টোট্যাম

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
কানাডার অন্টারিও ওটাওয়াতে একটি টোট্যাম

টোট্যাম হচ্ছে আত্মা, পবিত্র বস্তু বা প্রতীক যা পরিবার, বংশ, জাতি, গোষ্ঠী বা গোত্রের প্রতীক হিসেবে কাজ করে।

টোট্যাম শব্দটি উত্তর আমেরিকান ওজিবুয়ে ভাষা থেকে উদ্ভূত হয়েছে, তবে রক্ষাকারী আত্মা এবং দেবদেবীদের প্রতি বিশ্বাস শুধু আমেরিকার আদিবাসীদের মধ্যেই সীমাবদ্ধ নয় এটি বিশ্বব্যাপী বিভিন্ন সংস্কৃতিতে দেখা যায়। তবে এই সংস্কৃতির ঐতিহ্যবাহী মানুষগুলোর তাদের রক্ষক আত্নাদের জন্য তাদের নিজস্ব ভাষার শব্দ রয়েছে এবং এই আত্না বা প্রতীকগুলিকে "টোট্যাম" বলা হয় না।

সমসাময়িক নিওশাম্যানিক, নতুন যুগ এবং পৌরাণিক পুরুষদের আন্দোলন উপজাতিদের ধর্মের চর্চায় জড়িত নয় বলে পরিচিত হয়, অন্যথায় এটি একটি রক্ষাকারী আত্না অথবা কৌশল হিসেবে "টোট্যাম" পরিভাষাটি ব্যক্তিগত পরিচয়ের জন্য ব্যবহার করা হয়েছে, যাইহোক এটি সাধারণত সাংস্কৃতিক উৎস অনুসারে সংস্কৃতির অপব্যবহার হিসেবে দেখা হয়।[১]

উত্তর আমেরিকা[সম্পাদনা]

মহেগান চিফের ব্যক্তিগত টোটেম

উত্তর আমেরিকার টোটেম মেরু

উত্তর আমেরিকার প্রশান্ত মহাসাগরীয় উত্তর পশ্চিমের টোট্যাম মেরুর স্মৃতিস্তম্ভ বংশপরম্পরার আভিজাতিক চিহ্ন। এগুলিতে বিভিন্ন নকশা (ভালুক, পাখি, ব্যাঙ, সম্পদ্রায় এবং বিভিন্ন অতিপ্রাকৃত প্রাণী এবং জলজ জীব) রয়েছে যা পরিবার বা প্রধানদের বংশচিহ্ন হিসেবে কাজ করে। এই টোট্যামগুলি পরিবার বা প্রধানদের গল্পগুলি বর্ণনা করে বা বিশেষ অনুষ্ঠানে স্মরণ করে।[২][৩] এই গল্পগুলি মেরুর নীচ থেকে উপরে পর্যন্ত লেখা থাকে।

আদিবাসী এবং টরেস প্রণালীর দ্বীপবাসী[সম্পাদনা]

আদিবাসী অস্ট্রেলিয়ান এবং টরেস স্ট্রেইট দ্বীপপুঞ্জের মধ্যে পারস্পরিক আধ্যাত্মিক সম্পর্ক এবং প্রাকৃতিক বিশ্ব প্রায়শই টোটেম হিসাবে বর্ণনা করা হয়।[৪] অনেক আদিবাসী গোষ্ঠী পূর্ব-বিদ্যমান এবং স্বতন্ত্র অনুশীলনের বর্ণনা দিতে গিয়ে আমদানিকৃত ওজিবওয়ে শব্দ "টোটেম" ব্যবহার করতে আপত্তি জানায়, যদিও অন্যরা এই শব্দটি ব্যবহার করে।[৫] "টোকেন" শব্দটি কিছু অঞ্চলে "টোট্যাম" শব্দকে প্রতিস্থাপিত করেছে।[৬]

