ক্রিশ্চিয়ান মেডিকেল কলেজ এন্ড হসপিটাল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ক্রিশ্চিয়ান মেডিকেল কলেজ এন্ড হসপিটাল
CMCH Vellore.JPG
প্রধান হাসপাতালে প্রবেশিকা
নীতিবাক্যকাছে কিন্তু মন্ত্রী সেবা পেতে নয়
ধরনমেডিকেল কলেজ এন্ড হসপিটাল
স্থাপিত১৯০০[১][২]
পরিচালকডঃ সুনীল থমাস চন্ডী[৩]
অধ্যক্ষডঃ আলফ্রেড জব ড্যানিয়েল[৩]
অবস্থান, ,
ভারত

১২°৫৫′২৯″ উত্তর ৭৯°০৮′১০″ পূর্ব / ১২.৯২৪৮১৫° উত্তর ৭৯.১৩৬০১৩° পূর্ব / 12.924815; 79.136013স্থানাঙ্ক: ১২°৫৫′২৯″ উত্তর ৭৯°০৮′১০″ পূর্ব / ১২.৯২৪৮১৫° উত্তর ৭৯.১৩৬০১৩° পূর্ব / 12.924815; 79.136013
শিক্ষাঙ্গনশহুরে
অধিভুক্তিতামিলনাড়ু ডঃ এম. জি. আর. মেডিকেল ইউনিভার্সিটি[৪]
ওয়েবসাইট

ক্রিশ্চিয়ান মেডিকেল কলেজ এন্ড হসপিটাল (সিএমসি ভেলোর) একটি শিক্ষামূলক এবং গবেষণা প্রতিষ্ঠান[৫][৬][৭] এবং ভারতের তামিলনাডুতে অবস্থিত একটি তৃতীয় কেয়ার হাসপাতাল।[৮] এটি জাতীয় এবং আন্তর্জাতিকভাবে খ্যাতিসম্পন্ন ভারতের বিশিষ্ট এবং সুপরিচিত চিকিৎসা গন্তব্যস্থলগুলোর মধ্যে একটি।[৫][৯][১০][১১][১২][১৩][১৪] এছাড়াও এটি ভারতের শীর্ষ স্থান অর্জনকারী মেডিকেল কলেজের একটি।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

১১৮ বছরের পুরোনো এই সিএমসি হাসপাতাল। হাসপাতালের প্রতিষ্ঠাতা ডা. ইদা সোফিয়া স্কুডার। ১৯০০ সালে প্রতিষ্ঠিত এই হাসপাতাল শুরুর ভাবনাটি আরও আগে। ১৮৯০ সালে ইদা সোফিয়া স্কুডার যুক্তরাষ্ট্র থেকে দক্ষিণ ভারতে তাঁর ধর্মপ্রচারক মা-বাবার সঙ্গে দেখা করতে যান। এক রাতে বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা তিন অন্তঃসত্ত্বা নারীকে সন্তান জন্মদানে সহায়তা করতে বলা হয় ইদাকে। ইদার কোনো প্রশিক্ষণ ছিল না। তিনি বাবার সহায়তা চান। বাবা চিকিৎসকও ছিলেন। কিন্তু ওই তিন নারীর পরিবারের কেউই পুরুষ চিকিৎসকের কাছে চিকিৎসাসেবা নিতে রাজি হননি। পরদিন সকালে ওই তিন নারীই মারা যান।

ইদা মানসিকভাবে ভীষণ আঘাত পান। সামাজিক বাধার কারণে তিন মায়ের এমন মৃত্যু মেনে নিতে পারেননি তিনি। চিকিৎসক হবেন বলে শপথ নেন। নারী ও শিশুদের সেবা করবেন বলে ব্রত নেন। ইদা এরপর আবার যুক্তরাষ্ট্রে ফিরে যান। ১৮৯৯ সালে কর্নেল ইউনিভার্সিটি মেডিকেল কলেজ থেকে উত্তীর্ণ হন। সেখানে নারী শিক্ষার্থীদের সেটিই ছিল প্রথম ব্যাচ। ১৯০০ সালে আবার ভারতে ফিরে যান ইদা। বাবার বাড়িতে একটিমাত্র বেড নিয়ে চালু করেন হাসপাতাল। এখন সিএমসিতে অভ্যন্তরীণ রোগী দুই হাজারেরও বেশি। দৈনিক বহির্বিভাগীয় রোগী সাত হাজার। হাসপাতালে ওয়ার্ড ৬৭টি। বিভিন্ন রোগের বিভাগ ১৪৪টি।[১৫]

