল"।[৯]

নর্মান তাদের সংস্কৃতির জন্য (যেমন তাদের অনন্য রোমানীয় স্থাপত্য এবং সংগীতিয় ঐতিহ্য) এবং তাদের উল্লেখযোগ্য সামরিক সাফল্য ও উদ্ভাবন উভয়ের জন্যই স্বীকৃত। নর্মান দুঃসাহসীরা দক্ষিণ ইতালি এবং মাল্টা স্যারাসিন এবং বাইজেন্টাইনদের কাছ থেকে জয় করে নেয়ার পরপরই দ্বিতীয় রজারের অধীনে সিসিলি রাজ্য প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে ভূমিকা রেখেছিল এবং তাদের ডিউক, উইলিয়াম দ্য কনকোয়ারারের পক্ষে ১০৬৬ সালে ঐতিহাসিক হেস্টিংসের যুদ্ধের জ মধ্য দিয়ে ইংল্যান্ড জয় করেছিল ।[১০] নর্মান এবং অ্যাংলো-নরম্যান বাহিনী একাদশ শতাব্দীর প্রথম থেকে ত্রয়োদশ শতাব্দীর মাঝামাঝি সময়ে আইবেরিয়ান রিকনকুইস্টায় অবদান রেখেছিল।[১১]

নর্মান সাংস্কৃতিক ও সামরিক প্রভাব এই নতুন ইউরোপীয় কেন্দ্রগুলি থেকে নিকট প্রাচ্যের ক্রুসেডার রাজ্যগুলোতে ছড়িয়ে পড়েছিল, যেখানে তাদের যুবরাজ প্রথম বোহেমন্ড লেভান্টে গ্রেট ব্রিটেনের স্কটল্যান্ড এবং ওয়েলস, আয়ারল্যান্ডে এবং উত্তর আফ্রিকার উপকূল এবং ক্যানারি দ্বীপপুঞ্জ পর্যন্ত এন্টিয়ক রাজ্য প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। ফ্রান্স, ইংল্যান্ড, স্পেন, উইবেক, সিসিলির আঞ্চলিক ভাষা এবং উপভাষাগুলোর মাধ্যমে, সেই সাথে তাদের অধিকৃত অঞ্চলগুলিতে বিভিন্ন সাংস্কৃতিক, বিচারিক এবং রাজনৈতিক ব্যবস্থাপনার মাধ্যমেও নর্মানদের উত্তরাধিকার আজ অব্দি বহাল রয়েছে।[৬][১২]

ব্যুৎপত্তি[সম্পাদনা]

ইংরেজি নাম "নরম্যানস" শব্দটি ফরাসি শব্দ নরমন্টের বহুবচন নরম্যানস / নরম্যানজ থেকে এসেছে,[১৩] আধুনিক ফরাসি নরমান্ড, যা পুরোনো ফ্রাঙ্কোনিয়ান ভাষাগোষ্ঠীর নর্টম্যান "নর্থম্যান"[১৪] থেকে উৎসারিত বা সরাসরি পুরোনো নর্স নোরমারের থেকে এসেছে। "নর্সম্যান, ভাইকিং"বোঝাতে এর বিভিন্নভাবে ল্যাটিনীয়করণ নর্টম্যানাস, নরম্যাননাস বা নর্ডম্যানাস ইত্যাদি(মধ্যযুগীয় লাতিনে, ৯ম শতাব্দীতে লিপিবদ্ধ) হয়েছে।[১৫]

একাদশ শতাব্দীর বেনিডিক্টাইন সন্ন্যাসী এবং ইতিহাসবিদ গফ্রেডো মালাটারেরা নর্মানদেরকে এভাবে বৈশিষ্ট্যযুক্ত করেছিলেন:

বিশেষত ধূর্ত হিসেবে চিহ্নিত, বৃহত্তর জয়ের প্রত্যাশায় তাদের নিজস্ব উত্তরাধিকারকে তুচ্ছ করে, লাভ এবং কর্তৃত্ব উভয়ের জন্য, সকল প্রকারের সীমাবদ্ধতাকে মেনে নিয়ে, প্রাচুর্য আর লোভের মধ্যে একটি মধ্যমাবস্থা ধারণ করে, বলা যায় এই দুটো আপাতদৃষ্টিতে বিপরীতধর্মী গুণকেই তারা সমন্বিত করেছিল। তাদের প্রধান পুরুষরা তাদের ভাল খ্যাতি থাকার দরুণ যথেষ্ট বিলাসী ছিল। তদুপরি, তারা চাটুকারিতায় পটু, বাগ্মীতায় অভ্যস্ত এমন একটি জাতি ছিল যাতে তাদের ছেলেরা বাগ্মী হয়ে উঠেছিল এবং এমন একটি জাতি যে পুরোপুরি অসংযত হয়ে যেতে পারত যদি বিচারের শেকল দিয়ে কঠিনভাবে আঁকড়ে না ধরা হতো। শিকার, বেদুইনের মতো ঘোড়ায় চড়ে বেড়ানো, সব যুদ্ধসজ্জা, অস্ত্রের ঝনঝনানি মেনে নিয়ে যখনই ভাগ্য তাদের উপর কঠোর পরিশ্রম, ক্ষুধা ও শীত চাপিয়ে দিয়েছিল; তারা সহ্য করছিল।[১৬]

নরম্যান্ডিতে বসতি স্থাপন[সম্পাদনা]

দশম শতাব্দীর শেষদিকে, ফ্রান্সের নদীগুলোর জোয়ারে প্রবাহিত নর্স যুদ্ধবাহিনীর প্রথম দিককার ধ্বংসাত্মক আক্রমণগুলো ইউরোপের আরো অভ্যন্তরে প্রবেশ করেছিল এবং আরও স্থায়ী শিবিরে রূপান্তরিত হয়েছিল যাতে স্থানীয় ফরাসী মহিলা এবং ব্যক্তিগত সম্পত্তিও অন্তর্ভুক্ত ছিল।[১৭] ৮৮৫ সাল থেকে ৮৮৬ অবধি, প্যারিসের ওডো (ইউডস ডি প্যারিস) তাঁর যুদ্ধের দক্ষতায় প্যারিসকে দুর্গে পরিণত করা ও কৌতুকপূর্ণ বুদ্ধি দিয়ে প্যারিসকে ভাইকিং আক্রমণকারীদের (তেমনি একজন নেতা সিগফ্রেড) বিরুদ্ধে রক্ষা করতে সফল হয়েছিল।[১৮] ৯১১ সালে, ওডোর ভাই, ফ্রান্সের প্রথম রবার্ট তার প্রশিক্ষিত ঘোড়সওয়ারদের সাথে আবার চার্ট্রেসে ভাইকিং যোদ্ধাদের আরও একটি দলকে পরাজিত করেছিলেন। এই জয়ের ফলে রোলোর ব্যাপটিজম এবং নর্ম্যান্ডিতে বসতি স্থাপনের পথ প্রশস্ত হয়েছিল।[১৯] নর্ম্যান্ডির ডুচি, যা ৯১১ সালে একটি সামন্তকেন্দ্র বা ফিফডম হিসাবে শুরু হয়েছিল, মূূূলত পশ্চিম ফ্রান্সিয়ার রাজা তৃতীয় চার্লসের (চার্লস দ্য সিম্পল) ও রলোর মধ্যে এবং স্ক্যান্ডিনেভিয়া থেকে আগত বিখ্যাত ভাইকিং শাসক রোলোর মধ্যে (গাঙ্গে রল্ফ) সেন্ট-ক্লেয়ার-সুর-এপটের চুক্তির মাধ্যমে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল এবং পুরাতন ফ্রাঙ্কিশ রাজ্যের নিউস্ট্রিয়ায় অবস্থিত ছিল।[২০] চুক্তিটি আরও ভাইকিং আক্রমণগুলির বিরুদ্ধে সুরক্ষা দেয়ার বিনিময়ে রলো এবং তার লোকদের ফ্রেঞ্চ উপকূলীয় জমিসহ এপটি নদী এবং আটলান্টিক মহাসাগরের উপকূলের মধ্যে ইংলিশ চ্যানেল অধিকারে এনেছিল।[২০] রোয়েনের অঞ্চলটিকে ভাইকিং আক্রমণ থেকে রক্ষা করার প্রতিশ্রুতি দেওয়ার পাশাপাশি রোলো নিজেও আরও ফ্রাঙ্কিশ ভূমিতে আক্রমণ না করার শপথ করেছিলেন, ব্যাপ্টিস্ট মত গ্রহণ করেছিলেন এবং খ্রিস্টান ধর্মে ধর্মান্তরিত হয়েছিলেন, সেই সাথে রাজা তৃতীয় চার্লসের সাথে বিশ্বাসভাজন থাকার শপথ করেছিলেন। ফ্রান্সের প্রথম রবার্ট রোলোর ব্যাপ্টিজম গ্রহণের সময় অভিভাবক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।[২১] তিনি নর্ম্যান্ডির প্রথম ডিউক এবং রোয়েনের কাউন্ট হন।[২২] অঞ্চলটি বর্তমানে সিন নদীর সাথে মিলিত উচ্চতর নর্ম্যান্ডির উত্তরের অংশটিকে বোঝায়, তবে অবশেষে এটি সীনকে ছাড়িয়ে পশ্চিমে প্রসারিত হবে।[৩] এই অঞ্চলটি প্রায় রোয়েনের পুরোনো প্রদেশের মতোই ছিল এবং পুরাতন দ্বিতীয় রোমান সাম্রাজ্যের প্রশাসনিক কাঠামো দ্বিতীয় গ্যালিয়া লুগডুনেসিসের অনুসরণ করেছিল (গলে অবস্থিত প্রাক্তন গ্যালিয়া লুগডুনেসিসের অংশ)।

রোলোর আগমনের আগে নরম্যান্ডির জনসংখ্যা পিকার্ডি বা ইলে-ডি-ফ্রান্সের চেয়ে আলাদা ছিল না, এগুলোও "ফ্রাঙ্কিশ" হিসাবে বিবেচিত হত। প্রথম দিকের ভাইকিং বসতি স্থাপনকারীরা ৮৮০-এর দশকে নিম্ন সীন উপত্যকার আশেপাশে এবং পশ্চিম দিকে কোটেনটিন উপদ্বীপে আগমন শুরু করেছিল, তবে দুটো উপনিবেশের মধ্যে বিভক্ত হয়ে পড়েছিল, পূর্ব দিকে নিম্ন সীন উপত্যকায়(রাউমাইস এবং পেস ডি কক্স) এবং পশ্চিমে কটেনটিন উপদ্বীপে। আর ঐতিহ্যবাহী প্যাগেই দ্বারা বিচ্ছিন্ন করা হয়েছিল যেখানে কোনও বিদেশী অধিবাসী না থাকায় জনসংখ্যার আকার একই রকম থাকত। স্ক্যান্ডিনেভিয়ার রোলোর দল অভিযান করে নর্ম্যান্ডি এবং শেষ পর্যন্ত ইউরোপীয় আটলান্টিক উপকূলের কিছু অংশে বসতি স্থাপন করেছিল যেখানে ডান, নরওয়েজিয়ান, নর্স-গ্যালস, অর্কনি ভাইকিংস, সম্ভবত সুইডেন এবং ইংরেজ ডেনলো অঞ্চল থেকে অ্যাংলো-ডানস অন্তর্ভুক্ত ছিল যা আগে ১১ শতাব্দীতে নর্স নিয়ন্ত্রণে এসেছিল।