কিছু ক্ষেত্রে, যেমন উপকূলীয় নিউ সাউথ ওয়েলসের ইউন, একজন ব্যক্তির বিভিন্ন ধরনের একাধিক টোট্যাম থাকতে পারে (ব্যক্তিগত, পরিবার বা গোষ্ঠী, লিঙ্গ, উপজাতি এবং আনুষ্ঠানিক)। গারিন্জারির বা লকিনেরি বংশগুলি প্রত্যেকেই এক বা দুটি উদ্ভিদ বা পশুর টোট্যামের সাথে সংশ্লিষ্ট ছিল,যাকে নাইজি বলা হত।[৭] টোট্যাম মাঝেমধ্যে মাতৃত্বপূর্ণ সম্পর্কের সাথে সংযুক্ত থাকে (যেমন ইংল্গু্র সাথে ওয়াংগা্র সম্পর্ক)।[৮]

টরেস প্রণালির আইল্যান্ড আধীবাসিদের অগাডস আছে ,যা সাধারণত টোট্যাম হিসেবে অনুবাদিত করা হয়। অগাড হতে পারে কাই-অগাড (প্রধাণ টোট্যাম) বা মুগিনা অগাড (ছোট টোট্যাম)।[৯]

প্রারম্ভিক নৃতত্তবিদেরা মাঝে মধ্যে আদিম এবং টরেস প্রণালির আইল্যান্ড আধীবাসিদের টোট্যানিজমকে জননক্রিয়ার প্রতি নারীদের অজ্ঞতার ব্যাপারে ব্যাখ্যা করেছেন, তারা মনে করে নারীর মধ্য দিয়ে বংশানুক্রমিক আত্মা অনুপ্রবেশের, গর্ববতী হওয়ার কারন হয়ে থাকে (বরং গর্ভাধানের চেয়ে)। জেমস জর্জ ফ্রেজার টোট্যানিজম এবং অসমবর্ন বিবাহ মধ্যে লিখেছিল যে আদিম মানুষের মধ্যে জননক্রিয়া সরাসরি যৌন সংগমের সাথে সম্পর্কিত এরকম ব্যাপারে কোন ধারনাই ছিল না এবং তারা দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করতো যে সন্তান জন্ম হতে পারে যৌন পক্রিয়া ছাড়ায়।[১০] অন্যান্য নৃতত্তবিদ দ্বারা ফ্রেজারের গবেষনা সমালোচিত হয়েছিল,[১১] যার মধ্যে একটি হল আলফ্রেড রেডক্লিফ-ব্রাউন এর "প্রকৃতি" গ্রন্থ যা ১৯৩৮ সালে প্রকাশিত হয়।[১২]

নৃতাত্ত্বিক দৃষ্টিকোণ[সম্পাদনা]

থান্ডারবার্ড পার্কে একটি টোটেম মেরু, ভিক্টোরিয়া, ব্রিটিশ কলম্বিয়া

টোট্যামিজম হচ্ছে এমন বিশ্বাস যা চিন্ময়জগত ধর্মের সাথে যুক্ত। টোট্যাম হচ্ছে সাধারণভাবে প্রাণী বা অন্যান্য প্রাকৃতিক প্রতীক যা আধ্যাত্মিকভাবে সম্পর্কিত একটি দলকে যেমন:গোষ্ঠীকে উপস্থাপন করে ।

প্রাচীন নৃবিজ্ঞানী এবং নৃতত্ত্ববিদ যেমন জেমস জর্জ ফ্রেজার, আলফ্রেড কোর্ট হাড্ন, জন ফ্রেগুসন ম্যাকলেন্নান এবং ডব্লিউ এইচ আর রিভারস টোট্যামিজমকে অংশগ্রহণমুলক রীতি হিসেব চিহ্নিত করেছেন যা পৃথিবীর সভ্য অংশ থেকে বিছিন্ন এমন আদিবাসীদের দ্বারা পালিত হয়, যা সাধারণত মানব বিকাশের একটি পর্যায়কে প্রতিফলিত করে।[১৩]

