টিটি রাজো বিনটাং

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
টিটি হান্ডায়ানি রাজোবিন্টাং
জন্ম (1981-02-10) ১০ ফেব্রুয়ারি ১৯৮১ (বয়স ৩৯)
জাতীয়তাইন্দোনেশিয়ান
অন্যান্য নামটিটি জুমান
পেশাঅভিনেত্রী, ড্রামার, গীতিকার
দাম্পত্য সঙ্গীশ্রী আকসান জুমান (২০০৪–২০১৩)
সন্তান
পিতা-মাতাইধাম রাজো বিন্টাং (বাবা)
সুসি আরিয়ানি (মা)
আত্মীয়জেনার মায়সা আয়ু (শালী)

টিটি হান্ডায়ানি রাজোবিন্টাং (জন্ম: ১০ ই ফেব্রুয়ারি ১৯৮১), যিনি শ্রী আকসান জুমানের সাথে বিয়ের পর টিটি জুমান নামে পরিচিত, হচ্ছেন ইন্দোনেশিয়ার একজন অভিনেত্রী এবং সংগীতশিল্পী।

জীবনী[সম্পাদনা]

টিটি হান্ডায়ানি রাজোবিন্টাং ১৯৮১ সালের ১০ ফেব্রুয়ারি জন্মগ্রহণ করেন।[১] তিনি ক্রীড়া পছন্দ করেন, কিন্তু তিনি কখনও স্কার্টস পরিধান করেন না।[২] উচ্চ বিদ্যালয়ে পড়ার সময়, তিনি অর্থনৈতিক কারণে ড্রাম বাজাতে পারেন নি তবুও তিনি ড্রাম বাজানোর সাথে প্রেমে পরে যান; কিন্তু পরবর্তীতে তিনি ভাবেন যে তিনি "ভিন্ন" কিছু চেয়েছিলেন।[২] তিনি ফারবি মিউজিক স্কুল এবং দ্য সঙ্গীত ইনস্টিটিউটে ড্রাম বিষয়ে পড়াশোনা শুরু করেন।[২] স্নাতক সম্পন্ন করার পর, টিটি হান্ডায়ানি রাজোবিন্টাং "জাভা জ্যাজ ফেস্টিভালে" সঞ্চালনা করেন; তিনি রথ সাহানায়া এর মতো শিল্পীর সাথেও অভিনয় করেছিলেন।[২]

টিটি হান্ডায়ানি রাজোবিন্টাং জেনার মায়সা আয়ুয়ের সাথে ২০০৭ সালের চলচ্চিত্র মেরেকা বিলাং, সায়া মন্যেত! (দে সে আই'ম এ মানকি!), এ উপস্থিত হন।[২] প্রথমে, তিনি তার স্বামী, শ্রী আকসান জুমান (এছাড়াও ওয়াং আকসান নামেও পরিচিত), মেশার ভাইয়ের সাথে চলচ্চিত্রের জন্য একটি সাউন্ডট্র্যাক এ গান পরিবেশন করার জন্য চুক্তি করেছিলেন।[২] যাহোক, পরে মেজদা তাকে প্রধান ভূমিকাতে নিতে জিজ্ঞাসা করে; অতঃপর টিটি হান্ডায়ানি রাজোবিন্টাং এর সম্মতিতে তার স্বামীর ও বোন দ্বারা আবেগপ্রবণ হয়ে যায় এবং তাকে এই চলচ্চিত্রটি করার জন্য সম্মতি প্রদান করে।[২] আকসান তাকে "একটি চুম্বন দৃশ্যের মধ্যে বলেছিলেন, যখন [তিনি] চুমু দিয়েছিলেন [স্প্যানিশ ভাষায়], সেসময় [তার] দেহটি তাকে প্রত্যাখ্যান করে দিয়েছিল"।[২]