ভাইকিংসের উত্তরাধিকারীরা নর্স ধর্ম এবং পুরনো নর্স ভাষার পরিবর্তে ক্যাথলিকবাদ (খ্রিস্টান) এবং রোমানদের লাতিন থেকে আগত স্থানীয় লোকদের ল্যাঙ্গু ডি'লকে প্রতিস্থাপন করেছিলেন। নর্মান ভাষা (নর্মান ফরাসি) একটি নর্স-ভাষাভাষী শাসক শ্রেণীর ব্যবহৃত রোমানীয় শাখা যা আদি ল্যাঙ্গু ডি'ল ভাষা আত্মীকরণের মাধ্যমে গঠিত হয়েছিল এবং এটি ফরাসী আঞ্চলিক ভাষাগুলোতে বিকাশ লাভ করেছিল যা আজ অবধি টিকে আছে।[৩]

এরপরে নর্মানরা ফ্রান্সের বাকী অংশে ক্রমবর্ধমান সামন্তবাদী মতবাদ গ্রহণ করে এবং এগুলো নর্ম্যান্ডি এবং নর্মান ক্ষমতাধীন ইংল্যান্ড উভয় ক্ষেত্রেই আধিপত্য বিস্তার করে একটি কার্যক্ষম ধারাবাহিক ব্যবস্থায় পরিণত হয়।[৭] নতুন নর্মান শাসকরা পুরানো ফরাসী অভিজাতদের থেকে সাংস্কৃতিক ও নৃতাত্ত্বিকভাবে পৃথক ছিলেন, যাদের বেশিরভাগই নবম শতাব্দীতে শার্লাম্যানের সময় থেকেই ক্যারোলিঞ্জিয়ান বংশের ফ্রাঙ্কদের সাথে নিজেদের পরিচয় খুঁজে পেয়েছিলেন। বেশিরভাগ নর্মান নাইট দরিদ্র এবং ভূমিহীন ছিল এবং ১০৬৬ সালে ইংল্যান্ডের অভিযান ও আগ্রাসনের সময় নর্ম্যান্ডি এক প্রজন্মেরও বেশি সময় ধরে যুদ্ধের ঘোড়সওয়ার রফতানি করে চলেছিল। ইতালি, ফ্রান্স এবং ইংল্যান্ডের অনেক নর্মান অবশেষে এন্টিওকের ইতালীয়-নর্মান যুবরাজ প্রথম বোহেমুন্ডের অধীনে এবং ইংল্যান্ডের অন্যতম বিখ্যাত ও জাঁকজমকপ্রিয় অ্যাংলো-নরম্যান রাজা রিচার্ড দ্য লায়ন-হার্টের অধীনে অভুক্ত ক্রুসেডার সৈন্য হিসেবে কাজ করেছিলেন।

বিজয় ও সামরিক অভিযান[সম্পাদনা]

ইতালি

নর্মানদের সুযোগসন্ধানী দলগুলো দক্ষিণ ইতালিতে সফলভাবে একটি পোক্ত আসন স্থাপন করেছিল। সম্ভবত ফিরে যাওয়া তীর্থযাত্রীদের গল্পে কারণেই হয়তো নরম্যানরা ১০১৭ সালে যোদ্ধা হিসাবে দক্ষিণ ইতালিতে প্রবেশ করেছিল। ৯৯৯ সালে, মন্টেক্যাসিনোর আমাতাসের মতে, স্যারাসিন আক্রমণের সময় জেরুজালেম থেকে ফিরে আসা নর্মান তীর্থযাত্রীদের স্যালার্নো বন্দরে ডেকে পাঠানো হয়েছিল। নর্মানরা এতটা বীরত্বের সাথে লড়াই করেছিল যে তৃতীয় যুবরাজ গুয়াইমার তাদের থাকার জন্য অনুরোধ করেছিলেন, কিন্তু তারা তা প্রত্যাখ্যান করেন এবং তার পরিবর্তে রাজকুমারের অনুরোধে থাকা অন্যান্যদেরও দেশে ফিরে যাওয়ার অণুমতি প্রদানের প্রস্তাব দেন। অপুলিয়ার উইলিয়াম বলেছিলেন, ১০১৬ সালে, মন্টি গারগানোতে আর্চেন্ডেল মাইকেলের মঠে আসা নর্মান তীর্থযাত্রীদের সঙ্গে মেলাস অফ বারির দেখা হয়, যিনি লম্বার্ডের আভিজাত এবং বিদ্রোহী ছিলেন এবং যিনি তাদের বাইজেন্টাইন শাসন ছুঁড়ে ফেলতে আরও যোদ্ধাদের সাথে ফিরে আসতে প্ররোচিত করেছিলেন। আর তারা সেটি করেছিল।

ভূমধ্যসাগরে পৌঁছানো দুটি সবচেয়ে প্রভাবশালী নর্মান পরিবার ছিল হটেভিলের ট্যানক্রড এবং ড্রেঙ্গোট পরিবারের বংশধর। ড্রেঙ্গোট পরিবারের অন্তত পাঁচ ভাই সহ নর্মানদের একটি দল মেলো দি বারির কমান্ডে অপুলিয়ার বাইজেন্টাইনদের সাথে লড়াই করেছিল। একটি বিচ্ছিন্ন রাজনৈতিক প্রসঙ্গে ১০১৬ এবং ১০২৪ এর মধ্যে, কাউন্টি অফ আরিয়নো প্রতিষ্ঠা করেছিল নরম্যান নাইটসের আরেকটি দল, যার নেতৃত্বে গিলবার্ট বুয়াট্রে ছিলেন এবং তাঁকে মেলো ডি বারি নিয়োগ করেছিলেন। কানে পরাজিত হয়ে মেলো ডি বারি জার্মানির বামবার্গে পালিয়ে গিয়েছিলেন, যেখানে তিনি মারা যান ১০২২ সালে। এই কাউন্টি বা প্রশাসনিক বিভাগ পূর্ব বিদ্যমান চেম্বারলাইনশিপ বা রাজ সরকারকে প্রতিস্থাপন করেছিল যা ইতালির দক্ষিণে নরম্যানদের দ্বারা প্রতিষ্ঠিত প্রথম রাজনৈতিক সংস্থা হিসাবে বিবেচিত হয়।[২৩] পরে একই পরিবার থেকে রেইনলফ ড্রেঙ্গোট ১০৩০ সালে নেপলসের চতুর্থ ডিউক সার্জিয়াসের কাছ থেকে আভার্সার কাউন্টি পেয়েছিলেন।

হটেভিল পরিবার আপুলিয়া এবং ক্যালাব্রিয়ার ডিউক, স্যালার্নোর চতুর্থ গুয়েইমারকে যুবরাজ ঘোষণা করায় রাজ পদ অর্জন করেছিল। তিনি তাত্ক্ষণিকভাবে তাদের নির্বাচিত নেতা উইলিয়াম আয়রন আর্মকে তার রাজধানী মেলফিতে কাউন্ট উপাধিতে ভূষিত করেন। এরপরে ড্রেঙ্গোট পরিবার কপুয়ার রাজত্ব লাভ করে এবং সম্রাট তৃতীয় হেনরি হটেভিলের নেতা ড্রোগোকে ১০৪৭ সালে আইনসম্মতভাবে "ডাক্স এট ম্যাজিস্টার ইতালি কমেস্ক নরমনোরিয়াম টটিয়াস অপুলিয়া এবং ক্যালাব্রিয়া"("ইতালির ডিউক ও মাস্টার এবং সমস্ত অপুলিয়া এবং ক্যালাব্রিয়া কাউন্ট) উপাধিতে ভূষিত করেছিলেন।[২৪]

এভাবে, নর্মানরা অবশেষে হটেভিলের বিখ্যাত রবার্ট গুইসার্ড এবং তার ছোট ভাই রজার দ্য গ্রেট কাউন্টের নেতৃত্বে সিসিলি এবং মাল্টাকে স্যারাসিনদের কাছ থেকে দখল করে নেয়। রজারের পুত্র সিসিলির দ্বিতীয় রজার, দ্বিতীয় এন্টিপোপ অ্যানাক্লেটাস দ্বারা ১১৩০ সালে (রেইনলফের কাউন্ট অভিষিক্ত হওয়ার ঠিক এক শতাব্দী পরে) রাজা হিসেবে অভিষিক্ত হয়েছিলেন। বৈবাহিক সূত্রে হোহেনস্টাফেনের রাজবংশের কাছে স্থানান্তরিত হওয়ার আগে সিসিলির রাজ্য ১১৯৪ সাল অবধি স্থায়ী ছিল।[২৫] নরম্যানরা অনেকগুলো দুর্গে তাদের উত্তরাধিকার রেখেছিল; যেমন- স্ক্রিলাসে উইলিয়াম আয়রন আর্মের দুর্গ এবং পালেরমোতে দ্বিতীয় রজারের ক্যাপেলা প্যালাটিনার মতো বৃহৎ গির্জাসমূহ, যা প্রাকৃতিক ভূমিরূপকে ধারণ করেছে এবং এর অনন্য ইতিহাসের সাথে স্বতন্ত্র স্থাপত্যের স্বাদ দিয়েছে।