স্কটিশ নৃবিজ্ঞানী জন ফার্গুসন ম্যাকলেন্নান,১৯ শতকের গবেষণা অনুসরণ করে, তার প্রানি ও উদ্ভিদের পূজা (১৮৬৯,১৮৭০) গবেষণায় টোট্যামিজমকে একটি বিস্তৃত দৃষ্টিকোণে সম্বোধন করেছিলেন।[১৪][১৫] ম্যাকলেনান টোট্যামিস্টিক ঘটনার নির্দিষ্ট উৎস খোজার চেষ্টা করেননি তবে ইঙ্গিত দিতে চেয়েছিলেন যে মানব জাতি, প্রাচীন কাল থেকে টোটেমিস্টিক পর্যায়ের মধ্যে দিয়ে চলে এসেছে।

আরও এক স্কটিশ পন্ডিত, অ্যান্ড্রু ল্যাং ২০ শতকের পারম্ভিকে টোট্যামিজমের নামকরণবাদী ব্যাখ্যাটির পক্ষে ছিলেন যা স্থানীয় গ্রুপ বা গোষ্ঠী, যা প্রকৃতির ক্ষেত্র থেকে টোটেমিস্টিকের নাম নির্বাচন করার সময় পার্থক্য করার প্রয়োজনে একটি প্রতিক্রিয়া ছিল।[১৬] যদি কেউ নামের উৎস ভুলে যায়, ল্যাং যুক্তি দিয়েছিল , যেখান থেকে নামটি উৎপন্ন হয়েছে সে বস্তু এবং গ্রুপগুলি যারা এই নামগুলি দিয়েছে মধ্যে একটি রহস্যময় সম্পর্ক বিরাজ করে। প্রকৃতির রহস্য হিসেবে প্রাণী এবং প্রাকৃতিক বস্তুগুলিকে আত্মীয়স্বজন, পৃষ্ঠপোষক, বা সংশ্লিষ্ট সামাজিক ইউনিটের একক পূর্বপুরুষ হিসাবে বিবেচিত হত।

ব্রিটিশ নৃতত্ত্ববিদ স্যার জেমস জর্জ ফ্রেজার ১৯১০ সালে টোট্যামিজম এবং অসবর্ণ বিবাহ প্রকাশ করেছিলেন, অন্যান্য লেখকদের রচনার সংকলন সহ অস্ট্রেলিয়া এবং মেলানেশিয়ার আদিবাসীদের উপর তার গবেষণার উপর ভিত্তি করে একটি চার খন্ডের সংকলন রচনা করেন।[১৭]

১৯১০ সাল পর্যন্ত, টোট্যামিজমের ধারণাকে সংস্কৃতি জুড়ে সাধারণ সম্পত্তি থাকার বিষয়টি চ্যালেঞ্জ করা হয়েছিল, রাশিয়ার আমেরিকান নৃতাত্ত্বিকবিদ আলেকজান্ডার গোল্ডেনওয়েজার টোট্যামিস্টিক ঘটনাগুলির তীব্র সমালোচনা করছিলেন। গোল্ডেনওয়েজার ব্রিটিশ কলম্বিয়ার অস্ট্রেলিয়ান আদিবাসী এবং প্রথম জাতিগুলির সাথে তুলনা করে দেখিয়েছিলেন যে তারা সাধারণত টোট্যামিজমের গুণাবলী ভাগ করে নেয়-অসমবর্ণ বিবাহ, নামকরনণ, টোট্যামের বংশ, নিষেধ,অনুষ্ঠান, পুনর্জন্ম, রক্ষক আত্মা, গোপন গোষ্ঠী এবং শিল্প -অস্ট্রেলিয়ার এবং ব্রিটিশ কলম্বিয়ার বিভিন্ন জনগন এবং অস্ট্রেলিয়া এবং ব্রিটিশ কলম্বিয়ার মধ্যে খুব আলাদা বৈশিষ্টয় প্রকাশ করেছিল। তারপরে তিনি তার বিশ্লেষণগুলি অন্যান্য গোষ্ঠীর মধ্যে প্রসারিত করে দেখান যে তারা টোটেমিজম ছাড়াই টোটেমিজমের সাথে যুক্ত কিছু রীতিনীতি তারা ভাগ করে নেয়। তিনি টোটেমিজমের দুটি সাধারণ সংজ্ঞা প্রদান করে উপসংহারে পৌছালেন, যার মধ্যে একটি হল: টোট্যামেজিম হচ্ছে একটি নিদির্ষ্ট সামাজিক গোত্রের বস্তু এবং আবেগময় মূল্যবান প্রতিকের প্রতি সংযুক্ত হওয়ার প্রবণতা।

