এলিউড কিপচোগে

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এলিউড কিপচোগে
২০১৫ সালের বার্লিন ম্যারাথন দৌড়ে কিপচোগে
ব্যক্তিগত তথ্য
জন্ম (1984-11-05) ৫ নভেম্বর ১৯৮৪ (বয়স ৩৪)
কাপসিসিওয়া, নান্দি জেলা, কেনিয়া
উচ্চতা১.৭৬ মিটার[১]
ওজন৫৭ কেজি
ক্রীড়া
দেশকেনিয়া
ক্রীড়ামল্লক্রীড়া (অ্যাথলেটিক্স)
কোচপ্যাট্রিক সাং
সাফল্য ও খেতাব
ব্যক্তিগত সেরাম্যারাথন: ২:০১:৩৯ (বিশ্বসেরা মান)

এলিউড কিপচোগে (Eliud Kipchoge) (জন্ম ৫ই নভেম্বর ১৯৮৪) একজন কেনীয় দূরপাল্লার দৌড়বিদ যিনি সাধারণত ম্যারাথন দৌড় প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে থাকেন। অতীতে তিনি ৫০০০ মিটার দৌড়ে অংশ নিতেন। তিনি ২০১৬ সালে অলিম্পিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় ম্যারাথন দৌড়ে বিজয়ী হন। তিনি বর্তমান ম্যারাথন দৌড়ে বিশ্ব রেকর্ডধারী দৌড়বিদ; তিনি ২০১৮ সালের বার্লিন ম্যারাথন প্রতিযোগিতায় ২ ঘন্টা ১ মিনিট ৩৯ সেকেন্ড সময়ে দৌড় সমাপ্ত করে নতুন রেকর্ড সৃষ্টি করেন। তিনি পূর্ববর্তী রেকর্ড বা সেরা সময়ের চেয়ে ১ মিনিট ১৮ সেকেন্ড কম সময় নেন, যা ছিল চমকপ্রদ।[২] ১৯৬৭ সালের পর থেকে এত বড় ব্যবধানে কেউ ম্যারাথন দৌড়ের সেরা সময়ের উন্নতি সাধন করেনি। তিনি ঐ ম্যারাথনের শেষ অর্ধ অর্থাৎ শেষ প্রায় ২১ কিলোমিটার পথ মাত্র ১ ঘণ্টা ৩৩ সেকেন্ড সময়ে অতিক্রম করেন। এখানে তুলনীয় যে ২০১৪ সালের দ্রুততম ফুটবল খেলোয়াড় আরিয়েন রোবেনের খুবই কম সময়ের জন্য সর্বোচ্চ গতিবেগ ছিল ঘণ্টায় ২৩ কিলোমিটার।[৩]

কিপচোগে রেকর্ড সংখ্যক চারবার লন্ডন ম্যারাথন জিতেছেন। সব মিলিয়ে তিনি ১৩টি ম্যারাথনে অংশ নিয়ে ১২টিতে জয়লাভ করেছেন। এক পর্যায়ে তিনি পরপর ৮টি ম্যারাথন প্রতিযোগিতায় জয়লাভ করেন, যা অবিসংবাদিত। কিপচোগে-কে "আধুনিক যুগের সর্বসেরা ম্যারাথন দৌড়বিদ" আখ্যা দেওয়া হয়েছে।[৪] মার্কিন দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমস পত্রিকাতে তাকে "সর্বকালের সেরা ম্যারাথন দৌড়বিদ" বলা হয়েছে।[৫] কিপচোগে তার একাগ্রচিত্ত ও অদম্য মনোভাবের জন্য বিখ্যাত। ২০১৫ সালের বার্লিন ম্যারাথন জেতার পথে তার জুতার অংশবিশেষ খুলে বেরিয়ে আসার পরেও তিনি ফোসকা পড়া রক্তাক্ত পা নিয়ে দৌড় শেষ করে ছাড়েন।[৬]

২০১৯ সালের ১২ই অক্টোবর তারিখে কিপচোগে ভিয়েনা শহরে আয়োজিত একটি বিশেষ সহায়তাবিশিষ্ট ম্যারাথন দৌড়ে অংশ নেন এবং ২ ঘন্টার নিচে ম্যারাথন দৌড় সমাপ্তকারী প্রথম মানব হিসেবে ইতিহাসের খাতায় নাম লেখান। তিনি ১ ঘণ্টা ৫৯ মিনিট ৪০ সেকেন্ড সময় নেন। তিনি ভিয়েনা শহরকেন্দ্রের প্রাটার নগর উদ্যানকে বেষ্টনকারী ৯.৪ কিলোমিটার দীর্ঘ একটি আবদ্ধ পথ চারবার প্রদক্ষিণ করে এই ম্যারাথন দৌড়টি সম্পন্ন করেন। ৪১জন সহায়ক দৌড়বিদ তাকে গতি ধরে রাখতে সহায়তা করে। তবে সফল হলেও এটি আন্তর্জাতিক সংস্থা দ্বারা স্বীকৃত হবে না, কেননা এতে সহায়ক দৌড়বিদ সম্পর্কিত বিধি মানা হয়নি এবং এটি কোনও উন্মুক্ত প্রতিযোগিতাও ছিল না। এই কীর্তি গড়ার সময় কিপচোগে প্রতি কিলোমিটার পথ শেষ করতে গড়ে ২ মিনিট ৫০ সেকেন্ড সময় নেন।[৭]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]