প্রাতিষ্ঠানিকভাবে, নর্মানরা বাইজান্টাইন, আরব এবং লম্বার্ডদের প্রশাসনিক যন্ত্রগুলোকে সামন্ত আইন-শৃঙ্খলার নিজস্ব ধারণা দিয়ে এক অনন্য সরকার গঠনের উদ্দেশ্যে একত্রিত করেছিল। এই রাষ্ট্রের অধীনে উদার ধর্মীয় স্বাধীনতা ছিল এবং নর্মান আভিজাত্যের পাশাপাশি ক্যাথলিক ও ইস্টার্ন অর্থোডক্স উভয় শাখার খ্রিস্টান এবং ইহুদি ও মুসলমানদের সমন্বয়ে গুণতন্ত্রী আমলাতন্ত্রের আবাস ছিল। সিসিলি রাজ্য এভাবে নর্মানরা, বাইজানটাইন, গ্রীক, আরব, লম্বার্ড এবং সংঘবদ্ধভাবে বাসকারী "দেশীয়" সিসিলিয়ান জনগোষ্ঠীর দ্বারা চিহ্নিত হয়ে যায় এবং এর নর্মান শাসকরা এমন একটি সাম্রাজ্য প্রতিষ্ঠার পরিকল্পনা করেছিল যা ফাতিমিড মিশর এবং লেভান্টের ক্রুসেডার রাষ্ট্রগুলোকে ঘিরে রাখত।[২৬][২৭][২৮] মধ্যযুগের দুর্দান্ত ভৌগলিক গ্রন্থগুলির মধ্যে একটি ছিল "তাবুলা রোজারিয়ানা" যা সিসিলির রাজা দ্বিতীয় রজারের জন্য আন্দালুসিয়ান আল-ইদ্রিসি লিখেছিলেন এবং এটি "কিতাব রুদজ্দজার" ("রজারের বই") নামে অভিহিত হতো।[২৯]


আইবেরিয়ান উপদ্বীপ

নর্মানরা একাদশ শতাব্দীর শুরু থেকেই আইবেরিয়ান উপদ্বীপে খ্রিস্টান ও মুসলিমদের মধ্যে সামরিক দ্বন্দ্বের মাঝে চলে আসে। বিভিন্ন বর্ণনামূলক উৎস থেকে এভাবে প্রথম যে নরম্যানের কথা জানা যায়, তিনি ছিলেন টসনির প্রথম রজার যিনি আডামার অফ চ্যাবনেস এবং পরে সেন্ট পিয়ার লে ভিফের ক্রনিকল অনুসারে আন্দালুসিয় মুসলিম সিরকার বিরুদ্ধে ১০১৮ সালে ধারাবাহিক আক্রমণে বার্সেলোনাকে সাহায্য করতে গিয়েছিলেন।[৩০] পরে একাদশ শতাব্দীতে, রবার্ট ক্রিস্পিন এবং ওয়াল্টার গিফার্ডের মতো অন্যান্য নর্মান দুঃসাহসীরা সম্ভবত ১০৬৪ সালের প্যাপাল সংগঠিত বার্বাস্ট্রো-র অবরোধেও অংশ নিয়েছিল। ১০৬৬তে ইংল্যান্ডে নরম্যান বিজয়ের পরেও নরম্যানরা আইবেরিয় উপদ্বীপে অভিযানে অংশ নিয়েছিল। প্রথম ক্রুসেড চলাকালীন ফ্রিঙ্কিশ পবিত্র ভূমিতে বিজয়ের পরে, নর্মানরা উপদ্বীপের উত্তর-পূর্ব দিকে বিজয়ের অভিযানে যেতে উত্সাহিত হয়েছিল। এর সর্বাধিক উল্লেখযোগ্য উদাহরণ হল ইব্রো সীমান্তে ১১২০ -এর দশকে পেরচের দ্বিতীয় রোট্রো এবং রবার্ট বুর্দেটের আক্রমণ। ১১২৯ খৃষ্টাব্দে রবার্ট বুর্দেটকে তারারগোনা শহরে তৎকালীন আর্চবিশপ ওলেগুয়ার বোনেস্ট্রাগা কর্তৃক আধা-স্বতন্ত্র রাজ্য প্রদান করা হয়েছিল। রোট্রোর নরম্যান অনুসারীদের মধ্যেও বেশ কয়েকজনকে তাদের উপকারের স্বীকৃতিস্বরূপ আরাগোন রাজা প্রথম আলফোনসো ইব্রো উপত্যকায় জমি দান করে পুরস্কৃত করেছিলেন।[৩১]

পবিত্র ভূমিতে সমুদ্রপথে ক্রমবর্ধমান জনপ্রিয়তার সাথে নর্মান এবং অ্যাংলো-নর্মান ক্রুসেডাররা উপদ্বীপের পশ্চিমাঞ্চলে পর্তুগিজ আক্রমণে অংশ নিতে আইবেরিয়ান প্রধান ধর্মাচার্য্য দ্বারা স্থানীয়ভাবে উত্সাহিত হতে শুরু করেছিল। এই আক্রমণগুলোর প্রথমটি ঘটেছিল যখন এই ক্রুসেডারদের একটি বহরকে পর্তুগিজ রাজা প্রথম আফনসো হেনরিক্স ১১৪২ সালে লিসবন শহর জয়ের জন্য আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন।[৩২] যদিও এটি ব্যর্থ হয়েছিল, তবে এটি পর্তুগালেও তাদের সম্পৃক্ত থাকার নজির তৈরি করেছিল। সুতরাং ১১৭৪ সালে নর্মান এবং উত্তর ইউরোপ থেকে ক্রুসেডারদের অন্য দল যখন দ্বিতীয় ক্রুসেড বাহিনীতে যোগ দিতে যাওয়ার পথে পোর্তোতে পৌঁছাল, তখন ডি এক্সপুগনেশন লিক্সবোনেনসি অনুসারে জানা যায়, পোর্তোর বিশপ এবং পরবর্তীতে আফোনসো হেনরিক্স তাদের লিসবন অভিযানে সাহায্য করতে রাজি করিয়েছিলেন। ফলে এবার শহরটি দখল করা হয়েছিল এবং পর্তুগিজ রাজতন্ত্রীর সাথে একমত হওয়া সাপেক্ষে তাদের অনেকেই সদ্য দখলকৃত শহরে বসতি স্থাপন করেছিল।[৩৩] পরের বছর ক্রুসেড বহরের অবশিষ্ট অংশ যাদের মধ্যে যথেষ্ট সংখ্যক অ্যাংলো-নর্মানরা অন্তর্ভুক্ত ছিল তাদের বার্সেলোনার কাউন্ট, চতুর্থ রেমন বেরেঙ্গুয়ার ১১৪৮ সালে টর্টোসায় অবরোধ করার আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন। তারপরে আবারও নর্মানদের সদ্য বিজয়ী সীমান্তবর্তী শহরের জমি দিয়ে পুরস্কৃত করা হয়েছিল।[৩৪]


উত্তর আফ্রিকা

১১৩৫ থেকে ১১৬০ সালের মধ্যে সিসিলির নর্মান রাজ্য আলমোহাদ কর্তৃক বিজিত হয়েছিল এবং আজকের তিউনিসিয়া এবং আংশিক লিবিয়া ও আলজেরিয়া নিয়ে তৎকালীন ইফরিকিয়া উপকূলের বেশ কয়েকটি শহরকে পোষ্যরাজ্য বা সামন্ত রাজ্য হিসেবে রাখা হয়েছিল।


বাইজান্টিয়াম

নর্মানরা ইতালিতে প্রবেশ শুরু করার পরপরই তারা পেচেনেগস, বুলগেরিয়ান এবং বিশেষত সেলজুক তুর্কিদের বিরুদ্ধে লড়াই করে বাইজেন্টাইন সাম্রাজ্য এবং তারপরে আর্মেনিয়ায় প্রবেশ করেছিল। নর্মান ভাড়াটে সৈন্যদের প্রথমে বাইজেন্টাইনের বিরুদ্ধে কাজ করার জন্য লম্বার্ডরা দক্ষিণে আসতে উত্সাহিত করেছিল, তবে শীঘ্রই তারা সিসিলিতে বাইজেন্টাইনের পক্ষে লড়াই করেছিল। ১০৩৮-৪০ সালে জর্জ ম্যানিয়াসের সিসিলিয়ান অভিযানে ভার্চিয়ান এবং লম্বার্ড গোষ্ঠীর পাশাপাশি তারাও প্রভাবশালী ছিল।গ্রীকদের জন্য নর্মানরা আসলে নর্মান ইতালি থেকে এসেছিল কিনা তা নিয়ে বিতর্ক রয়েছে এবং এখন মনে করা হয় খুব কম লোকই সম্ভবত সেখান থেকে এসেছিল। বাইজেন্টাইনরা যে "ফ্রাঙ্কস"দের চিনত তাদের মধ্যেও কতজনইবা নর্মান ছিল বা অন্য গোষ্ঠীর ফরাসী ছিল না তাও অজানা।

১০৫০ এর দশকে বাইজেন্টাইন জেনারেলের দায়িত্ব পালনকারী প্রথম নর্মান ভাড়াটে সৈন্যদের একজন ছিলেন হার্ভি। ততদিনে, ইতিমধ্যেই সেখানে নর্মান ভাড়াটে সৈন্যরা ট্রেবিজন্ড এবং জর্জিয়ার মতো দূর দূরান্তে সেবা দিচ্ছিল। তারা এন্টিওকের বাইজেন্টাইন ডিউকের আইজ্যাক কমেনিওসের অধীনে মালাটিয়া এবং এডেসায় মূলত ছিল। ১০৬০ এর দশকে, রবার্ট ক্রিস্পিন তুর্কিদের বিরুদ্ধে এডেসার নর্মানদের নেতৃত্ব দিয়েছিলেন। এমনকি স্থানীয় জনগণের সমর্থন নিয়ে এশিয়া মাইনরে একটি স্বাধীন রাষ্ট্র গঠনের চেষ্টা করেছিলেন রুসেল ডি বেইলিউল, কিন্তু বাইজেন্টাইন জেনারেল আলেক্সাস কোমনেনোস তাকে থামিয়ে দিয়েছিলেন।

কিছু নর্মান সুদূর পূর্ব আনাতোলিয়ায় আর্মেনিয়ান সামন্ত রাষ্ট্র সাসৌন ও তারোন রাজ্যগুলির ধ্বংসের জন্য তুরস্কের সেনাবাহিনীতে যোগ দিয়েছিল। পরে অনেকেই আরও দক্ষিণে সিলিসিয়া এবং টাউরাস পর্বতমালায় আর্মেনিয়ান রাজ্যের চাকুরি গ্রহণ করেছিল। আওয়ারসেল নামের একজন নর্মান উত্তর সিরিয়ার উর্ধ্ব ফোরাত উপত্যকায় "ফ্রাঙ্কস" এর একটি বাহিনীর নেতৃত্ব নিয়েছিলেন। ১০৭৩ থেকে ১০৭৪ অবধি রাইমবাউদের নেতৃত্বে আর্মেনিয়ান জেনারেল ফিলারেটাস ব্র্যাচামিয়াসের ২০,০০০ সৈন্যের মধ্যে ৪,০০০ ছিলেন নর্মান, যারা পূর্বের ওরসেলের নেতৃত্বে ছিলেন। এমনকি তারা তাদের দুর্গগুলোর নামও নিজেদের জাতীয়তা নামে রেখেছিল তথা আফ্রানজি, যার অর্থ "ফ্রাঙ্কস"। আমেরিকা ও বারী ইতালিতে নরম্যান শাসনের অধীনে থাকাকালীন আমালফি ও এন্টিওকের মধ্যে এবং বারী ও টারসাসের মধ্যে প্রচলিত বাণিজ্য সেই শহরগুলিতে ইটালো-নরম্যানদের উপস্থিতির সাথে সম্পর্কিত হতে পারে।