ফ্রান্সের সমাজতত্তের প্রতিষ্ঠাতা ইমাইল ডুর্খেইম, সমাজবিদ্যা এবং ধর্মীয়তত্ত্বের দৃষ্টিকোণ থেকে টোট্যামিজমকে পরীক্ষা করেন, প্রাচীন কালের অবিকৃত ধর্ম আবিষ্কার করতে চেষ্টা করেছিলেন এবং টোট্যামিজমে ধর্মের উৎপতি দেখার দাবি করেছিলেন।[১৮]

ব্রিটিশ নরবিজ্ঞানের প্রধান প্রতিনিধি এ.আর.রেডক্লিফ ব্রাউন টোট্যামিজমের সম্পূর্ন রুপে একটি নতুন চিত্র বর্ণনা করেন। ফ্রাঞ্জ বোসের মতো,তিনিও সংশয়ী ছিলেন যে টোট্যামিজমকে যে কোনও সংহত উপায়ে বর্ণনা করা যেতে পারে। এই নিয়ে তিনি ইংল্যান্ডের সামাজিক নৃতত্ত্বের অন্য পথিকৃতদের সাথেও বিরোধিতা করেছিলেন,ব্রোনিস্ল মালিনোভস্কি, যিনি যেকোনোভাবে টোট্যামিজমের একতা নিশ্চিত করতে চেয়েছিলেন এবং নৃ-তাত্ত্বিক দৃষ্টিকোনের চেয়ে জৈবিক এবং মনস্তাত্ত্বিক দৃষ্টিভঙ্গি থেকে বিষয়টির আরও কাছে এসেছিলেন। মালিনোভস্কি মতে,টোটেমিজম সাংস্কৃতিক ঘটনা ছিল না, বরং প্রাকৃতিক বিশ্বের মধ্যে মানবিক মৌলিক চাহিদা পূরণের চেষ্টা করার ফলাফল ছিল। র‌্যাডক্লিফ-ব্রাউনের চিন্তা অনুযায়ী, টোটেমিজম এমন উপাদানগুলির সমন্বয়ে গঠিত যা বিভিন্ন অঞ্চল এবং প্রতিষ্ঠান থেকে নেওয়া হয়েছিল, এবং এগুলির মধ্যে যা মিল রয়েছে তা হল প্রকৃতির একটি অংশের সাথে সংযোগের মাধ্যমে সম্প্রদায়ের অন্য অংশগুলিকে চিহ্নিত করার একটি সাধারণ প্রবণতা। ডুরখাইমের স্যাক্রালাইজেশন তত্ত্বের বিপরীতে,র‌্যাডক্লিফ-ব্রাউন এমন কল্পনা করেছিলেন যে প্রকৃতি তার গৌণ পরিবর্তে সামাজিক ব্যবস্থায় প্রবর্তিত হয়। প্রথমে, তিনি ম্যালিনোভস্কির সাথে মতামতটি ভাগ করেছিলেন যে একটি প্রানী টোট্যামিস্টিক হয় যখন এটি "খেতে ভালো"। পরে তিনি এই দৃষ্টিভঙ্গির বিরোধিতা করেছিলেন,যেহেতু অনেক টোট্যাম যেমন-কুমির এবং মাছি বিপজ্জনক এবং অপ্রীতিকর।[১৯]

