চিটাগাং ষ্টীল মিলস্ হাই স্কুল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
চিটাগাং ষ্টীল মিলস্ হাই স্কুল
অবস্থান

বাংলাদেশ
তথ্য
প্রতিষ্ঠাকাল১৯৭২
বিদ্যালয় জেলাচট্টগ্রাম
বিদ্যালয় কোড১০৪২৪৯ উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
অধ্যক্ষজনাব মোঃ আবুল কালাম
ওয়েবসাইট

চিটাগাং ষ্টীল মিলস্ হাই স্কুল বাংলাদেশের চট্টগ্রাম শহরের ১৪ কিলোমিটার দক্ষিণে পতেঙ্গা এলাকায় অবস্থিত। সাগরের কোল জুড়ে অপরূপ পর্যটন কন্যা পতেঙ্গা যা চট্টগ্রাম শহরের একটি জনপ্রিয় পর্যটন কেন্দ্র। এটি কর্ণফুলী নদীর মোহনায় অবস্থিত।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

বাংলাদেশের ষাটের দশক পতেঙ্গায় স্থাপিত হচ্ছে উপমহাদেশের সেরা চিটাগাং ষ্টীল মিলস্ লিমিটেড। এটি ছিল দেশের একমাত্র ষ্টীল মিল। সেই সময় পাক প্রেসিডেন্ট একে উদ্বোধন করলেন। ১৯৭১ সাল শুরু হল দেশ জুড়ে মুক্তিযুদ্ধ। রক্তাক্ত সংগ্রামে উজ্জ্বীবিত সারাদেশ। চট্টগ্রামের দিকে ধেয়ে আসছে পাকিস্থানী সৈন্যদের অস্ত্রবাহী ‘সোয়াতজাহাজ’। শ্রমিক নেতা বীর মুক্তিযোদ্ধ আবুল বশর, সুলতান সাহেব (মরহুম), আবু নাসের, আবদুল মালেক, সানাউলস্নাহ, কাশেম সাহেবের নেতৃত্বে ষ্টীল মিলের পাঁচ সহস্রাধিক শ্রমিক কর্মকর্তা-কর্মচারী ছুটলো সোয়াত জাহাজ প্রতিরোধ করতে। সাহসী শ্রমিক কর্মচারী কর্মকর্তার প্রতিরোধের মুখে সোয়াত জাহাজ থেকে অস্ত্র খালাস করতে পারে নাই। আর তাদেরই যৌথ প্রচেষ্টায় প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল চিটাগাং ষ্টীল মিলস্ হাই স্কুল। সেই ১৯৭১ সালেই শুরু হয়েছিল স্কুল প্রতিষ্ঠার প্রক্রিয়াও।[১]

সেই সময় ষ্টীল মিলে কর্মরত ছিলেন প্রায় পাঁচ হাজার কর্মকর্তা, কর্মচারী ও শ্রমিক। যারা বসবাস করতো ষ্টীলমিল সংলগ্ন আবাসিক কলোনীতে। কলোনীতে বসবাসরত শ্রমিক, কর্মচারী, কর্মকর্তাদের ছেলেমেয়েদের শিক্ষা কথা মাথায় রেখে শ্রমিক নেতৃবৃন্দ ষ্টীল মিলে একটি হাই স্কুল প্রতিষ্ঠার পরিকল্পনা গ্রহণ করলেন। পরিকল্পনা অনুযায়ী শ্রমিকনেতা আবুল বশর, আবদুল মালেক, আবু নাসের, সুলতান সাহেব ও সানাউলস্নাহ ছুটে গেলেন ষ্টীল মিলের কর্মকর্তা মোক্তাদির সাহেবের কাছে। মোক্তাদির সাহেব ছিলেন মনে প্রাণে শিক্ষানুরাগী। তিনি শ্রমিক নেতৃবৃন্দকে উৎসাহ দিলেন। পরে মোক্তাদির সাহেব ষ্টীল মিলস্ হাই স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতির দায়িত্ব ও পালন করেন।

