গুন্ডা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(গ্যাংস্টার থেকে পুনর্নির্দেশিত)
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

একজন গুন্ডা হচ্ছে একজন অপরাধী যে একটি গুন্ডাদলের সদস্য। কিছু দলকে তুলনা করা হয় সংগঠিত অপরাধের অংশ হিসাবে। গুন্ডাদেরকে মাস্তান নামেও ঢাকা হয়।

গুন্ডাদের দলগুলোর একটি সংগঠিত এবং সাহায্যের একটি স্তর প্রদান করে যেটি বড় এবং জঠিল অপরাধ লেনদেন সমর্থন করে যেটি একজন অপরাধী পেয়ে থাকে। গুন্ডারা সারা বিশ্বব্যাপী বিভিন্ন দেশে সক্রিয় আছে। কিছু গুন্ডা যেমন আল কাপোন অনেক জনপ্রিয়। গুন্ডারা অনেক উপন্যাস এবং চলচ্চিত্রের বিষয় বিশেষ করে ১৯২০ থেকে ১৯৯০ সাল এর মধ্যে।

গুন্ডাদল[সম্পাদনা]

ইয়াকুজা বা জাপানী মাফিয়ারা তাদের উল্কি জনসম্মুখে দেখানোর অনুমতি নেই শুধুমাত্র সাঞ্জা মাতসুরি উৎসব ছাড়া।

বর্তমান সময়ে গুন্ডাদল শব্দ সাধারণত কোন অপরাধী দলকে বোঝানো হয় এবং গুন্ডা শব্দটি দ্বারা অপরাধীকে বোঝানো হয়।[১] অনেকেই গুন্ডাদলের বিষয় সম্পর্কে লিখেছেন, যদিও সেখানে গুন্ডাদল গঠন সম্পর্কে পরিষ্কার কোন মিল নেই বা কি অবস্থায় একটি গুন্ডাদল গঠন এবং বিবর্তন ঘটে সে সম্পর্কেও পরিষ্কার কিছু নেই। একটি চুক্তি আছে যে গুন্ডাদলের সদস্যদের মধ্যে যে তাদের আলাদা পরিচয় এবং অংশ আছে, এবং এটি ভাগ করা কার্যক্রম এবং চাক্ষুষ সনাক্তকরণ যেমন কাপড়, উল্কি বা আংটি এর মাধ্যমে সাধারণত চাঙ্গা করা হয়।[২] কিছু পূর্ব ধারণা হয়ত মিথ্যা। উদাহরণস্বরূপ, অবৈধভাবে মাদক বণ্টন করার সাধারণ দৃষ্টিকোণ থেকে দেখা হয় যে এগুলো গুন্ডাদল করে থাকে এবং যুক্তরাষ্ট্রে তাদেরকে প্রশ্নবিদ্ধ করা হয়।[৩] একটি গুন্ডাদল হতে পারে ছোট একটি দল কয়েকজন লোকের দ্বারা সংগঠিত যারা অপরাধ কর্মকান্ডে সহায়তা করে, জেসি জেমস গুন্ডাদলের ক্ষেত্রে বলা যায় যার সমাপ্তি হয় তাদের দল প্রধানের মৃত্যু দ্বারা ১৮৮২ সালে। কিন্তু একটি গুন্ডাদল অসংখ্য লোক দ্বারা তৈরি একটি প্রতিষ্ঠানের মত যেটি তাদের দল প্রধানের মৃত্যুর পরও চলতে থাকবে। চিকাগো আউটফিটস যেটি তৈরি করেছিল আল কাপোন এবং এটি ২১ শতাব্দী পর্যন্ত টিকে আছে তার প্রতিষ্ঠাতার মৃত্যুর পরও। বড় এবং ভাল কাঠামোর গুন্ডাদল যেমন দ্য মাফিয়া, ড্রাগ কার্টেল, ট্রায়াড বা অন্যান্য অবৈধ মোটরসাইকেলের গুন্ডাদলগুলো বড় ধরণের জঠিল কাজগুলো করতে পারে যেগুলো একা কারোর পক্ষে করা সম্ভব নয় এবং তারা যেসকল সেবা দেয় যেমন বিতর্কের মধ্যস্থতা ও জোর করে চুক্তি করা যেগুলো বৈধ সরকারের সমান।[৪] সংগঠিত অপরাধ শব্দটি সংযুক্ত করা হয় গুন্ডা দল এবং গুন্ডাদের ক্ষেত্রে, কিন্তু এটি প্রতিশব্দ নয়। একটি ছোট গুন্ডাদল যে জড়িত হয় নিম্ন শ্রেণীর কোন অপরাধে সেটিকে সংগঠিত হিসাবে দেখা হয় না। একটি প্রতিষ্ঠান যেটি বিভিন্ন দেশের গুন্ডা দলের সাথে সংযুক্ত থাকে আন্তর্জাতিক মাদক বা পতিতা পাচারে তাকে “গুন্ডাদলের” সাথে তুলনা না করাও হতে পারে। [৫] যদিও গুন্ডা এবং গুন্ডাদল বিভিন্ন দেশে আছে এবং পূর্বেও অনেক সময় ছিল, তারা লক্ষণীয় ভূমিকা পালন করেছে সামাজিক রীতির দূর্বল অবস্থা বা যখন সরকার যখন চেষ্ঠা করে কোন পণ্য বা সেবার যদি প্রচুর চাহিদা থাকে সেই সময়ে।

অঞ্চলবেদে ভিন্নতা[সম্পাদনা]

ইউরোপ[সম্পাদনা]

ইতালীর পালেরমোতে ১৯০১ সালের সন্দেহভাজন মাফিয়সীর বিচারের স্কেচ। ল’ওরা পত্রিকা থেকে, মে ১৯০১