কমেনেনিয়ান পুনরুদ্ধারের সময় যখন বাইজেন্টাইন সম্রাটরা পশ্চিম ইউরোপীয় যোদ্ধাদের সন্ধান করছিলেন তখন বাইজেন্টাইন গ্রীসের বেশ কয়েকটি পরিবার নর্মান ভাড়াটে সৈনিকদের বংশোদ্ভূত ছিল। রাউলিই নামটি ইতালীয়-নর্মান রাউল বংশোদ্ভূত, পেট্রালিফাই পিয়ের ডি'আল্পস বংশোদ্ভূত এবং আলবেনিয়ান গোত্র ম্যানিয়াকেটসের নামটি ১০৩৮ সালের সিসিলিয়ান অভিযানে জর্জ ম্যানিয়াসের অধীনে কাজ করা নর্মানদের থেকে উৎসারিত হয়েছে।

রবার্ট গুইকার্ড, আর একজন নর্মান দুঃসাহসিক যিনি পূর্বে তার সামরিক সাফল্যের বলে অপুলিয়ার কাউন্ট মর্যাদায় উন্নীত হয়েছিলেন, শেষ পর্যন্ত তিনি বাইজেন্টাইনদের দক্ষিণ ইতালি থেকে বের করে দেন। পোপ সপ্তম গ্রেগরির অনুমতি নিয়ে তাঁর সামন্ত হিসেবে, রবার্ট পশ্চিমের সামন্ত অধিপতি ও ক্যাথলিক চার্চে নিজের দৃঢ় আসন প্রতিষ্ঠা করতে বলকান উপদ্বীপে বিজয়াভিযান অব্যাহত রাখেন। ক্রোয়েশিয়া এবং ডালমাটিয়ার ক্যাথলিক শহরগুলির সাথে নিজে জোট করার পরে, ১০৮১ সালে তিনি আলবেনিয়ার দক্ষিণ উপকূলে ৩০০ টি জাহাজে ৩০,০০০ লোকের একটি সৈন্যবাহিনী পরিচালনা করেছিলেন এবং ভালোনা, কানিনা, জেরিকো (ওরিকুমি) দখল করেছিলেন, আর অসংখ্য লুটতরাজের পরে বাট্রিন্টে পৌঁছেছিলেন। তারা ইতোপূর্বে করফু জয় করা বাহিনীর সঙ্গে যোগ দেয় এবং স্থল ও সমুদ্রপথে ডিররাচিয়াম আক্রমণ করে। যাবার পথে তারা সমস্ত কিছু ধ্বংস করে ফেলেছিল। এই কঠোর পরিস্থিতিতে স্থানীয়রা সম্রাট আলেক্সাস প্রথম কামেনেনাস নর্মানদের বিরুদ্ধে বাইজেন্টাইনদের সাথে বাহিনীতে যোগ দেওয়ার আহ্বান গ্রহণ করেছিল। আলবেনিয়ান বাহিনী পরে যুদ্ধে অংশ নিতে পারেনি কারণ তাদের আগমনের আগেই এটি শুরু হয়ে গিয়েছিল। যুদ্ধের অব্যবহিত পরে, ভেনেসীয় বহর শহরটির চারদিকের উপকূলে বিজয় অর্জন করেছিল। পিছু হটতে বাধ্য হয়ে আলেক্সাস ডিররাচিয়াম শহরটি টেন্টের কাউন্টের (বা বাইজেন্টীয় প্রাদেশিক প্রশাসক্) কাছে সমর্পণ করেন।[৩৫] শহরটি নগরীর সৈন্যবাহিনী ১০৮২ খৃষ্টাব্দ পর্যন্ত রক্ষা করতে পেরছিল কেননা এরপর সেখানে স্থায়ীভাবে বসবাসকারী ভিনিশিয়ান এবং আমালফিটান বণিকরা প্রতারণামূলকভাবে ডিররাচিয়ামকে নর্মানদের হাতে তুলে দিয়েছিল। এবার নর্মানরা পার্বত্য অঞ্চলে অবাধ প্রবেশাধিকার পেয়েছিল। থেসালোনিকায় উপস্থিত হওয়ার আগে তারা আইওয়ান্নিনা, দক্ষিণ-পশ্চিম ম্যাসেডোনিয়া এবং থেসালির কয়েকটি ছোটখাটো শহর দখলে নিয়েছিল। উচ্চ পর্যায়ের মধ্যে মতবিরোধ নর্মানদের ইতালি ফিরে যেতে বাধ্য করেছিল। ১০৮৫ সালে রবার্টের মৃত্যুর পর তারা ডিররাচিয়াম, ভালোনা এবং বাট্রিন্ট হারিয়েছিল।

১১০৭ সালে প্রথম ক্রুসেডের কয়েক বছর পরে, রবার্টের পুত্র বোহেমন্ডের নেতৃত্বে নর্মানরা ভালোনায় উপস্থিত হয় এবং তৎকালীন সর্বাধিক পরিশীলিত সামরিক সরঞ্জাম ব্যবহার করে ডিররাচিয়াম ঘেরাও করে, কিন্তু কোন লাভ হয়নি। এর মধ্যে, তারা ডিয়েবোলিস নদীর তীরে মিলির দুর্গ পেট্রেলা, গ্লাভেনিকা (বলশ), কানিনা এবং জেরিকো দখল করে নেয়। এবার আলবেনীয়রা নরম্যানদের পক্ষ নিয়েছিল, বাইজেন্টাইনরা তাদের উপর যে ভারী কর আরোপ করেছিল তাতে অসন্তুষ্ট হয়ে। তাদের সহায়তায় নর্মানরা আরবানন সুরক্ষিত করে ডিব্রার দিকে যাত্রা শুরু করে। কিন্তু সরবরাহের অভাব, রোগ এবং বাইজেন্টাইন প্রতিরোধের কারণে বোহেমন্ডকে বাধ্য হয়ে তার অভিযান থেকে সরে আসতে হয়েছিল এবং ডায়াবলিস শহরে বাইজেন্টাইনদের সাথে একটি শান্তিচুক্তি সই করতে হয়েছিল।

বাইজেন্টাইন রাষ্ট্র-বিষয়ক পরবর্তী অধঃপতন ১১৮৫ সালে তৃতীয় একটি হামলার মাধ্যমে প্রস্তুত হয়েছিল, যখন উর্ধ্বতন বাইজেন্টাইন কর্মকর্তাদের বিশ্বাসঘাতকতার কারণে ডিররাচিয়ামে এক বিশাল নর্মান সেনাবাহিনী আক্রমণ করেছিল। কিছুক্ষণের মধ্যেই, অ্যাড্রিয়াটিকের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ নৌ ঘাঁটি ডিররাচিয়াম আবারও বাইজান্টাইনদের নিয়ন্ত্রণে চলে আসে।


ইংল্যান্ড

নর্মানরা প্রথম থেকেই ইংল্যান্ডের সাথে যোগাযোগ রেখেছিল। কেবল তাদের মূল ভাইকিং সতীর্থরাই শুধু ইংলিশ উপকূলে লুটপাট চালাচ্ছিল তাই নয়, তারাও ইংলিশ চ্যানেল জুড়ে বেশিরভাগ গুরুত্বপূর্ণ বন্দর দখল করেছিল। এই সম্পর্ক অবশেষে নর্ম্যান্ডির দ্বিতীয় ডিউক রিচার্ডের বোন এমা এবং ইংল্যান্ডের রাজা দ্বিতীয় এথেলার্ডের বিবাহের মাধ্যমে রক্তের আরও ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক তৈরি করে। এ কারণে, ১০১৩ সালে যখন সুইইন ফোরকবার্ড এথেলার্ডকে রাজ্যত্যাগে বাধ্য করেন তখন তিনি নরম্যান্ডিতে পালিয়ে যান। নরম্যান্ডিতে তাঁর অবস্থান (১০১৬ সাল পর্যন্ত) এবং তাঁর পুত্ররা ক্নাট দ্য গ্রেট দ্বীপটি জয় করার পরেও নরম্যান্ডিতে অবস্থান করেছিলেন।

এ্যাডওয়ার্ড দ্য কনফেসর যখন অবশেষে ১০৪১ সালে তাঁর পিতার কাছ থেকে সৎ ভাই হার্থাক্নাটের আমন্ত্রণে গিয়েছিলেন তখন তার মন ইতোমধ্যেই নর্মান শিক্ষায় আবিষ্ট । তিনি অনেক নর্মান কাউন্সেলর এবং যোদ্ধাও নিয়ে গিয়েছিলেন, যাদের মধ্যে কয়েকজন একটি ইংরেজ অশ্বারোহী বাহিনী প্রতিষ্ঠা করেছিল। এই ধারণাটি সত্যতা যদিও সেভাবে জানা যায় না, তবে এটি এডওয়ার্ডের মনোভাবের একটি আদর্শ উদাহরণ। তিনি ক্যানটারবেরির জমিজেস আর্চবিশপ রবার্টকে নিযুক্ত করেছিলেন এবং রাল্ফ দ্য টিমিডকে হিয়ারফোর্ডের আর্ল বানিয়েছিলেন। তিনি ১০৫১ সালে তাঁর ভগ্নিপতি কাউন্ট অফ বুলগন, দ্বিতীয় ইউস্টেসকে তাঁর সভায় আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন এটি এমন একটি ঘটনা ছিল যা স্যাকসন এবং নরম্যানের মধ্যে প্রথম দিকের দ্বন্দ্বের কারণ হয়েছিল এবং পরিণামে ওয়েসেক্সের আর্ল গডউইন নির্বাসিত হয়েছিলেন।

