গোজেক

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পেতে অ্যাপ্লিক্যাসি কারিয়া আনাক বাংসা
ব্যক্তিগত সীমাবদ্ধ সংস্থা
শিল্প
প্রতিষ্ঠাকাল১৩ অক্টোবর ২০০৯ (2009-10-13)
প্রতিষ্ঠাতা
সদরদপ্তরজাকার্তা, ইন্দোনেশিয়া
বাণিজ্য অঞ্চল
  • ইন্দোনেশিয়া
  • ভিয়েতনাম
  • থাইল্যান্ড
  • সিঙ্গাপুর
  • ফিলিপাইন
  • ভারত[১]
  • মালয়েশিয়া[২]
প্রধান ব্যক্তি
কর্মীসংখ্যা
৩,০০০ (২০১৯)
ওয়েবসাইটgojek.com

পেতে অ্যাপ্লিক্যাসি কারিয়া আনাক বাংসা, [ক] যা গোজেক নামে ব্যবসা পরিচালনা করছে (অক্ষরশৈলি হিসেবে এভাবে লেখা হয় gojek, পূর্বের অক্ষরশৈলিতে GO-JEK নামে পরিচিত), একটি ইন্দোনেশীয় চাহিদা সাপেক্ষে বহু-সেবা প্ল্যাটফর্ম এবং ডিজিটাল পেমেন্ট প্রযুক্তি সংঘ যা জাকার্তায় অবস্থিত। গোজেক ২০০৯ সালে প্রথম প্রতিষ্ঠিত হয় একটি কল সেন্টার রূপে যারা পরিষেবা গ্রাহকদের সাথে কুরিয়ার সেবা প্রদানকারীদের সাথে এবং দুই চাকার রাইড প্রদানকারীদের সাথে সংযোগ স্থাপন করার কাজ করত। গোজেক কেবলমাত্র চারটি পরিষেবা নিয়ে ২০১৫ সালে এর অনলাইন অ্যাপ্লিকেশন চালু করে। যেগুলো হলো GoRide (গোরাইড), GoSend (গোসেন্ড), GoShop(গোশপ) এবং GoFood(গোফুড)। আজ ১০০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার মূল্যের গোজেক ২০ টিরও বেশি পরিষেবা সরবরাহ করে একটি সুপার অ্যাপে রূপান্তরিত হয়েছে।

গোজেক ইন্দোনেশিয়া, ভিয়েতনাম, সিঙ্গাপুর, থাইল্যান্ড এবং ফিলিপাইনে (Coins.ph অধিগ্রহণের মাধ্যমে) পরিচালনা করে। [৩] [৪] [৫] [৬] [৭] গোজেক হ'ল প্রথম ইন্দোনেশিয়ান ইউনিকর্ন সংস্থা, [৮] পাশাপাশি দেশের প্রথম "ডেকর্ন" সংস্থা। [৯] এটি দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার একমাত্র সংস্থা যা ফরচুনের ৫০ টি সংস্থার অন্তর্ভুক্ত রয়েছে যা ২০১৭ and এবং ২০১৯ সালে বিশ্ব পরিবর্তন করেছে, র‌্যাংকিংয়ে যা যথাক্রমে ১৭তম এবং ১১তম এর স্থানে ছিলো। [১০] [১১] ২০২০ সালের জুন পর্যন্ত, দক্ষিণ পূর্ব এশিয়া জুড়ে এই অ্যাপটির প্রায় ১৭০ মিলিয়ন ব্যবহারকারী রয়েছে। [১২]

গোজেক আস্ট্রা ইন্টারন্যাশনাল, ব্লিবলি ডটকম, গুগল, ফেসবুক, পেপাল, মিতসুবিশি, সিকোইয়া, নর্থস্টার গ্রুপ, সিঙ্গাপুরের সার্বভৌম সম্পদ তহবিল টেমাসেক হোল্ডিংস, কেকেআর, ওয়ারবার্গ পিনকস, ভিসা, প্যারালন, সিয়াম কমার্শিয়াল ব্যাংক, চীনা ইন্টারনেট জায়ান্ট টেনসেন্ট, জেডি ডটকম, মেইটুয়ান.কম, ক্যাপিটাল গ্রুপ সহ অন্যান্য বিনিয়োগকারীদের আর্থিক সাহায্য এবং সমর্থন অর্জন করেছে। [১৩]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. lit. Application Made by the Youth of the Nation (Limited Corporation); formerly PT GO-JEK Indonesia
  1. https://m.detik.com/inet/business/d-3347971/go-jek-buka-kantor-di-india-karya-anak-bangsa-atau-bangalore[স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  2. https://www.moneysmart.id/gojek-resmi-mengaspal-di-malaysia/
  3. "Indonesia's Go-Jek enters Singapore market, challenges Grab"The Jakarta Post। সংগ্রহের তারিখ ২৯ নভেম্বর ২০১৮ 
  4. "Go-Jek kicks off maiden operation in Vietnam"The Jakarta Post। সংগ্রহের তারিখ ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৮ 
  5. "Ride-hailing firm Go-Jek to enter Singapore, other Southeast Asian markets in next few months"Channel NewsAsia (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৫-২৫ 
  6. "Gojek launches ride-hailing app for eastern part of Singapore"The Straits Times। সংগ্রহের তারিখ ২৯ নভেম্বর ২০১৮ 
  7. "Go-Jek buys fintech startup Coins.ph for $72M ahead of Philippines expansion"TechCrunch (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৮-২৭ 
  8. Saiidi, Uptin (২০১৭-০৪-২৪)। "A ride on Indonesia's first and only 'unicorn'"CNBC। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৫-২৫ 
  9. "Go-Jek becomes Indonesia's first decacorn"The Jakarta Post। সংগ্রহের তারিখ ৫ এপ্রিল ২০১৯ 
  10. "Gojek once again in Fortune's top-20 list of companies changing the world"। সংগ্রহের তারিখ ২৭ আগস্ট ২০১৯ 
  11. "How These 50 Innovative Companies Are Changing the World for Good"Fortune 
  12. "Facebook, PayPal Invest in Gojek"Jakarta Globe। সংগ্রহের তারিখ ৪ জুন ২০২০ 
  13. Williams, Ann। "Go-Jek says will enter Singapore, Vietnam, Thailand, Philippines in next few months"The Business Times (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৫-২৫ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]