যথারীতি ষ্টীলমিল কর্মকর্তাদের বার্ষিক সভা। সভায় উপস্থিত ষ্টীল মিলের এম.ডি, জি.এম, ম্যানেজার, প্রকৌশলীসহ নীতি নির্ধারক (স্থানীয়) সকলেই। সভায় জনাব মোক্তাদির সাহেব ষ্টীল মিলে একটি হাই স্কুল প্রতিষ্ঠার প্রস্তাব করলেন। সিদ্ধান্ত করলেন হেড অফিস বি.এস.ই.সি. এর অনুমোদন নিতে হবে। নির্দিষ্ট সময়ে হেড অফিসে স্কুল প্রতিষ্ঠার আবেদন জানিয়ে স্থানীয় ষ্টীল মিল কর্তৃপহ্মকে লিখলেন সুনির্দিষ্ট আবেদন। হেড অফিসের অনুমোদন সহজ ছিল না। কারণ শিল্প মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন ভিন্ন তা সম্ভব ছিলনা। লাল ফিতার দৌরত্য ছিল প্রচুর। কিন্তু ষ্টীল মিলের এক ঝাক শিক্ষানুরাগী কর্মকর্তা ও শ্রমিক নেতৃবৃন্দের অবিরাম প্রচেষ্টায় মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন ও হেড অফিসের সিদ্ধান্ত পৌঁছে গেল ষ্টীল মিল কর্তৃপক্ষর কাছে। যে সকল মহান কর্মকর্তাবৃন্দ বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠায় সক্রিয় ভূমিকা রেখেছেন তারা হলেন জনাব জামাল উদ্দীন হোসেন, জনাব জি.এম. মোক্তাদের, জনাব আবরার হোসেন, জনাব আব্দুল মজিদ খান, জনাব আজমল হোসেন, জনাব নূর মোহাম্মদ ও জনাব মীর মোহাম্মদ হোসেন সহ আর ও অনেকে।[১]

যে সকল শ্রমিক নেতৃবৃন্দের নিরলস প্রচেষ্টা ছাড়া এ বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা সম্ভব ছিলনা তারা হলেন জনাব আবুল বশর সাহেব, জনাব আবদুল মালেক, জনাব সুলতান সাহেব (মরহুম), জনাব সানাউলস্নাহ সাহেব, জনাব আবু নাসের, জনাব কাশেম সাহেব। পরে এ বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার উন্নয়নে শরীক হন জনাব লিয়াকত আলী (প্রাক্তন এম.পি ও সিবিএ নেতা), মোসত্মাফিজ সাহেব, আনসারী সাহেব, ফয়েজ উলস্নাহ সাহেব সহ আর ও অনেকে। বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার এ মহতী সংগ্রামে বিদ্যালয়ের প্রথম প্রধান শিক্ষক জনাব এম.কে. ইউনুছ সাহেব এবং জাহানারা বেগমের নাম ও স্বরণীয়।

ষ্টীল মিল কর্তৃপক্ষ বিদ্যালয় ভবন নির্মাণে তৎপর হলেন। প্রথমে বর্তমান বিদ্যালয়ের উত্তর পার্শ্বস্থ বিল্ডিং ধরে বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার কথা থাকলেও বতর্মান বিদ্যালয় এলাকায় বিদ্যালয় স্থাপনের কাজ শুরু হয়। প্রতিষ্ঠিত হল চিটাগাং ষ্টীল মিলস্ হাই স্কুল। বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার যাবতীয় টাকা পয়সা ও আনুষঙ্গিক ব্যয় ষ্টীল মিল কর্তৃপক্ষ বহন করেন। একইভাবে ১৯৭২ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়; দীর্ঘ প্রচেষ্টা, নিরলস পরিশ্রমের ফসল চিটাগাং ষ্টীল মিলস্ হাই স্কুল।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "চিটাগাং ষ্টীল মিলস্ হাই স্কুল প্রতিষ্ঠার ইতিহাস"। ৪ ডিসেম্বর ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩১ অক্টোবর ২০১৪ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]