হাসপাতাল পরিসংখ্যান[সম্পাদনা]

  • মোট শয্যা সংখ্যা হল ২,৬৩২
  • চিকিত্সাধীন ব্যক্তি ২.১৪ মিলিয়ন বহির্বিভাগের এবং ২০১২ বছরের জন্য ০.১২৯ মিলিয়ন ভর্তি হওয়া রোগী
  • মোট জন্ম ১৭,৮৮৩ বছর ২০১২ সাল পর্যন্ত
  • দৈনিক পরিসংখ্যান ৬,৯৫৭ বহির্বিভাগের, 2,165 ইনপ্যাসেন্ট, ১৬১ অপারেশন সঞ্চালিত হয়, ৪৯ জন্ম নিবন্ধিত, ১,৯৬০ রেডিওলজিক পরীক্ষা এবং ৩৪,৪৯৩ ল্যাবরেটরি পরীক্ষা সম্পন্ন করে
  • স্টাফ ১,৩৩৫ জন ডাক্তার রয়েছেন সাথে ৮,১০০ জন এর উপরে কর্মী; ১,৮২৫ শিক্ষা ও প্রযুক্তিগত কর্মীদের; ২,৩৬৪ জন নার্স এবং ৮১৩ জন প্রশাসনিক কর্মী
  • শিক্ষা এমবিবিএস সহ আরো প্রায় ১১০টি কোর্স, নার্সিং, সার্বিক স্বাস্থ্য বিজ্ঞান, অনেক স্নাতকোত্তর মেডিকেল বিশেষজ্ঞ, দূরশিক্ষণ কোর্স এবং পিএইচডি প্রোগ্রাম.
  • গবেষণা ২৩০ সূচীবদ্ধ পিয়ার রিভিউ পত্রিকাতে প্রকাশনা (ভারতে যে কোন মেডিকেল কলেজ থেকে ডাক্তারী গবেষণার কাগজপত্র দ্বিতীয় বৃহত্তম সংখ্যা)
  • ওয়ার্ড মোট ৯৫টি ওয়ার্ড সহ ১৫টি আইসিইউ
  • অপারেশন থিয়েটার- সেখানে ৩৯টি প্রধান অপারেশন থিয়েটার এবং ১৮টি ছোটখাট
  • সেবা খরচ ২০১২-২০১৩ বছরের জন্য চলতি খরচ করে ৬.২৯ বিলিয়ন রুপি
সিএমসি হাসপাতাল এর সামগ্রিক পরিসংখ্যান
হাসপাতাল / কেন্দ্র শয্যা অন্তর্বিভাগ বহির্বিভাগ জন্মলাভ প্রচার
প্রধান হাসপাতাল ২,০৮২ ১,০২,৭৩৮ ১৬,৭২,২০৭ ১৩,৩১৬ -
কমিউনিটি স্বাস্থ্য এবং ডেভেলপমেন্ট ১৩০ ১২,০৭৭ ৯০,৮৪৮ ৩,৩০৭ ৭৬,৯১৬
স্বাস্থ্য এবং সামাজিক বিষয়ক গ্রামীণ ইউনিট ৬৯ ৩,৭৫৮ ১,০৭,৬৫৪ ১,০৬৩ ৩৬,৮৩১
স্কেল আই হাসপাতাল ১০০ ৭,০৪০ ১,০৭,৩০১ - ২১,১৪০
লো কস্ট ইফেক্টিভ কেয়ার ইউনিট ৪৬ ১,৯১৩ ৫৮,৮৮৮ ১৯৭ ৮৭২
মানসিক স্বাস্থ্য কেন্দ্র ৯৮ ৮৭৮ ১,০১,৬২৩ - -
নামবিক্ষি নিলায়াম ২৪ ১০৪ ৪,১০২ - ১৮৭
পুনর্বাসন ইনস্টিটিউট ৮৩ ৫১৯ - - ৫০
মোট ২,৬৩২ ১,২৯,০২৭ ২১,৪২,৬২৩ ১৭,৮৮৩ ১,৩৫,৯৯৯