সিসিলিয় মাফিয়া বা কসা নস্ট্রা হচ্ছে একটি অপরাধী প্রতিষ্ঠান যেটি উদিত হয় ১৯ শতকের মাঝামাঝিতে ইতালির সিসিলিতে। এটি একটি স্বাধীন অপরাধ সংঘ যেটি সাধারণ সাংঘটনিক গঠন এবং আচরণ বিধিতে বিভিক্ত। এর উৎপত্তি হয় ১৮১২ সালে সিসিলির সামন্ততন্ত্র থেকে পরিবর্তনে এবং পরবর্তিতে ১৮৬০ সালে পুরো ইতালি দখলের মাধ্যমে। সামন্ততন্ত্র এর নামে, উচ্চ পদের লোকেরা বেশির ভাগ জমির মালিক ছিল এবং ব্যক্তিগত সেনাবাহিনী দ্বারা তারা আইন প্রণয়ন এবং প্রয়োগ করত। ১৮১২ সালের পর সামন্ততান্ত্রিকরা আস্তে আস্তে তাদের জমি বিক্রি করতে থাকে বা ভাড়া দিতে থাকে খাস লোকদের। পূর্বাধিকার লুপ্ত হয়, ঋণ আদায় করার জন্য আর জমি দখল করা যাবে না, এবং পাঁচ ভাগের একভাগ জমি কৃষকের ব্যক্তিগত সম্পদ হয়ে যায়।[৬]

সংগঠিত অপরাধ রাশিয়াতে ছিল সাম্রাজ্যিক রাশিয়ার সময় থেকে যেখানে রাহাজানি এবং চৌর্যবৃত্তি গঠিত হয়েছিল। সোভিয়েত ইউনিয়ন এর সময় একটি আইন করা হয় “ভরি ভি জাকন” বা “চুরেরা আইনের ভিতর” নামে, যেখানে এক শ্রেণীর অপরাধী কারাগারের ভিতর নির্দিষ্ট নিয়ম মেনে চলতে হয়। এমন আইন যাতে কর্তৃপক্ষের দয়া ছিল নিষিদ্ধ। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় কিছু কয়েদি সরকারের সাথে চুক্তি করে যে তারা সশস্ত্র বাহিনীর সাথে যুদ্ধে যুক্ত হবে কিন্তু বিনিময়ে তাদের কারাবাসের মেয়াদ কমিয়ে দিতে হবে, কিন্তু তারা যুদ্ধ থেকে কারাগারে ফেরার পরই তাদেরকে আক্রমণ এবং হত্যা করে বাকি সঙ্গীরা যারা চুরদের আইনের প্রতি অনুগত ছিল।[৭]১৯৮৮ সালে সোভিয়েত ইউনিয়নে ব্যক্তিগত উদ্যোগ বৈধ করা হয় কিন্তু কোন বাজারের অর্থনিতী নিরাপত্তায় কোন আইন প্রদান করেনি। পতিতা বাজারের সৃষ্টি হয়, যার মধ্যে সবচেয়ে নাম করে বা কুখ্যাত ছিল রিজস্কাই মার্কেট যেখানে পতিতাবৃত্তির চক্র চলে রিজস্কাই রেল স্টেশনের পাশেই মস্কো শহরে।[৮] সোভিয়েত ইউনিয়নের যখন পতন ঘটছিল অনেক সরকারী চাকুরীজীবী অপরাধের দিকে জড়িয়ে যান, যেখানে অন্যরা বিদেশে পাড়ি জমান।সাবেক কেজেবি প্রতিনিধিরা এবং আফগান, প্রথম এবং দ্বিতীয় চেকান যুদ্ধের অভিজ্ঞরা যারা বর্তমানে বেকার কিন্তু তাদের অভিজ্ঞতা অপরাধ জগতে উপকারী, তারা বৃদ্ধি হওয়া অপরাধের স্রোতের সাথে যুক্ত হন।[৮]প্রথমভাবে, ভরি ভি জাকন একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে ১৯৯০ দশকে শুরু হওয়া গুন্ডা দলগুলোর যুদ্ধে।[৯]১৯৯০ দশকের মাঝামাঝিতে বিশ্বাস করা হত ডন সেমিওন মগলেভিক হচ্ছেন বিশ্বের সকল রাশিয়ান মাফিয়া প্রতিষ্ঠানগুলোর সকল বসের বস, ব্রিটিশ সরকার বর্ণনা করে “বিশ্বের অন্যতম বিপদজনক ব্যক্তিদের মধ্যে একজন” হিসাবে।[১০]সাম্প্রতিককালে, অপরাধীরা বড় ধরণের ব্যাবসার সাথে যুক্ত এবং সরকার চুরদের তাদের ঐতিহ্যগত যথাযোগ্যস্থান হতে সরিয়ে নিয়েছে, যদিও তস্কররা এখনও জুয়া এবং খুচরা ব্যাবসায় বেশ শক্ত।[৯]

আলভেনিয়ান মাফিয়া যুক্তরাষ্ট্রের আলভেনিয়াতে সক্রিয় আছে, এছাড়াও তারা ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের দেশগুলোতে সক্রিয় রয়েছে, তারা বিভিন্ন পরিসরের অপরাধ কর্মে যুক্ত আছে যার মধ্যে মাদক এবং অস্ত্র ব্যাবসা রয়েছে।[১১][১২]আলভেনিয়ার পাহাড় এলাকার লোকজন ঐতিহ্যগতভাবে তাদের পরিবার এবং বংশের প্রতি শক্তভাবে অনুগত থাকে, যেটি অনেকটা ইতালির দক্ষিণ অংশের মত।প্রত্যেক আলভেনিয়ান গুন্ডা দল দ্রুত বেড়ে উঠেছে ১৯৯২ সালের পর থেকে যখন ইগোস্লাভিয়া এর পতন ঘটে এবং বলকান্স অস্থিথিশীল হয়ে উঠে। এর সাথে মিলিত হয় দেশান্তর হয়ে ইউরোপ এবং যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডায় পাড়ি জমানো। মূলঘাটি আলভেনিয়ায় হলেও গুন্ডাদলটি মাঝেমধ্যে আন্তর্জাতিকভাবে লেনদেন করে থাকে যেমন অর্থনৈতিক অভিবাসী, মাদক এবং অন্যান্য নিষিদ্ধ পণ্য এবং অস্ত্র পাচার করে।[১৩] অন্যান্য অপরাধী সংঘ যেগুলো বলকান্স এর সময়ে জনপ্রিয়তা লাভ করে সেগুলো হচ্ছে সার্ভিয়ান মাফিয়া, বসনিয়ান মাফিয়া, বুলগেরিয়ান মাফিয়া ইত্যাদি।