১৪ ই অক্টোবর ১০৬৬ সালে উইলিয়াম দ্য কনকোয়ারার হেস্টিংসের যুদ্ধে একটি অবধারিত বিজয় লাভ করেন, যার ফলে তিন বছর পরে ইংল্যান্ডও বিজিত হয়।[৩৬] বায়াক্স টেপস্ট্রিতেও এর প্রমাণ মেলে। ইংল্যান্ডের শাসক শ্রেণী হিসেবে অ্যাংলো-স্যাক্সনদের স্থলে আক্রমণকারী নরম্যানস এবং তাদের বংশধররা নিজেদের বৃহত্তরভাবে প্রতিস্থাপন করেছিল। ইংল্যান্ডের আভিজাত্য একটি একক নরম্যান সংস্কৃতির অংশ ছিল এবং অনেকেরই চ্যানেলের দুপাশে জমি ছিল। ইংল্যান্ডের প্রথম দিকের নরম্যান রাজাগণ, নরম্যান্ডির ডিউক হিসেবে, এই মহাদেশে তাদের ভূমির জন্য ফ্রান্সের রাজার প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেছিলেন।তারা ইংল্যান্ডকে তাদের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অধিষ্ঠান হিসাবে বিবেচনা করেছিল (কারণ এর সাথে রাজা উপাধিটিও তাদের অধিকারে এসেছিল — যা একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ মর্যাদার প্রতীক)।

অবশেষে, নর্মান ভাষা এবং ঐতিহ্যের সংমিশ্রণে স্থানীয়দের সাথে মিশে গিয়েছিল, তাই মার্জরি চিবনাল বলেছিলেন "লেখকরা এখনও নর্মানস এবং ইংরেজদের উল্লেখ করেছেন; তবে পদগুলি আর ১০৬৬-এর পরবর্তী সময়ের পরে যেমন বোঝাত তেমন নেই"।[৩৭] শত বছরের যুদ্ধের সময় নর্মান অভিজাতরা প্রায়শই নিজেকে ইংরেজ বলে পরিচয় দিত। অ্যাংলো-নর্মান ভাষা লাতিন ভাষা থেকে স্বতন্ত্র হয়ে ওঠে যা জিওফ্রে চসারের জন্যও কিছু রসিকতার বিষয় ছিল। অ্যাংলো-নরম্যান ভাষা শেষ পর্যন্ত অ্যাংলো-স্যাক্সন ভাষায় বিলীন হয়েছিল (পূর্ববর্তী অ্যাংলো-নর্স অধিবাসীদের নর্স ভাষা এবং গির্জার দ্বারা ব্যবহৃত ল্যাটিন)এবং মধ্যযুগীয় ইংরেজির বিকাশ সাধন করে একে প্রভাবিত করেছিল, যা একসময় আধুনিক ইংরেজিতে রূপান্তরিত হয়।


আয়ারল্যান্ড

১১৬৯ সালে বান্নো বেতে অভিযানের পর আইরিশ সংস্কৃতি এবং ইতিহাসের উপর নর্মানদের গভীর প্রভাব পড়েছিল। প্রাথমিকভাবে নর্মানরা আলাদা সংস্কৃতি ও জাতীয়তা বজায় রেখেছিল। তবুও সময়ের সাথে সাথে তারা আইরিশ সংস্কৃতির মাঝে এতটাই বিলীন হয়ে যেতে থাকে যে বলা হয় তারা "নিজেরাই আইরিশদের চেয়ে বেশি আইরিশ হয়ে উঠেছে"। নর্মানরা বেশিরভাগ ক্ষেত্রে আয়ারল্যান্ডের পূর্বের একটি অঞ্চলে স্থায়ীভাবে বসতি স্থাপন করেছিল যা পরে প্যালে নামে পরিচিত হয়। এছাড়াও ট্রিম দুর্গ এবং ডাবলিন দুর্গসহ তারা আরো অনেক চমৎকার দুর্গ এবং বসতি স্থাপন করেছিল। সংস্কৃতিগুলো একে অপরের ভাষা, সংস্কৃতি এবং দৃষ্টিভঙ্গি থেকে ধার করে সংমিশ্রিত রূপ ধারণ করেছে। নর্মানের ডাক নামগুলো এখনও রয়েছে। ফ্রেঞ্চ, (ডি) রসে, দেভেরাক্স, ডি'আরসি, ট্রেসি এবং ল্যাসির মতো নামগুলি আয়ারল্যান্ডের দক্ষিণ-পূর্ব, বিশেষত ওয়েক্সফোর্ড কাউন্টির দক্ষিণ অংশে দেখা যায় যেখানে প্রথম নর্মান বসতি স্থাপন করা হয়েছিল। ফুরলং-এর মতো অন্যান্য নর্মান নাম সেখানে প্রাধান্য পেয়েছে। আরেকটি সাধারণ নর্মান-আইরিশ নাম ছিল মোরেল (মুরেল), ফরাসী নর্মান নাম মোরেল থেকে প্রাপ্ত। ফিটজ দিয়ে শুরু হওয়া নামগুলি - (নরম্যান ভাষায় ছেলে বোঝাতে ) সাধারণত নরম্যান বংশকে নির্দেশ করে। হিবের্নো-নরমানের উপাধার বা ডাক নামের সাথে ফিটজ উপসর্গ মিলে - ফিটজেরাল্ড, ফিটজগিবনস (গিবনস) পাশাপাশি ফিটজমরিস ইত্যাদি নাম তৈরি হয়েছে । ব্যারি (ডি বারা) এবং ডি বার্কা (বার্ক) এর মতো পারিবারিক উপাধিগুলোও নরম্যান থেকে উৎসারিত হয়েছে।


স্কটল্যান্ড

ইংলিশ সিংহাসনের অন্যতম দাবিদার এডগার অ্যাথলিং, উইলিয়াম দ্য কনকোয়ারারের বিরোধিতা করে অবশেষে স্কটল্যান্ডে পালিয়ে যান। স্কটল্যান্ডের রাজা তৃতীয় ম্যালকাম এডগারের বোন মার্গারেটকে বিয়ে করেছিলেন এবং উইলিয়ামের বিরোধিতা করেছিলেন যিনি ইতিমধ্যে স্কটল্যান্ডের দক্ষিণ সীমান্তে সংঘাতে ব্যস্ত ছিলেন। উইলিয়াম ১০৭২ সালে স্কটল্যান্ড আক্রমণ করেছিলেন এবং অ্যাবারনেথি পর্যন্ত যাত্রা করেছিলেন যেখানে তিনি তাঁর জাহাজের বহরগুলোর সাথে মিলিত হন। ম্যালকম আত্মসমর্পণ করেছিলেন এবং উইলিয়ামের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেছিলেন। সেই সাথে তাঁর ছেলে ডানকানকে জিম্মি হিসেবেও অর্পণ করেছিলেন। স্কটিশ রাজা ইংল্যান্ডের রাজার প্রতি আনুগত্যের জন্য দায়বদ্ধ ছিলেন কিনা এ ঘটনা তা নিয়েও ধারাবাহিক বিতর্কের জন্ম দিয়েছিল।

নর্মানর্ স্কটল্যান্ডে প্রবেশ করে দুর্গ গড়ে তুলেছিল এবং এমন অভিজাত পরিবার প্রতিষ্ঠা করেছিলেন যা রবার্ট ব্রুসের মতো ভবিষ্যতে কিছু রাজা সরবরাহ করনে তেমনি উল্লেখযোগ্য সংখ্যক স্কটিশ গোষ্ঠীরও পত্তন করেছিলেন। স্কটল্যান্ডের রাজা প্রথম ডেভিড, যার বড় ভাই প্রথম আলেকজান্ডার নর্ম্যান্ডির সিবিলাকে বিয়ে করেছিলেন। তিনি স্কটল্যান্ডে নর্মান এবং নর্মান সংস্কৃতি প্রবর্তনের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিলেন যা কিছু পন্ডিতের মতে "ডেভিডিয়ান বিপ্লব" প্রক্রিয়ার অংশ। ইংল্যান্ডের প্রথম হেনরির দরবারে সময় কাটিয়ে (স্কটল্যান্ডের ডেভিডের বোন মাউদের সাথে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হয়ে) নিজের সৎ ভাই মেল কলুইম ম্যাক অ্যালেক্সানডায়ারের কাছ থেকে রাজ্য আদায় করতে ডেভিডকে অনেককে ভূমি দিয়ে পুরস্কৃত করতে হয়েছিল। প্রক্রিয়াটি ডেভিডের উত্তরসূরিদের অধীনেও অব্যাহত ছিল, সবচেয়ে বেশি ছিল উইলিয়াম দ্য লায়নের অধীনে। স্কটল্যান্ডের বেশিরভাগ অঞ্চলে নরম্যানদের থেকে প্রাপ্ত সামন্ত ব্যবস্থাটি বিভিন্ন ডিগ্রিতে প্রয়োগ করা হয়েছিল। ব্রুস, গ্রে, রর‍্যামসে, ফ্রেজার, রোজ, ওগিলভি, মন্টগোমেরি, সিনক্লেয়ার, পোলক, বার্নার্ড, ডগলাস এবং গর্ডন নামে হাতেগোনা কয়েকটি স্কটিশ পরিবারের নাম এবং পরবর্তীতে স্টিওয়ার্টের রাজবাড়িসহ সমস্তই নর্মান উৎসে সন্ধান মিলতে পারে।


ওয়েলস

ইংল্যান্ডে নর্মান বিজয়েরও আগে নর্মান ওয়েলসের সংস্পর্শে এসেছিল। এডওয়ার্ড দ্য কনফেসার পূর্বউল্লেখিত রাল্ফকে হেরফোর্ডের আর্ল হিসাবে স্থাপন করেছিলেন আবার মার্চেস বিষয়ে এবং ওয়েলশদের সাথে যুদ্ধের জন্য তাকে অভিযুক্তও করেছিলেন। এই মূল উদ্যোগগুলির দরুণ নরম্যানরা ওয়েলসের দিকে কোন অগ্রগতি করতে ব্যর্থ হয়েছিল।

বিজয়ের পরে মার্চেস পুরোপুরি উইলিয়ামের সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য নর্মান ব্যারনদের অধীনে চলে আসে, যাদের মধ্যে ছিলেন বার্নার্ড ডি নিউফমার্চি, শ্রপশায়ারের রজার অব মন্টগোমেরির এবং চেশায়ারের হিউ লুপাস। এই নর্মানরা ধীরে ধীরে তাদের বিজয় শুরু করেছিল যখন প্রায় সমস্ত ওয়েলস এক পর্যায়ে তাদের অধীনে চলে আসে। ব্যারন (বারউন) এর মতো নরম্যান শব্দগুলি তখন ওয়েলসে প্রথম প্রবেশ করেছিল।


