কাকতীয় তোরণ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

স্থানাঙ্ক: ১৭°৫৭′২৩″ উত্তর ৭৯°৩৬′৫৮″ পূর্ব / ১৭.৯৫৬২৮৬° উত্তর ৭৯.৬১৬০৫৩° পূর্ব / 17.956286; 79.616053

কাকতীয় কালা তোরানাম
Warangal fort.jpg
সাধারণ তথ্য
ধরনতোরণ
অবস্থানওয়ারঙ্গাল, তেলেঙ্গানা, ভারত
সম্পূর্ণ১২০০ খ্রিস্টাব্দ

কাকতীয় কালা তোরানাম বা কাকতীয় তোরণ (এছাড়াও ওয়ারঙ্গাল গেট নামেও পরিচিত) দক্ষিণ ভারতের রাজ্য তেলঙ্গানার ওয়ারংগাল জেলার একটি ঐতিহাসিক তোরণ বা চূড়া। ওয়ারঙ্গাল ফোর্টের চারটি শোভাময় তোরণ রয়েছে, যেগুলি মূলত ধ্বংস হয়ে যাওয়া মহান শিবের মন্দিরের জন্য নির্মিত হয়েছিল যা কাকতীয় কাল থোরানম বা ওয়ারঙ্গাল গেট নামে পরিচিত। ওয়ারঙ্গালের এই ঐতিহাসিক খিলানের বৈশিষ্ট্যগুলি কাকতীয় রাজবংশের প্রতীক হিসেবে গৃহীত হয় এবং তেলঙ্গানা রাজ্যের জন্য তেলঙ্গানা প্রতীক হিসেবে আনুষ্ঠানিকভাবে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। [১] ওয়ারঙ্গাল ফোর্টের এই দরজাগুলি বা খিলানগুলি সাচি স্তূপের প্রবেশদ্বারগুলির সাথে মিল রয়েছে বলে বলা হয়; এই সত্য অনেকের দ্বারা প্রমানিত হয়েছে।[২]

কাকাতিয়া কাল থোরানম (ওয়ারঙ্গাল গেট) ও রুইন্স

কাকতীয় রাজবংশের শাসনামলে ১২ শতকের মাঝামাঝি সময়ে এই তোরণ নির্মান করা হয়েছিল।[৩] স্মৃতিস্তম্ভটি ইউনেস্কোর বিশ্ব ঐতিহ্যবাহী স্থানের "সম্ভাব্য তালিকা" অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। ১০/০৯/২০১০ তারিখে ভারতের স্থায়ী প্রতিনিধিদল ইউনেস্কোতে স্মৃতিস্তম্ভের জন্য আবেদন জমা করে।[৪][৫]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

কাকতীয়া কালা থোরানম বা তোরণ, একটি ব্যাপক সুসজ্জিত প্রস্তর ভাস্কর্য যা ওয়ারঙ্গাল ফোর্টের চারটি অভিন্ন তোরণ গুলির মধ্যে একটি। এটি ১২ শতকের মাঝামাঝি গণপতি দা (১১৯৯-১২২২) দ্বারা নির্মিত দুর্গের মধ্যে শিবের মহান সাঁওধঁসী মন্দিরের অংশ। [৬] কাকাতীয় রাজবংশের কন্যা রুদ্রমা দেবী এবং প্রতাপ রুদ্র দ্বিতীয় এই কেল্লায় আরও দুর্গ নির্মাণ করেছিলেন যা ছিল তিনটি সমকেন্দ্রী চক্র।.[৭] হিন্দু মন্দিরকে পবিত্র রাখার জন্য চারটি তোরণ (স্কার্কমৌ) নির্মিত হয়েছিল যা মন্দিরের অংশ ছিল , ১৩২৩ সালে আগ্রাসনের সময় মুসলিম আক্রমণকারী উলুঘ খান কর্তৃক তাদের নীতির অংশ হিসেবে তোরণ ধ্বংস করে দিয়েছিল। [৭] তোরণ গুলি অবিচ্ছেদ্য ছিল এমন মহান মন্দিরটি গুজরাটের সিদ্ধপুরের রুদ্রা মালা মন্দিরের আকার এবং সৌন্দর্যের তুলনায় সমান বলেই ধরা হয়।[৮]

