দুইনো

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
দুইনো
Duino
শহর
দুইনোর শহর
দুইনো দূর্গের নিকটে সমুদ্রের রূপ
দুইনো দূর্গের নিকটে সমুদ্রের রূপ
দুইনোর অফিসিয়াল সীলমোহর
সীলমোহর
দুইনোর অবস্থান
দুইনোর অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ৪৫°৪৬′২৯″ উত্তর ১৩°৩৬′২২″ পূর্ব / ৪৫.৭৭৪৭২° উত্তর ১৩.৬০৬১১° পূর্ব / 45.77472; 13.60611
দেশ ইতালি
অঞ্চলফ্রিউলি-ভেনেৎসিয়া জুলিয়া
প্রদেশত্রিয়েস্তে
শহরওরেসিনা
উচ্চতা৩৯ মিটার (১২৮ ফুট)
সময় অঞ্চলমান সময় (ইউটিসি+১)
 • গ্রীষ্মকালীন (দিসস)+২ (ইউটিসি)
পোষ্ট কোড৩৪৯০১১
এলাকা কোড০৪০

দুইনো (ইতালীয়: Duino, স্লোভেনীয় ভাষায়: Devin) ইতালির উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় প্রদেশ ত্রিয়েস্তে-র একটি ছোট শহর। এটি মূলত স্বায়ত্তশাসিত অঞ্চল ফ্রিউলি-ভেনেৎসিয়া জুলিয়া-র অন্তর্ভুক্ত দুইনো-আউরিসিনা মিউনিসিপ্যালিটির অংশ। অনুমিত জনসংখ্যা হচ্ছে ৮,৭৫৩ এবং জনসংখ্যার ঘনত্ব প্রতি বর্গ কিলোমিটারে ১৯৩.৮।

প্রখ্যাত পদার্থবিজ্ঞানী, পরিসাংখ্যিক বলবিদ্যার জনক, লুডভিগ বোলৎসমান ১৯০৬ সালের ৩রা ডিসেম্বর এই শহরেই আত্মহত্যা করেছিলেন। বিখ্যাত গীতিকবি রাইনার মারিয়া রিলকে এই শহর দেখেই অনুপ্রাণিত হয়েছিলেন। স্লোভেনিয়ার জনপ্রিয়া লোক কিংবদন্তি Lepa Vida এখানেই সংঘটিত হয়েছিল।[১]

শহরটির মূল আকর্ষণ হচ্ছে দুটি দূর্গ। একাদশ শতকে নির্মিত প্রথম দূর্গটির ধ্বংসাবশেষই বর্তমানে কেবল টিকে আছে। কিন্তু নতুন দূর্গটিতে এখনও মানুষ থাকে, এবং ভ্রণের জন্যও এটি উন্মুক্ত। প্রাচীন দূর্গটির ধ্বংসাবশেষের নিচে সমুদ্রের দিখে মুখ করা একটি বিশাল সাদা পাথর রয়েছে যার নাম দামা বিয়ানকা। পাথরটি পর্দায় ঢাকা একটি মেয়ের প্রতিনিধিত্ব করে এবং এ থেকে অনেক গোথিক কিংবদন্তির জন্ম হয়েছে।

১৯৮২ সাল থেকে এখানে ইউনাইটেড ওয়ার্ল্ড কলেজ অফ আড্রিয়াটিক নামে একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পরিচালিত হচ্ছে। পৃথিবীর ৮০টি ভিন্ন ভিন্ন দেশের শিক্ষার্থীরা এখানে পড়তে আসতে পারে। এটি ইউনাইটডে ওয়ার্ল্ড কলেজেস (United World Colleges) প্রোগ্রামের অন্তর্ভুক্ত। এর উদ্দেশ্যই হচ্ছে শিক্ষার মাধ্যমে পৃথিবীর মানুষদের একীভূত করা।

১৯৫০-র দশকের আগে দুইনো মূলত স্লোভেনীয় ভাষাভাষীদের শহর ছিল, অল্প কিছু ইতালীয়-ভাষী লোকের বাস ছিল এখানে। প্রথম বিশ্বযুদ্ধের পূর্বে স্লোভেনিয়ার উদারনৈতিক জাতীয়তাবাদের একটি কেন্দ্রে পরিণত হয়েছিল এই শহর। কিন্তু ১৯৪৭ থেকে ১৯৫৪ সাল পর্যন্ত এটি ছিল ত্রিয়েস্তে নামক একটি স্বাধীন অঞ্চলের অন্তর্ভুক্ত। এ সময়ই শহরের জনচিত্র পাল্টে যায়। কারণ অনেক ইস্ত্রিয়ান ইতালীয়রা ইউগোস্লাভিয়া থেকে পালিয়ে এসে দুইনোতে আশ্রয় নেয়। বর্তমানে এখানকার অধিকাংশ মানুষ ইতালীয় ভাষায় কথা বলে, স্লোভেনীয়-ভাষীরা সংখ্যালঘু। তবে শহরের অধিকাংশ চিহ্ন এবং নাম দুই ভাষাতেই লেখা থাকে।

বিখ্যাত ব্যক্তিবর্গ[সম্পাদনা]

  • Ivan Ples (১৮৮৬-১৯৫৮) - স্লোভেনীয় অর্থনীতিবিদ।
  • Andrej Volarič (১৮৬৩-১৮৯৫) - সুরকার।
  • Gregorio Alasia de Sommaripa (১৫৮৭-১৬২৬) - ইতালীয় জেসুইট ধনিতত্ত্ববিদ। তিনি ১৬০১ সালে প্রথম স্লোভেনীয়-ইতালীয় অভিধান প্রণয়ন করেছিলেন।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Devin - na skrajnem severu Sredozemlja - www.kam.si, স্লোভেনীয় ভাষায়

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

স্থানাঙ্ক: ৪৫°৪৬′ উত্তর ১৩°৩৬′ পূর্ব / ৪৫.৭৬৭° উত্তর ১৩.৬০০° পূর্ব / 45.767; 13.600