১৯৩৮ সালে, কাঠামোগত কর্তব্যমূলক নৃবিজ্ঞানী এ.পি.এলকিন অস্ট্রেলিয়ান আদিবাসী : তাদের কীভাবে বুঝবেন লিখলেন। তার টোট্যামিজমের প্রকারে আটটি "গঠন" এবং ছয়্টি "ক্রিয়া" অন্তর্ভুক্ত ছিল

চিহ্নিত গঠনগুলি হলঃ

  • স্বতন্ত্র (একটি ব্যক্তিগত টোট্যাম),
  • স্ত্রী-পুরুষ (প্রতিটি লিঙ্গের জন্য একটি টোট্যাম),
  • অর্ধাংশ ("উপজাতি" দুটি গোষ্ঠী নিয়ে গঠিত, প্রতিটি একটি টোট্যাম সহ),
  • বিভাগ ("উপজাতি" চারটি গ্রুপ নিয়ে ,প্রতিটি একটি করে টোট্যাম সহ),
  • উপ-বিভাগ ("এই উপজাতিতে আটটি গ্রুপ রয়েছে, প্রত্যেকে একটি টোট্যাম সহ),
  • বংশ (একটি সাধারণ গোষ্ঠী থেকে বংশোদ্ভূত একটি বা একাধিক টোট্যাম ভাগ করে),
  • স্থানীয় (একটি নির্দিষ্ট অঞ্চলে বাস করা বা জন্ম নেওয়া লোকেরা একটি টোট্যাম ভাগ করে) এবং
  • "একাধিক" (গোষ্ঠী জুড়ে লোকেরা একটি টোটেম ভাগ করে)

চিহ্নিত ক্রিয়াগুলি হল:

  • সামাজিক (টোট্যামগুলি বিবাহ নিয়ন্ত্রণ করে এবং প্রায়ই কোনও ব্যক্তি তাদের টোট্যামের মাংস খেতে পারে না),
  • ধর্মবিশ্বাস (গোপন সংস্থার সাথে সম্পর্কিত টোট্যাম),
  • ধারণা (একাধিক অর্থ),
  • স্বপ্ন (অন্যের স্বপ্নে এই ব্যক্তি টোট্যাম হিসাবে উপস্থিত হয়),
  • শ্রেণিবদ্ধ (টোট্যাম লোককে শ্রেণিবদ্ধ করে নেয়) এবং
  • সহকারী (টোট্যাম একজন আরোগ্যকর্তা বা চতুর ব্যক্তিকে সহায়তা করে)

এলকিনের প্রকরণের শর্তাবলীর আজকাল কিছু কিছু ব্যবহার দেখা যায়, সে যে প্রকরণের ধারণা দিয়েছে আদিবাসী রীতিনীতিগুলিকে তার ধারণার চেয়েও বৈচিত্র্যময় হিসাবে দেখা যায়।

আধুনিক কাঠামোবাদের প্রধান প্রতিনিধি হিসাবে, ফরাসি নৃতাত্ত্বিক ক্লোড লেভি-স্ট্রাউস এবং তার লে টোট্যামিসমে অজৌর'হুই ("টোট্যামিজম আজকাল" [১৯৫৮])[২০] এই ক্ষেত্রে প্রায়ই উল্লেখ করা হয়।

একবিংশ শতাব্দীতে,অস্ট্রেলিয়ান নৃতাত্ত্বিবিদদের ব্যাপ্তি নিয়ে প্রশ্ন করে যে আস্ট্রেলিয়ায়ে আদিবাসীর মধ্যে টোট্যামিজমকে বিশ্বজনীন করা যেতে পারে, অন্য সংস্কৃতি বাদ দিয়ে যেমন ওজিবওয়ের মতো, যাঁর কাছ থেকে মূলত এই শব্দটি উদ্ভূত হয়েছিল। রোজ, জেমস এবং ওয়াটসন লিখেন যে,

