খাজা আহমদ ইয়াসাভীর দরগা

স্থানাঙ্ক: ৪৩°১৭′৩৫″ উত্তর ৬৮°১৬′২৮″ পূর্ব / ৪৩.২৯৩০৬° উত্তর ৬৮.২৭৪৪৪° পূর্ব / 43.29306; 68.27444
উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
খাজা আহমদ ইয়াসাভীর দরগা
Туркестан.jpg
খাজা আহমদ ইয়াসাভীর দরগার দৃশ্য, তুর্কেস্তান, কাজাখস্তান
খাজা আহমদ ইয়াসাভীর দরগা কাজাখস্তান-এ অবস্থিত
খাজা আহমদ ইয়াসাভীর দরগা
কাজাখস্তানে অবস্থান
সাধারণ তথ্য
ধরনদরগা
স্থাপত্য রীতিতিমুর
অবস্থানতুর্কিস্তান, কাজাখস্তান
স্থানাঙ্ক৪৩°১৭′৩৫″ উত্তর ৬৮°১৬′২৮″ পূর্ব / ৪৩.২৯৩০৬° উত্তর ৬৮.২৭৪৪৪° পূর্ব / 43.29306; 68.27444
নির্মাণ শুরু হয়েছে১৪শ শতাব্দী
প্রাতিষ্ঠানিক নামখাজা আহমদ ইয়াসাভীর দরগা
ধরনসাংস্কৃতিক
মানকi, iii, iv
অন্তর্ভুক্তির তারিখ২০০৩ (২৭ তম সেশন)
রেফারেন্স নং1103
রাজ্য পার্টিকাজাখস্তান
অঞ্চলএশিয়া-প্রশান্ত

খাজা আহমদ ইয়াসাভী'র সমাধি (কাজাখ: Қожа Ахмет Яссауи кесенесі, Qoja Axmet Yassawï kesenesi) দক্ষিণ কাজাখস্তানের তুর্কেস্তান শহরে অবস্থিত একটি অসম্পূর্ণ সমাধি। ১৩৮৯ সালে তৈমুর স্থাপনাটির নকশা অনুমোদন করেন। তৈমুর লং সে সময়ে তৈমুরি সাম্রাজ্যের অংশ হিসেবে এই অঞ্চল শাসন করতেন। তিনি ১২ শতকে নির্মিত বিখ্যাত তুর্কি কবি এবং সুফি সাধক খাজা আহমদ ইয়াসাভীর (১০৯৩-১১৬৬) ছোট সমাধি পরিবর্তন করে এটা নির্মাণ করতে বলেন।[১] তবে ১৪০৫ সালে তৈমুরের মৃত্যুর সাথে সাথে নির্মাণ কাজ স্থগিত হয়ে যায়।

অসম্পূর্ণ অবস্থা সত্ত্বেও, দরগাটি সমস্ত তৈমুরিদ নির্মাণ মধ্যে অন্যতম সেরা সংরক্ষণ হিসাবে টিকে আছে। এর সৃষ্টি তৈমুরিদ স্থাপত্য শৈলীর সূচনা করে।[২] ভল্ট ও গম্বুজ নির্মাণের জন্য উদ্ভাবনী স্থাপত্য সমাধান, এবং চকচকে টাইলস ব্যবহার করে অলঙ্করণগুলি কাঠামোটিকে এই স্বতন্ত্র শিল্পের প্রোটোটাইপ বানিয়েছে, যা সাম্রাজ্য এবং এর বাইরেও ছড়িয়ে পড়েছিল।[৩]

এই ধর্মীয় কাঠামো মধ্য এশিয়া জুড়ে ভ্রমণকারীদের আকৃষ্ট করে চলেছে এবং কাজাখের জাতীয় পরিচয় তুলে ধরেছে।[৪][৫]এটি একটি জাতীয় স্মৃতিসৌধ হিসেবে সুরক্ষিত রয়েছে, যখন ইউনেস্কো এটিকে দেশের প্রথম উত্তরাধিকার স্থান হিসেবে স্বীকৃতি দেয় এবং ২০০৩ সালে এটিকে বিশ্ব ঐতিহ্য হিসেবে ঘোষণা করে।[৬]

শহরের প্রতিরক্ষামূলক দেয়ালের মধ্যে মাজারের অবস্থান।

অবস্থান[সম্পাদনা]

খাজা আহমেদ ইয়াসাবির সমাধিসৌধ টি আজকের দিনের তুর্কেস্তানের উত্তর পূর্বে অবস্থিত আগে যা হযরতে তুর্কেস্তান নামে পরিচিত ছিলো,[৩][৪] একটি বিখ্যাত ক্যারাভ্যান ব্যবসা কেন্দ্র পূর্বে খাজরেত পরে ইয়াসি নামে পরিচিত ছিলো[৭], কাজাখস্তানের দক্ষিণে অবস্থিত। স্থাপনাটি একটি ঐতিহাসিক দুর্গের মধ্যে অবস্থিত যা বর্তমানে একটি প্রত্নতাত্ত্বিক স্থান।[৮]

