কৃশদায়ান্তি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
কৃশদায়ান্তি
Krisdayanti 2004 1.jpg
জন্ম (1975-03-24) ২৪ মার্চ ১৯৭৫ (বয়স ৪৪)
বাসস্থানজাকার্তা, ইন্দোনেশিয়া
জাতীয়তাইন্দোনেশিয়ান
কার্যকাল১৯৮০–বর্তমান
দাম্পত্য সঙ্গীআনাং হারমানস্যাহ (বি. ১৯৯৬২০০৯)
রাউল রেমোস (বি. ২০১১)

কৃশদায়ান্তি (জন্ম: ২৪ মার্চ ১৯৭৫), প্রায়ই তার মনিকার কেডি দ্বারা পরিচিত, হচ্ছেন ইন্দোনেশিয়া এর একজন গায়িকা এবং অভিনেত্রী। তিনি ইনি শারা এর ছোট বোন, যিনি হচ্ছেন একজন ইন্দোনেশিয়ান গায়িকা। তিনি ট্রেনগোনোর এবং রাশমা উইদাদিনিংসিহ এর মেয়ে। মাত্র ৯ বছর বয়সে, তিনি সিনেমা মেগালোম্যান এর জন্য একটি গান গেয়েছিলেন। তিন বছর পর, তিনি তার প্রথম অ্যালবাম, "বুরুং-বুরুং মালাম" প্রকাশ করেন। অতঃপর তিনি একসঙ্গে "কাতালান সি এমন" নামে সাউন্ডট্র্যাক অ্যালবাম প্রকাশ করেন। যখন তিনি হাই স্কুলে ছিলেন, কৃশদায়ান্তি অনেক গান এবং মডেলিং প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করেন। ১৯৯১ সালে, তিনি গাদিস স্যাম্পুল প্রতিযোগিতা এর ফাইনাল পর্যন্ত পৌঁছেছিলেন।[১][২]

ইউনকি সোয়েওয়ার্নো এবং ক্রিস প্যাটকাওয়া এর সাহায্যে, ১৯৯২ এশিয়া বাগুস তারকা অনুসন্ধান প্রোগ্রামে অংশগ্রহণ করেন, অবশেষে জাপান এর এশিয়া বাগুস ফিল্ম ফেস্টিভালে গ্র্যান্ড প্রাইজ জেতেন।[২] এশিয়া বাগুস প্রতিযোগিতায় বিজয়ী হওয়ার ফলে, কৃশদায়ান্তি সিঙ্গাপুরপিকনি ক্যানিয়ন এর পাশাপাশি একক অ্যালবাম রেকর্ড করেছিলেন যা কেবলমাত্র সিঙ্গাপুর এবং জাপান এ এয়ারপ্লে করেছে।[৩] ১৯৯৭ সালে, কৃশদায়ান্তি "বেস্ট অফ এশিয়া বাগুস" হিসাবে নির্বাচিত হন। তিনি ১৯৯৯ সালে "মেনঘিটুঙ হরি" এর জন্য শ্রেষ্ঠ ইন্দোনেশিয়ান অ্যালবাম অ্যাওয়ার্ডস, এমটিভি দক্ষিণপূর্ব এশিয়ার "মেনঘিটুঙ হরি", "পপ অ্যালবাম", "সর্বাধিক ব্যয়কৃত নারী শিল্পী" এবং "সর্বাধিক ব্যয়িত ইন্দোনেশিয়ান ভিডিও" পুরস্কার লাভ করেন। ১৯৯৭ সালে আনুগেরাহ মুসিক ইন্দোনেশিয়া এ সেরা পপ অ্যালবাম পুরস্কার জয়লাভ করেন এবং ইন্দোনেশিয়ার ২০০২ সালের এমটিভি ইন্দোনেশিয়া এ "জঙ্গান পেরগি, ইয়াং কামাউ" জন্য সবচেয়ে পছন্দসই মহিলাএর পুরস্কার জেতেন। ২০০৪ সালের সময়কালে, কৃশদায়ান্তি বিভিন্ন আন্তর্জাতিক শহরে কয়েকটি কনসার্টের আয়োজন করে।[১]

