থমাস আর. কর্নেলিয়াস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
থমাস আর. কর্নেলিয়াস
Thomas R. Cornelius 1896.jpg
অরেগন প্রাদেশিক পরিষদএর সদস্য
কাজের মেয়াদ
১৮৫৬ – ১৮৫৮
পূর্বসূরীএ.পি.ডেনিসন
সংসদীয় এলাকাওয়াশিংটন, মাল্টনোমাহ, & কলম্বিয়া কাউন্টি
অরেগন রাজ্য সিনেট এর সদস্য
কাজের মেয়াদ
১৮৫৯ – ১৮৭৬ (১৮৬২ বাদে)
উত্তরসূরীএ.বি. ওয়েইট
সংসদীয় এলাকাওয়াশিংটন, ক্লাটসপ, কলম্বিয়া, টিলামুক
অরেগন রাজ্য সিনেটএর সভাপতি
কাজের মেয়াদ
১৮৬৬ – ১৮৬৭
পূর্বসূরীজন এইছ. মিশেল
উত্তরসূরীবেঞ্জামিন ফ্রাঙ্কল
সংসদীয় এলাকাঅরেগন
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্ম১৬ নভেম্বর, ১৮২৭
মিসৌরি
মৃত্যু২৪ জুন ১৮৯৯(1899-06-24) (বয়স ৭১)
অরেগন
রাজনৈতিক দলহুইগ, রিপাবলিকান
দাম্পত্য সঙ্গীফ্লোরেন্টিন উইকস (বিয়েঃ ১৮৪৯)
মিসৌরি স্মিথ (বিয়েঃ ১৮৬৬)

থমাস রামসে কর্নেলিয়াস (১৬ নভেম্বর, ১৮২৭- ২৪ জুন ১৮৯৯) ছিলেন একজন প্রখ্যাত আমেরিকান রাজনীতিবিদ এবং অরেগনের প্রথমদিককার সৈনিক। জন্ম মিসৌরিতে, তবে পরিবারের সাথে যুবক বয়সেই পাড়ি জমান অরেগন-এ। সেখানে তিনি স্থানীয় আমেরিকানদের বিরুদ্ধে কায়ূস যুদ্ধ ও ইয়াকিমা ইন্ডিয়ান যুদ্ধে অংশ নেন। পরবর্তীতে তিনি ওয়াশিংটন কাউন্টির (প্রশাসনিক জেলা) কাছাকাছি স্থায়ীভাবে থাকা শুরু করেন। তার সম্মানে জায়গাটার নাম বদলে রাখা হয় কর্নেলিয়াস।

শুরুর দিকে হুইগ পার্টির সমর্থক থাকলেও পরে রিপাবলিকান পার্টিতে যোগ দেন তিনি। প্রথমে অরেগনের প্রাদেশিক সরকারের সদস্য ছিলেন এবং পরবর্তীতে অরেগন রাজ্য সিনেটের সদস্য হিসেবেও নির্বাচিত হন। সিনেটে তিনি এক মেয়াদে সভাপতির দায়িত্বও পালন করেন। তার নামে নির্মিত কর্নেলিয়াস পাস রোড তারই অবদান। অরেগনের আরেক প্রখ্যাত রাজনীতিক বেঞ্জামিন পি. কর্নেলিয়াস তারই ছেলে।

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

কর্নেলিয়াস এর জন্ম ১৬ নভেম্বর ১৮২৭-এ মিসৌরিতে। মা এবং বাবার নাম যথাক্রমে এলিজাবেথ ও বেঞ্জামিন কর্নেলিয়াস।[১] ১৮৪৫ সালে থমাসের পরিবার অরেগন ট্রেইল ধরে মিসৌরি নদী পাড়ি দিয়ে অরেগন কাউন্টিতে এসে বসতি স্থাপন করেন। ওখানকার তুয়ালাটিন প্লেন নামক জায়গায় তারা একটা খামার স্থাপন করেন। এর দক্ষিণ দিকটাই পরবর্তীকালে কর্নেলিয়াস নাম দেওয়া হয়।[১] ১৮৪৭ সালের শেষদিকে হুইটম্যান হত্যাকাণ্ডের পর অরেগনের অস্থায়ী সরকার কর্তৃক গঠিত সেনাবাহিনীতে থমাস স্বেচ্ছায় যোগদান করেন।[২] হুইটম্যান মিশনের হত্যাকাণ্ডের জন্য দায়ী ব্যক্তিদের শাস্তি দেওয়ার লক্ষ্যে এই সেনাবাহিনী কায়ূস যুদ্ধে অংশ গ্রহণ করে।[১]