‘টোট্যাম’ শব্দটি একটি ভোঁতা যন্ত্র হিসাবে প্রমাণিত হয়েছে। আরও বেশি সূক্ষ্মতার প্রয়োজন, এবং আবার, এই সমস্যার আঞ্চলিকতার পার্থক্য রয়েছে।

সাহিত্য[সম্পাদনা]

কবিগণ এবং স্বল্প পরিমাণে কল্পিত কাহিনী লেখকরা প্রায়শই নৃতাত্ত্বিক অন্তর্দৃষ্টিসম্পন্ন সহ, টোট্যামিজমের নৃতাত্ত্বিক ধারণা ব্যবহার করেন। এই কারণে প্রায়শই সাহিত্যসেবীরা নৃতাত্ত্বিক বিশ্লেষণকে সমালোচনা করে।[২১][২২]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. এলড্রেড, লিসা, "প্লাস্টিক শামানস এবং অ্যাস্ট্রোট্রাফ সান ডান্সেস:স্থানীয় আমেরিকান আধ্যাত্মিকতায় বাণিজ্যিকীকরণের নতুন যুগ" এর মধ্যে: দ্য আমেরিকান ইন্ডিয়ান ত্রৈমাসিক 24.3 (2000) পিপি 329-352। লিংকন: নেব্রাস্কা প্রেস বিশ্ববিদ্যালয়
  2. ভায়োলা ই গারফিল্ড এবং লিন এ ফরেস্ট (১৯৬১)। নেকড়ে এবং দাঁড়কাক: দক্ষিণ-পূর্ব আলাস্কার টোটেম মেরু। সিয়াটল: ইউনিভার্সিটি অফ ওয়াশিংটন প্রেস। পি। 1. আইএসবিএন 978-0-295-73998-4।
  3. মারিয়াস বারবেউ (১৯৫০)। "টোট্যাম মেরু: কুলচিহ্ন এবং বিষয় অনুসারে"। কানাডার বুলেটিনের জাতীয় যাদুঘর। অটোয়া: কানাডার জাতীয় জাদুঘর সম্পদ অ্যান্ড উন্নয়ন বিভাগ। ১৯৯ (১): ৯. ২৪ নভেম্বর ২০১৪ পুনরুদ্ধার করা হয়েছে।
  4. ডোনাল্ডসন, সুসান ডেল (২০১২) "জানার জন্য অন্বেষণ করার পদ্ধতি,সুরক্ষা,ইউরোবোডালা আদীবাসি টোট্যাম স্বীকৃতি দেওয়া,সুদূর দক্ষিণ কোস্ট, এনএসডাব্লু: চূড়ান্ত প্রতিবেদন "(পিডিএফ)। ইউরোবোডাল্লা শায়ার কাউন্সিল।
  5. গ্রীভস, ভিকি (২০০৯) "আদিবাসী আধ্যাত্মিকতা: আদিবাসী দর্শন আবেগের কল্যাণের এবং আদিবাসী সমাজের মূল ভিত্তি" (পিডিএফ)। লোইটিজা ইনস্টিটিউট। পি। 12।
  6. রোজ, দেবোরাহ; জেমস, ডায়ানা; ওয়াটসন, ক্রিস্টিন (২০০৩) "নতুন উত্তর ওয়েলসে প্রাকৃতিক বিশ্বের সাথে দেশীয় আত্মীয়তা"। www.environment.nsw.gov.au। ২০১৯-০১-১৪ পুনরুদ্ধার করা হয়েছে।
  7. হাউইট, আলফ্রেড উইলিয়াম (১৯০৪)। দক্ষিণ-পূর্ব অস্ট্রেলিয়ার আদি উপজাতি (পিডিএফ)। ম্যাকমিলান।
  8. "ইওলঙ্গু সংস্কৃতি"। ধিমুরুর আদিবাসী কর্পোরেশন। 2018-12-19 পুনরুদ্ধার করা হয়েছে।
