কণ্ঠ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
কন্ঠ
কণ্ঠ চলচ্চিত্রের বাণিজ্যিক পোস্টার.jpeg
কণ্ঠ চলচ্চিত্রের বাণিজ্যিক পোস্টার
পরিচালকশিবপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়
নন্দিতা রায়
রচয়িতাশিবপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়
শ্রেষ্ঠাংশে
সুরকারঅনুপম রায়
চিত্রগ্রাহকশুভঙ্কর ভার
সম্পাদকমলয় লাহা
মুক্তি
  • ১০ মে ২০১৮ (2018-05-10)
দৈর্ঘ্য২ ঘন্টা ২৪ মিনিট
দেশভারত
ভাষাবাংলা
আয়২+ কোটি (প্রথম ১১ দিন) [১]

কণ্ঠ নন্দিতা রায় এবং শিবপ্রসাদ মুখোপাধ্যায় পরিচালিত একটি সামাজিক বাংলা নাটকীয় চলচ্চিত্র । [২] উইন্ডোজ প্রোডাকশন হাউসের ব্যানারের অধীনে ১০ মে ২০১৯ সালে এই ছবিটি মুক্তি পায়। [৩] [৪] এই চলচ্চিত্রের অনুপ্রেরণা একজন ক্যান্সার রোগ থেকে আরোগ্য লাভকারী বিভূতি চক্রবর্তী থেকে এসেছিল। ডাক্তাররা ল্যারিংজেকটমিয়ের জন্য তার স্বরযন্ত্র সরিয়ে দিয়েছিলেন, কিন্তু এই ঘটনা তাকে থামিয়ে দিতে পারেনি। তিনি সব বাধা অতিক্রম করেন এবং অন্যদের এই সংগ্রামে সাহায্য করেন। পরিচালক শিবপ্রসাদ নিজে চলচ্চিত্রটির প্রধান চরিত্রে অভিনয় করেন। [৫] মালয়ালম চলচ্চিত্র পরিচালক রাজেশ নায়ার এই ছবিটির রিমেক অধিকার কিনেছেন, যা শব্দম হিসাবে মুক্তি পাবে[৬]

গল্প[সম্পাদনা]

চলচ্চিত্রের গল্পটি ক্যান্সারের থেকে বেঁচে থাকা একজন ব্যক্তির জীবন ও সংগ্রামের কথা বলে। অর্জুন মল্লিক একজন বিখ্যাত রেডিও জকি। তার শ্রোতা তার কণ্ঠ সম্পর্কে অনুরাগী। তাঁর স্ত্রী, পৃথাও একজন কণ্ঠ শিল্পী। হঠাৎ করে জানা যায় যে অর্জুনের ল্যারেনজিয়াল ক্যান্সার রয়েছে । তিনি রমিলা নামের একজন বক্তৃতা থেরাপিস্টের সঙ্গে মিলিত হন এবং খাদ্যনালীর দ্বারা কথা বলতে শেখেন। তিনি কথা বলতে পারেন না, কিন্তু নিজের উন্নতি করেন। এটি একটি ক্যান্সার রোগী এবং তার নির্ভীক চেতনার একটি গল্প। [৬]

অভিনয়ে[সম্পাদনা]

প্রযোজনা[সম্পাদনা]

শুরু[সম্পাদনা]

১৯৯৯ সালে টেলিভিশনে কাজ করার সময় বিভূতি চক্রবর্তী নামের এক ব্যক্তির সঙ্গে পরিচয় হয় পরিচালক শিবপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের। লোকটি কণ্ঠ ক্যানসারে আক্রান্ত হয়েছিলেন। তিনি ক্যানসারের সঙ্গে লড়াই করে জয়ী হয়েছেন। ওই লোকটির কাছ থেকে ক্যানসারের সঙ্গে লড়াইয়ের গল্প শুনেছিলেন শিবপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়। তখন এই গল্প নিয়ে সিনেমা তৈরির সিদ্ধান্ত নেন। এই ছবির মধ্য দিয়ে ক্যানসার নিয়ে সবার মধ্যে কিছু বার্তা পৌঁছে দিতে চেয়েছিলেন শিবপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়। ছবির চিত্রনাট্যও লেখেন। কিন্তু এত বছর পর ২০১৯ সালে তা পর্দায় ফুটিয়ে তুলেছেন।[৭]