ক্রুসেড

প্রথম ক্রুসেডের বহু আগেই ধর্মযুদ্ধগুলোতে নর্মানদের যে ধর্মীয় উদ্দীপনা দেখা যেত সেটিই নর্মান অ্যান্টিয়ক রাজ্যকেও গঠন করেছিল। তারা আইবেরিয়ার রিকনকুইস্টায় প্রধান বিদেশী যোদ্ধা ছিল। ১০১৮ সালে, রজার ডি টসনি আইবেরিয়ান উপদ্বীপে ভ্রমণ করেছিলেন মুরিশ অঞ্চল থেকে নিজের জন্য একটি রাষ্ট্র গঠনের জন্য, কিন্তু ব্যর্থ হন। ১০৬৪ সালে, বার্বাস্ট্রো যুদ্ধের সময়, উইলিয়াম অফ মন্ট্রিল পাপাল সেনাবাহিনীর নেতৃত্ব দেন এবং ব্যাপক লুটতরাজ করেন।

১০৯৬ সালে, দখলকৃত ‌আমলফির পাশ দিয়ে ক্রুসেডাররা বোহেমন্ড অফ তারাতোর সঙ্গে এবং তার ভাগ্নে টানক্রড ইতালীয়-নর্মানদের একটি বাহিনীর সঙ্গে যোগ দেন। বোহেমন্ড এশিয়া মাইনরে ক্রুসেডের সময় ডি ফ্যাক্টো বা বৈধ নেতা ছিলেন। ১০৯৭ সালে সাফল্যের সাথে এন্টিওক অধিকারের পর, বোহেমন্ড এই শহরটির চারপাশে একটি স্বাধীন রাজ্য তৈরি করতে শুরু করেছিলেন। জেরুজালেম বিজয়ের ক্ষেত্রে টানক্র্রেড গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিলেন এবং তিনি ট্রান্সজর্ডান এবং গালীলি অঞ্চলে ক্রুসেডার রাজ্য সম্প্রসারণের জন্য চেষ্টা করেছিলেন।


সাইপ্রাসে অ্যাংলো-নর্মান বিজয়

তৃতীয় ক্রুসেডের অ্যাংলো-নর্মান বাহিনী কর্তৃক সাইপ্রাসের বিজয় এই দ্বীপের ইতিহাসে এক নতুন অধ্যায়ের সূচনা করেছিল, যা পরবর্তী ৩৮০ বছর ধরে পশ্চিমা ইউরোপীয় আধিপত্যাধীন থাকবে। যদিও পরিকল্পিত অভিযানের অংশ ছিল না তবুও এই বিজয়ে প্রত্যাশার চেয়ে স্থায়ী সুফল অনেক বেশি ছিল।

এপ্রিল ১১৯১ সালে, রিচার্ড দ্য লায়ন-হার্টেড এক্রে পৌঁছানোর জন্য একটি বিশাল বহর নিয়ে মেসিনা ছেড়ে যান।[৩৮] কিন্তু ঝড়ের কারণে বহরটি ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়। কিছু খোঁজাখুঁজির পর তাঁর বোন এবং তাঁর বাগদত্তা বেরেঙ্গারিয়াকে বহনকারী নৌকাটি সাইপ্রাসের দক্ষিণ উপকূলে এবং গুপ্তধনের জাহাজ সহ আরও বেশ কয়েকটি জাহাজের ধ্বংসাবশেষের সাথে নোঙ্গর করা অবস্থায় পাওয়া যায়। ধ্বংসাবশেষ থেকে বেঁচে যাওয়া লোকদের এই দ্বীপের স্বৈরাচারি শাসক আইজাক কমেনিওসের বন্দী করে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল।[৩৯] ১১৯১ সালের ১লা মে রিচার্ডের বহর সাইপ্রাসের লিমাসল বন্দরে পৌঁছায়।[৩৯] তিনি আইজাককে সকল বন্দী এবং সম্পদ মুক্ত করে দেয়ার নির্দেশ দিয়েছিলেন।[৩৯] আইজাক প্রত্যাখ্যান করলে, রিচার্ড তার বাহিনী নিয়ে লিমাসল দখল করে নেন।[৪০]

পবিত্র ভূমির অনেক যুবরাজ একই সময়ে লিমাসল পৌঁছেছিলেন বিশেষ করে গাই ডি লুসিগান। সবাই রিচার্ডের পক্ষে তাদের সমর্থন জ্ঞাপন করেছিল ফলে তিনিও গাইকে তার প্রতিদ্বন্দ্বী মন্টফেরেটের বিরুদ্ধে সমর্থন করেছিলেন।[৪১] স্থানীয় ব্যারনরা আইজ্যাককে পরিত্যাগ করেছিল। আইজ্যাক রিচার্ডের সাথে শান্তি স্থাপন করতে এবং ক্রুসেডে তাঁর সাথে যোগ দিতে চেয়েছিলেন, এমনকি রিচার্ডের সাথে নিজের মেয়েকে বিয়ে দেয়ারও প্রস্তাব দিয়েছিলেন।[৪২] কিন্তু ইসহাক তার মন পরিবর্তন করে পালানোর চেষ্টা করলেন। এরপরে রিচার্ড পুরো দ্বীপটি জয় করতে এগিয়ে যান এবং তাঁর সৈন্যদের নেতৃত্ব দিয়েছিলেন গাই ডি লুসিগান। আইজাক আত্মসমর্পণ করেছিল এবং তাকে রূপার শেকল দিয়ে বাঁধা হয়েছিল, কারণ রিচার্ড প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন যে তিনি তাকে বিড়ম্বনায় রাখবেন না। ১ জুনের মধ্যে রিচার্ড পুরো দ্বীপটি জয় করে নেন। তাঁর কর্মযজ্ঞ চারদিকে ছড়িয়ে পড়েছিল এবং তাঁকে খ্যাতিমান করে তুলেছিল; তিনি এই দ্বীপ বিজয় মধ্য দিয়ে উল্লেখযোগ্য আর্থিক লাভও করেছিলেন।[৪৩] ৫ই জুন রিচার্ড তাঁর সহযোগীদের নিয়ে এক্রের উদ্দেশ্যে যাত্রা করেছিলেন।[৪৩] তিনি চলে যাওয়ার আগে, তাঁর দু'জন নর্মান জেনারেল, রিচার্ড ডি ক্যামভিলে এবং রবার্ট ডি থর্নহ্যামকে সাইপ্রাসের গভর্নর হিসাবে ঘোষণা করে যান।

লিমাসল থাকাকালীন রিচার্ড দ্য লায়ন-হার্টেড নাভারের বেরেঙ্গারিয়াকে বিয়ে করেছিলেন, তিনি নাভারের রাজা ষষ্ঠ সানচোর প্রথম কন্যা। এই বিয়েটি ১১৯১ সালের ১২ইমে সেন্ট জর্জের চ্যাপেলে অনুষ্ঠিত হয়েছিল এবং এতে রিচার্ডের বোন জোয়ান উপস্থিত ছিলেন, যাকে তিনি সিসিলি থেকে নিয়ে এসেছিলেন। বিবাহটি প্রচণ্ড আড়ম্বরপূর্ণ এবং জাঁকজমকপূর্ণভাবে উদযাপিত হয়েছিল। অন্যান্য বিশাল অনুষ্ঠানের মধ্যে একটি ছিল দ্বৈত রাজ্যাভিষেক অনুষ্ঠান: রিচার্ড সাইপ্রাসের রাজা, এবং বেরেঙ্গারিয়া ইংল্যান্ড ও সাইপ্রাসের রানী হিসেবে অভিষিক্ত হয়েছিলেন।

অ্যাংলো-নর্মানদের ক্ষিপ্র বিজয় যতটা মনে হয়েছিল তার চেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ প্রমাণিত হয়েছিল। এই দ্বীপটি পবিত্র ভূখণ্ডের সাথে সমুদ্র পথে একটি গুরুত্বপূর্ণ কৌশলগত অবস্থান দখল করেছিল যা খ্রিস্টানরা করতে পারেনি।[৪৪] বিজয়ের পরপরই সাইপ্রাস নাইট টেম্পলারের কাছে বিক্রি করে দেয়া হয় এবং পরে এটি গাই ডি লুসিনান দ্বারা ১১৯২ সালে পুনরায় অধিগ্রহণ করে এবং এটি একটি স্থিতিশীল সামন্ত রাজ্যে পরিণত হয়।[৪৪] কেবলমাত্র ১৪৮৮ সালে ভেনেসীয়রা এই দ্বীপের পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ অর্জন করেছিল, যা ১৫৭১ সালে ফামাগুস্তার পতনের আগ পর্যন্ত খ্রিস্টানদের শক্ত নিয়ন্ত্রণে ছিল।[৪৩]

ক্যানারি দ্বীপপুঞ্জ

১৪০২ এবং ১৪০৫ এর মধ্যে, নর্মান অভিজাত জ্যান ডি বেথেনকোর্টে[৪৫]র নেতৃত্বে এই অভিযান পরিচালিত হয়েছিল এবং পোয়েটভাইন প্রদেশের গ্যাডিফার দে লা সলে আফ্রিকার আটলান্টিক উপকূলে ল্যানজারোট, ফুয়ের্তেভেন্চুরা এবং এল হিয়েররো ক্যানেরিয়ান দ্বীপপুঞ্জ জয় করেছিলেন। তাদের সেনাবাহিনী নরম্যান্ডি, গ্যাসকনিতে ‌একত্রিত হয়েছিল এবং পরে ক্যাস্তিলিয়ান উপনিবেশবাদীদের দ্বারা আরও শক্তিশালী হয়েছিল।

বেথেনকোর্ট ক্যাস্টিলের তৃতীয় হেনরির সামন্ত হিসেবে ক্যানারি দ্বীপপুঞ্জের রাজা উপাধি নিয়েছিলেন। ১৪১৮ সালে, জিনের ভাগ্নে ম্যাকিয়ট ডি বেথেনকোর্ট এই দ্বীপপুঞ্জের অধিকার দ্বিতীয় কাউন্ট ডি নিবেলা এনরিক পেরেজ দে গুজমেনের কাছে বিক্রি করে দিয়েছিলেন।

সংস্কৃতি[সম্পাদনা]