বৈশিষ্ট্য[সম্পাদনা]

তেলঙ্গানা রাজ্যের জন্য তেলঙ্গানার প্রধান প্রতীক তৈরিতে কাকতীয় তোরণের ছবি ব্যবহৃত হয়েছে। [৯][১০] ইংরেজি, তেলেগু ও উর্দুতে এই লোগো বা প্রতীকটি "বঙ্গুর তেলঙ্গানা" (অর্থ: "গোল্ডেন তেলাঙ্গানা") নামে প্রতিনিধিত্বকারী সবুজ ও সোনার সংমিশ্রণ দ্বারা চিত্রিত করা হয়েছে। এছাড়াও লোগোতে ইংরেজি ভাষায় তেলঙ্গানার সরকার, এবং তেলুগুতে "তেলঙ্গানা প্রভূতভাম" এবং উর্দুতে "তেলঙ্গানা সরকার" হিসাবে উল্লেখ করা হয়েছে। লোগোর ভিত্তিতে হিন্দিতে একটি শিলালিপি রয়েছে যা "সত্যমেব জয়তে" (অর্থ: সত্যই বিজয়ী হবে)। [১]

প্রত্নতাত্ত্বিক অঞ্চল হিসেবে চিহ্নিত কেল্লার কেন্দ্রীয় অংশটি। মহান সোয়াম্ভুসিভা মন্দিরের ধ্বংসাবশেষ, এখন কেবলমাত্র মুক্ত স্থায়ী "প্রবেশদ্বার তোরণ", বা চারপাশের দ্বারগুলির সাথে দেখা যায়, সমস্ত নকশার অনুরূপ। প্রতিটি তোরণে সমান্তরাল বন্ধনীর সঙ্গে জোড়া স্তম্ভ আছে, যার উপর বিশাল তোরণের করিদন্ড; এই গেটের উচ্চতা ১০ মিটার (৩৩ ফুট)। দরজায় "কমল কুঁড়ি", মার্কেজ, পৌরাণিক পশুপালন এবং ডালে বসে থাকা পাখিদের সাথে পাখিদের বিস্তৃত জটিল পরিমাপ। এই তোরণে কোন ধর্মীয় প্রতীক প্রদর্শন করা হয়নি, যা মুসলমান আগ্রাসীদের দ্বারা ধ্বংস না হওয়ার জন্য কারণ বলে মনে করেন। [১১][৮] উত্তর ও দক্ষিণ প্রান্তের দরজায ৪৮০ ফুট (১৫০ মি) দূরে পূর্ব ও পশ্চিমা দরজাগুলি ৪৩৩ ফুট (১৩২ মি) দূরে অবস্থিত। [৮]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Kakatiya arch, Charminar in Telangana state logo"The Deccan Chronicle। ৩০ মে ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ১ জুলাই ২০১৫ 
  2. Prasādarāvu 1989, পৃ. 35।
  3. "Telangana government launches its own logo"Business Today। ৩১ মে ২০১৪। 
  4. Centre, UNESCO World Heritage। "The Qutb Shahi Monuments of Hyderabad Golconda Fort, Qutb Shahi Tombs, Charminar - UNESCO World Heritage Centre"whc.unesco.org 
  5. "সংরক্ষণাগারভুক্ত অনুলিপি"। ২২ জুন ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮ 
  6. Singh 2007, পৃ. 297।
  7. Eaton 2005, পৃ. 20।
  8. Cousens 1900, পৃ. 47।
  9. "Charminar, Kakatiya arch in 'T' logo"The Hindu 
  10. "Has Telangana government got the emblem wrong?"The Times of India 
  11. Michell 2013, পৃ. 296।

গ্রন্থপঞ্জি[সম্পাদনা]