  9. হ্যাডন, এ। সি; নদী, ডাব্লু এইচ আর; সেলিগম্যান, সি। জি .; উইলকিন, এ। (২০১১-০২-১৭)টরেস প্রণালিতে কেমব্রিজ নৃতাত্ত্বিক অভিযানের প্রতিবেদনগুলি: খণ্ড ৫, সমাজবিজ্ঞান, পাশ্চাত্য দ্বীপপুঞ্জীদের যাদু এবং ধর্ম। ক্যামব্রিজ ইউনিভার্সিটি প্রেস. পৃষ্ঠা ১৫৫-১৫১৫। আইএসবিএন ৯৭৮০৫২১১১৭৯৯৮৯৮।
  10. ফ্রেজার, জেমস জর্জ (২০১১)। টোট্যামিজম এবং অসমবর্ণবিবাহ- কুসংস্কার এবং সমাজের প্রাথমিক গঠনগুলির উপর একটি গ্রন্থ। সেভেরাস ভার্লাগ। পৃষ্ঠা ১৯১–১৯২। আইএসবিএন ৯৭৮৩৮৬৩৪৭১০৭১।
  11. সোয়েন, টনি (1993-08-09)। আপরিচিত লোকদের জন্য একটি জায়গা: অস্ট্রেলিয়ান আদিবাসী সত্তার ইতিহাসের দিক । ক্যামব্রিজ ইউনিভার্সিটি প্রেস. পৃষ্ঠা ৩৬-৩৯। আইএসবিএন ৯৭৮০৫২১৪৪৪৬৯১৪।
  12. র‌্যাডক্লিফ-ব্রাউন, এ আর। (১৯৩৮-০২-১২)। "অস্ট্রেলিয়ান আদিবাসীদের মধ্যে উপস্থিত হয়ে"। প্রকৃতি। ২০১৯-০১-০৭ এ পুনরুদ্ধার করা হয়েছে।
  13. গোল্ডেনওয়েজার এ, টোটেমিজম; একটি বিশ্লেষণাত্মক গবেষণা, ১৯১০
  14. ম্যাকলেন্নান, জে।, প্রাণী এবং গাছপালার উপাসনা, পাক্ষিক পর্যালোচনা, খণ্ড। ৬-৭ (১৮৬৯-১৮৭০)
  15. প্যাট্রিক ওল্ফ (২২ ডিসেম্বর ১৯৯৮)। ঔপনিবেশিকদের ঔপনিসবেশবাদকন্টিনিয়াম আন্তর্জাতিক প্রকাশনা সংস্থা। পৃষ্ঠা ১১১– আইএসবিএন ৯৭৮-০-৩০৪-৭০২৪০-১। পুনরুদ্ধার করা হয়েছে ৪ ডিসেম্বর ২০১২।
  16. অ্যান্ড্রু ল্যাং এ, টোট্যামিজম গবেষনার পদ্ধতি (১৯১১)
  17. টোট্যামিজম এবং অসমবর্ণ বিবাহ। কুসংস্কার এবং সমাজের প্রাথমিক গঠঙ্গুলির উপর একটি গ্রন্থ (১৯১২-১৯১৫)
  18. ডুরখাইম ই, টোট্যামিজমে(১৯১০)
  19. র‌্যাডক্লিফ-ব্রাউন এ, আদিম সমাজের গঠন এবং ক্রিয়া, ১৯৫২
  20. (লেভি-স্ট্রস সি,Le Totémisme aujourd'hui(১৯৫৮);রডনি নিডহ্যাম দ্বারা ইংরেজীতে প্রতিবর্ণকরন । বোস্টন: বেকন প্রেস, ১৯৬৩
  21. মেরিনিয়াক, আইরিনা। টোট্যামের আত্মাঃ সোভিয়েত কল্পকাহিনীতে ধর্ম এবং পৌরণিক কথা, ১৯৬৪-১৯৮৮, এমএইচআরএ, ১৯৯৫
  22. বার্গ, হেন্ক ডে। সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক গবেষনায় ফ্রয়েডের তত্ত্ব এবং এর ব্যবহার: ভূমিকা। ক্যামডেন হাউস, ২০০৪