নরম্যান আইন

নর্ম্যান্ডির প্রথাগত আইন দশম এবং ত্রয়োদশ শতাব্দীর মধ্যে বিকশিত হয়েছিল এবং চ্যানেল দ্বীপপুঞ্জের জার্সি এবং গার্নেসীয় আইনী ব্যবস্থার মাধ্যমে আজও টিকে আছে। নর্মানরা প্রথাগত আইনকে তাদের এবং তাদের সহকর্মীদের দ্বারা ব্যবহার করার জন্য দুজন বিচারক দ্বারা ল্যাটিন ভাষায় দুটি প্রতিলিপি তৈরি করেছিল।[৪৬] এগুলো ছিল ট্রেস এনসিয়েন কৌটুমিয়র (খুব প্রাচীন রীতিনীতি) যা ১২০০ এবং ১২৪৫ এর মধ্যে রচিত; এবং গ্র্যান্ড কৌতুমিয়র ডি নরম্যান্ডি (নর্ম্যান্ডির দুর্দান্ত রীতি, মূলত সুমা ডি লেজিবাস নর্মেনিয়ায় ইন কিউরিয়া ল্যাকালিতে) যা১২৩৫ এবং ১২৪৫ এর মধ্যে রচিত।


স্থাপত্য

নরম্যান স্থাপত্য সাধারণত যে অঞ্চলগুলো তারা পরাজিত করেছিল তার স্থাপত্য ইতিহাসে একটি নতুন ধারা হিসেবে দাঁড়িয়েছে। তারা ইংল্যান্ড, ইতালি এবং আয়ারল্যান্ডে একটি অনন্য রোমানেস্কিক বৈশিষ্ট্য ছড়িয়ে দিয়েছিল এবং তাদের উত্তর ফরাসি শৈলীর দুর্গসজ্জা এই অঞ্চলগুলোর সামরিক ভূমিরূপকেই মূলত পরিবর্তিত করেছিল। বিশেষত জানালা এবং দরজার প্রবেশপথ এবং বৃহৎ জায়গাগুলোতে এবং প্রচুর পরিমাণে বৃত্তাকার খিলান দ্বারা তাদের নকশাগুলো চিহ্নিত করা যেত।

ইংল্যান্ডে নর্মান স্থাপত্যের সময়টি তখনই অ্যাংলো-স্যাক্সনদের উত্তরাধিকারে পরিণত হয়েছিল এবং আদি গথিকের পূর্বসূরি ছিল। দক্ষিণ ইতালিতে নরম্যানরা ইসলামী, লম্বার্ড এবং বাইজেন্টাইন নির্মাণের কৌশলগুলিকে নিজের মধ্যে অন্তর্ভুক্ত করেছিল, সিসিলি রাজ্যে তারা নর্মান-আরব স্থাপত্য নামে পরিচিত এক অনন্য শৈলীর সূচনা করেছিল।[৪]


ভিজ্যুয়াল আর্ট

ভিজ্যুয়াল আর্টে নরম্যানদের কোন সমৃদ্ধ ও স্বতন্ত্র সংস্কৃতিক ঐতিহ্য ছিল না। তবে, একাদশ শতাব্দীর গোড়ার দিকে, ডিউকরা সমস্ত মঠে ক্লুনিয়াক সংস্কারকে উত্সাহিত করে গির্জা সংস্কারের একটি কর্মসূচি শুরু করেন এবং বিশেষত স্ক্রিপটোরিয়ার (লেখার স্থান) প্রসার এবং হারিয়ে যাওয়া আলোকিত পাণ্ডুলিপিগুলির একটি সংকলন পুনর্গঠনের মাধ্যমে বৌদ্ধিক অনুশাসনগুলির পৃষ্ঠপোষকতা করেন। ডিউকরা গির্জাকে তাদের দ্বিধাবিভক্ত ডূচেকে একত্রিত করার শক্তি হিসাবে ব্যবহার করছিলেন। নরম্যান শিল্প এবং জ্ঞানবিদ্যার এই "নবজাগরণ" এ অংশ নেওয়া প্রধান মঠগুলি হলে মন্ট-সেইন্ট-মিশেল, ফ্যাক্যাম্প, জুমিয়েজস, বেক, সেন্ট-উয়েন, সেন্ট-এভ্রোয়েল এবং সেন্ট-ওয়ানড্রিল। এই কেন্দ্রগুলি তথাকথিত "উইনচেস্টার স্কুল" এর সংস্পর্শে ছিল, যা নরম্যান্ডিতে বিশুদ্ধ ক্যারোলিঞ্জিয়ান শৈল্পিক ঐতিহ্যের পথ করে দিয়েছিল। একাদশ শতাব্দীর চূড়ান্ত দশকে এবং দ্বাদশ শতাব্দীর প্রথম দশকে, সংক্ষিপ্ত হলেও নরম্যান্ডি অলঙ্কৃত পান্ডুলিপির এক স্বর্ণযুগ দেখতে পেয়েছিল। এই শতাব্দীর মাঝামাঝিতে নর্ম্যান্ডির প্রধান স্ক্রিপটোরিয়াটি কাজ করা বন্ধ করে দেয়।

ষোড়শ শতাব্দীতে ফরাসী ধর্মযুদ্ধ এবং আঠারো শতাব্দীতে ফরাসী বিপ্লব ধারাবাহিকভাবে নর্মান সৃজনশীলতার স্থাপত্য ও শৈল্পিক অবশেষের যা কিছু ছিল তা ধ্বংস করে দেয়। প্রথম ঘটনা ভয়াবহ সহিংসতার মাধ্যমে অনেক নর্মান অট্টালিকার অনিয়ন্ত্রিত ধ্বংস সাধন করেছিল; পরবর্তীকালে ধর্মের উপর হামলার ফলে যে কোনও ধরণের ধর্মীয় বিষয়গুলো উদ্দেশ্যমূলকভাবে ধ্বংস করা হয়েছিল এবং এতে সামাজিক অস্থিতিশীলতা দরুণ ব্যাপক লুটপাট হয়।

এখন পর্যন্ত নরম্যান শিল্পের সর্বাধিক বিখ্যাত কাজ হ'ল বায়াক্স টেপেষ্ট্রি, যা কোনও টেপস্ট্রি নয় বরং মূলত একটি সূচিকর্ম। এটি বায়াক্সের বিশপ ওডো,এবং কেন্টের প্রথম আর্ল দ্বারা নির্দেশিত হয়েছিল যাতে কেন্টের স্থানীয়দেরকে নিয়োগ করেছিল যারা নর্ডিক ঐতিহ্যের ধারক ছিল এবং ডেনিশ ভাইকিংস দ্বারা পূর্ববর্তী অর্ধ শতাব্দীতে তাদের আগমন ঘটেছিল।

ব্রিটেনে নরম্যান আর্ট মূলত পাথর বা ধাতব কাজ হিসেবে টিকে আছে যেমন- ক্যাপিটালস এবং ব্যাপটিসমাল ফন্টস। তবে দক্ষিণ ইতালিতে গ্রীক, লম্বার্ড এবং আরব পূর্বসুরিদের দ্বারা প্রভাবিত নর্মান শিল্পকর্মের ধরনগুলো প্রচুর পরিমাণে টিকে আছে। পালেরমোতে রক্ষিত রাজকীয় রাজসজ্জায় বাইজেন্টাইনীয় ধরনের মুকুট এবং রাজ্যাভিষেকের পোশাক আরবি লিপি ব্যবহারে আরবের দক্ষ কারুকার্যের সাক্ষ্য বহন করছে । অনেক গীর্জায় ভাস্কর্যযুক্ত ঝরনা, খিলান এবং খুব লক্ষ্যণীয়ভাবে মোজাইক দেখা যায় যা নর্মান ইতালিতে প্রচলিত ছিল এবং গ্রীক ঐতিহ্যকেও প্রবলভাবে আকর্ষণ করেছিল। লম্বার্ড স্যালার্নো একাদশ শতাব্দীতে আইভরিওয়ার্কের বা হাতি দাঁতের কারুকার্যের মূলকেন্দ্র ছিল এবং এটি নরম্যান আধিপত্য থাকা অবস্থায় অব্যাহত ছিল। পবিত্র ভূমি ভ্রমণকারী ফরাসী ক্রুসেডাররা তাদের সাথে যে ফ্রেঞ্চ নিদর্শনগুলি নিয়ে এসেছিল সেগুলো দক্ষিণ ইতালিতে তাদের নর্মান জ্ঞাতিদের গীর্জায় উপহার হিসেবে প্রদান করেছিল। এই কারণে অনেক দক্ষিণ ইতালীয় গীর্জা তাদের দেশীয় নিদর্শনের পাশাপাশি ফ্রান্স থেকে আসা নিদর্শনগুলোও সংরক্ষণ করে।


সংগীত

একাদশ শতাব্দীতে ধ্রুপদী সংগীতের ইতিহাসে নরম্যান্ডিতে বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ের বিকাশস্থল ছিল। ফ্যাক্যাম্প মঠ এবং সেন্ট-আওয়ারল মঠ দুটো ছিল সংগীত উৎপাদন ও শিক্ষার কেন্দ্র। ফ্যাক্যাম্পে , উইলিয়াম অফ ভলপিয়ানো এবং জন অফ রেভেন্না এই দুজন ইতালীয় মঠাধ্যক্ষের অধীনে, অক্ষরের সাহায্যে সুর লেখার ব্যবস্থা তৈরি করা হয়েছিল এবং শেখানো হতো। এটি আজও ইংলিশ এবং জার্মান-ভাষী দেশগুলিতে পিচ বা স্বরকম্পাঙ্ক প্রকাশের সবচেয়ে সাধারণ রূপ। এছাড়াও ফ্যাক্যাম্পে, স্টাফ (মিউজিকাল নোটেশন) প্রথম একাদশ শতাব্দীতে বিকাশ লাভ করেছিল এবং শেখানো হতো যাকে কেন্দ্র করে নিউমেরও (মিউজিকাল নোটেশন) সূচনা হয়েছিল। জার্মান আ্যবট বা মঠাধ্যক্ষ আইম্বার্ডের অধীনে, লা ট্রিনিটি-ডু-মন্ট সুর সমন্বয়ের কেন্দ্রস্থলে পরিণত হয়েছিল।