এশিয়া[সম্পাদনা]

ডু ইয়ংশেং(১৮৮৮-১৯৫১), একজন চীনা গুন্ডা এবং গুরুত্বপূর্ণ কমিংতাং সমর্থক যে তার জীবনের বেশিরভাগ সময় সাঙ্গাই এ অতিবাহিতা করে।

চীনে, গুপ্ত সংঘ ট্রায়াড এর মূল হচ্ছে বিদ্রোহী দল যারা কিং সম্রাজ্যের সময় মাঞ্চু লোকদের শাসনের বিরোধিতা করে, যেটি তাদের প্রতীক হিসাবে ত্রিভুজ চিহ্ন দেয়।[১৪]ট্রায়াড সংঘ প্রথম নথিভুক্ত হয় লিং শুয়াঙ্গুয়েন এর “হেভেন্স এন্ড আর্থ গেদারিং” এ ১৭৮৬ থেকে ১৭৮৭ সালের দিকে তাইওয়ানে। [১৫] ট্রায়াড অপরাধী সংঘ হিসাবে আবির্ভুত হয় যখন চীনা সামাজতান্ত্রিক দল ক্ষমতায় আসে ১৯৪৯ সালে মূল চীনে। আইন প্রয়োগ আরো কঠিন এবং শক্ত করা হয় এবং সরকারীভাবে অপরাধ সংঘটনগুলোর বিরুদ্ধে কঠোর ব্যাবস্থা নেয়া হয়, যেটি ট্রায়াডকে বাধ্য করে হং কং, অন্যান্য ব্রিটিশ উপনিবেশ এবং বিশ্বের বিভিন্ন শহরে স্থানান্তর হতে। বর্তমান সময়ে ট্রায়াড অনেক বেশি সংগঠিত, বিভিন্ন বিভাগে যেগুলো বিভিন্ন ক্রিয়াকর্মের জন্য দায়ী যেমন হিসাব, নিয়োগ, যোগাযোগ, প্রশিক্ষণ এবং প্রয়োগগত অস্ত্র সংযোজন উন্নয়নে। তারা বিভিন্ন ধরণের অপরাধ করে থাকে যার মধ্যে আছে চাঁদাবাজি, অর্থপাচার, ছিনতাই, পাচার এবং পতিতাবৃত্তি।[১৬]

ইয়াকুজা হচ্ছে জাপানের ঐতিহ্যবাহী সংগঠিত অপরাধ সংঘের সদস্যয়া। তারা তাদের আচার এবং সংগঠন প্রকৃতির জন্য বিখ্যাত। ২০০৯ সালের মধ্যে তাদের সদস্য সংখ্যা ৮০,৯০০।[১৭] আধুনিক ইয়াকুজাকে দুই শ্রেণীতে ভাগ করা হয় প্রথম শ্রেণী হচ্ছে টেকিয়া যারা জাপানের মধ্য ইদো সময়ে উদিত হয়েছে, তারা অবৈধ, নকল বা চুরি হওয়া পণ্য কেনাবেচা করে; এবং দ্বিতীয় শ্রেণী হচ্ছে বাকুতো, যারা জোয়ায় অংশগ্রহণ করে।[১৮]

যুক্তরাষ্ট্র এবং কানাডা[সম্পাদনা]

যুক্তরাষ্ট্রের সমাজ এবং সংস্কৃতি উন্নয়নের সাথে সাথে যুক্তরাষ্ট্রের অভিবাসীর পরিমাণ বাড়ছে। প্রথম বড় গুন্ডাদল হচ্ছে ১৯ শতাব্দীতে নিউ ইয়র্ক শহরে আইরিশ গুন্ডাদল যেমন হোয়াইওস এবং ডেড রাবিটস[১৯] তাদেরকে অনুসরণ করে তৈরি হয় ইতালিয় “ফাইভ পয়েন্টস” গুন্ডাদল এবং পরবর্তিতে ইহুদী গুন্ডাদল “ইস্টম্যান গুন্ডাদল”।[২০][২১] সেখানে কিছু স্থানীয় গুন্ডাদল ছিল যারা অভিবাসের বিরোধী যেমন “বোরি বয়েজ”। উনিশ শতকের শেষের দিকে ইতালি থেকে অভিবাসী আসার পর, “দা মাফিয়া” এর শাখা আমেরিকান মাফিয়া গড়ে উঠে যুক্তরাষ্ট্রে। এটি কানাডাতেও একই ছিল ইতালিয় কানাডিয়ানদের মধ্যে।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

১৮০০ শতকের শেষের দিকে অনেক চীনা দেশান্তর হয়ে যুক্তরাষ্ট্রে আসে নিজ দেশের নিরাপত্তার অভাব এবং অর্থনৈতিক সমস্যার কারণে, প্রথমদিকে পশ্চিম উপকূলে কাজ করলেও পরবর্তিতে পূর্ব দিকে যায়। নতুন অভিবাসীরা গঠন করে চীনা কল্যাণ সংস্থা। কিছু ক্ষেত্রে তারা টং সংগঠনের উৎপত্তি করে বা অপরাধী সংঘ যারা প্রাথমিকভাবে জুয়া খেলায় জড়িত। ট্রায়াড সদস্যরা যারা যুক্তরাষ্ট্রে পাড়ি জমিয়েছে তারা এসকল টং এর মধ্যে যুক্ত হয়। ১৯৬০ দশকে অভিবাসনের নতুন স্রোতে, বড় শহর গুলোর প্রত্যেক পাড়াতে গুন্ডাদল তৈরি হতে থাকে। টং এসকল গুন্ডাদলকে নিয়োগ দেয় তাদের চাঁদাবাজি, জুয়া খেলা এবং মাদক কার্যক্রম রক্ষা করতে।[২২]

