টনসিল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
টনসিল
Tonsils diagram.jpg
Blausen 0861 Tonsils&Throat Anatomy2.png
টনসিলের স্যাজিটাল দৃশ্য
বিস্তারিত
তন্ত্রঅনাক্রম্যতন্ত্র
লসিকাতন্ত্র
শনাক্তকারী
লাতিনTonsilla, Tonsillae (pl.)
টিএ৯৮A05.2.01.011
এফএমএFMA:9609
শারীরস্থান পরিভাষা

টনসিল হলো পৌষ্টিকনালীর মুখোমুখি অবস্থিত লিম্ফয়েড অঙ্গগুলির একটি সেট, যা ওয়ালডায়ারের টনসিলার রিং নামেও পরিচিত এবং অ্যাডিনয়েড টনসিল, দুটি টিউবাল টনসিল, দুটি প্যালাটাইন টনসিল এবং লিঙ্গুয়াল টনসিলের সমন্বয়ে গঠিত হয়। এই অঙ্গগুলো অনাক্রম্যতন্ত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

অপ্রচলিত হলেও টনসিল শব্দটি দ্বারা সাধারণত প্যালাটাইন টনসিলকে বোঝায়, যা মানুষের গলার উভয় পাশে অবস্থিত দুটি লিম্ফয়েড অঙ্গ। প্যালাটাইন টনসিল এবং অ্যাডেনয়েড টনসিলের কাছাকাছি গলবিল অবস্থিত।

কাঠামো[সম্পাদনা]

মানুষের দেহে জন্মগতভাবে চার ধরণের টনসিল থাকে। এগুলো হলো : ফ্যারিঞ্জিয়াল টনসিল, দুটি টিউবাল টনসিল, দুটি প্যালাটাইন টনসিল এবং লিঙ্গুয়াল টনসিল। [১]

প্রকার এপিথেলিয়াম ক্যাপসুল ক্রিপ্টস অবস্থান
অ্যাডিনয়েড ("ফ্যারেঞ্জিয়াল টনসিল" হিসাবেও পরিচিত) সিলিয়েটেড সিউডোস্ট্রাটিফাইড কলামনার ( শ্বাস প্রশ্বাসের এপিথেলিয়াম ) অসম্পূর্ণভাবে আবদ্ধ কোনও ক্রিপ্ট নেই, তবে ছোট ছোট ভাজ রয়েছে গলবিল এর ছাদ
টিউবাল টনসিল সিলিয়েটেড সিউডোস্ট্রাটিফাইড কলামনার (শ্বাস প্রশ্বাসের এপিথেলিয়াম) গলবিল এর ছাদ
প্যালাটাইন টনসিল অ-ক্যারেটিনাইজড স্ট্রাটিফাইড স্কোয়ামাস অসম্পূর্ণভাবে আবদ্ধ দীর্ঘ, প্রশস্ত [২] ওরোফ্যারিংসের পাশে এবং প্যালাটোগ্লোসাল ও প্যালাটোফারিনজিয়াল আর্চের মাঝে
লিঙ্গুয়াল টনসিল অ-ক্যারেটিনাইজড স্ট্রাটিফাইড স্কোয়ামাস অসম্পূর্ণভাবে আবদ্ধ দীর্ঘ, শাখাবিহীন টার্মিনাল সালকাসের পিছনে (জিহ্বা)

বিকাশ[সম্পাদনা]

প্যালাটাইন টনসিলগুলো বয়ঃসন্ধিতে তাদের বৃহত্তম আকারে পৌঁছানোর ঝোঁক থাকে এবং এরপরে তারা ধীরে ধীরে এট্রোফির মধ্য দিয়ে যায়। তবে ছোট বাচ্চাদের মধ্যে এরা গলার ব্যাসের সাথে সবচেয়ে বেশি আপেক্ষিক। প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে প্রতিটি প্যালাটাইন টনসিলের দৈর্ঘ্য ২.৫ সেমি, প্রস্থ ২.০ সেমি এবং বেধ ১.২ সেমি। [৩]

অ্যাডিনয়েড টনসিল ৫ বছর বয়স পর্যন্ত বৃদ্ধি পায়, ৭ বছর বয়সে সঙ্কুচিত হতে শুরু করে এবং যৌবনে খুব ছোট হয়ে যায়। [৪]

কাজ[সম্পাদনা]

টনসিলগুলো ইমিউনোকম্পেটিভ অঙ্গ যা হ্রাসকারী বা শ্বাসকষ্টকারী বিদেশী প্যাথোজেনগুলির বিরুদ্ধে প্রতিরোধ ব্যবস্থার প্রথম প্রতিরক্ষা হিসাবে কাজ করে এবং সাধারণ সর্দি-কাশির মতো সাধারণ অসুস্থতার প্রতিরোধ প্রতিক্রিয়াগুলিতে সহায়তা করার জন্য রক্তের সাথে প্রায়শই নিযুক্ত থাকে। টনসিলগুলোর পৃষ্ঠে মাইক্রোফোল্ড সেল (এম কোষ) নামক বিশেষায়িত অ্যান্টিজেন ক্যাপচার সেল রয়েছে যা রোগজীবাণু দ্বারা উৎপাদিত অ্যান্টিজেন গ্রহণের সুযোগ দেয়। এই এম কোষগুলি তখন টনসিলের বি কোষ এবং টি কোষগুলিকে সতর্ক করে যে কোনও রোগজীবাণু উপস্থিত রয়েছে এবং একটি অনাক্রম্য প্রতিক্রিয়া উদ্দীপিত হয়। [৫] টনসিলের জীবাণু কেন্দ্র হিসাবে পরিচিত অঞ্চলে বি কোষগুলি সক্রিয় ও প্রসারিত হয়। এই জীবাণু কেন্দ্রগুলি এমন জায়গা যেখানে বি স্মৃতি কোষ তৈরি হয় এবং ক্ষরণকারী অ্যান্টিবডি (IgA) উৎপাদিত হয়।