সংগীত[সম্পাদনা]

কণ্ঠ
অনুপম রায়, সাহানা বাজপেয়ীর, অনিন্দ্য চট্টোপাধ্যায়, প্রসেন এবং প্রশমিতা পাল
অনুপম রায় কর্তৃক সাউন্ডট্র্যাক অ্যালবাম
মুক্তির তারিখ৯ এপ্রিল ২০১৯ [৮]
শব্দধারণের সময়২০১৯
দৈর্ঘ্য১৭:৪৬
ভাষাবাংলা

এই চলচ্চিত্রটির সংগীত অনুপম রায়, অনিন্দ্য চট্টোপাধ্যায় ও প্রজেন দ্বারা রচনা করা হয়েছে এবং গানগুলি লিখেছেন অনুপম রায়, অনিন্দ্য চট্টোপাধ্যায়, দীপাংশু আচার্য ও প্রসেন।

গানের তালিকা
নং.শিরোনামকণ্ঠশিল্পীদৈর্ঘ্য
১."সবাই চুপ"সাহানা বাজপেয়ীর৩:৫২
২."আলোতে আলোতে ঢাকা"অনুপম রায়৫:৫১
৩."অবাক জলে"প্রসেন৪:৪১
৪."বর্ণপরিচয়"অনিন্দ্য চট্টোপাধ্যায় এবং প্রশমিতা পাল৪:২২
মোট দৈর্ঘ্য:১৭:৪৬

প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি[সম্পাদনা]

ছবিটি প্রথম সপ্তাহে শুধু পশ্চিমবঙ্গে ৯০ টির বেশি প্রেক্ষাগৃহে ৫০০ টির অধিক শোয়ের সঙ্গে মুক্তি পায়। পশ্চিমবঙ্গ ছাড়াও ছবিটি ভারত জুড়ে নয়ডা, মুম্বই, বেঙ্গালুরুহায়দ্রাবাদে মুক্তি পায়। দ্বিতীয় সপ্তাহে ছবিটি পশ্চিমবঙ্গের ৯২ টি প্রেক্ষাগৃহে প্রদর্শিত হয়, যার মধ্যে ২২ টি মাল্টিপ্লেক্স ছিল। যদিও দ্বিতীয় সপ্তাহে শেষে প্রেক্ষাগৃহের সংখ্যা কিছু কমে যায়। তৃতীয় সপ্তাহ থেকে বাংলার (পশ্চিমবঙ্গ) ৭৭টি প্রেক্ষাগৃহে প্রদর্শিত হয় ‘কণ্ঠ’, যার মধ্যে ২০ টি মাল্টিপ্লেক্স ছিল। উইন্ডোজ সংস্থার এই ছবির ডিস্ট্রিবিউটর বাবলু দামানি বললেন, ”এই সপ্তাহেও চলবে কণ্ঠ। বেশ ভাল সাড়া মিলছে। শুক্রবার থার্ড উইকের শুরুতেও দর্শক হলে গিয়েছে। প্রায় ৮০ শতাংশ আসন ভর্তি হচ্ছে প্রতি শোয়ে। এভাবে চললে আরও দু’সপ্তাহ থাকবে এই ছবি”।[১]

ছবিটি পশ্চিমবঙ্গে প্রথম সপ্তাহে ২৩ টি মাল্টিপ্লেক্সে ৫০১ টি শোয়ে মুক্তি পায়। দ্বিতীয় সপ্তাহে ২২ টি মাল্টিপ্লেক্সে ৪১৬ টি শোয়ে এবং তৃতীয় সপ্তাহে ২০ টি মাল্টিপ্লেক্সে ২২৭ শোয়ে প্রদর্শিত হয়।

ছবিটিকে যুক্তরাষ্ট্রে মুক্তি দেওয়ার পরিকল্পনা চলছে।

আয়[সম্পাদনা]

বক্সঅফিসে নিজের জায়গা ধরে রাখতে সক্ষম হয় শিবপ্রসাদ ও নন্দিতার এই ছবি। ‘হামি’র প্রথম তিন দিনের কালেকশন আর ‘কণ্ঠ’র আয় এক ছিল। ১১ দিনে আয়ের অঙ্কটা ছিল ২ কোটির বেশি। তৃতীয় সপ্তাহেও আয়ের ধারাবাহিকতা অব্যাহত।[১] ছবিটি পশ্চিমবঙ্গে শুধু মাত্র ২৩ টি মাল্টিপ্লেক্স থেকে প্রথম সপ্তাহে ₹৬৮,৮৬,০৯৯ টাকা আয় করে। তিন সপ্তাহ শেষে ছবিটি মাল্টিপ্লেক্স থেকে মোট ₹১,৫০,৮৭,২৭০ টাকা (প্রায় ₹১.৫১ কোটি) আয় করে।

