এমা ডি কোনাস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
এমা ডি কোনাস
Emma de Caunes Cannes 2015.jpg
জন্ম (১৯৭৬-০৯-০৯) ৯ সেপ্টেম্বর ১৯৭৬ (বয়স ৩৯)
প্যারিস, ফ্রান্স
পেশা অভিনেত্রী
কার্যকাল ১৯৮৬-বর্তমান
দম্পতি সিঙ্কলায়ার (২০০১–২০০৫) (তালাক)
জেমি হিউলেট (২০১১–বর্তমান)
সন্তান ১ সন্তান সিঙ্কলায়ারর সাথে
ওয়েবসাইট
www.emmadecaunes.com

এমা ডি কোনাস (জন্মঃ ৯ সেপ্টেম্বর, ১৯৭৬) একজন ফরাসী সিনেমা অভিনেত্রী। তিনি ইংরেজী ভাষাভাষি দেশে মিঃ বিন’স হলিডে সিনেমায় সাবিন নামক চরিত্রে জন্য বিশেষভাবে পরিচিত। প্রাথমিক জীবন ও ক্যারিয়ার দী কোনাস প্যারিসে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি পরিচালক ও অভিনেতা এবং গ্যালিই রয়ের এর পরিচালক ও গ্রাফিক ডিজাইনার “অ্যান্থনী ডি কোনাস” এর কন্যা। তিনি সঙ্গীত শিল্পী সিঙ্কলায়ারকে বিয়ে করেন, যে তাদের কন্যাসন্তান নিনা (জন্মঃ প্যারিস, অক্টোবর ২০০২) এর পিতা। এরপর ২০১১ সালে সেপ্টেম্বরে তিনি ব্যাঙ্গচিত্র শিল্পী “জেমি হিউলেট” কে বিয়ে করেন। তার দাদী মাইকেল রেইজার এর অনুমতিতে তিনি দশ বছর বয়সে একটি সৌজন্যমূলক অভিনয়ে অংশ নেন। এর মাধ্যমে তার অভিনয় জীবনের শুরু। তিনি “আর্ভিন” নামের একটি চরিত্রে অভিনয় করেন যার একজন প্রেমিক আছে। তিনি ১৯৯৫ সালে অভিনয় শিল্পের উপর স্নাতক ডিগ্রী অর্জন করেন।

ডি কোনাস ১৯৯৭ সালে তার প্রধান সিনেমা “সিলিভী ভেরহেয়দি” এর উন ফ্রেরতে অভিনয়ের পূর্বে অনেক বিজ্ঞাপনে তাকে দেখা যায়। তিনি ১৯৯৮ সালে সিজার পুরষ্কারে সবচেয়ে উজ্জ্বল সম্ভাবনাময় অভিনেত্রীর পুরষ্কার অর্জন করেন এবং ১৯৯৭ সালের প্যারিস ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে সেরা অভিনেত্রীর পুরষ্কার অর্জন করেন। অ্যাক্টেরাস অ্যাই স্নাইডার (Acteurs à l'Écran Awards) সেরা অভিনেত্রীর পুরষ্কারের জন্য তিনি মনোনিত হন। তিনি ২০০২ সালে প্রিক্স রোমী স্নাইডার পুরষ্কার অর্জন করেন, এই পুরষ্কারটি সম্ভাবনাময় তরুণ অভিনেত্রীদের দেওয়া হয়।

কমেডি সিনেমা মিঃ বিন’স হলিডে তে তার একটা প্রধান চরিত্র থাকে, যাতে তিনি উইলেম ড্যাফো এর চরিত্রের স্বাধীন ছবিতে একজন অভিনেত্রী ভূমিকায় অভিনয় করেছিলেন।

চলচ্চিত্রের তালিকা[সম্পাদনা]

  • ভেলভেট (Velvet 99) (১৯৯৬)
  • লেচাপ্পে বেল্লে (১৯৯৬)
  • ভ্লাদিমির ডি ট্রপ (১৯৯৬)
  • আন ফ্রেরেই (ভাই) (১৯৯৭)
  • আলং দ্য ফ্রীওয়ে (১৯৯৭)
  • লা ভইস ইস্ট লিবার (১৯৯৮)
  • থ্রি পেটিটস পয়েন্ট লা লুন (১৯৯৮)
  • বিকপ ট্রপ লইন (১৯৯৮)
  • মাইলস্টোন (১৯৯৯)
  • মনডাইলিটো (১৯৯৯)
  • রেস্টন গ্রুপ্স (১৯৯৯)
  • সাউথ পার্কঃ বিগার, লঙ্গার অ্যান্ড আনকাট (১৯৯৯) (মোলের মায়ের কন্ঠে)
  • প্রিটেন্ড আই এম নট হিয়ার (২০০০)
  • লি নমব্রিল ডি এল’ইউনিভার্স (২০০০) (পরিচালক ও লেখক)
  • প্রিন্সলেস (২০০০)
  • আনলিডেড (২০০০)
  • রেডিওহেড- নাইভস আউট (২০০১) ( গানের ভিডিও)
  • আস্টেরিক্স অ্যান্ড ওবেলিক্সঃ মিসন ক্লোপাট্রা (২০০২)
  • লাভারস অব স্য নাইল (২০০২)
  • বেয়ন্ড গুড অ্যান্ড ইভিল (২০০৩) (কন্ঠ)
  • শর্ট অর্ডার (২০০৫)
  • কামেলোট (২০০৫) (২ পর্ব)
  • দ্য সায়েন্স অব স্লিপ (২০০৬)
  • ডে’স অব ডার্কনেস (২০০৭)
  • মিঃ বিন’স হলিডে (২০০৭)
  • লে ব্রুট ডেস যেনস অটোর (২০০৮)
  • ক্লোচিই, এল’হিস্টরী ড’উন মেক (২০০৮) (সেবিকা)
  • রিয়ান ডানস লেস পোচেস (২০০৮) (টেলিভিশন)
  • L'homme à la tête de kraft (২০১৩)
  • The Dune (২০১৪) ফাবিএন্ন হিসাবে
  • Ker Salloux (২০১৪)
  • Les Châteaux de sable (২০১৫) এলেওনোর হিসাবে

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]