২০১২ সালের একটি গবেষণায় প্রমাণিত হয়েছে যে, থাইমাসের মতো টনসিলগুলোও নিজে থেকে টি কোষ তৈরি করতে পারে। [৬][৭]

ক্লিনিকাল গুরুত্ব[সম্পাদনা]

অস্ত্রোপচার দ্বারা অপসারণের পরে একজোড়া টনসিল।

প্যালাটাইন টনসিলগুলি বড় (অ্যাডেনোটনসিলার হাইপারপ্লাজিয়া) বা স্ফীত (টনসিলাইটিস) হয়ে যেতে পারে। টনসিলাইটিসের চিকিৎসার ক্ষেত্রে সর্বাধিক প্রচলিত হলো আইবুপ্রোফেনের মতো অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি ড্রাগগুলো বা অ্যান্টিবায়োটিক যেমন অ্যামোক্সিসিলিন এবং অ্যাজিথ্রোমাইসিন ব্যবহার করা। যদি টনসিলগুলো শ্বাসনালীতে বাধা দেয় বা শ্বসনে বাধা দেয় তবে টনসিলাইটিস রোগীদের মধ্যে সার্জিকাল অপসারণ (টনসিলিক্টমি) পরামর্শ দেওয়া যেতে পারে। [৮][৯] যাইহোক, টনসিলার হাইপারট্রফির এই দুটি উপ-প্রকারের জন্য প্যাথোজেনেসিসের বিভিন্ন প্রক্রিয়া বর্ণনা করা হয়েছে,[১০] এবং অভিন্ন থেরাপিউটিক প্রচেষ্টায় বিভিন্ন প্রতিক্রিয়া থাকতে পারে। বয়স্ক রোগীদের ক্ষেত্রে অসমমিত্রিক টনসিল, (অসমমিত্রিক টনসিল হাইপারট্রফি হিসাবেও পরিচিত) ভাইরাসযুক্ত সংক্রামিত টনসিল, বা লিম্ফোমা বা স্কোয়ামাস সেল, ক্যান্সারের মতো টিউমারগুলোর সূচক হিসেবে কাজ করে।

টনসিলোলিথ ("টনসিল পাথর" নামেও পরিচিত) হলো এমন উপাদান যা প্যালাটাইন টনসিলের উপরে জমা হয়। এটি গোল মরিচের আকারে পৌঁছতে পারে এবং সাদা বা ক্রিম রঙের হয়। এতে রয়েছে ক্যালসিয়ামহাইড্রোজেন সালফাইড। তবে হাইড্রোজেন সালফাইড এবং মিথাইল মারপাটান এবং অন্যান্য রাসায়নিকের কারণে এটির অপ্রীতিকর গন্ধ রয়েছে।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

অতিরিক্ত চিত্র[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Definitive pharynx; Thyroid; Miiddle ear; Tonsills; Thymus"www.embryology.ch। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-১০-১৫ 
  2. "The Lymphatic System"act.downstate.edu। ২০১৭-০২-০২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০১-২৯ 
  3. Chapter: Ear, Nose and Throat Histopathology in L. Michaels (১৯৮৭)। Normal Anatomy, Histology; Inflammatory Diseases। Springer London। আইএসবিএন 9781447133322 
  4. "Enlarged Adenoids" 
  5. Kato, Atsushi; Hulse, Kathryn E. (২০১৩)। "B-lymphocyte lineage cells and the respiratory system": 933–957। 
  6. McClory, Susan; Hughes, Tiffany (২০১২)। "Evidence for a stepwise program of extrathymic T cell development within the human tonsil": 1403–1415। আইএসএসএন 0021-9738ডিওআই:10.1172/JCI46125অবাধে প্রবেশযোগ্যপিএমআইডি 22378041পিএমসি 3314444অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  7. "Tonsils Make T-Cells, Too, Ohio State Study Shows"Ohio State University। Ohio State University, Comprehensive Cancer Center। মার্চ ৪, ২০১২। সংগ্রহের তারিখ মার্চ ২৭, ২০১৪ 
  8. Udayan K Shah, MD, Associate Professor of Otolaryngology–Head and Neck Surgery, Jefferson Medical College, Thomas Jefferson University; Director, Fellow and Resident Education in Pediatric Otolaryngology, Attending Surgeon, Division of Otolaryngology, Nemours-AI duPont Hospital for Children
  9. "Tonsils | Tonsilitis | Lymph Nodes | MedlinePlus" (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০১-২৯ 
  10. Ezzeddini, R; Darabi, M (২০১২)। "Circulating phospholipase-A2 activity in obstructive sleep apnea": 471–4। ডিওআই:10.1016/j.ijporl.2011.12.026পিএমআইডি 22297210 

 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

  • উইকিমিডিয়া কমন্সে টনসিল সম্পর্কিত মিডিয়া দেখুন