টেলিযোগাযোগ অধিদপ্তর

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
টেলিযোগাযোগ অধিদপ্তর
টেলিযোগাযোগ অধিদপ্তরের লোগো.jpg
প্রাতিষ্ঠানিক লোগো
গঠিত২৫ জুন ২০১৫; ৭ বছর আগে (2015-06-25)
ধরনসরকারি
সদরদপ্তর৪২৩-৪২৮, তেজগাঁও শিল্প এলাকা, তেজগাঁও, ঢাকা–১২০৮
যে অঞ্চলে
বাংলাদেশ
পরিষেবাটেলিযোগাযোগ সংক্রান্ত
দাপ্তরিক ভাষা
বাংলা, ইংরেজি
মহাপরিচালক
মোঃ রফিকুল ইসলাম
প্রধান প্রতিষ্ঠান
ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয় (বাংলাদেশ)
অনুমোদনডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগ
ওয়েবসাইটপ্রাতিষ্ঠানিক ওয়েবসাইট

টেলিযোগাযোগ অধিদপ্তর বা ডিপার্টমেন্ট অব টেলিকমিউনিকেশনস ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের অধীনস্থ একটি সরকারি প্রতিষ্ঠান। দেশের টেলিযোগাযোগ সংক্রান্ত নীতি ও বিধি-বিধান প্রণয়ন, বাস্তবায়ন, আন্তর্জাতিক সংস্থার সাথে চুক্তি সম্পাদনের কাজসমূহ সম্পন্ন করে থাকে এই প্রতিষ্ঠান। পাশাপাশি টেলিযোগাযোগ সেবার ট্যারিফ, কলচার্জ ও অন্যান্য চার্জও নির্ধারণ করে এই অধিদপ্তর[১]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

ব্রিটিশ শাসনামলে ডাক ও টেলিগ্রাফ বিভাগের হিসেবে ১৮৫৩ সালে ডাক ও টেলিগ্রাফ বিভাগ-এর অধীনে চালু হয় এ প্রতিষ্ঠান। পরবর্তীতে টেলিগ্রাফ আইন, ১৮৮৫ অনুমোদন হলে সে আইনের অধীনে নিয়ন্ত্রিত হতে থাকে এ প্রতিষ্ঠান।[২] দেশভাগের পর ১৯৬২ সালে এই সংস্থাটি পাকিস্তান টেলিগ্রাম ও টেলিফোন বিভাগ হিসেবে পুর্নগঠিত হয়। স্বাধীনতার পর ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের অধীনে বাংলাদেশ টেলিগ্রাফ এবং টেলিফোন বিভাগ স্থাপন করা হয়। পরবর্তীতে বাংলাদেশ টেলিগ্রাফ ও টেলিফোন বোর্ড অধ্যাদেশ, ১৯৭৯ এর বিধান অনুসারে বাংলাদেশ টেলিগ্রাফ ও টেলিফোন বোর্ড গঠিত হয়।[৩] পরবর্তীতে ২০০৮ সালে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় বোর্ডটিকে বিলুপ্ত করে কোম্পানী আইন, ১৯৯৪ এর অধীনে যথাক্রমে বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন্স কোম্পানি লিমিটেড এবং বাংলাদেশ সাবমেরিন কেবল কোম্পানী লিমিটেড গঠন করা হয়।[৪] বিলুপ্তির পর ২৫ জুন, ২০১৫ সালে ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের অধীনে টেলিযোগাযোগ অধিদপ্তর গঠিত হয়।[১]

গঠন[সম্পাদনা]

ব্যবস্থাপনার কার্যক্রম পরিচালনার জন্য ৫৬ সদস্যের একটি পরিচালনা পর্ষদ গঠন করা হয়। তাঁরা হলেন:[৫]

  • মহাপরিচালক: ১ জন
  • অতিরিক্ত মহাপরিচালক: ২ জন
  • পরিচালক: ৯ জন
  • উপ পরিচালক: ১৯ জন
  • সিনিয়র সহকারী পরিচালক: ১ জন
  • সহকারী পরিচালক: ২৪ জন

প্রকল্পসমূহ[সম্পাদনা]

  • সুবিধা বঞ্চিত প্রত্যন্ত অঞ্চলে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষা ব্যবস্থা ডিজিটালকরণ[৬]
  • সাইবার থ্রেট ডিকেটশন এন্ড রেসপন্স ফেজ–২[৭]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "পরিক্রমা, টেলিযোগাযোগ অধিদপ্তর"telecomdept.gov.bd। সংগ্রহের তারিখ ২০২৩-০১-০২ 
  2. "টেলিগ্রাফ আইন, ১৮৮৫"minlaw.gov.bd। সংগ্রহের তারিখ ২০২৩-০১-০২ 
  3. "বাংলাদেশ টেলিগ্রাফ ও টেলিফোন বোর্ড অধ্যাদেশ, ১৯৭৯"minlaw.gov.bd। সংগ্রহের তারিখ ২০২৩-০১-০২ 
  4. "কোম্পানী আইন, ১৯৯৪"minlaw.gov.bd। সংগ্রহের তারিখ ২০২৩-০১-০২ 
  5. "পরিচালনা পর্ষদ, টেলিযোগাযোগ অধিদপ্তর"mmd.gov.bd। সংগ্রহের তারিখ ২০২৩-০১-০২ 
  6. "সুবিধা বঞ্চিত প্রত্যন্ত অঞ্চলে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষা ব্যবস্থা ডিজিটালকরণ, টেলিযোগাযোগ অধিদপ্তর"telecomdept.gov.bd। সংগ্রহের তারিখ ২০২৩-০১-০২ 
  7. "সাইবার থ্রেট ডিকেটশন এন্ড রেসপন্স ফেজ–২, টেলিযোগাযোগ অধিদপ্তর" (পিডিএফ)telecomdept.gov.bd। সংগ্রহের তারিখ ২০২৩-০১-০২