২০১২ বছরের উপর ভিত্তি করে পরিসংখ্যানটি তৈরী করা হয়েছে[১৬]

র‌্যঙ্কিং[সম্পাদনা]

University and college র‍্যাংকিং

সিএমসি ধারাবাহিকভাবেই ভারতের সেরা মেডিকেল কলেজগুলোর মধ্যে একটিতে পরিনত হয়েছে।ইন্ডিয়া টুডে ২০১০,২০১২ এবং ২০১৩ সালে সিএমসিকে সেরা মেডিকেল কলেজগুলোর মধ্যে ২য় ঘোষনা করে। [১৭] 2012[১৮] and 2013.[৫] আউটলুক ইন্ডিয়া সিএমসিকে ২০১২ সালে ৩য় স্থান প্রদান করে।[১৯] ২০১৫ সালে ক্যারিয়ার ৩৬০(ম্যাগাজিন) সিএমসিকে বেসরকারী মেডিকেল কলেজগুলোর মধ্যে ১ম হিসাবে ঘোষনা করে।[২০]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Introducing CMC" (PDF)। Christian Medical College। ২৭ সেপ্টেম্বর ২০১৩ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৯ জুলাই ২০১৩ 
  2. "A GUIDE TO CHRISTIAN MEDICAL COLLEGE VELLORE INDIA" (PDF)। Christian Medical College। ২০ অক্টোবর ২০১৩ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ এপ্রিল ২০১৪ 
  3. "CHRISTIAN MEDICAL COLLEGE VELLORE – 632002, INDIA"। Christian Medical College। ১৭ এপ্রিল ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ এপ্রিল ২০১৪ 
  4. "Affiliated Colleges"। Tamil Nadu Dr. M.G.R. Medical University। ২৮ জুলাই ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৯ জুলাই ২০১৩ 
  5. "INDIA'S BEST MEDICAL COLLEGES 2012 RANK 2 Christian Medical College"। India Today। 
  6. ""Functional" blood vessels made from stem cells"। The Hindu। 
  7. "Research"। Christian Medical College। 
  8. "Clinical Services / Departments"। Christian Medical College। 
  9. "Christian Medical College - CMC Vellore India"। www.indiamedicaleducation.com। 
  10. "CMC Vellore"। www.newstrackindia.com। 
  11. "Vellore Hospitals"। www.hospitalsinindia.org। ২৭ এপ্রিল ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ এপ্রিল ২০১৪ 
  12. "Christian Medical College(CMC), Vellore releases notification for admission to PG and diploma in Medical courses for 2013-14 CMC Also Invites Admissions for Doctoral and PG Fellowship and PG Nursing 2013"। www.examsworld.in। 
  13. "About Vellore City Municipal Corporation"। Vellore City Municipal Corporation। [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  14. "Vellore"। www.incredibletamilnadu.com। ২৭ সেপ্টেম্বর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ এপ্রিল ২০১৪ 
  15. "এক শয্যা থেকে একটি বটবৃক্ষ" 
  16. "CMC Hospital Statistics - 2012" (PDF)। Christian Medical College। ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৪ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ এপ্রিল ২০১৪ 
  17. "Best Medical Colleges in India, 2013"। India Today। 
  18. "INDIA'S BEST MEDICINE COLLEGES 2011"। India Today। 
  19. http://www.outlookindia.com/article.aspx?281300
  20. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; Rankings_CAREER_M নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]