গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ
গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের লোগো.png
প্রচলিত নামপুলিশ
সংক্ষেপজিএমপি
সংস্থা পরিদর্শন
প্রতিষ্ঠাকাল১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৮
অঞ্চল কাঠামো
পরিচালনার অঞ্চলগাজীপুর,  বাংলাদেশ
আয়তন৪৯.৩২ বর্গকিমি (১৯.০৪ বর্গমাইল)
সাধারণ প্রকৃতি
পরিচালনামূলক কাঠামো
প্রধান কার্যালয়গাজীপুর
সংস্থার কার্যনির্বাহক
মাতৃ-সংস্থাবাংলাদেশ পুলিশ
থানা
তালিকা
  • সদর থানা
  • বাসন থানা
  • কোনাবাড়ী থানা
  • কাশিমপুর থানা
  • গাছা থানা
  • পূবাইল থানা
  • টঙ্গী পূর্ব থানা
  • টঙ্গী পশ্চিম থানা
সুবিধা-সুযোগ
কর্মকেন্দ্র০৮
ওয়েবসাইট
gmp.gov.bd

গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ (জিএমপি) হল বাংলাদেশ পুলিশের একটি বিভাগ, যারা গাজীপুর মহানগরীতে আইন প্রয়োগকারী সংস্থার দায়িত্ব পালন করে থাকে। ২০১৮ সালের ১৬ সেপ্টেম্বর আনুষ্ঠানিক ভাবে এর যাত্রা শুরু হয়।[১]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন ২০১৩ সালের ১৬ জানুয়ারি প্রতিষ্ঠিত হয়। বাংলাদেশের সিটি কর্পোরেশনগুলোর মধ্যে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন প্রতিষ্ঠাকালের দিক থেকে কনিষ্ঠতম এবং আয়তনের দিক থেকে সবচেয়ে বড় সিটি কর্পোরেশন। শহরের জননিরাপত্তা ও আইন প্রয়োগকারী সংস্থা হিসেবে জিএমপি প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়। গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ আইন-২০১৭ পাশ করার পর ২০১৮ সালের ১৬ সেপ্টেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের কার্যক্রমের সূচনা ঘোষণা করেন।

থানা[সম্পাদনা]

নবগঠিত ৮টি থানা গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ কার্যক্রম শুরু করে।[২]

থানাগুলো হলো:

সদর থানা[সম্পাদনা]

পুর্বে এর নাম ছিলো জয়দেবপুর থানা। এর অধিভুক্ত শহরের ওয়ার্ডগুলো হলো: ১৯, ২০, ২১, ২২, ২৩, ২৪, ২৫, ২৬, ২৭, ২৮, ২৯, ৩০ ও ৩১নং ওয়ার্ড।[২]

বাসন থানা[সম্পাদনা]

এর অধিভুক্ত ওয়ার্ড হলো: ১৩, ১৪, ১৫, ১৬, ১৭, ১৮নং ওয়ার্ড।[২]

কোনাবাড়ী থানা[সম্পাদনা]

এর অধিভুক্ত ওয়ার্ডগুলো হলো: ৭, ৮, ৯, ১০, ১১ ও ১২নং ওয়ার্ড।[২]

কাশিমপুর থানা[সম্পাদনা]

এর অধিভুক্ত ওয়ার্ডগুলো হলো: ১, ২, ৩, ৪, ৫ ও ৬নং ওয়ার্ড।[২]

গাছা থানা[সম্পাদনা]

এর অধিভুক্ত ওয়ার্ডগুলো হলো: ৩২, ৩৩, ৩৪, ৩৫,৩৬, ৩৭ ও ৩৮নং ওয়ার্ড।[২]

পূবাইল থানা[সম্পাদনা]

এর অধিভুক্ত ওয়ার্ডগুলো হলো: ৩৯, ৪০, ৪১ ও ৪২ নং ওয়ার্ড।[২]

টঙ্গী পূর্ব থানা[সম্পাদনা]

এর অধিভুক্ত ওয়ার্ডগুলো হলো: ৪৩, ৪৪, ৪৫, ৪৬, ৪৭ নং ওয়ার্ড (শালিক চূড়া পূর্ণ ও গাজীপুরা পূর্ণ), ৪৮, ৪৯, ৫০ (আংশিক), ৫৫ (আংশিক), ৫৬, ও ৫৭নং (আংশিক) ওয়ার্ড।[২]

টঙ্গী পশ্চিম থানা[সম্পাদনা]

ওয়ার্ড ৫০ (আংশিক), ৫১, ৫২, ৫৩, ৫৪, ৫৫ (আংশিক) ও ৫৭ নম্বর (আংশিক) ওয়ার্ড।[২]

জনবল[সম্পাদনা]

গাজীপুর মহানগর পুলিশে একজন কমিশনার, একজন অতিরিক্ত কমিশনার, দুইজন উপকমিশনার, ছয় জন অতিরিক্ত উপ-কমিশনার, বারো জন সহকারী কমিশনার, ২০ জন ইস্পেক্টর, ১২০ জন এসআই ও ৭৫০ জন কনস্টেবলসহ ১১৫২টি পদ সৃষ্টি করা হয়। আরএমপির নিজস্ব ৪৭ টি যানবাহন দিয়ে গোটা এলাকায় তাদের কর্মকাণ্ড চলবে। পর্যায়ক্রমে এই সংখ্যা ১১৮ এ নেওয়া হবে।[৩]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]