জেমস এল. এলিয়ট

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
আবিষ্কৃত গৌণ গ্রহেরসংখ্যা: ৭ [১]
দেখুন § আবিষ্কৃত গৌণ গ্রহের তালিকা

জেমস লুডল এলিয়ট (ইংরেজি: James Ludlow Elliot; ১৭ জুন, ১৯৪৩ – ৩ মার্চ, ২০১১) ছিলেন একজন মার্কিন জ্যোতির্বিজ্ঞানী। তিনি এক দলের সদস্য হিসেবে ইউরেনাসের বলয়গুলি আবিষ্কার করেন।[২][৩] এছাড়াও একটি দলের সদস্য হিসেবে তিনি নেপচুনের বৃহত্তম প্রাকৃতিক উপগ্রহ ট্রাইটনে বিশ্ব উষ্ণায়ন পর্যবেক্ষণ করেছিলেন।[৪][৫]

শিক্ষা ও কর্মজীবন[সম্পাদনা]

১৯৪৩ সালে ওহিওর কলম্বাসে এলিয়ট জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৬৫ সালে ম্যাসাচুয়েটস ইনস্টিটিউট অফ টেকনোলজি (এমআইটি) থেকে তিনি সায়েন্টি ব্যাচালারাস (এস.বি.) ডিগ্রি অর্জন করেন এবং ১৯৭২ সালে হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ডক্টরেট করেন। কর্নেল বিশ্ববিদ্যালয়ের ল্যাবরেটরি ফর প্ল্যানেটারি স্টাডিজে তিনি একটি পোস্টডক্টরাল পদ লাভ করেন এবং ১৯৭৭ সালে কর্নেলের জ্যোতির্বিজ্ঞান বিভাগে শিক্ষক হিসেবে যোগ দেন। কর্নেলে এডওয়ার্ড ডানহ্যাম ও ডগলাস মিংকের সঙ্গে ইউরেনাসের বলয় আবিষ্কার করার পর ১৯৭৮ সালে তিনি এমআইটি-তে ফিরে যান এবং পদার্থবিদ্যার অধ্যাপক, পৃথিবী, বায়ুমণ্ডলীয় ও গ্রহীয় বিজ্ঞানের অধ্যাপক এবং জর্জ আর. ওয়ালেস, জুনিয়র জ্যোতিঃপদার্থবৈজ্ঞানিক মানমন্দিরের পরিচালকের পদ অলংকৃত করেন। ২০১১ সালের ৩ মার্চ মৃত্যুর পূর্বাবধি তিনি সেই পদে আসীন ছিলেন।[৬]

এলিয়ট ও তাঁর সহকর্মী বিজ্ঞানীরা ইউরেনাসের বলয় আবিষ্কার করেছিলেন, নাকি ১৭৯৭ সালে উইলিয়াম হার্শেল প্রথম সেই বলয়গুলি পর্যবেক্ষণ করেছিলেন, তা নিয়ে কিছু বিতর্ক রয়েছে।[৭] যদিও বৈজ্ঞানিক সমাজ সাধারণভাবে এলিয়টকেই ইউরেনাসের বলয়ের আবিষ্কর্তা মনে করে।[৮]

সম্মাননা[সম্পাদনা]

আবিষ্কৃত গৌণ গ্রহের তালিকা[সম্পাদনা]

মাইনর প্ল্যানেট সেন্টার থেকে এলিয়টকে সাতটি গৌণ গ্রহের আবিষ্কর্তা হিসেবে স্বীকৃতি জানানো হয়েছে।[১] এই গ্রহগুলির মধ্যে রয়েছে নেপচুন-উত্তর বস্তু (৯৫৬২৫) ২০০২ জিএক্স৩২। ২০০২ সালে সিটিআইও থেকে আবিষ্কৃত এই গৌণ গ্রহটির তিনি সহ-আবিষ্কর্তা।[১১]

(৯৫৬২৫) ২০০২ জিএক্স৩২ ৮ এপ্রিল, ২০০২ স্ক্রিপ্ট ত্রুটি: "Minor planet list link" নামক কোন মডিউল নেই।[ক][খ]
(৫৪১৩১২) ২০১১ এফইউ৪৬ ২২ মে, ২০০১ স্ক্রিপ্ট ত্রুটি: "Minor planet list link" নামক কোন মডিউল নেই।[গ]
(৫৪২৪৫৮) ২০১৩ সিকিউ১৮৯ ২২ মে, ২০০১ স্ক্রিপ্ট ত্রুটি: "Minor planet list link" নামক কোন মডিউল নেই।[গ]
(৫৪২৫৬৯) ২০১৩ ইজি১১২ ২৩ মে, ২০০১ স্ক্রিপ্ট ত্রুটি: "Minor planet list link" নামক কোন মডিউল নেই।[গ]
(৫৪৩৬২৯) ২০১৪ ওভি১৩১ ২৩ মে, ২০০১ স্ক্রিপ্ট ত্রুটি: "Minor planet list link" নামক কোন মডিউল নেই।[গ]
(৫৪৪৩২২) ২০১৪ ইউএক্স৮৬ ২৪ মে, ২০০১ স্ক্রিপ্ট ত্রুটি: "Minor planet list link" নামক কোন মডিউল নেই।[গ]
(৫৪৫৫৩২) ২০১১ পিএল ২৩ মে, ২০০১ স্ক্রিপ্ট ত্রুটি: "Minor planet list link" নামক কোন মডিউল নেই।[গ]
সহ-আবিষ্কারক:
এম. ডব্লিউ. বুই
এ. বি. জর্ডন
এল. এইচ. ওয়াসারম্যান

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Minor Planet Discoverers (by number)"Minor Planet Center। ২০ জুন ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ১০ আগস্ট ২০১৬ 
  2. Elliot, J. L.; Dunham, E.; Mink, D. (মে ১৯৭৭)। "The rings of Uranus"। Nature267 (5609): 328–330। আইএসএসএন 0028-0836ডিওআই:10.1038/267328a0বিবকোড:1977Natur.267..328E 
  3. Schmadel, Lutz D. (২০০৭)। "(3193) Elliot"। Dictionary of Minor Planet Names – (3193) Elliot। Springer Berlin Heidelberg। পৃষ্ঠা 265। আইএসবিএন 978-3-540-00238-3ডিওআই:10.1007/978-3-540-29925-7_3194 
  4. HubbleSite - NewsCenter - Hubble Space Telescope Helps Find Evidence that Neptune's Largest Moon Is Warming Up (06/24/1998) - Release Text
  5. Elliot, J. L., H. B. Hammel, L. H. Wasserman, O. G. Franz, S. W. McDonald, M. J. Person, C. B. Olkin, E. W. Dunham, J. R. Spencer, J. A. Stansberry, M. W. Buie, J. M. Pasachoff, B. A. Babcock, T. H. McConnochie, Global warming on Triton, Nature, 393, 765-767, 1998
  6. EAPS, physics professor James Elliot dies at 67
  7. Rincon, Paul (১৮ এপ্রিল ২০০৭)। "Uranus rings 'were seen in 1700s'"BBC News 
  8. "Did William Herschel Discover The Rings Of Uranus In The 18th Century?"Physorg.com। ২০০৭। সংগ্রহের তারিখ ২০০৭-০৬-২০ 
  9. "MPC/MPO/MPS Archive"Minor Planet Center। সংগ্রহের তারিখ ২৩ জুন ২০২০ 
  10. "Pluto's Features Receive First Official Names"agu.org। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৯-২৩ 
  11. "95625 (2002 GX32)"Minor Planet Center। সংগ্রহের তারিখ ১৩ জুলাই ২০১৬