বাহামা দ্বীপপুঞ্জ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Jump to navigation Jump to search

স্থানাঙ্ক: ২৩°৫৫′০.০১″ উত্তর ৭৭°৪০′০.০১″ পশ্চিম / ২৩.৯১৬৬৬৯৪° উত্তর ৭৭.৬৬৬৬৬৯৪° পশ্চিম / 23.9166694; -77.6666694

বাহামা দ্বীপপুঞ্জের কমনওয়েলথ
বাহামা দ্বীপপুঞ্জ
পতাকা জাতীয় মর্যাদাবাহী নকশা
নীতিবাক্য"Forward, Upward, Onward Together"
জাতীয় সঙ্গীত: "March On, Bahamaland"
রাজকীয় সঙ্গীত"ঈশ্বর রানীকে রহ্মা কর"
রাজধানীনাসাউ
২৫°৪′ উত্তর ৭৭°২০′ পশ্চিম / ২৫.০৬৭° উত্তর ৭৭.৩৩৩° পশ্চিম / 25.067; -77.333
রাষ্ট্রীয় ভাষাসমূহ ইংরেজি
সরকার সংসদীয় গণতন্ত্র এবং সাংবিধানিক রাজতন্ত্র[১][২]
 •  রাজা রানী এলিজাবেথ II
 •  গভর্নর জেনারেল আর্থার দিওন হান্না
 •  প্রধানমন্ত্রী হিউবার্ট ইনগ্রাহাম
স্বাধীন যুক্তরাজ্য থেকে
 •  Self-governing ১৯৬৪ 
 •  পূর্ণ স্বাধীন ১০ জুলাই, ১৯৭৩[৩] 
 •  মোট  কিমি (১৬০তম)
 বর্গ মাইল
 •  পানি (%) ২৮%
জনসংখ্যা
 •  ২০০৯ আনুমানিক ৩০৭,৪৫১[৪] (১৭৭তম)
 •  ১৯৯০ আদমশুমারি ২৫৪,৬৮৫
 •  ঘনত্ব ২৩.২৭/কিমি (১৮১তম)
/বর্গ মাইল
মোট দেশজ উৎপাদন
(ক্রয়ক্ষমতা সমতা)
2017 আনুমানিক
 •  মোট $9.374 billion[৫]
 •  মাথা পিছু $25,173[৫]
মোট দেশজ উৎপাদন (নামমাত্র) 2017 আনুমানিক
 •  মোট $9.172 billion[৫]
 •  মাথা পিছু $24,630[৫]
জিনি সহগ (2001)57[৬]
উচ্চ
মানব উন্নয়ন সূচক (2014)বৃদ্ধি 0.790[৭]
উচ্চ · 55th
মুদ্রা ডলার (BSD)
সময় অঞ্চল EST (ইউটিসি-৫)
 •  গ্রীষ্মকালীন (ডিএসটি) EDT (ইউটিসি-৪)
কলিং কোড ১-২৪২
ইন্টারনেট টিএলডি .bs

বাহামা দ্বীপপুঞ্জ(দাপ্তরিকভাবে বাহামাস কমনওয়েলথ,[৮]) (ইংরেজি: The Bahamas) মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডা অঙ্গরাজ্যের দক্ষিণ-পূর্বে, কিউবাহিস্পানিওলা দ্বীপের উত্তরে অবস্থিত প্রায় ৭০০টি দ্বীপ ও হাজার খানেক "কি" (cay, এক ধরনের ক্ষুদ্র বালুময় দ্বীপ) নিয়ে গঠিত একটি শৃঙ্খলাকার দ্বীপপুঞ্জ। কমনওয়েল্‌থ অভ বাহামাস নামে সরকারীভাবে পরিচিত দেশটি কমনওয়েল্‌থ অভ নেশন্‌সের একটি স্বাধীন সদস্য। বাহামা দ্বীপপুঞ্জের অবস্থান, জলবায়ু ও ভূগোল এটিকে পর্যটকদের একটি জনপ্রিয় গন্তব্যস্থলে পরিণত করেছে। উষ্ণ উপসাগরীয় স্রোতের কাছে অবস্থিত হওয়ায় সারা বছরই এখানকার জলবায়ু খুব মৃদু । এখানে নীল সমুদ্রের পাশে অনেক সুন্দর সুন্দর সমুদ্রসৈকত অবস্থিত। যুক্তরাষ্ট্র ও আরও দূরের দেশ থেকে প্রতি বছর হাজার হাজার লোক এখানে বেড়াতে আসেন। দেশটির রাজধানী নাসাউ