সেন্ট এভ্রোল-এ, সমবেত সঙ্গীতের একটি ঐতিহ্য বিকাশ লাভ করেছিল এবং নরম্যান্ডিতে বিখ্যাত হয়েছিল। নর্মান মঠাধ্যক্ষ রবার্ট ডি গ্রান্টসেমিনিলের অধীনে সেন্ট-ইভরুলের বেশ কয়েকজন সন্ন্যাসী দক্ষিণ ইতালিতে পালিয়ে যান, যেখানে তারা রবার্ট গুইকার্ডের পৃষ্ঠপোষকতা পেয়েছিলেন এবং সান'এফেমিয়া লামেজিয়ায় একটি লাতিন বিহার প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। সেখানে তারা সঙ্গীতের ঐতিহ্য অব্যাহত রেখেছিলেন।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Lifshitz, Felice (২০২০-১১-১৯)। Writing Normandy। Routledge। পৃষ্ঠা 181–187। আইএসবিএন 978-0-429-02934-9 
  2. "Figure 9.3. Girls are increasingly more likely than boys to expect to work in the healthcare field"dx.doi.org। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৪-০৪ 
  3. Desmarais, Norman (1998-07)। "Encyclopaedia Britannica CD 989872Robert McHenry Editor in Chief. Encyclopaedia Britannica CD 98. Britannica Centre 310 South Michigan Ave. Chicago, IL 60604 800‐747‐8503: Encyclopaedia Britannica, Inc 1997. URL: www.eb.com $125"Electronic Resources Review2 (7): 79–80। আইএসএসএন 1364-5137ডিওআই:10.1108/err.1998.2.7.79.72  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ= (সাহায্য)
  4. Arabic Administration in Norman Sicily। Cambridge University Press। ২০০২-১০-০৭। পৃষ্ঠা 31–62। আইএসবিএন 978-0-521-81692-2 
  5. The Norman Frontier in the Twelfth and Early Thirteenth Centuries। Cambridge University Press। ২০০৪-১২-১৬। পৃষ্ঠা 1–20। আইএসবিএন 978-0-521-57172-2 
  6. "A history of the plupluperfect"English Today2 (4): 36–36। 1986-10। আইএসএসএন 0266-0784ডিওআই:10.1017/s0266078400002480  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ= (সাহায্য)
  7. Searle, Eleanor (১৯৮৮)। Predatory kinship and the creation of Norman power, 840-1066। Berkeley: University of California Press। আইএসবিএন 0-520-06276-0ওসিএলসি 17649606 
  8. Neveux, François (২০০৮)। A brief history of the Normans : the conquest that changed the face of Europe। Claire Ruelle (1st ed সংস্করণ)। London: Constable & Robinson। আইএসবিএন 978-0-7624-3371-1ওসিএলসি 314804611 
  9. Sweet, Alfred H.; Tanner, J. R.; Previte-Orton, C. W.; Brooke, Z. N. (1927-09)। "The Cambridge Medieval History. Volume V. The Contest of Empire and Papacy."Political Science Quarterly42 (3): 468। আইএসএসএন 0032-3195ডিওআই:10.2307/2143141  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ= (সাহায্য)
  10. Leab, Dan (2016-04)। Coplon, Judith (17 May 1921–26 February 2011)। American National Biography Online। Oxford University Press।  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ= (সাহায্য)
  11. Dockray-Miller, Mary (২০১৭)। Public Medievalists, Racism, and Suffrage in the American Women’s College। Cham: Springer International Publishing। পৃষ্ঠা 51–73। আইএসবিএন 978-3-319-69705-5 
  12. Brooks, Thom। New Waves in Ethics। Palgrave Macmillan। আইএসবিএন 978-0-230-30588-5 
  13. The concise Oxford dictionary of English etymology। T. F. Hoad, Oxford University Press। Oxford: Oxford/Clarendon Press। ১৯৮৬। আইএসবিএন 978-0-19-172715-3ওসিএলসি 51115268 
  14. EWERT, A. (১৯৬৫-০৭-০১)। "Review. Nouveau Dictionnaire etymologique et historique. Dauzat, A., Dubois, J. and Mitterand, H."French Studies19 (3): 329–329। আইএসএসএন 0016-1128ডিওআই:10.1093/fs/19.3.329-a 
  15. Pierrel, Jean-Marie (২০১৩-১১-২৫)। Lingvisticæ Investigationes Supplementa। Amsterdam: John Benjamins Publishing Company। পৃষ্ঠা 119–152। আইএসবিএন 978-90-272-3140-6 
  16. Winkler, Henry R. (১৯৮৮)। "Ruth Dudley Edwards. Victor Gollancz: A Biography. London: Victor Gollancz, Ltd.; distributed by David & Charles, Inc., North Pomfret, Vt. 1987. Pp. 782. $45.00."Albion20 (1): 155–156। আইএসএসএন 0095-1390ডিওআই:10.2307/4049850 
  17. Before 1066., Normandy (Bates, David (2002).)। Normandy Before 1066। New Jersey: Hoboken, New Jersey: Wiley.। পৃষ্ঠা pp. 20–21। আইএসবিএন ISBN 978-1405100700. |আইএসবিএন= এর মান পরীক্ষা করুন: invalid character (সাহায্য)  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ= (সাহায্য)
  18. The Vikings in History। Routledge। ২০০২-১১-০১। পৃষ্ঠা 81–113। আইএসবিএন 978-0-203-41914-4 
  19. "Robert I | king of France". Encyclopedia Britannica. Retrieved 26 February 2020.
  20. Neveux, p. 5
  21. Crawford, Robert (২০০৪-০৯-২৩)। "Baynes, Thomas Spencer (1823–1887), editor of the Encyclopaedia Britannica"Oxford Dictionary of National Biography। Oxford University Press। আইএসবিএন 978-0-19-861412-8 
  22. Chibnall, Marjorie, সম্পাদক (২০০৬-০১-০১)। "The Normans"ডিওআই:10.1002/9780470693391 
  23. Grubb, James S.; Bellabarba, Marco (১৯৯৮)। "La giustizia ai confini: Il principato vescovile di Trento agli inizi dell' eta moderna."Sixteenth Century Journal29 (1): 210। আইএসএসএন 0361-0160ডিওআই:10.2307/2544456 
  24. Brown, R. Allen (১৯৯৪)। The Normans (New ed সংস্করণ)। Woodbridge, Suffolk UK: Boydell Press। আইএসবিএন 0-85115-358-5ওসিএলসি 30895950 
  25. Dupont, Jerry (২০০১)। The common law abroad : constitutional and legal legacy of the British empire। Littleton, Colorado। আইএসবিএন 0-8377-3125-9ওসিএলসি 44016553 
  26. "Dodge, John Vilas, (25 Sept. 1909–23 April 1991), Senior Editorial Consultant, Encyclopædia Britannica, since 1972; Chairman, Board of Editors, Encyclopædia Britannica Publishers, since 1977"Who Was Who। Oxford University Press। ২০০৭-১২-০১। 
  27. "New York Times New York City Poll, January 2003"ICPSR Data Holdings। ২০০৩-০৫-১৬। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৪-০৫ 
  28. Fodale, Salvatore। Les Normands en Méditerranée aux xie-xiie siècles। Presses universitaires de Caen। পৃষ্ঠা 171–178। আইএসবিএন 978-2-84133-156-7 
  29. Lewis, p.148
  30. Villegas-Aristizábal, Lucas (2008-01)। "Roger of Tosny's adventures in the County of Barcelona"Nottingham Medieval Studies (ইংরেজি ভাষায়)। 52: 5–16। আইএসএসএন 0078-2122ডিওআই:10.1484/J.NMS.3.426  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ= (সাহায্য)
  31. Villegas-Aristizábal, Lucas (২০১৭-১২-১১)। "Spiritual and Material Rewards on the Christian-Muslim Frontier: Norman Crusaders in the Valley of the Ebro in the First Half of the Twelfth Century"Medievalismo (27): 353। আইএসএসএন 1989-8312ডিওআই:10.6018/medievalismo.27.310701 
  32. Lucas Villegas-Aristizábal (২০১৩)। "Revisiting the Anglo-Norman Crusaders' Failed Attempt to Conquer Lisbon c. 1142"Portuguese Studies29 (1): 7। ডিওআই:10.5699/portstudies.29.1.0007 
  33. Biddlecombe, Dr Steven (2016-01)। "Crusading and Pilgrimage in the Norman World (ed. by Kathryn Hurlock and Paul Oldfield)"Nottingham Medieval Studies (ইংরেজি ভাষায়)। 60: 259–262। আইএসএসএন 0078-2122ডিওআই:10.1484/J.NMS.5.111293  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ= (সাহায্য)
  34. Crusades (ইংরেজি ভাষায়) (0 সংস্করণ)। Routledge। ২০১৬-০৮-১২। পৃষ্ঠা 75–142। আইএসবিএন 978-1-315-27159-0ডিওআই:10.4324/9781315271590-7 
  35. Dawes, Elizabeth A.S. (২০১৪-০৫-১২)। "The Alexiad of the Princess Anna Comnena"ডিওআই:10.4324/9781315828404 
  36. Chibnall, Marjorie, সম্পাদক (২০০৬-০১-০১)। "The Normans"ডিওআই:10.1002/9780470693391 
  37. Chibnall, Marjorie (২০০০)। The Normans। Oxford: Blackwell Publishers। আইএসবিএন 0-631-18671-9ওসিএলসি 59516063 
  38. Flori, Jean (1999 :)। Richard Coeur de Lion : le roi-chevalier.। Paris,: Payot et Rivages। আইএসবিএন 2-228-89272-6ওসিএলসি 300452562  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ= (সাহায্য)
  39. Flori, Jean (1999 :)। Richard Coeur de Lion : le roi-chevalier.। Paris,: Payot et Rivages। আইএসবিএন 2-228-89272-6ওসিএলসি 300452562  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ= (সাহায্য)
  40. Flori, Jean (1999 :)। Richard Coeur de Lion : le roi-chevalier.। Paris,: Payot et Rivages। আইএসবিএন 2-228-89272-6ওসিএলসি 300452562  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ= (সাহায্য)
  41. Flori, Jean (1999 :)। Richard Coeur de Lion : le roi-chevalier.। Paris,: Payot et Rivages। আইএসবিএন 2-228-89272-6ওসিএলসি 300452562  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ= (সাহায্য)
  42. Flori, Jean (1999 :)। Richard Coeur de Lion : le roi-chevalier.। Paris,: Payot et Rivages। আইএসবিএন 2-228-89272-6ওসিএলসি 300452562  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ= (সাহায্য)
  43. Flori, Jean (1999 :)। Richard Coeur de Lion : le roi-chevalier.। Paris,: Payot et Rivages। আইএসবিএন 2-228-89272-6ওসিএলসি 300452562  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ= (সাহায্য)
  44. Flori, Jean (1999 :)। Richard Coeur de Lion : le roi-chevalier.। Paris,: Payot et Rivages। আইএসবিএন 2-228-89272-6ওসিএলসি 300452562  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ= (সাহায্য)
  45. "Chisholm, Hugh, (22 Feb. 1866–29 Sept. 1924), Editor of the Encyclopædia Britannica (10th, 11th and 12th editions)"Who Was Who। Oxford University Press। ২০০৭-১২-০১। 
  46. Tran Duc, Lucile (২০১৮-০৭-১৫)। "David Bates, Pierre Bauduin (dir.), 911-2011. Penser les mondes normands médiévaux"Médiévales74 (74): 191–194। আইএসএসএন 0751-2708ডিওআই:10.4000/medievales.8845