অসম্পূর্ণ হওয়া সত্ত্বেও এটা টিকে থাকা সেরা তৈমুরি স্থাপনা। এটা তৈমুরি স্থাপত্য শৈলীর সূচনা করে। পরীক্ষামূলক স্থানিক ব্যবস্থা, খিলান এবং গম্বুজের জন্য উদ্ভাবনী স্থাপত্য সমাধান, গ্লেজড টাইলস ব্যবহার করে অলংকরণ এই কাঠামোকে অনন্য করে তোলে যা সাম্রাজ্যের ভেতরে বাইরে ছড়িয়ে পড়ে।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

সমাধির পিছনের দৃশ্য যেখানে বান্না'ই কৌশল - চকচকে ইটের কাজের নিদর্শন - সবচেয়ে ভালোভাবে লক্ষ্য করা যায়।

খাজা আহমদ ইয়াসাভীর দরগা আধুনিক শহরের তুর্কিস্তান (পূর্বে হজরত-ই তুর্কিস্তান নামে পরিচিত) এর উত্তর-পূর্ব অংশে অবস্থিত,[৩][৪]কাফেলা বাণিজ্যের একটি প্রাচীন কেন্দ্র যা আগে খাজরেট নামে পরিচিত এবং পরে ইয়াসি হিসাবে,[৯] কাজাখস্তানের দক্ষিণ অংশে। কাঠামোটি একটি ঐতিহাসিক দুর্গের আশেপাশে, যা এখন একটি প্রত্নতাত্ত্বিক স্থান।

খাজা আহমদ ইয়াসাভী[সম্পাদনা]

খোজা আহমদ ইয়াসাভী (খাজা বা খাজা (ফার্সি: خواجه উচ্চারণ খাজে) "মাস্টার" এর সাথে মিলে যায়, যেখানে আরবিতে: خواجة khawājah), খাজাহ আখমেত ইয়াসাবি নামেও বানান করা হয়, তিনি ১২ শতকের সুফিবাদের একটি আঞ্চলিক বিদ্যালয়ের প্রধান ছিলেন, একটি রহস্যবাদী আন্দোলন। ইসলামে যা শুরু হয়েছিল ৯ম শতাব্দীতে। তিনি ১০৯৩ সালে ইস্পিদজাব (আধুনিক সাইরাম) এ জন্মগ্রহণ করেন এবং তার জীবনের বেশিরভাগ সময় ইয়াসিতে কাটিয়েছিলেন, সেখানে ১১৬৬ সালে মৃত্যুবরণ করেন। সুফিবাদকে জনপ্রিয় করার জন্য মধ্য এশিয়া এবং তুর্কি-ভাষী বিশ্বে তিনি ব্যাপকভাবে সম্মানিত,[১০] যা মঙ্গোল আক্রমণের সমসাময়িক আক্রমণ সত্ত্বেও এলাকায় ইসলামের বিস্তারকে টিকিয়ে রেখেছিল। তিনি যে ধর্মতাত্ত্বিক বিদ্যালয়টি তৈরি করেছিলেন তা ইয়াসিকে এলাকার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ মধ্যযুগীয় আলোকিত কেন্দ্রে পরিণত করেছিল।[১১]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Ro'i, Yaacov (২০০০)। Islam in the Soviet Union: From the Second World War to Perestroika। New York: Columbia University Press। পৃষ্ঠা 373। আইএসবিএন 0-231-11954-2 
  2. উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; brittanica2 নামের সূত্রটির জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  3. "ICOMOS Evaluation of Mausoleum of Khawaja Ahmed Yasawi World Heritage Nomination" (PDF)। World Heritage Centre। সংগ্রহের তারিখ ২০০৯-০৯-১৪  উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "whs" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে
  4. "Turkestan Kazakhstan city"। সংগ্রহের তারিখ ২০০৯-০৯-১৬  উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "hazrat" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে
  5. উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; geopolitical নামের সূত্রটির জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  6. উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; inscribe নামের সূত্রটির জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  7. The New Encyclopædia Britannica Micropædia Volume 12। USA: Encyclopædia Britannica, Inc.। ১৯৯৫। পৃষ্ঠা 56। আইএসবিএন 0-85229-605-3 
  8. "Archaeological monuments of Turkistan"। সংগ্রহের তারিখ ২০০৯-০৯-১৬ 
  9. "Archaeological monuments of Turkistan"। সংগ্রহের তারিখ ২০০৯-০৯-১৬ 
  10. "Encyclopædia Britannica (2007): Related Articles to "Ahmed Yesevi, or Ahmad Yasawi, or Ahmed Yasavi (Turkish author)", accessed March 18, 2007"। Britannica.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-০৪-২২ 
  11. "Khodja Akhmed Yasawi: Life and Philosophical heritage"। সংগ্রহের তারিখ ২০০৯-০৯-১৬