ক্রিস্টোফার কলম্বাস ১৪৯২ সালে যখন আমেরিকাতে আসেন, তখন প্রথম যে স্থানটিতে তিনি অবতরণ করেছিলেন, তা ছিল বাহামা দ্বীপপুঞ্জের একটি দ্বীপ। কলম্বাস দ্বীপটিকে স্পেনের সম্পত্তি বলে দাবী করেন এবং এর নাম দেন সান সালবাদোর। ১৭১৭ সালে এটিকে ব্রিটিশ উপনিবেশ করা হয়। বহু শতাব্দী ধরে রাজধানী নাসাউয়ের ব্যবসায়ী সম্প্রদায় দেশটির অভ্যন্তরীণ রাজনীতি নিয়ন্ত্রণ করত। ১৯৫৯ সালে সম্পত্তির উপর ভিত্তি করে পুরুষদের ভোটের আধিকার দেওয়া হয়। ১৯৬২ সালে মহিলাদেরও ভোটের অধিকার দেওয়া হয়। প্রোগ্রেসিভ লিবারেল পার্টির লিন্ডেন অস্কার পিন্ডলিং প্রথম সাধারণ নির্বাচনে জয়লাভ করেন। উপনিবেশটি ১৯৬৪ সালে অভ্যন্তরীণ ব্যাপারে স্বায়ত্তশাসন এবং ১৯৭৩ সালের ১০ই জুলাই পূর্ণ স্বাধীনতা লাভ করে। ১৯৮০-র দশকে পিন্ডলিং ও তার দল দুর্নীতি ও মাদক চোরাচালান কেলেংকারিতে জড়িয়ে পড়েন। অর্থনীতির দুরবস্থা কাটিয়ে উঠতে পিন্ডলিং দেশটিকে বৈদেশিক ঋণের বোঝায় জর্জরিত করে দেন। এর ফলে ১৯৯২ সালের সাধারণ নির্বাচনে তিনি রক্ষণশীল ফ্রি ন্যাশনাল মুভমেন্টের হুবার্ট ইনগ্রাহামের কাছে পরাজিত হন। ইনগ্রাহাম বর্তমানে দেশটির প্রধানমন্ত্রী।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

রাজনীতি[সম্পাদনা]

১৯৬৪ সালে ব্রিটেনের কাছ থেকে স্বায়ত্তশাসন লাভ করার পর শ্বেতাঙ্গ ও কৃষাঙ্গ রাজনৈতিক দলের মধ্যে রেষারেষি ছিল। ১৯৬৭ সালে কৃষ্ণাঙ্গ প্রোগ্রেসিভ লিবারেল পার্টি সাধারণ নির্বাচনে জয়লাভ করে। এর নেতা ছিলেন লিন্ডেন পিন্ডলিং। ১৯৭৩ সালে দেশটি স্বাধীনতা লাভ করে। স্বাধীনতার পর পিন্ডলিং ১৯৭০ ও ১৯৮০-র দশক ধরে ক্ষমতা ধরে রাখেন। কিন্তু তাঁর জনপ্রিয়তা ধীরে ধীরে হ্রাস পায় এবং ১৯৯২ সালের নির্বাচনে ফ্রি ন্যাশনাল মুভমেন্ট জয়লাভ করলে হুবার্ট ইংগ্রাহাম প্রধানমন্ত্রী হন। ১৯৯৭ সালে ইঙ্গগ্রাহাম ও তার দল পুনর্নির্বাচিত হন। কিন্তু ২০০২ সালে প্রোগ্রেসিভ লিবারেল পার্টি আবার ক্ষমতায় আসে। এবার পেরি ক্রিস্টি নতুন প্রধানমন্ত্রী হন।

প্রশাসনিক অঞ্চলসমূহ[সম্পাদনা]

ভূগোল[সম্পাদনা]

বালের দেশ

জনসংখ্যা[সম্পাদনা]

সংস্কৃতি[সম্পাদনা]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "•GENERAL SITUATION AND TRENDS"Pan American Health Organization 
  2. "Mission to Long Island in the Bahamas"Evangelical Association of the Caribbean 
  3. "1973: Bahamas' sun sets on British Empire"। BBC News। ৯ জুলাই ১৯৭৩। সংগ্রহের তারিখ ১ মে ২০০৯ 
  4. Population estimates for the Bahamas take into account the effects of excess mortality due to AIDS; this can result in lower life expectancy, higher infant mortality and death rates, lower population growth rates, and changes in the distribution of population by age and sex than would otherwise be expected.
  5. "The Bahamas"। International Monetary Fund। 
  6. "Bahamas Living Conditions Survey 2001" (PDF)। Department of Statistics। সংগ্রহের তারিখ ৪ অক্টোবর ২০১৩ 
  7. "2015 Human Development Report Summary" (PDF)। United Nations Development Programme। ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ১৪ ডিসেম্বর ২০১৫ 
  8. Official government website। "The Constitution"। সংগ্রহের তারিখ ২৯ মে ২০১৭ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]