এপেক্স

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
এপেক্স
ধরনব্যক্তিমালিকানাধীন প্রতিষ্ঠান
শিল্পদোকান এবং প্রস্তুতকারক
প্রতিষ্ঠাকাল৫ জানুয়ারি ১৯৯০; ৩১ বছর আগে (1990-01-05) ঢাকাতে
প্রতিষ্ঠাতাসৈয়দ মঞ্জুর এলাহী
সদরদপ্তরগুলশান-১, ঢাকা, বাংলাদেশ
বাণিজ্য অঞ্চল
ইউরোপ, আফ্রিকা, এশিয়া, ল্যাটিন আমেরিকা
প্রধান ব্যক্তি
এস এ এম ইউসুফ
(নির্বাহী পরিচালক)
খন্দকার স্বনন শাহরিয়ার
(জেনারেল ম্যানেজার)
পণ্যসমূহপাদুকাবিশেষ, বস্ত্র এবং আনুষঙ্গিক
মালিকএপেক্স পরিবার
ওয়েবসাইটwww.apex4u.com
এপেক্সের তৈরি করা পুরুষদের জুতা।

এপেক্স একটি বহুজাতিক জুতা ও বস্ত্র প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান। এর প্রধান কার্যালয় বাংলাদেশের ঢাকায় অবস্থিত। ৪০টিরও অধিক দেশে এপেক্স কোম্পানির শাখা রয়েছে। বর্তমানে এপেক্স ট্যানারি, এপেক্স ফুটওয়্যার, এপেক্স ফার্মা, ব্লু ওশান ফুটওয়্যার, এপেক্স এন্টারপ্রাইজ, এপেক্স ইনভেস্টমেন্ট, গ্রে অ্যাডভারটাইজিং বাংলাদেশসহ ১১টি কোম্পানি রয়েছে এপেক্স গ্রুপের।

প্রতিবছর এপেক্সের তৈরি ৪৫ লাখ জোড়া জুতা পৌঁছে যায় ৪০টি দেশে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ম্যাকি ও জেসি পেনি, জাপানের এবিসি মার্ট এবং জার্মানির ডেইচম্যানসহ বিশ্বের বড় খুচরা বিক্রেতারা এপেক্সের গ্রাহক। একই সঙ্গে দেশীয় বাজারেও প্রতিবছর তিন লাখ জোড়া জুতা প্রস্তুত করে এপেক্স। সাড়ে পাঁচশ খুচরা দোকানের মাধ্যমে এগুলো চলে যায় মানুষের পায়ে।  যা দেশব্যাপী ৫৫০ টির অধিক নিজস্ব বিক্রয় কেন্দ্র থেকে এগুলো বিক্রয় করা হয়। প্রায় ৫ মিলিয়ন জুতা বিশ্বব্যাপী ৪০ টি দেশের ১৩০ টি খুচরা বিক্রেতা প্রতিষ্ঠানের কাছে নিয়মিত রপ্তানি করে থাকে এপেক্স।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

এপেক্সের যাত্রা শুরু হয়েছিল মাত্র ১৫ হাজার টাকা নিয়ে। যার হাত ধরে প্রতিষ্ঠানটি গড়ে উঠেছে তিনি চাকরি করতেন ১৮০০ টাকা বেতনের। এপেক্স ইংরেজি শব্দ এর শাব্দিক অর্থ চূড়া বা শীর্ষ স্থান। ছোটবেলা থেকেই সবকিছুতে শীর্ষ স্থান দখল করতে পছন্দ করতেন আজকের ব্যবসা সফল এই গ্রুপের চেয়ার ম্যান মনজুর এলাহি। মাত্র ৪ বছর বয়সে তিনি বাবাকে হারিয়েছিলেন। তার শিক্ষা জীবন বলা যায় একই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কেটেছে। পড়ালেখা শেষ করে ভাবছেন কি করবেন, বন্ধুরা সরকারি চাকরির জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন, তিনি ও শুরু করলেন। একদিন হেটে যাওয়ার সময় এক বড় ভাইয়ের সাথে দেখা সেই সুবাধে ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকো তে চাকরি হয়ে গেল। বেশ কিছু বছর চাকরি করে নিজেকে উদ্যোক্তা হিসেবে গড়ে তোলার প্রত্যয়ে সেদিন তিনি যাত্রা শুরু করলেন, সেই যাত্রা শুরু তারপর তিনি ৪৪ বছরের পথ পরিক্রমায় আজ তিনি গড়ে তুলেছেন দেশের অন্যতম শীর্ষ শিল্প ও ব্যবসায় গোষ্টি এপেক্স গ্রুপ। ব্যবসায় তো নেমেছিলেন কিন্তু পথতো একেবারে অচেনা, কারণ পরিবারের কেউ কোনদিন ব্যবসা করেননি অতএব অচেনা পথে যাত্রা শুরু করে অনেক চড়াই উতরাই পেরোতে হল মনজুর এলাহিকে। কেমন ছিল সেই সংগ্রাম!! প্রথমে তাঁদের পুরো প্রোডাকশন জাপানে যেত এভাবে চলছিল ব্যবসা। ১৯৯৩,১৯৯৪ সালে জাপানে অর্থনৈতিক বিপন্নে পড়ল ক্রেতা ব্যাংক খেলাপি হয়ে গেল, অনেকগুলো দোকান ছিল, দোকানগুলো বন্ধ হয়ে গেল। দোকানে বিক্রি হচ্ছেনা আর এলাহি বিপদে পরে গেলেন। এরপর তিনি ইতালি গেলেন ইতালিতে তারা বলল চামড়া ঠিক আছে, তোমরা জুতা কি বানাবে!!! ওই ইমেজ প্রবলেম। ভারত থেকে তারা জুতা কেনে, তখন চায়না চায়না, সবাই চীনের কথা বলছে চায়না ছাড়া কোন কথা নেই। চেষ্টা করলেন ১৯৯৩,১৯৯৪, ১৯৯৫, ১৯৯৬। চার পাঁচ বছরে প্রচুর লোকসান হল, তার কারখানার উৎপাদন একেবারেই কমে গেল। তিনি তখন সম্পূর্ণ উৎপাদন ক্ষমতা ব্যবহার করতে পারছেননা, জুতার প্রোডাক্ট ডেবলপ করতে পারছেন না। তবুও হাল ছাড়েননি তিনি। ব্যক্তি ও কর্ম জীবনে সফলই নন, আমাদের জন্য আদর্শ উদাহরণও। তার মধ্যে রয়েছে গভীর দেশ প্রেম এবং এখন ও আছে। তিনি সমাজ সচেতন একজন সুনাগরিক হিসেবেও সম্মানিত। 

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]