কর্ড লাইন, তামিলনাড়ু

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
কর্ড লাইন
Viluppuram Railway Junction Main Building.jpg
তামিলনাড়ুর কর্ড লাইনের সূচনা স্থান ভিলুপুরম রেলওয়ে স্টেশন
সংক্ষিপ্ত বিবরণ
অন্য নামভিলুপুরম - ত্রিচি রেল লাইন
স্থানীয় নামகார்டு லைன்
স্থিতিচালু
মালিকভারতীয় রেলওয়ে
অঞ্চলতামিলনাড়ু
বিরতিস্থল
স্টেশন২৯
ওয়েবসাইটwww.sr.indianrailways.gov.in
পরিষেবা
ধরনআঞ্চলিক রেল
ভারী রেল
হালকা রেল
সেবা
রুট নম্বর২১/২১এ[১]
পরিচালকদক্ষিণ রেল
ডিপোগোল্ডেন রক
ইতিহাস
চালু১ ফেব্রুয়ারি ১৯২৯; ৯৩ বছর আগে (1929-02-01)
কারিগরি তথ্য
রেলপথের দৈর্ঘ্য১৭৮ কিমি (১১১ মা)
ট্র্যাকসংখ্যাDouble Line (Triple line between GOC and TPJ)
ট্র্যাক গেজ১,৬৭৬ মিলিমিটার (৫ ফুট ৬ ইঞ্চি)
পুরাতন গেজ১,০০০ মিলিমিটার (৩ ফুট   ইঞ্চি)
লোডিং গেজ৪,৭২৫ মিমি × ৩,৬৬০ মিমি (১৫ ফু ৬.০ ইঞ্চি × ১২ ফু ০.১ ইঞ্চি) (BG)[২]
বিদ্যুতায়ন২৫ কেভি এসি ৫০ হার্জ
চালন গতি১১০ কিমি/ঘ (৬৮ মা/ঘ)
রুটের মানচিত্র
টেমপ্লেট:কর্ড লাইন, তামিলনাড়ু

কর্ড লাইন তামিলনাড়ু ভিলুপুরম জংশন এবং তিরুচিরাপল্লী জংশন সংযুক্ত করে। এটি চেন্নাই এরম্বুর এবং ত্রিচিকে সংযোগকারী সবচেয়ে ছোট রুট। এই রেল রুট মূল লাইন থেকে ৪০ কিমি কম।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

১৯২৭ সাল পর্যন্ত, ভিলুপুরম জংশন এবং তিরুচিরাপল্লী জংশন শুধুমাত্র মেইন লাইন দ্বারা সংযুক্ত ছিল যা কুম্ভকোণম এবং মায়িলাদুথুরাই জংশনের মধ্য দিয়ে যায়, যা ২৪০ কিলোমিটার (১৫০ মা) ছিল। তাই, ছোট রুটের প্রয়োজন দেখা দেয় এবং পর্যায়ক্রমে বৃদ্ধাচলম জংশন হয়ে একটি নতুন রেললাইনের জন্য ২২ আগস্ট ১৯২৭ সালে নির্মাণ শুরু হয়। প্রাথমিকভাবে, ভিলুপুরম জংশন এবং বৃদ্ধাচলমে ১৯২৭ সালে এবং পুরো প্রসারিতটি ফেব্রুয়ারি ১৯২৭ সাল থেকে তার কার্যক্রম শুরু হয়েছিল। এই লাইনটি ধীরে ধীরে মাদ্রাজ-কলম্বো যাত্রা প্রায় চার ঘন্টা কমিয়ে দেয়।[৩]

গেজ রূপান্তর[সম্পাদনা]

মিটার গেজ থেকে ব্রডগেজে রূপান্তর ১৯৯২-৯৩ সালে কার্যকর হয়েছিল এবং ১৯৯৮ সেপ্টেম্বরে সম্পন্ন হয়েছিল।[৪]

বিদ্যুতায়ন[সম্পাদনা]

CORE দ্বারা পর্যায়ক্রমে বিদ্যুতায়নের জন্য প্রস্তাব করা হয়েছিল। ২০১০ সালে বিদ্যুতায়ন সম্পন্ন হয়েছিল।[৫]

বিখ্যাত ট্রেন[সম্পাদনা]

১. চেন্নাই এগমোর-মাদুরাই তেজস এক্সপ্রেস - কর্ড লাইনের সেলিব্রিটি ২. ভাইগাই সুপারফাস্ট এক্সপ্রেস - কর্ড লাইনের রাজা ৩. পল্লবন সুপারফাস্ট এক্সপ্রেস - প্রিন্স অফ কর্ড লাইন