গুন্ডা এবং মাস্তান শব্দ সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত হয় যুক্তরাষ্ট্রে নিষিদ্ধ অপরাধ সংঘগুলোর সদস্যদের বা ইতালিয় মাফিয়ার শাখাকে (যেমন চিকাগো আউটফিট, ফিলাদেলফিয়া মাফিয়া বা ফাইভ ফ্যামেলিস) উল্লেখ করতে।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] ১৯২০ সালে যুক্তরাষ্ট্রের ১৮তম সংবিধান সংশোধন এ নিষিদ্ধ করা হয় নেশার জন্য মদকে সকলপ্রকার বিক্রয়, উৎপাদন এবং পরিবহনকে। অনেক গুন্ডাদলই অবৈধভাবে মদ বিক্রি করতে থাকে বিশাল পরিমাণ লাভে এবং তাদের সুদ রক্ষায় তারা বলপ্রয়োগও করে। মাঝেমধ্যে পুলিশ কর্মকর্তা এবং রাজনীতিবিদদের ঘুষ দেয়া হয় যাতে কার্যক্রম অব্যাহত থাকে।[২৩]

ল্যাটিন আমেরিকা[সম্পাদনা]

কর্ণেল মার্টিনেজ দলের সদস্যরা পাবলো এস্কোবারের মৃতদেহের পাশে উদযাপন করছে ডিসেম্বর ২, ১৯৯৩ সালে।

বেশিরভাগ কোকেইন চাষ এবং প্রক্রিয়াজাত করা হয় দক্ষিণ আমেরিকায় বিশেষ করে কলাম্বিয়া, বলিভিয়া, পেরুতে এবং এগুলো পাচার করা হয় যুক্তরাষ্ট্র এবং ইউরোপে, যুক্তরাষ্ট্র হচ্ছে বিশ্বের সবচেয়ে বড় কোকেইন ক্রেতা।[২৪]কলাম্বিয়া হচ্ছে বিশ্বের শীর্ষ কোকেইন উৎপাদণকারক, এবং হিরোইনেরও উৎপাদনকারক যেগুলো সাধারণত যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে যায়।[২৫] মেডেলিন কার্টেল হচ্ছে মাদক সরবরাহ এবং পাচারের একটি সংঘঠিত নেটওয়ার্ক যেটি কলাম্বিয়ার মেডেলিন শহরে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। ১৯৭০ দশক থেকে ১৯৮০ দশকে গুন্ডাদলগুলো তাদের কার্যক্রম চালায় কলাম্বিয়া, বলিভিয়া, পেরু, মধ্য আমেরিকা, যুক্তরাষ্ট্র এমনকি কানাডা এবং ইউরোপে। এটি প্রতিষ্ঠা এবং পরিচালনা করে অচোয়া ভাজকুইজ যে পাবলো এস্কোবার এর সহকর্মী। ১৯৯৩ সালের মধ্যে কলাম্বিয়ার সরকার যুক্তরাষ্ট্রের সহযোগিতায় সফলভাবে এসব কার্টেলদের বিনাশ করে জেলে ঢুকিয়ে বা এর সদস্যদের হত্যা করে।[২৬]

যদিও মেক্সিকোর মাদক কার্টেলরা বা মাদক পাচারকারী সংঘঠন কয়েক যুগ ধরে টিকে আছে, তারা আরো শক্তিশালী হয়ে উঠেছে ১৯৯০ দশকে কলাম্বিয়ার কালি কার্টেল এবং মেডেলিন কার্টেল এর মৃত্যুর পর। মেক্সিকোর মাদক কার্টেলরা এখন যুক্তরাষ্ট্রের মাদক বাজার নিয়ন্ত্রণ করে।[২৭]পয়শ্চটি ভাগ কোকেইন যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ করে মেক্সিকো হতে, এবং বেশিরভাগ অংশ প্রবেশ করে ফ্লোরিডার মধ্য দিয়ে। দক্ষিণ আমেরিকা থেকে কোকেইন চালান হয় মেক্সিকো বা মধ্য আমেরিকার মধ্য দিয়ে সাধারণত স্থলপথে বা আকাশপথে মেক্সিকোর উত্তরদিকের এলাকাগুলোতে। এরপর কোকেইনগুলো ছোট ছোটভাগে বিভক্ত হয়ে যুক্তরাষ্ট্র-মেক্সিকো সীমানা পাড়ি দেয়।[২৮] প্রধান গুন্ডাদলের নেতাদের গ্রেফতার বিশেষ করে টিজুনা এবং গালফ কার্টেল যেটি মেক্সিকোর মাদক যুদ্ধ বাড়িয়ে দিয়েছে কারণ গুন্ডাদলগুলো লড়াই করতে থাকে যুক্তরাষ্ট্রে মাদক পাচারের নিয়ন্ত্রন নিতে।[২৯]

কলাম্বিয়ার কোকেইন পাচারকারীরা এবং সম্প্রতি মেক্সিকোর পাচারকারীও প্রতিষ্ঠা করেছে চোরাই পথের ক্যারিবীয়, বাহামা দ্বীপপুঞ্জ এবং দক্ষিণ ফ্লোরিডার মধ্যে। তারা মাঝেমধ্যে মেক্সিকো বা ডোমিনিকান প্রজাতন্ত্র থেকে পাচারকারী ভাড়া করে মাদক পরিবহনের জন্য। পাচারকারীরা চোরাচালানের বিভিন্ন পদ্ধতি অনুসরণ করে যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে মাদক স্থানান্তর করতে। এর মধ্যে পড়ে বিমান থেকে ৫০০-৭০০ কেজি ফেলা বাহামা দ্বীপপুঞ্জ বা পুয়ের্তো রিকো এর উপকূলে, সমুদ্রের মধ্যে নৌকা থেকে নৌকায় ৫০০-২০০০ কেজি স্থানান্তর, এবং মিয়ামি বন্দর দিয়ে বাণিজ্যিকভাবে কয়েক টন কোকেইন চালান। কোকেইন পাচারের অন্য একটি রাস্তা হচ্ছে চিলির মধ্য দিয়ে, এই রাস্তা প্রাথমিকভাবে ব্যবহার করা হয় বলিভিয়াতে যে কোকেইন উৎপাদন হয় তার জন্য কারণ সেখান থেকে সবচেয়ে কাছের সমুদ্রবন্দর হচ্ছে চিলির উত্তরদিকে। বলিভিয়া-চিলির শুষ্ক সীমান্ত সহজেই চার চাকার গাড়ী দিয়ে পাড়ি দেয়া যায় যেটি ইকিকায় এবং আন্তোফাইয়াস্তা সমুদ্রবন্দরের দিকে গেছে।