২০১০ সালে, টিটি হান্ডায়ানি রাজোবিন্টাং হংকংয়ের অভিবাসী শ্রম সম্পর্কে একটি চলচ্চিত্র, মিংগুই পাগী ডি ভিক্টোরিয়া পার্ক (ভিক্টোরিয়া পার্কের রবিবারের সকাল) এ অভিনয় করেন।[৩][২] তার ভূমিকায় অভিনয়ের জন্য তিনি "ইন্দোনেশিয়া এবং হংকং" উভয় অভিবাসী শ্রমিকদের সাথে দেখা করেন।[২] একই বছর তিনি এবং তার স্বামী "তানাহ এয়ার বিটা" (আমার মাতৃভূমি) এর সাউন্ডট্র্যাক এ গান পরিবেশন করেন।[২] যদিও তার সময়সূচীর মধ্যে কিছু দ্বন্দ্ব ছিল, তবে তিনি উভয়ই করতে সক্ষম হয়েছিলেন।[২]

ফেব্রুয়ারি ২০১১ সালে টিটি হান্ডায়ানি রাজোবিন্টাং "রিনু পুরামামা"র (পূর্ণচন্দ্রের জন্য দীর্ঘস্থায়ী) মধ্যে একটি প্রতিপক্ষ হিসেবে তার প্রথম ভূমিকায় অভিনয় করেন।[৪] তিনি চরিত্রের কর্ম পছন্দ করেন না বলে উক্ত ভূমিকাটি অপছন্দ করেছিলেন।[৫] পরে সে বছর তিনি ও তার স্বামী "সাং পেনারি" (নৃত্যশিল্পী) নামে একটি চলচ্চিত্র রচনা করেন, এটি একটি চলচ্চিত্র যা একটি নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে আহমদ তোহরী এর রংগেন দুরূহ পারুক ট্রিলজির উপর ভিত্তি করে তৈরি করা হয়েছিল।[৬]

অনুপ্রেরণা[সম্পাদনা]

টিটি হান্ডায়ানি রাজোবিন্টাং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এর সুরকার জন উইলিয়ামস এর কাজকে উপভোগ করেন, তিনি তার স্টার ওয়্যারস, মেমইরস অফ এ গেইশা, এবং হোম এলোন এ তার কাজ খুব উপভোগ করেছেন। একই সাথে তিনি আরো বলেছেন যে তার এসকল কাজকর্ম হলো তার কাছে জন উইলিয়ামস এর করা সবচেয়ে প্রিয় কাজ।[২]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

পাদটীকা
গ্রন্থপঞ্জি
  • "Film brings Titi closer to husband"The Jakarta Post। Jakarta। ৪ নভেম্বর ২০১১। ৮ জানুয়ারি ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ ডিসেম্বর ২০১১ 
  • "Guess what?: Titi Sjuman files for divorce"The Jakarta Post। Jakarta। ৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৩। ৫ মার্চ ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১১ এপ্রিল ২০১৩ 
  • Kurniasari, Triwik (১৮ এপ্রিল ২০১০)। "Titi Sjuman juggling two worlds and succeeding in both"The Jakarta Post। Jakarta। ২৫ নভেম্বর ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ ডিসেম্বর ২০১১ 
  • Sofyan, Eko Hendrawan (১০ ফেব্রুয়ারি ২০১১)। "Titi Sjuman Bertingkah Buruk" [Titi Sjuman Acts Badly]। Kompas। Jakarta। ২৫ এপ্রিল ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ ডিসেম্বর ২০১১ 
  • Sudarmanto, Teguh Prayoga; Sofyan, Eko Hendrawan (১১ মে ২০১১)। "Titi Sjuman: Sutradara? Entar Dulu Deh..." [Titi Sjuman: Director? We'll see...]। Kompas। Jakarta। ২৫ এপ্রিল ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ ডিসেম্বর ২০১১ 
  • "Titi Sjuman dedicates award to female migrant workers"The Jakarta Post। Jakarta। ৫ নভেম্বর ২০১১। ২৪ ডিসেম্বর ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ ডিসেম্বর ২০১১ 
  • "Titi Sjuman finds playing the 'baddy' challenging"The Jakarta Post। Jakarta। ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১১। ২৪ ডিসেম্বর ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ ডিসেম্বর ২০১১