অপারেশন[সম্পাদনা]

যাত্রী সেবা[সম্পাদনা]

লাইনটি সবচেয়ে বেশি ট্র্যাফিকের সম্মুখীন হয়[৬] পণ্য ট্রেন ছাড়াও প্রতিদিন প্রায় ৩০টি যাত্রী এবং ৫৬টি এক্সপ্রেস ট্রেন পরিচালনা করে, বিশেষ করে রাতে।[৭][৮][৯]

একাধিক দক্ষিণ তামিলনাড়ুগামী ট্রেন কর্ড লাইন দিয়ে চলে যাওয়া সত্ত্বেও, ত্রিচি এবং ভিলুপুরমের মধ্যে কর্ড লাইনে কোনো 'এ' গ্রেড স্টেশন নেই।

মালবাহী সেবা[সম্পাদনা]

লাইনটিতে বেশ কয়েকটি শিল্প প্রতিষ্ঠান রয়েছে[১০] যেগুলি তাদের নিকটবর্তী রেলওয়ে স্টেশনগুলিকে তাদের লজিস্টিক এবং পরিবহনের জন্য ব্যবহার করে যেমন সেন্ট্রাল ওয়ার্কশপ (গোল্ডেন রক), ত্রিচি, পেরাম্বলুর এবং আরিয়ালুরে সিমেন্ট এবং জিপসাম কারখানা,[১১][১২][১৩] ][১৩] এবং ভিলুপুরম ও বৃদ্ধাচলমের চিনি কারখানা,[১৪]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Trains at a Glance July 2013 - June 2014"Indian Railways। সংগ্রহের তারিখ ১ জানুয়ারি ২০১৪ 
  2. J S Mundrey (২০১০)। Railway Track Engineering (Fourth সংস্করণ)। New Delhi: Tata McGraw Hill। পৃষ্ঠা 7। আইএসবিএন 978-0-07-068012-8। সংগ্রহের তারিখ ১ জানুয়ারি ২০১৪ 
  3. R. P. Saxena। "Indian Railway History Time line"Irse.bravehost.com। ১৪ জুলাই ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ জানুয়ারি ২০১৪ 
  4. "Works And Contract Management"Comptroller and Auditor General of India। ১ জানুয়ারি ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ জানুয়ারি ২০১৪ 
  5. "Electrification work from Villupuram to Tiruchi completed: E. Ahamed"The Hindu। ১২ জানুয়ারি ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ১ জানুয়ারি ২০১৪ 
  6. R.Rajaram (১৫ মে ২০১৩)। "Dindigul-Villupuram project set to cross another milestone"The Hindu। সংগ্রহের তারিখ ১ জানুয়ারি ২০১৪ 
  7. R.Rajaram (১০ জুলাই ২০১০)। "Tiruchi-Chennai line to get decongested"The Hindu। সংগ্রহের তারিখ ১ জানুয়ারি ২০১৪ 
  8. "Doubling work on 25-km stretch completed in Trichy division"The Times of India। ১৬ মে ২০১৩। ২৭ ডিসেম্বর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ জানুয়ারি ২০১৪ 
  9. "Kallakudi Palanganatham-Ariyalur railway line nearing completion"The Hindu। ১৬ আগস্ট ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ১ জানুয়ারি ২০১৪ 
  10. "Southern Railway - Tiruchchirappalli Division" (পিডিএফ)Southern Railway zone। সংগ্রহের তারিখ ১ জানুয়ারি ২০১৪ 
  11. "Analysis of alternatives" (পিডিএফ)Tamil Nadu Road Sector Project। পৃষ্ঠা 33। ৩ মার্চ ২০১৬ তারিখে মূল (পিডিএফ) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ জানুয়ারি ২০১৪ 
  12. M. V. L. Manikantan (২১ ডিসেম্বর ২০১৩)। "Proposed Karaikal-Peralam line to boost freight traffic"The Hindu। সংগ্রহের তারিখ ১ জানুয়ারি ২০১৪ 
  13. T. E. Raja Simhan (১ ফেব্রুয়ারি ২০১০)। "Karaikal scores high on rail connectivity"The HinduBusiness Line। সংগ্রহের তারিখ ১ জানুয়ারি ২০১৪  উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "kikrail2" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে
  14. W. Francis; Frederick Nicholson (২০০২)। Gazetteer of South India। Mittal Publications। পৃষ্ঠা 127। সংগ্রহের তারিখ ১ জানুয়ারি ২০১৪