কুখ্যাত ব্যক্তিসমূহ[সম্পাদনা]

আল কাপোন[সম্পাদনা]

আল কাপোন এর মুখের ছবি। যদিও কখনো কালোবাজারের অপরাধ করেনি, কাপোনকে আয়কর ফাঁকির অপরাধে যুক্তরাষ্টীয় সরকার গ্রেফতার করেছিল।

আল কাপোন হচ্ছেন তার সময়ে সবচেয়ে বেশি প্রভাবশালী গুন্ডা। ১৮৯৯ সালে ব্রুকলিনের উইলিয়ামসবার্গে জন্মগ্রহণ করেন অভিবাসী পরিবারে, কাপোনকে নিয়োগ দেয়া হত ফাইভ পয়েন্টস গুন্ডাদলের সদস্য হিসাবে ১৯২০ দশকের শুরুতে। কাপোনের শৈশবের বন্ধু লাকি লুসিয়ানাও গুন্ডাদলটির সদস্য ছিলেন। কাপোন একটি বিশাল অংশের অবৈধ ক্রিয়াকর্ম নিয়ন্ত্রণ করত যেমন জুয়া, পতিতাবৃত্তি, এবং মদের কারবার চিকাগোতে ২০শতকের শুরুর দিকে।[৩০]

ফ্রাঙ্ক কস্তেল্লো[সম্পাদনা]

যুক্তরাষ্ট্রের গুন্ডা ফ্রাঙ্ক কস্তেল্লো সাক্ষী দিচ্ছেন কেফাউবার কমিটির সামনে, একটি সংগঠিত অপরাধ অনুসন্ধানকালে।

ফ্রাঙ্ক কস্তেল্লো হচ্ছে আরেকজন প্রভাবশালী গুন্ডা। সে দক্ষিণ ইতালিতে জন্মগ্রহণ করে কিন্তু চার বছর বয়সে যুক্তরাষ্ট্রে পাড়ি জমায়। সে তার নাম ফ্রান্সিসকো কাস্তিগ্লিয়া থেকে পরিবর্তন করে ফ্রাঙ্ক কস্তেল্লো রাখে যখন সে একটি গুন্ডাদলে যুক্ত হয় ১৩ বছর বয়সে। তার নাম পরিবর্তনের ফলে কিছু লোক ভুল করে মনে করে যে সে আইরিশ। সে মদের কারবার এবং জুয়া খেলার কাজ চার্লি লুসিয়ানো এর সাথে করেছে। তার অনেক ক্ষমতা ছিল রাজনৈতিক দিক থেকেও যেটি তাকে সক্ষম করেছে তার ব্যাবসা চালিয়ে যেতে। লুসিয়ানো যখন গ্রেফতার হয় তখন সে দায়িত্বগ্রহণ করে এবং গুন্ডাদলের কার্যক্রম সম্প্রসারণ করে। সে সিদ্ধান্ত নেয়ে যে গুন্ডা জীবন থেকে দূরে সরে যাবে এবং শান্তিপূর্ণভাবে ১৯৭৩ সালে মৃত্যুবরণ করে।

কার্লো গাম্বিনো[সম্পাদনা]

কার্লো গাম্বিনো হচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রের আরেকজন প্রভাবশালী গুন্ডা। ১৯৬১ সালে থেকে ১৯৭৬ সালে তার মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত সে ইতালিয়-যুক্তরাষ্ট্রীয় মাফিয়ার চেয়ারম্যান ছিল। গাম্বিনো সিসিলির পালেরমোতে জন্মগ্রহণ করেন, কিন্তু ২১ বছর বয়সে যুক্তরাষ্ট্রে পাড়ি জমায়। যদিও সে কাস্তেল্লোনার আত্নীয়, সে মাসসেরিয়া পরিবারে যুক্ত হয়। যখন লাকি লুসিয়ানো মাসসেরিয়া পরিবারের দ্বিতীয় কর্তাব্যক্তি, গাম্বিনো তার অধীনে কাজ করেন। যখন লুসিয়ানো হত্যা করে মাসসেরিয়াকে তখন লুসিয়ানো দল প্রধান বা বস হয়ে উঠে এবং গাম্বিনোকে স্কালাইজ পরিবারে প্রেরণ করা হয়। পরবর্তিতে স্কালাইজকে তার পদ থেকে ছিনতাই করা হয় এবং ভিকেঞ্জো ম্যানগানো দল প্রধান হয় ১৯৫১ সাল পর্যন্ত, যতক্ষণ না সে নিখোঁজ হয়। তার দেহ কখনো খোঁজে পাওয়া যায়নি।[৩১]

ক্রে যুগল[সম্পাদনা]

ক্রে টুইন্স বা ক্রে যুগল, রেগিনাল্ড এবং রোনাল্ড ক্রে ছিল ১৯৫০ দশক এবং ১৯৬০ দশকের লন্ডনের শীর্ষ অপরাধী। তারা অস্ত্র লুণ্ঠন, অগ্নিসংযোগ, অবৈধ আশ্রয়দান, সহিংস নিপীড়ন যার মধ্যে ছিল জ্যাক “দা হ্যাট” এমভিট্টে এবং জিওরেজ কর্ণেল নির্যাতন এবং হত্যা। পশিম প্রান্তের নৈশক্লাবগুলোর মালিক হিসাবে, তারা বিশিষ্ট বিনোদন জগতের ব্যক্তিদের সাথে মিশে ছিল যার মধ্যে আছে ডায়ানা ড্রস, ফ্রাঙ্ক সিন্তারা, জুডি গার্ল্যান্ড এবং রাজনীতিবিদদের সাথে। ক্রেদের তাদের সামাজিক পরিবেশে ভীষণ ভয় করা হত। ১৯৬০ দশকে তারা তাদের দিক থেকে তারকা হয়ে যায়, আলোকচিত্রক ডেভিড বেইলি এর আলোকচিত্র এবং টেলিভিশনে ইন্টারভিউ এর মাধ্যমে। তাদেরকে ১৯৬৮ সালে গ্রেফতার করা হয় এবং উভয়কে মরণোত্তর কারাদণ্ড দেয়া হয়।[৩২]