ক্যালিফোর্নিয়াতে স্বর্ণখনি আবিষ্কারের পর কর্নেলিয়াস কিছুদিনের জন্যে সেখানে গমন করেন। ১৮৪৯ সালে তিনি আবার অরেগন প্রদেশে ফিরে আসেন।[১] পরের বছর তিনি ফ্লোরেন্টিন উইকসকে বিয়ে করেন। ফ্লোরেন্টিন ১৮৬৪ সালে মারা যান। তার আগে ছেলে বেঞ্জামিন সহ তাদের ছয়টি সন্তান জন্ম নেয়।[২] অরেগনের Donation land claim আইনের আওতায় থমাস বর্তমান কর্নেলিয়াসের কাছাকাছি প্রায় ৬৪০ একর (২.৬ বর্গ কিমি) জমির দখল পান এবং সেখানেই স্থায়ীভাবে থাকা শুরু করেন।[১] ১৮৫৫ সালে কাসকেড পর্বতমালার পূর্বে ইয়াকিমা উপজাতি নামের স্থানীয় আমেরিকানদের বিরুদ্ধে আরও একটি যুদ্ধ শুরু হয়। কর্নেলিয়াস এবারেও এই যুদ্ধে সৈনিক হিসেবে যোগ দেন।[১] ক্যাপ্টেন হিসেবে তিনি একটা কোম্পানী পরিচালনার দায়িত্ব পান। পরে জেমস ডব্লিউ নেস্মিথ পদত্যাগ করলে থমাস কর্নেল হিসেবে পদোন্নতি লাভ করেন। ১৮৫৬ সালে যুদ্ধ শেষ হওয়ার আগ পর্যন্ত তিনি কর্ণেল হিসেবেই দায়িত্ব পালন করেন।[২]

রাজনৈতিক জীবন[সম্পাদনা]

১৮৫৬ সালে কর্নেলিয়াস অরেগনের প্রাদেশিক আইনসভার উচ্চকক্ষ ‘কাউন্সিল’ এর সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হন।[৩] তখন তিনি ছিলেন হুইগ পার্টির সমর্থক। তার নির্বাচনী এলাকার মধ্যে ছিলো ডিসট্রিক্ট ৮ এর ওয়াশিংটন, কলম্বিয়া এবং মাল্টনোমাহ কাউন্টি। ১৮৫৭ সালের তিনি আবারো নির্বাচিত হন।[৪] শেষ বারের মত ১৮৫৮ সালেও তিনি প্রাদেশিক সরকারে সদস্য নির্বাচিত হন।[৫] ৩৩তম রাজ্য হিসেবে ১৪ ফেব্রুয়ারি ১৮৫৯ সালে অরেগন যুক্তরাষ্ট্রে যোগ দেয়।[৬] সে বছরই অরেগন রাজ্যের সিনেটের নির্বাচন হয় এবং কর্নেলিয়াস সেখানেও নির্বাচিত হন।

১৮৭৪ পর্যন্ত তিনি সিনেটে রিপাবলিকান পার্টির একজন প্রার্থী হিসেবে ওয়াশিংটন এবং আরও কয়েকটি কাউন্টির প্রতিনিধিত্ব করেন।[৭] এর মধ্যে ১৮৬২ সালে আমেরিকান গৃহযুদ্ধের কারণে তার দায়িত্ব পালন কিছুটা বাধাগ্রস্ত হয়।[৮] কারণ তখন প্রেসিডেন্ট আব্রাহাম লিংকন কেন্দ্রীয় সরকারের জন্যে তাকে একটি অশ্বারোহী সেনাদল গঠনের নির্দেশ দেন।[২] তাকে বাহিনীর কর্ণেলের দায়িত্ব দেয়া হয়। এই বাহিনীর ঘাঁটি ছিলো ওয়াশিংটনের ওয়ালা ওয়ালা নামের এক স্থানের সামরিক ফাঁড়িতে। সেখান থেকেই তিনি এই বাহিনী পরিচালনা করতেন। ১৮৬২ সালের গ্রীষ্মে তিনি পদত্যাগ করেন এবং বাড়ি ফিরে আসেন।[২]

