কাচিন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

কাচিন[১] হল মায়ানমার -এর একটি রাজ্য।এটি মায়ানমার এর উত্তর অংশে অবস্থিত।এই রাজ্যের উত্তর ও পূর্ব দিকে চিন অবস্থিত।দক্ষিণ দিকে অবস্থিত শাহ রাজ্য ।পশ্চিম দিকে ভারতসাঘাইন অবস্থিত।রাজ্যটির মোট আয়তন হল ৮৯,০৪১.৮ বর্গ কিলোমিটার বা ৩৪,৩৭৯.২ বর্গ মাইল ।কাচিন রাজ্যের মোট জনসংখ্যা হল ১৬ লক্ষ ৮৯ হাজার ৪৪১ জন।এই রাজ্যের সর্বোচ্চ শৃঙ্গা হল হকাকাবো রাজি ।এর উচ্চতা ৫,৮৮৯ মিটার ।রাজ্যটির রাজধানী শহরটি হল মাইটকয়িনা ।এই রিজ্যের অন্য প্রধান শহর গুলি হল ভোমাপুটাও।এই রাজ্যটি ২৩.২৭ থেকে ২৮.২৫ ডিগ্রী উত্তরে অবস্থিত।ইন্ডায়গয়ি হ্রদটি এই রাজ্যে অবস্থিত।কাচিন রাজ্যে হিমালয় এর সম্প্রসারিত অংশ কাচিন পাহাড় অবস্থান করছে।এই পাহারটি রাজ্যের বেশির ভাগ অংশে অবস্থান করছে।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

অবস্থান[সম্পাদনা]

কাচিন রাজ্য মায়নমারের উত্তর অংশে চিন ও ভারত সীমান্তে অবস্থিত।এই রাজ্যে গড় উচ্চতা সমুদ্র সমতল থেকে ৬০০ থেকে ১০০০ মিটার এর বেশি।সর্বোচ্চ অংশটি হল হকাকাবো রাজি শৃঙ্গ।২৩.২৭ থেকে ২৮.২৫ ডিগ্রী উত্তর ও ৯৬ থেকে ৯৮.৪৪ ডিগ্রী পূর্বে রাজ্যটির অবস্থান।রাজ্যটি দেশের রাজধানী থেকে প্রায় ১০০০ কিলোমিটার ৬৫০ মাইল দূরে অবস্থিত।

অর্থনীতি[সম্পাদনা]

কাচিন রাজ্যের অর্থনীতি প্রধানত কৃষি কাজের উপর নির্ভরশীল।কৃষি কার্য করে এই রাজ্যের মানুষ জীবিকা নির্বাহ করে।এই রাজ্যের প্রধান অর্থকরী ফসল হল চা,ধান বা চাল, পাট।এছাড়া রাজ্যটিতে প্রচুর সেগুন গাছ জনন্মায়।এই সেগুন গাছ থেকে বিভিন্ন আসবাব শিল্প গড়ে উঠেছে।রাজ্যটির প্রধান শহর গুলি হল মাইটকয়িন ,ভোযাপুটাও।এই শহর গুলিতে কিছু আধুনিক শিল্পের বিকাশ ঘটেছে।তবে এই শিল্প গুলি শহর গুলিতেই সীমা বদ্ধ ।শহরের বাইরে এদের তেমন বিস্তার ঘটেনি।এই রাজ্যে কিছু এলাকায় স্বর্ণ খনি রয়েছে যা রাজ্যটির অর্থনীতির বিরাট ভূমিকা রাখে।এছাড়া এখানে মূল্যবান পাথর বা জিম স্টোন পাওয়া যায়।এই রাজ্যে একটি বিদ্যুৎ কেন্দ্র গড়ে উঠেছে।

যোগাযোগ ব্যবস্থা[সম্পাদনা]

রাজ্যটি পাহাড় পর্বত দ্বারা বেষ্ঠিত হওয়ায় রাজ্যটির মধ্যে যোগাযোগ ব্যবস্থা গড়ে তোলা খুবই কঠিন।তবে রাজ্যটি সড়ক পথ দ্বারা অন্য রাজ্য গুলির সঙ্গে যুক্ত রয়েছে।রাজ্যের শহর গুলির সঙ্গে দেশের রাজধানী ও অন্যানপ্রধান শহর গুলি সরাসরি যুক্ত।রাজ্যটিতো মোট তিনটি বিমান বন্দর রয়েছে।এই বিমান বন্দর গুলি হল- মাইটকয়িন বিমানবন্দর, ভোমা বিমানবন্দরপুটও বিমানবন্দর।এর মধ্যে মাইটকয়িন বিমান বন্দর সবচেয়ে বেশি যাত্রী বহন করে।

শিক্ষা ব্যবস্থা[সম্পাদনা]

জনসংখ্যা[সম্পাদনা]

২০১৪ সালের হিসাব অনু যায়ী কচিন রাজ্যের মোট জন সংখ্যা হল ১৬ শক্ষ ৮৯ হাজার ৪৪১ জন।১৯৭৩ সালে রাজ্যটির জন সংখ্যা ছিল ৭ লক্ষ ৩৭ হাজার ৯৩৯ জন এবং ১৯৮৩ সালে জন সংখ্যা ছিল ৯ লক্ষ ৪ হাজার ৭৯৪ জন।এই রিজ্যে কচিন জাতীর মানুষই সংখ্যা গরিষ্ট।এছাড়া রাজ্য টিতে ভারতীয়,চিনা মানুষ বাস করেন।

ধর্ম[সম্পাদনা]

রাজ্যটিতে সবচেয়ে বেশি বৌদ্ধ ধর্মের মানুষ বসবাস করেন।এই ধর্মই এই রাজ্যের সরখ্যা খরিষ্ট ধর্ম।অন্য ধর্ম গুলির মধ্যে প্রধান হল খ্রিস্টান ধর্ম , মুসলিম ধর্ম, ও হিন্দু ধর্ম।রাজ্যটির মোট জন সংখ্যার ৬৪% সতাংশ মানুষ বৌদ্ধ ধর্ম পালন করে।খ্রিস্টান ধর্ম পালন করে ৩৩ শতাংশ ধর্ম।হিন্দু ও মুসলিম ধর্ম পালন করে যথাক্রমে ০.৪ ও ১.৬ শতাংশ মানুষ।বাকি ১ শতাংশ মানুষ অন্য ধর্ম মতে বিশ্বাসি।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূগ্র[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

টেমপ্লেট:মায়ানমারের রাজ্য