ওড়িশা রাজ্য চলচ্চিত্র পুরস্কার

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ওড়িশা রাজ্য চলচ্চিত্র পুরস্কার
প্রদানের কারণওড়িশার চলচ্চিত্রে উৎকর্ষতার জন্য
দেশভারত
পুরস্কারদাতাসংস্কৃতি বিভাগ, ওড়িশা সরকার
প্রথম পুরস্কৃত১৯৭৩

ওড়িশা রাজ্য চলচ্চিত্র পুরস্কার হল ভারতের ওড়িশা রাজ্যের চলচ্চিত্রের জন্য প্রদত্ত পুরস্কার। ওড়িশা সরকারের সংস্কৃতি বিভাগ এই পুরস্কার প্রদান করে থাকে।[১] এই পুরস্কারের উদ্দেশ্য হল নান্দনিক মূল, উচ্চ মানসম্পন্ন ও সমজের সাথে প্রাসঙ্গিক ওড়িশা ভাষায় নির্মিত চলচ্চিত্রকে উৎসাহিত করা। ১৯৬৮ সাল থেকে এই পুরস্কার প্রবর্তিত হয় এবং ১৯৭৩ সাল থেকে পুরস্কার প্রদান শুরু হয়। সংস্কৃতি বিভাগের স্বাধীন জুরি এই পুরস্কার গ্রহীতাদের নির্বাচন করে। জুরি বোর্ডে চলচ্চিত্র ব্যক্তিত্ব, শিক্ষায়তনিক ব্যক্তিবর্গ, সাংবাদিক ও সরকারি কর্মকর্তাগণ জড়িত থাকেন।

পুরস্কারসমূহ[সম্পাদনা]

এই পুরস্কারের বিভিন্ন বিভাগসমূহ হল[১]

চলচ্চিত্র[সম্পাদনা]

  • শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র: প্রযোজককে নগদ ১৫,০০০ রুপী ও একটি সনদ
  • শ্রেষ্ঠ শিক্ষামূলক/শিশুতোষ চলচ্চিত্র: প্রযোজককে নগদ ৭,৫০০ রুপী ও একটি সনদ
  • শ্রেষ্ঠ প্রামাণ্যচিত্র: প্রযোজককে নগদ ৫,০০০ রুপী ও একটি সনদ এবং পরিচালককে নগদ ২,৫০০ রুপী ও একটি সনদ

অভিনয়ের পুরস্কার[সম্পাদনা]

পরিচালনা ও লেখনী[সম্পাদনা]

  • শ্রেষ্ঠ পরিচালক: নগদ ৭,৫০০ রুপী ও একটি সনদ
  • শ্রেষ্ঠ কাহিনিকার: নগদ ৫,০০০ রুপী ও একটি সনদ
  • শ্রেষ্ঠ চিত্রনাট্য: নগদ ৩,০০০ রুপী ও একটি সনদ

সঙ্গীতের পুরস্কার[সম্পাদনা]

  • শ্রেষ্ঠ গীতিকার: নগদ ৩,০০০ রুপী ও একটি সনদ
  • শ্রেষ্ঠ সঙ্গীত পরিচালক: নগদ ৫,০০০ রুপী ও একটি সনদ
  • শ্রেষ্ঠ পুরুষ নেপথ্য কণ্ঠশিল্পী: নগদ ৫,০০০ রুপী ও একটি সনদ
  • শ্রেষ্ঠ নারী নেপথ্য কণ্ঠশিল্পী: নগদ ৫,০০০ রুপী ও একটি সনদ

কারিগরী পুরস্কার[সম্পাদনা]

  • শ্রেষ্ঠ চিত্রগ্রাহক: নগদ ৫,০০০ রুপী ও একটি সনদ
  • শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র সম্পাদক: নগদ ৩,০০০ রুপী ও একটি সনদ
  • শ্রেষ্ঠ শিল্প নির্দেশক: নগদ ৩,০০০ রুপী ও একটি সনদ
  • শ্রেষ্ঠ শব্দগ্রাহক: নগদ ৩,০০০ রুপী ও একটি সনদ

বিশেষ পুরস্কার[সম্পাদনা]

  • বিশেষ জুরি পুরস্কার: নগদ ৪,০০০ রুপী ও একটি সনদ
  • জয়দেব পুরস্কার (আজীবন সম্মননা): নগদ ২৫,০০০ রুপী ও একটি সনদ

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "How to apply for entry of films into the State Film Award" (PDF)ওড়িশা কালচার। সংগ্রহের তারিখ ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]