কমল মিত্র

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
কমল মিত্র
Kamal Mitra Sabyasachi.jpg
কমল মিত্র ১৯৪৮ সালের চলচ্চিত্র সব্যসাচী
জন্ম
কমল মিত্র

(১৯১২-১২-০৯)৯ ডিসেম্বর ১৯১২
মৃত্যুআগস্ট ২, ১৯৯৩(1993-08-02) (বয়স ৮০)
পেশাঅভিনেতা
কার্যকাল১৯৪৩ - ১৯৮১

কমল মিত্র ছিলেন একজন বিশিষ্ট বাঙালি অভিনেতা যিনি চার দশকেরও বেশি সময় ধরে ৯০ টির বেশি চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন। ছবি বিশ্বাস (১৯০০ - ১৯৬২) এবং পাহাড়ী সান্যাল (১৯০৬ - ১৯৭৪) সহ তিনি বাংলা সাদা-কালো পর্দায় ৫০ এবং ৬০ এর দশকে অধিকাংশ মধ্য বয়স্ক চরিত্রে আধিপত্য করেছিলেন।[১]; প্রকৃতপক্ষে, তাঁর সফলতা ৭০ দশকেও একইভাবে অক্ষুণ্ণ থাকে। যদিও তিনি উত্তম কুমার এবং তনুজা অভিনীত, ১৯৬৩ সালের জনপ্রিয় বাংলা চলচ্চিত্র দেয়া নেয়াতে, বি.কে.আর. এর ভূমিকার জন্য স্মরণীয় (প্রখ্যাত প্রশান্ত' (উত্তম কুমার), নায়কের বাবা ), কমল মিত্র বিশিষ্ট পৌরাণিক ও সামাজিক কাহিনীতে বেশ কয়েকটি উল্লেখযোগ্য অভিনয় করেছেন। মথুরা এবং ভগবান কৃষ্ণের মাতুলকে নিয়ে চলচ্চিত্র কংসতে, তাঁর "কংস" এর চরিত্রে অভিনয়, একটি কিংবদন্তি নেতিবাচক চরিত্রে, একজন অভিনেতা দ্বারা সবচেয়ে শক্তিশালী পারফরম্যান্স হিসাবে গণ্য করা হয়। এই চলচ্চিত্রে তিনি মূল চরিত্রের অন্তরের বেদনা ও বাহ্যিক ক্রোধ ফুটিয়ে তুলেছেন যা আজও অতুলনীয় হয়ে রয়ে গেছে। তিনি চলচ্চিত্র কর্মজীবনের শুরুতে সমান দক্ষ ছিলেন, মহিষাসুর বধের চরিত্রে "মহিষাসুর" চরিত্রে অভিনয় করেন। আত্মোতসর্গ, ভক্তি এবং কঠোর পরিশ্রমের দৃষ্টান্তসরূপ তাকে স্মরণ ও সম্মান করা হয়। লৌহ কপাট (গল্প: জরাসন্ধ; নির্দেশনা: তপন সিনহা) "বদর মুন্সি" তে তাঁর অভিনয়ের মধ্য দিয়ে; তিনি বাংলা চলচ্চিত্রের ইতিহাসে নিজের জন্য চিরস্থায়ী স্থান তৈরি করেন।