ইতালিয়-যুক্তরাষ্টীয় মাস্তান চার্লিস লুসিয়ানো এর মুখের ছবি ১৯৩৬ সালে

লাকি লুসিয়ানো[সম্পাদনা]

লাকি লুসিয়ানো(জন্ম গ্রহণ করে সালভাত্তোরে লুসিয়ানা নামে), একজন সিসিলিয় গুন্ডা, যাকে ধরা হয় আধুনিক সংগঠিত অপরাধের জনক হিসাবে এবং যুদ্ধোত্তর এ বিশাল আন্তর্জাতিক হিরোইন বাণিজ্য বিস্তারের মূল পরিকল্পনাকারী হিসাবে। আধুনিক জেনোভেজ অপরাধ পরিবারের প্রথম সর্বজন স্বীকৃত দলপ্রধান বা বস হিসাবে এবং স্বীকৃতি দেয়া হয় যুক্তরাষ্ট্রের মাফিয়ার শাসক হিসাবে।[৩৩]

জনি টরিও[সম্পাদনা]

জনি টরিও এর মুখের ছবি ১৯৩৬ সালে

১৮৮২ সালে দক্ষিণ ইতালিতে জন্মগ্রহণ করে, টরিও যুক্তরাষ্ট্রে পাড়ি জমায় তার মায়ের সাথে তার বাবার মৃত্যুর পর, যেসময় তার বয়স ছিল তিন বছর। তার ধূর্ততার জন্য তাকে “দা ফক্স” নামে ডাকা হয়, সে চিকাগো আউটফিট গঠনে সহায়তা করে, এবং তাকে স্বীকৃতি দেয়া হয় জাতীয় অপরাধী সংঘ প্রতিষ্ঠার পেছনে অনুপ্রেরক হিসাবে।[৩৪] সে আল কাপোনের উপর বিশাল প্রভাব ফেলে, আল কাপোন তাকে পরামর্শদাতা হিসাবে মনে করেন।[৩৫] বিগ জিম কলোসিমো হত্যার পর টরিও চিকাগো আউটফিটে তার জায়গা নেন। সে গুরুতরভাবে আহত হয় নর্থ সাইড গুন্ডাদল দ্বারা কেনাকাটা থেকে ফেরার সময় যেটি তাকে অন্যান্য সমস্যার সাথে বাধ্য করে অপরাধ কর্মকান্ড থেকে সরে যেতে। সে ১৯৫৭ সালে মৃত্যুবরণ করে এবং সংবাদ মাধ্যমগুলো তা সম্পর্কে জানতে পারে তাকে সমাহিত করার তিন সপ্তাহ পর।[৩৬] যুক্তরাষ্ট্র তহবিল বিভাগের কর্মকর্তা আলমার আইরি টরিওকে বর্ণনা করেন “যুক্তরাষ্ট্রের সবচেয়ে বড় গুন্ডা”, “সকল গুন্ডার চেয়ে বুদ্ধিমান এবং সেরা”।[৩৭] অন্যদিকে চিকাগো অপরাধ কমিশনের ভার্জিল ডব্লিউ পিটারসন তাকে তুলনা করেন “একজন সাংগঠনিক প্রতিভাধর” হিসাবে।[৩৮]

লোক সংস্কৃতিতে[সম্পাদনা]

দীর্ঘকাল ধরে গুন্ডাদল চলচ্চিত্রের বিষয় হয় আসছে। এমনকি প্রথম পূর্ণ দৈর্ঘ্য চলচিত্র “দা স্টোরি অব দা কেলি গ্যাং”(১৯০৬), হচ্ছে একটি অস্ট্রেলীয় প্রযোজনার যেটি নেড কেলি(১৮৫৫-১৮৮০) এর জীবন তুলে ধরে।[৩৯] যুক্তরাষ্ট্র এই ধরণের ছবি ধারা প্রভাবিত, কিন্তু অন্যান্য সংস্কৃতিতেও স্বন্ত্রমূলক এবং মাঝেমধ্যে অসধারণ চলচ্চিত্র নির্মান করেছে।

যুক্তরাষ্ট্র[সম্পাদনা]

পুরনো গুন্ডাদলের চলচ্চিত্র ওয়েস্টার্ন চলচ্চিত্রের সাথে যুক্তরাষ্ট্রের চলচ্চিত্র শিল্পের সবচেয়ে সফলগুলোর মধ্যে একটি। বর্তমান সময়ে এসকল “পুরনোধর্মী” ছবি খুবই কম প্রযোজনা করা হয়, সেসকল চলচ্চিত্র বলত একজন গুন্ডার উপরে উঠার গল্প তার সাহসিকতা এবং উদ্যোগের মাধ্যমে, যতক্ষণ না তার প্রতিষ্ঠান পতন হচ্ছে যখন সে ক্ষমতার শিখরে। যদিও সমাপ্ত করা হয় নৈতিক ফল দিয়ে, এটাকে দূর্ঘটনার ব্যার্থতার চেয়ে বেশি কিছু দেখা হয় না। গুন্ডাকে দেখানো হয় সাধারণত স্পষ্ট যদিও এক সময় সে একাকীত্ব এবং হতাশ থাকে, এবং তার বৈশ্বিক জ্ঞান এবং সামাজিক নীতির অবাধ্যতার একটি শক্ত কামনা আছে, বিশেষ করে কিশোরকালের।[৪০]

রোমানীয় বংশদ্ভোত এডওয়ার্ড জি রবিনসন, যিনি যুক্তরাষ্ট্রের অসংখ্য গুন্ডাদলের চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন।