১৮৬৬ সালের সংসদে কর্নেলিয়াস অরেগন সিনেটের সভাপতি নির্বাচিত হন।[৯] ১৮৮৬ সালে অরেগনের গভর্নর নির্বাচনে কর্নেলিয়াস রিপাবলিকান পার্টির মনোনয়ন পান কিন্তু সিলভেস্টার পেনোয়ের-এর কাছে হেরে যান।[১০]

পরবর্তী জীবন এবং পরিবার[সম্পাদনা]

১৮৬৪ সালে প্রথম স্ত্রীর মৃত্যুর পর ১৮৬৬ সালে কর্নেলিয়াস মিসৌরি এ. স্মিথকে বিয়ে করেন।[২] ১৮৭২ সালে তিনি বর্তমান কর্নেলিয়াস শহরে বসবাস শুরু করেন এবং সেখানে একটা দোকান খোলেন।[১][২] দোকান ছাড়াও করনেলিয়াসের ছিলো আরও মোটমাট ১,৫০০ একর (৬.১ বর্গ কিমি) ভূসম্পত্তি। এর মধ্যে ছিলো তিনটি খামার, একটা গুদাম আর একটা করাতকল।[১] তিনি কর্নেলিয়াস পাস রোড নির্মাণ করেন যেটা তুয়ালাটিন উপত্যকা আর কলম্বিয়া নদীর মধ্যে সংযোগ স্থাপন করেছে।[১১] ১৮৯৯ সালের ২৪ জুন, ৭১ বছর বয়সে তিনি পরলোক গমন করেন।[১] কর্নেলিয়াসের মেথোডিস্ট গীর্জার কবরস্থানে তাকে সমাহিত করা হয়।[১২]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Corning, Howard M. (1989). Dictionary of Oregon History. Binfords & Mort Publishing, p. 63. OCLC 488068
  2. Lang, H. O. (1885). History of the Willamette Valley, Being a Description of the Valley and its Resources, with an Account of its Discovery and Settlement by White Men, and its Subsequent History Together with Personal Reminiscences of its Early Pioneers. Portland, Or: G.H. Himes, pp. 634-635. OCLC 16739827
  3. Oregon Legislative Assembly (8th Territorial) 1856 Regular Session. Oregon State Archives. Retrieved on November 4, 2007.
  4. Oregon Legislative Assembly (9th Territorial) 1857 Regular Session. Oregon State Archives. Retrieved on November 4, 2007.
  5. Oregon Legislative Assembly (10th Territorial) 1858 Regular Session. Oregon State Archives. Retrieved on November 4, 2007.
  6. Oregon Legislative Assembly 1859 Special Session. Oregon State Archives. Retrieved on November 4, 2007.
  7. Oregon Legislative Assembly (8th) 1874 Regular Session. Oregon State Archives. Retrieved on November 4, 2007.
  8. Oregon Legislative Assembly (2nd) 1862 Regular Session. Oregon State Archives. Retrieved on November 4, 2007.
  9. Oregon Legislative Assembly (4th) 1866 Regular Session. Oregon State Archives. Retrieved on November 4, 2007.
  10. Evans, Elwood. (1889). History of the Pacific Northwest: Oregon and Washington... Portland, Or: North Pacific History Co., Vol. II, p. 286.
  11. Baron, Connie and Michelle Trappen. "Paths linking past and present", The Oregonian, March 6, 2008.
  12. Taylor, Joshua. Cemetery Photos; Cornelius Methodist Church Cemetery: Washington Co., Oregon A - M.[স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ] RootsWeb. Retrieved on August 2, 2008.

আরও জানতে[সম্পাদনা]