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

কমল মিত্রের জন্ম ৯ ডিসেম্বর ১৯১২ সালে, বর্ধমানে[২] কমল মিত্র অনেক থিয়েটার এবং যাত্রায় (প্রায় ত্রিশটি) অভিনয় করেন। মঞ্চ এবং পর্দাতে তার অনেক শক্তিশালী অভিনয়ের গুণগত বৈশিষ্ট্যটি তাঁর নিয়মশৃঙ্খলা থেকে এসেছিল, যেটি তিনি পেয়েছিলেন স্নাতক হবার পর প্রারম্ভিক বছরগুলিতে সামরিক বাহিনীতে কাজ করা জন্য। তিনি বর্ধমান শহরের খ্যাতনামা মিত্র পরিবারের একজন উত্সাহী খেলোয়াড় ছিলেন এবং অল্প বয়সে একজন ভাল ফুটবলার ছিলেন। চলচ্চিত্র জীবন শুরু করার আগে, তিনি বর্ধমানের জেলা ম্যাজিস্ট্রেট ও কালেক্টর অফিসে কাজ করেছেন। তিনি একটি উৎসুক পাঠক এবং বিরল বইয়ের একটি সংগ্রাহক ছিলেন। কলকাতায় চলচ্চিত্র কেন্দ্র, চলচ্চিত্র অধ্যয়ন ও চলচ্চিত্র আর্কাইভ নন্দনে তাঁর বিশাল সংগ্রহ দান করেন। তিনি রেডিও-নাটকগুলিতেও অভিনয় করেছিলেন। তাঁর কন্ঠস্বর এবং উচ্চতা উভয়ই দুর্লভ তার দক্ষতায় অতিরিক্ত চমক যোগ করে এবং পর্দায় চরিত্রনির্বিশেষে শ্রোতাদের উপর প্রভাব সৃষ্টি করে। অভিনেতা হিসাবে তাঁর শব্দচয়ন এবং স্বরনিক্ষেপে তার আধিপত্য তাকে অভিনেতা হিসাবে সাফল্য শীর্ষে নিয়ে যায়। তাঁর আত্মজীবনী "ফ্ল্যাশব্যাক" নামে পরিচিত, সেটি তাঁর অভিনয়ের সাক্ষীর দশকগুলির বাংলা সিনেমার জগতের একটি অন্তর্দৃষ্টি প্রদান করেন এবং সমসাময়িক সমাজের উপর প্রভাব ফেলে এমন একটি মাধ্যম হিসেবে বাংলা চলচ্চিত্রের ধীরে ধীরে আধুনিকীকরণ এবং ক্রমবিকাশের একটি ভাষ্য। তিনি এক সময় (১৯৮১) অভিনয় ছেড়ে দেন, যে সময় প্রযোজক এবং পরিচালক, তার সহকর্মী এবং সাধারণ দর্শকদের কাছে তাঁর অনেক বেশি চাহিদা ছিল।

নির্বাচিত ফিল্মোগ্রাফি[সম্পাদনা]

  • নীলাঙ্গুরীয়
  • মহিষাসুর বধ
  • সব্যসাচী
  • বিদ্যাসাগর
  • আনন্দ মঠ
  • জিজ্ঞাসা
  • অগ্নিপরীক্ষা
  • শিল্পী
  • শাপমোচন
  • কংস
  • সাত নম্বর বাড়ি
  • পথের দাবী
  • বন্ধু
  • পরশপাথর
  • একটি রাত
  • নব বিধান
  • লৌহ কপাট
  • সাগরিকা
  • সবার ওপরে
  • হাসপাতাল
  • যমলায়ে জীবন্ত মানুষ
  • সূর্যতোরন
  • আসিতে আসিও না
  • বিভাষ
  • ভানু পেলো লটারি
  • দেয়া নেয়া
  • থানা থেকে আসছি
  • শেষ অঙ্ক
  • চিরদিনের
  • বর্ণালী
  • পরিনীতা
  • কাল তুমি আলেয়া
  • মনিহার
  • জীবন মৃত্যু
  • সবরমতি
  • পিতাপুত্র
  • তিন ভুবনের পারে
  • হারমোনিয়াম
  • ফুলু ঠাকুরমা
  • রৌদ্রচ্ছায়া
  • আরো একজন
  • অসাধারন
  • দক্ষ যজ্ঞ

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Little known facts on Kamal Mitra – the angry dad of Bengali cinema
  2. "Biography of Kamal Mitra"। ২২ জানুয়ারি ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৯ এপ্রিল ২০১৮ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]