আমেরিকার গুন্ডাদের বাধা ছবি এবং গল্প মদ্যপান নিষিদ্ধ সময় ১৯২০ শতক থেকে ১৯৩০ শতকে সংগঠিত অপরাধ তৈরিতে সহায়তা করে।[৪১]১৯৩১ এবং ১৯৩২ সাল দেখেছে এর ধরণ যেটি তিনটি ক্লাসিক ওয়ার্নার ব্রস এর “লিটল সিজার” এবং “দা পাবলিক এনেমি” যেটি তৈরি হয় চলচ্চিত্রের তারকা এডওয়ার্ড জি রবিনসন এবং জেমস ক্যাজেনি দ্বারা, এবং হোয়ার্ড হুগোর “স্কারফেইস”(১৯৩২) যেটিতে অভিনয় করেন পল মুনি, যেটি চিত্রিত করে আল কাপোন এর একটি অন্ধকার মনস্তত্ত্বিক বিশ্লেষণ।[৪২]এসকল চলচ্চিত্রের কাহিনী বর্ণনা করে তিন যুবক, ভয়ানক অপরাধীর দ্রুত উতান এবং ততটাই দ্রুত পতনের যেটি এ সকল ছবির ধরণ চিত্রিত করে নৈতিক চাপের কারণে পরিবর্তন এবং প্রকাশের পূর্বে। প্রত্যেক ছবিতে গুন্ডারা একটি ভয়ানক রকমের পতন ঘটে যেটি নকশা করা হয় দর্শককে মনে করিয়ে দিতে যে অপরাধের পরিণতি, দর্শকরা মাঝেমধ্যে সনাক্ত করতে পারে দক্ষ খলনায়ককে। যারা হতাশায় ভুগছে তারা গুন্ডা চরিত্রের সাথে মিলাতে পারে যারা কঠোর পরিশ্রম করে তাদের জায়গা দখল করছে এবং পৃথিবীতে সফল হয়েছে কিন্তু এরপরই তার কাছে থেকে সবকিছু কেড়ে নেয়া হয়েছে। [৪৩]

ল্যাটিন আমেরিকা[সম্পাদনা]

ল্যাটিন আমেরিকায় নির্মিত গুন্ডাদের ছবি তাদের বাস্তবতার জন্য পরিচিত। “সয় আন দেলিনকুয়েন্তে”(বাংলাঃ আমি একজন অপরাধী) হচ্ছে ১৯৭৬ সালের ভেনুজুয়েলার ছবি যেটি পরিচালনা করেছেন ক্লিমেন্তে দে লা ক্রেদা। ছবিটি বর্ণনা করে রামন এন্তনি ব্রিজুয়েলার গল্প যে একজন বাস্তব জীবনের ব্যক্তি, যে তার শৈশব থেকে লেনদেন করে আসছে প্রচন্ড নিপীড়নের সাথে এবং মাদক, পতিতা এবং ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র চুরির কারাকাসের একটি বস্তিতে। ছোট ছোট কাজের মাধ্যমে শুরু করে রামন পা রাখে বিভিন্ন গুরুতর অপরাধ কর্মকান্ড এবং লুণ্ঠনে। সে বড় হয় অদম্য, আত্ন-বিশ্বাসী যুবক হিসাবে যে নিপীড়নে কঠিনীভূত। তার দৃষ্টিভঙ্গি বদলে যায় যখন তার হবু স্ত্রীর ভাই একটি ডাকাতিতে নিহত হয়। ছবিটি ভেনুজুয়েলায় ব্যাপক সফলতা লাভ করে।[৪৪]

“সিটি অব গড”(পর্তুগিজ: Cidade de Deus) হচ্ছে ২০০২ সালের ব্রাজিলিয়ান অপরাধ বিষয়ক নাট্য ছবি যেটি পরিচালনা করেন ফার্নান্দো মারসিলিদ এবং সহ-পরিচালনা করেন কাটিয়া লুন্ড, সেটি নিজ দেশে মুক্তি পায় ২০০২ সালে এবং সারা বিশ্বব্যাপি মুক্তি পায় ২০০৩ সালে। ছবিটির প্রত্যেক চরিত্রই বাস্তব জীবনে ছিল এবং সত্যি ঘটনার উপর চলচ্চিত্রটি নির্মিত। এটি বর্ণনা করে রিও দি জেনেরিও এর শহরতলী সিয়াদে দে দিয়োস এর সংগঠিত অপরাধ বৃদ্ধির, ৬০ দশকের শেষ এবং ৮০ দশকের শুরুর দিকে, ছবিটি একটি কাছের দৃষ্টি দেয় মাদক ব্যাবসায়ি লিল জে এবং অপরাধী নকআউট নেড এর মধ্যে যুদ্ধের।[৪৫]ছবিটি চারটি একাডেমি পুরস্কার এ মনোনীত হয় ২০০৪ সালে।[৪৬]

পূর্ব এশিয়া[সম্পাদনা]

জাপামে প্রথম ইয়াকুজা(গুন্ডাদল) এর ছবি তৈরি হয় বাকুতো(জুয়াড়ি) নামে ১৯৬৪ সালে। এই ধরণটি শিঘ্রই জনপ্রিয় হয়ে উঠে এবং ১৯৭০ দশকের মধ্যে জাপানের চলচ্চিত্র শিল্প প্রত্যেক বছর স্বল্প বাজেটের একশোর বেশি ইয়াকুজা চলচ্চিত্র নির্মান করে। ছবিগুলো সামুরাই ছবির বংশধর বলা যায় যেটি হলিউডের গুন্ডাদলের চলচ্চিত্রের চেয়ে ওয়েস্টার্নধর্মী চলচ্চিত্রের কাছাকাছি। ছবির নায়ক সাধারণত তার নিপীড়নের সমবেদনা বা গুন্ডাদলের প্রতি তার কর্তব্য এর মধ্যে বিচ্ছিন্ন হয়। গল্প সাধারণত উচ্চপর্যায়ে শৈলীকৃত করা হয়, শুরুটা হয় নায়ক জেল থেকে মুক্তি পায় এবং সমাপ্তি হয় একটি তলোয়ার দ্বারা লড়াইয়ের মাধ্যমে যেখানে সে একটি সম্মানজনক মৃত্যু লাভ করে।[৪৭]