সোয়া ম্যাগাজিন পত্রিকায় এক লেখনীতে বলা হয়েছে যে, ইন্দোনেশিয়ার রাষ্ট্রপতির চেয়ে তিনি আরও বেশি উপার্জন করেন।[১] তার গান এবং ধ্রুব কনসার্টের পারফরম্যান্স তাকে গানে বা অভিনয়ের জন্য ভাড়া করা সবচেয়ে ব্যয়বহুল ইন্দোনেশিয়ার শিল্পীদের বলে মনে করে। ১৯৯৬ সালে, তিনি টেবলয়েড বিন্ট্যাং দ্বারা ইন্দোনেশিয়া এর ৬ জন সবচেয়ে বিখ্যাত টেলিভিশন নারী তারকার মধ্যে একজন হিসেবে বিবেচিত হন এবং ২০০৭ সালে ইন্দোনেশিয়ার ৯৯ প্রভাবশালী নারীর তালিকাতে গ্লোব এশিয়ার ৩১ তম স্থান লাভ করেন।[৪]

তিনি ১৯৯৬ সালে পূর্ব জাভা থেকে জেবারের একজন সঙ্গীতশিল্পী আনাং হারমানস্যাহকে বিয়ে করেছিলেন। একসাথে তাদের এক পুত্র (আজরিয়েল) এবং এক কন্যা (অরল) আছে। তাদের বিয়ের সময় ট্যাবলয়েডগুলি প্রায়ই কৃশদায়ান্তি এর সাথে ডিকি ওয়াহিদী, তোহপাতি এর গিটার, এবং প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি সুহার্টের নাতি এরি সিজিটের সাথে সম্পর্কের গুজব সৃষ্টি করত।[১][৫][৬] সেই সব গুজব কৃশদায়ান্তি দ্বারা অস্বীকার করা হয়, যিনি বলেন যে তার স্বামী সঙ্গে তার সম্পর্ক খুবই ভালো ছিল। ২০০৯ সালের আগস্টে তারা কৃশদায়ান্তি এর অনুরোধে তালাকপ্রাপ্ত হয়।[৭]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

পাদটীকা
গ্রন্থপঞ্জি
  • "Anang Confirms Divorce from Krisdayanti"The Jakarta Globe। ৩ সেপ্টেম্বর ২০০৯। ২০১১-০৮-২৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৭ আগস্ট ২০১১ 
  • Aprianti, Yenti। "Krisdayanti, "Aku Risi, Tapi Itu Haknya Sebagai Suami"" [Krisdayant, "I'm Upset, but It's His Right as a Husband"] (Indonesian ভাষায়)। Tabloid Nova। ২ ডিসেম্বর ২০০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৭ আগস্ট ২০১১ 
  • "Artist Info – Krisdayanti" (Indonesian ভাষায়)। Disc Tarra। ২৪ জানুয়ারি ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৭ আগস্ট ২০১১ 
  • "Krisdayanti" (Indonesian ভাষায়)। KapanLagi.com। ১৮ জানুয়ারি ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৭ আগস্ট ২০১১ 
  • "Krisdayanti Bintang Film Termahal?" [Is Krisdayanti the Most Expensive Actress?] (Indonesian ভাষায়)। KapanLagi.com। ৩ এপ্রিল ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৭ আগস্ট ২০১১ 
  • Yusman, Edwin, Gandhi Wasono M, and Kurniasih Tjitradjaja। "Ini Peringatan Keras dari Tuhan!" [This is a Stern Warning from God!] (Indonesian ভাষায়)। Tabloid Nova। ২০ ফেব্রুয়ারি ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৭ আগস্ট ২০১১ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]