জিয়া মোদী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
জিয়া মোদী
Zia Mody at WEF.png
জন্ম (1956-07-19) ১৯ জুলাই ১৯৫৬ (বয়স ৬৫)

জিয়া মোদী (জন্ম: ১৯শে জুলাই ১৯৫৬) হলেন একজন ভারতীয় কর্পোরেট আইনজীবী এবং ব্যবসায়ী। তিনি কর্পোরেট সংযুক্তি ও অধিগ্রহণ আইন, নিরাপত্তা আইন, বেসরকারী ইক্যুইটি এবং প্রকল্পের অর্থ সম্পর্কিত একজন যোগ্য ব্যক্তি হিসাবে বিবেচিত হন।[১] জিয়া হলেন ভারতের প্রাক্তন অ্যাটর্নি জেনারেল সোলি সোরাবজির কন্যা এবং ধর্ম অনুসারে তিনি বাহাই

ভারতের শীর্ষস্থানীয় আইন সংস্থাগুলোর মধ্যে এজেডবি অ্যান্ড পার্টনারস-এর প্রতিষ্ঠাতা অংশীদার[২] জিয়া ভারতের অন্যতম শীর্ষস্থানীয় কর্পোরেট অ্যাটর্নি। আইনি বিশ্বে তাঁর অবদানের জন্য তিনি ভারতে এবং আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত হয়েছেন। তিনি জেনারেল ইলেকট্রিক, টাটা কন্‌সাল্টেন্সি সার্ভিসেস, রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজ, আদিত্য বিড়লা গ্রুপ এবং বেদান্ত গ্রুপের সাথে কাজ করেছেন। তিনি কোহলবার্গ ক্রাভিস রবার্টস, বাইন ক্যাপিটাল এবং ওয়ারবার্গ পিনকাস সহ বড় বড় প্রাইভেট ইক্যুইটি হাউসের পরামর্শ প্রদান করেন। তিনি ২০১৮ এবং ২০১৯ সালে ফরচুন ইন্ডিয়া দ্বারা প্রকাশিত সবচেয়ে ক্ষমতাধর নারী উদ্যোক্তাদের মধ্যে ১ নম্বরে রয়েছেন।[৩]

শিক্ষা[সম্পাদনা]

মোদির মুম্বাইয়ের এলফিনস্টোন কলেজ থেকে তার স্কুল জীবনের পড়াশোনা সম্পন্ন করেছেন। তিনি ক্যামব্রিজের সেলউইন কলেজে আইন বিভাগে পড়াশোনা করেছেন। অতঃপর ১৯৭৯ সালে, হার্ভার্ড ল স্কুল থেকে মাস্টার্স ডিগ্রী অর্জন করেছিলেন।[৪]

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

তিনি নিউ ইয়র্ক স্টেট বার পরীক্ষা পাস করার পর নিউ ইয়র্ক রাজ্যে একজন অ্যাটর্নি হিসাবে কাজ করার যোগ্যতা অর্জন করেছিলেন। ভারতে ফিরে আসার আগে তিনি নিউইয়র্ক সিটিতে বেকার ও ম্যাককেঞ্জির সাথে পাঁচ বছর কাজ করেছিলেন। তাঁর স্বামী, ব্যবসায়ী জয়দেব মোদী, ডেল্টা কর্পের চেয়ারম্যান ছিলেন। তাঁরা মহারাষ্ট্রের মুম্বইয়ে বসবাস করেন এবং তাঁদের তিন মেয়ে (অঞ্জলি, আরতি এবং অদিতি) রয়েছে।

তিনি ১৯৮৪ সালে মুম্বইয়ে নিজস্বভাবে আইন অনুশীলন শুরু করেছিলেন, তিনি এজেডবি অ্যান্ড পার্টনারস গঠনের জন্য অন্যান্য সংস্থাগুলোর সাথে দুবার সংহত হয়েছিলেন;[৫] এটি এখন ভারতের অন্যতম বড় আইন সংস্থা, যেখানে তিনি ম্যানেজিং পার্টনার হিসেবে কাজ করেন।[১] তিনি ফোর্বসের "পাওয়ার উইমেন ইন বিজনেস"-এর তালিকাতে এবং ফরচুন ইন্ডিয়া প্রকাশিত শীর্ষস্থানীয় ৫০ জন সবচেয়ে ক্ষমতাধর মহিলা তালিকায় স্থান পেয়েছেন।[৬][৭]

কৃতিত্ব[সম্পাদনা]

জিয়া মোদী ২০১৯ সালে অ্যাক্রিটাস স্টার দ্বারা প্রকাশিত বিশ্বব্যাপী শীর্ষ ১৩ জন নারী অ্যাক্রিটাস স্টার-এর মধ্যে একজন ছিলেন। এছাড়াও তিনি "শীর্ষস্থানীয় আইনজীবী" হিসাবে স্বীকৃতি লাভ করেছেন। তিনি ২০১৫ সালে, ইউরোমনি এশিয়া উইমেন ইন বিজনেস আইন পুরস্কার অনুষ্ঠান আজীবন সম্মাননা অর্জন করেছিলেন।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Chambers & Partners - Zia Profile"Chambers & Partners। ২০১৮-০৬-১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৬-১৩ 
  2. "RSG India - Law Firm Rankings"। ৯ আগস্ট ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩১ মার্চ ২০২০ 
  3. https://www.fortuneindia.com/mpw?year=2019
  4. Perkins, Christine (Spring ২০০৬)। "Profile: A Passage in India"। সংগ্রহের তারিখ ২৬ মে ২০১২ 
  5. The Voyage To Excellence: The Ascent of 21 Women Leaders of India Inc 
  6. "Forbes - Power Women"। ৯ মে ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩১ মার্চ ২০২০ 
  7. "Fortune India - Most Powerful Women (2017)"। ১৩ জুন ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩১ মার্চ ২০২০