যদিও কিছু হং কং গুন্ডা দলের ছবি তৈরি হয় কেবল গাড়ি দ্বারা ভয়ানক একশনের মধ্যে, প্রধান সারির চলচ্চিত্র ধরণ তৈরি হয় ট্রায়াড সংঘের উপর যেটি বর্ণনা করে আপতদৃষ্টিতে ফলপ্রসু প্রতিষ্ঠানের।[৪৮] ছবির গুন্ডা প্রয়োগ করে তাওবাদী নীতি যেটি তার ব্যবহারকে সমান এবং সম্মানিত রাখে। এসকল গল্প মাঝেমধ্যে হলিউড গুন্ডার ছবির গল্পের মতন, মাঝেমধ্যে সমাপ্ত হয় চলচ্চিত্রের বিষয়ের সমাপ্তি হয় অন্য গুন্ডার হাতে, কিন্তু এধরণের পতন কম গুরুত্বপূর্ণ সম্মানের থেকে পতনের চেয়ে।[৪৮] প্রথম যে ছবি নির্মিত হয় গুন্ডার উপর “এজ টিয়ারস গো বাই” পরিচালক ছিলেন ওং কার-ওয়াই। এখানে নায়ক নিজেকে আবিষ্কার করে দ্বিমুখীতার মধ্যে একজন নারীর বাসনা এবং তার সহকর্মী গুন্ডাদের প্রতি অনুগত থাকা নিয়ে। [৪৯] ইনফার্নাল এফেয়ার্স(২০০২) হচ্ছে একটি থ্রিলার যাতে একজন পুলিশ কর্মকর্তা একটি ট্রায়াড এর মধ্যে প্রবেশ করে এবং একজন ট্রায়াড সদস্য পুলিশ বিভাগের মধ্যে ঢুকে। ছবিটি পুনরায় নির্মান করেন মার্টিন স্করসি “দা ডিপার্টেড” নামে।[৫০]

গুন্ডাদের নিয়ে নির্মিত ছবি সবচেয়ে বেশি লাভজনক দক্ষিণ কোরিয়ার চলচ্চিত্র শিল্পে। ১৯৬০ দশকে যেসকল চলচ্চিত্র নির্মিত হয় তা প্রধানত জাপানের ইয়াকুজা থেকে অনুপ্রাণিত যেখানে দলের সদস্যদের সাথে দ্বন্দ্ব এবং বাইরের গুন্ডাদলের সাথে দ্বন্দ্ব তুলে ধরা হয়। গুন্ডাদের আচরণ এবং অনুগত থাকা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। ১৯৭০ দশকে নির্মিত হওয়া গুন্ডাদের নিয়ে অনেক ছবি সেন্সর এ আটকে দেয়া হয় এবং ১৯৮০ দশকে গুণ্ডাদের নিয়ে কোন চলচ্চিত্র নির্মান করা হয়নি।[৫১] ১৯৮০ দশকের শেষে এবং ১৯৯০ দশকের শুরুতে হং কং এর একশন ছবির আমদানি করার স্রোত ছিল। নতুন স্রোতের প্রথম গুন্ডাদের নিয়ে চলচ্চিত্র ছিল ইম কন-তায়েক এর জেনারেল’স সন(১৯৯০)। যদিও এই ছবি পূর্বের প্রথা ধরে রেখেছে, একে অনুসরণ করে কয়েকটি সিরিজ নির্মিত হয়েছিল এসকল গুন্ডাদের নিয়ে, যেমন এ বিটারসুইট লাইফ (২০০৫)।[৫২]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Taylor 2009
  2. Kontos, Brotherton এবং Barrios 2003, পৃ. xiff।
  3. Kontos, Brotherton এবং Barrios 2003, পৃ. 42।
  4. Abadinsky 2009, পৃ. 1।
  5. Lyman ও Potter 2010, পৃ. 213ff।
  6. Sardell 2009
  7. Shalamov 1998
  8. The Rise and rise...
  9. Schwirtz 2008
  10. Glenny 2008, পৃ. 75।
  11. Stojarová 2007
  12. UltraGangsteret Shqiptar
  13. Abadinsky 2009, পৃ. 154-155।
  14. Ter Haar 2000, পৃ. 18।
  15. Ter Haar 2000, পৃ. 19।
  16. Mallory 2007, পৃ. 136ff।
  17. Corkill 2011
  18. Kaplan ও Dubro 2003, পৃ. 18-21।
  19. English 2006, পৃ. 13।
  20. Iorizzo 2003, পৃ. 14।
  21. Fried 1980, পৃ. 27।
  22. Tongs and Street Gangs
  23. Iorizzo 2003, পৃ. 15ff।
  24. Field Listing...
  25. Colombia - Transnational...
  26. Gugliotta ও Leen 2011, পৃ. 1ff।
  27. Cook 2007, পৃ. 7।
  28. Jacobson 2005, পৃ. 40ff।
  29. High U.S. cocaine cost
  30. Iorizzo 2003, পৃ. 23ff।
  31. Block 2004, পৃ. 85ff।
  32. Borrell ও Cashinella 1975, পৃ. 52ff।
  33. Newark 2010, পৃ. xi et seq।
  34. Howard Abadinsky, Organized Crime, Cengage Learning, 2009, p.115
  35. John Cobler, Capone: The Life and Times of Al Capone, Da Capo Press, 2003, p.26
  36. Jay Robert Nash, The Great Pictorial History of World Crime, Volume 1, Rowman & Littlefield, 2004, p.503
  37. Robert G. Folsom, The Money Trail, Potomac Books, 2010, p.231
  38. Virgil W. Peterson, The mob: 200 years of organized crime in New York, Green Hill Publishers, 1983, p.156
  39. Beeton 2005, পৃ. 62।
  40. Talbot 1975, পৃ. 148-149।
  41. McCarty 2004, পৃ. 5।
  42. Hark 2007, পৃ. 12।
  43. Hark 2007, পৃ. 13।
  44. Soy un Delincuente
  45. Ebert 2003
  46. City of God
  47. Kaplan ও Dubro 2003, পৃ. 141-142।
  48. Nochimson 2007, পৃ. 70।
  49. Nochimson 2011, পৃ. 306।
  50. Reiber 2011, পৃ. 31।
  51. Choi 2010, পৃ. 60।
  52. Choi 2010, পৃ. 61।