মূল্যায়ন[সম্পাদনা]

সমালোচকদের প্রতিক্রিয়া[সম্পাদনা]

কণ্ঠ সমালোচকদের কাছ থেকে প্রচুর ইতিবাচক রিভিউ পেয়েছে[৯] এবং দর্শকেরাও ভালো প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছেন।[৯] আনন্দবাজার পত্রিকার মধুমন্তী পৈত চৌধুরী ছবিটিকে ১০ এর মধ্যে ৭ স্টার রেটিং দিয়েছেন; তিনি বলেন "কণ্ঠ’র কিং অবশ্যই তার চিত্রনাট্য। আগের ছবিগুলির চেয়ে নন্দিতা রায়ের লেখা এই চিত্রনাট্য অনেক বেশি পরিণত, পোক্ত, বাস্তবের কাছাকাছি। চিত্রনাট্যই প্রতিটি চরিত্রের বিকশিত হওয়ার জমি বানিয়ে দিয়েছে। যার পূর্ণ সদ্ব্যবহার করেছেন শিল্পীরা"।[১০] আনন্দবাজার পত্রিকায় বিনায়ক বন্দ্যোপাধ্যায় লেখেন, "খ্যাতনামা উপন্যাসিক বিক্রম শেঠের মর্মস্পর্শী উপন্যাস ‘অ্যান ইকুয়াল মিউজিক’ মনে পড়ে যাচ্ছিল উন্ডোজ প্রযোজিত শিবপ্রসাদ মুখোপাধ্যায় ও নন্দিতা রায় পরিচালিত নতুন ছায়াছবি ‘কন্ঠ’ দেখতে দেখতে"। এই সময় পত্রিকা ছবিটিকে ৫ এর মধ্যে ৩.৫ রেটিং দেয়।[১১] দ্য টাইমস অব ইন্ডিয়া চলচ্চিত্রটিকে ৫ এর মধ্যে ৪.৫ রেটিং দেয়।[১২]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "সপ্তাহ দুই পরেও জোরালো 'কণ্ঠ'"। bengali.indianexpress.com/। ২৫ মে ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ৮ জুন ২০১৯ 
  2. "মুক্তি পেল কণ্ঠ সিনেমার ট্রেলার (Bengali)"movies.ndtv.com। সংগ্রহের তারিখ মে ৪, ২০১৯ 
  3. "Konttho"। সংগ্রহের তারিখ মে ৪, ২০১৯ 
  4. "Windows Production has an exciting lineup of films in 2019"। সংগ্রহের তারিখ মে ৪, ২০১৯ 
  5. "Konttho"timesofindia.indiatimes.com। সংগ্রহের তারিখ মে ৩, ২০১৯ 
  6. "Remake rights of Bengali film Konttho sold before its theatrical release"। সংগ্রহের তারিখ মে ৪, ২০১৯ 
  7. "দেবী শেঠীর প্রেসক্রিপশনে জয়ার 'কণ্ঠ'!"। প্রথম আলো। ৯ মে ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ১১ মে ২০১৯ 
  8. "সাহানা বাজপেয়ীর গলায় মুক্তি পেল 'কণ্ঠ' ছবির নতুন গান"। Times Music Bangla। 
  9. "মুভি রিভিউ: 'কণ্ঠ'-এ জীবনই পারে মৃত্যুভয় অবজ্ঞা করতে"। আনন্দবাজার পত্রিকা। ১০ মে ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ১১ মে ২০১৯ 
  10. "শিবপ্রসাদ-নন্দিতা, আরও এক বার!"। আনন্দবাজার পত্রিকা। ১০ মে ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ১১ মে ২০১৯ 
  11. "কণ্ঠ মুভি রিভিউ"। ১০ মে ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ১১ মে ২০১৯ 
  12. "Kontho"। দ্য টাইমস অব ইন্ডিয়া। ১১ মে ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ১১ মে ২০১৯ 

বাহ্যিক লিঙ্ক[সম্পাদনা]