কান্দাহার বিশ্ববিদ্যালয়

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
কান্দাহার বিশ্ববিদ্যালয়
Pashto: د کندهار پوهنتون
ধরনপাবলিক
স্থাপিত১৯৯০[১]
আচার্যপ্রফেসর হযরত মীর তোতখিল
উপাচার্যঅধ্যাপক শের শাহ রাশাদ
শিক্ষার্থী৫,০০ (৩০০ নারী)[২]
অবস্থান, ,

কান্দাহার বিশ্ববিদ্যালয় (পশতু: د کندهار پوهنتون; Persian: دانشگاه قندهار) একটি সরকারী তহবিলযুক্ত উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। বিশ্ববিদ্যালয় টি কান্দাহার, আফগানিস্তান এ অবস্থিত । এটি দক্ষিণ আফগানিস্তানের দুটি বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে একটি। কান্দাহার বিশ্ববিদ্যালয় (কেইউ) প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল ১৯৯০ সালে। পিপলস ডেমোক্র্যাটিক পার্টি অফ আফগানিস্তান (পিডিপিএ) এর অধীন আফগানিস্তানের রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ নাজিবুল্লাহ বিশ্ববিদ্যালয়টি নির্মাণ করেছিলেন। তোয়রিলাই ওয়েসা, যিনি ১৩ বছর পর দেশে ফিরে এসেছিলেন, তিনি কান্দাহার প্রদেশের গভর্নর ছিলেন এবং কান্দাহার বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম উপাচার্য ছিলেন।

কান্দাহার বিশ্ববিদ্যালয়ে কম্পিউটার বিজ্ঞান, কৃষি, মেডিসিন, প্রকৌশল এবং শিক্ষা তে গবেষণা করাযায়। বিশ্ববিদ্যালয়ের সাতটি অনুষদের মধ্যে ৩০০ নারী শিক্ষার্থী সহ ৫০০০ এরও বেশি শিক্ষার্থী রয়েছে।[২] বিশ্ববিদ্যালয়টিতে আফগানিস্তানের উচ্চ শিক্ষা মন্ত্রণালয় এর অধীনে সরাসরি পরীক্ষার মাধ্যমে প্রতি বছর ২৮০ জন শিক্ষার্থীকে ভর্তি করে থাকে।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

চিত্র:University1.JPG
ছাত্রাবাস এলাকা, কান্দাহার বিশ্ববিদ্যালয়-২০০৯

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উচ্চ শিক্ষা খাতে সরকারের জাতীয় উন্নয়ন নীতির ভিত্তিতে ১৯৯০ সালে কান্দাহার বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল।

প্রথমে বিশ্ববিদ্যালয়টিতে শুধুমাত্র কৃষি অনুষদ ছিল। পরবর্তীতে ঔষধ-১৯৯৪, প্রকৌশল-২০০০, শিক্ষা-২০০৩, শরিয়া আইন-২০০৮, অর্থনীতি-২০০৯ ও সাংবাদিকতা অনুষদ ২০১২ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। হেলমান্দ প্রদেশের কান্দাহার বিশ্ববিদ্যালয় শাখায় কৃষি ও শিক্ষা দুটি অনুষদের প্রতিষ্ঠিত রয়েছে। বর্তমানে, কান্দাহার বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রায় ৫০০০ শিক্ষার্থী এবং ১৬২ জন পূর্ণ ও আংশিক সময়ের অধ্যাপক রয়েছে। ১৬২ জন অধ্যাপকের মধ্যে ২৪ জন এমএসসি এবং একজন পিএইচডি রয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয়টিতে চার অনুষদের (কৃষি, ঔষধ, প্রকৌশল ও শিক্ষা) ১০৩৯ জন প্রাক্তন শিক্ষার্থী রয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়টিতে রাত্রি কালীন ক্লাস করানো হয়। যে ছাত্ররা সরকারি ও বেসরকারি সংস্থার চাকরির পাশাপাশি শিক্ষানবিশ তারা রাত্রি কালীন করতে পারেন।

Until 2003 the university did not have its own campus and was operating in a mobile form. It was got its current campus in 2003 which has the area of 93 hectares. The 13 buildings are mainly constructed for dormitory purposes (student housing facilities) which the university is providing, in addition to administration and academic purposes. KU has an agricultural research farm on the campus and a teaching hospital outside the campus which was transferred to the university from the Afghan National Army properties in Kandahar City at the request of the university and approval of President Hamid Karzai.

KU has established a center for IT which was supplied by NATO and university planned to connect it to optical fiber project. The university has 161 computers in 5 PC Labs for students’ use. The university does not have a proper central library due to the lack of infrastructure and instead of that has 8 small libraries in faculties and departments. There is no proper place of study for students and they have to manage it in their dorms or elsewhere which is difficult since each room is shared by 10 to 12 students. The curricula for different faculties are prepared considering the need of the country and global developments. The educational credit system is used in the faculties of medicine and education. Some basic labs are being prepared for carrying out some laboratory instruction in the faculties of education, agricultural, engineering and medicine.

The campus covers an area of more than 600,000 m2. It has 11 buildings, of which one is the Administration and Chancellor's office, four buildings for a hostel, one for each faculty and one for the Central Library. There is a separate girls' hostel. Other structures on the campus are the tomb of Allama Abdul Shakoor Rishad baba who was a writer, artist and poet of Afghanistan and a mosque located beside the university for attending the Eid prayers each year.

In 2008 the Canadian government built a 3-km perimeter of stone, brick and iron around the campus to address security concerns, which has been dubbed "the Great Wall of Kandahar". In 2012, with the assistance of the University of Arizona in the United States, Kandahar University began using solar energy for electricity.[২]

  1. 132 university students graduated
  2. "Kandahar University Goes Solar"। নভেম্বর ৩, ২০১২। ২০১৩-০২-১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-১১-০৫