ইলমেনাইট

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ইলমেনাইট
রাশিয়া থেকে সংগৃহিত ইলমেনাইট
সাধারণ তথ্য
শ্রেণীঅক্সাইড খনিজ
রাসায়নিক সূত্রআয়রন টাইটানিয়াম অক্সাইড FeTiO
3
স্ত্রুনজ শ্রেণীবিভাগ4.CB.05
ডানা শ্রেণীবিভাগ04.03.05.01
স্ফটিক ভারসাম্যR3
একক কোষa = 5.08854(7)
c = 14.0924(3) [Å]: Z = 6
সনাক্তকরণ
বর্ণকৃষ্ণ এবং বাদামী
স্ফটিক রীতিGranular to massive and lamellar exsolutions in hematite or magnetite
স্ফটিক পদ্ধতিত্রিভূজাকৃতি
যমজ{0001} simple, {1011} lamellar
বিদারণabsent; parting on {0001} and {1011}
ফাটলশঙ্খাকৃতি বা এর কাছাকাছি
সংসক্তিBrittle
কাঠিন্য মাত্রা৫-৬
ঔজ্জ্বল্যধাতব বা উপধাতব Metallic to submetallic
ডোরা বা বর্ণচ্ছটাBlack
স্বচ্ছতাঅস্বচ্ছ
আপেক্ষিক গুরুত্ব4.70–4.79
আলোকিক বৈশিষ্ট্যএকাক্ষ বিশিষ্ট (–)
বায়ারফ্রিঞ্জেন্সStrong; O = pinkish brown, E = dark brown (bireflectance)
অন্যান্য বৈশিষ্ট্যক্ষীণ
তথ্যসূত্র[১][২][৩]
ইলমেনাইটের স্ফটিক গঠন

ইলমেনাইট হচ্ছে এক ধরনের টাইটানিয়াম-আয়রন অক্সাইড। এর রাসায়নিক ফর্মুলা FeTiO
3
। দেখতে এটি কৃষ্ণ বর্ণের এবং বাদামী। এর চৌম্বকত্ব খুবই ক্ষীণ। বাণিজ্যিকভাবে, এটি খুবই মূল্যবান একটি যৌগ। কারণ ইলমেনাইট টাইটানিয়ামের প্রধান উৎস।[৪] এছাড়াও এটি টাইটানিয়াম অক্সাইডেরও প্রধান উৎস। রঙ, আঁকা-আঁকির ক্ষেত্রে, কাপড়, প্লাস্টিক, কাগজ, সানস্ক্রিন, খাদ্য ইত্যাদিতে টাইটানিয়াম অক্সাইড ব্যবহৃত হয়য়।[৫][৬]

গঠন এবং ধর্ম[সম্পাদনা]

ইলমেনাইটের স্ফটিক ত্রিভূজাকৃতির। এর স্ফটিক পর্যায়ক্রমিক করান্ডাম দিয়ে গঠিত। এটি প্যারামেগনেটিক।

ইলমেনাইটে সিউডো-মিনারেল লিউকোক্সাইড নামে এক ধরনের শ্বেত পদার্থ পাওয়া যায়। এর ফলে ধারণা করা হয়য় অগ্নেয় শিলা পরিবর্তিত হয়ে ইলমেনাইট তৈরি হয়েছে। এটিকে লিউকোক্সিন দিয়ে আবৃত করা হয়। এর ফলে ইলমেনাইটকে ম্যাগনেটাইট এবং অন্যান্য আয়রন-টাইটানিয়াম অক্সাইড থেকে আলাদা করা যায়।

প্লিউক্রইজমের কারণে আলোর প্রতিফলনে ম্যাগনেটাইট থেকে ইলমেনাইটকে সহজেই আলাদা করা যায়। আলোর প্রতিফলনেএটি বাদামি-গোলাপী রকমের একটি আভা প্রতিফলিত করে।

এর চৌম্বকত্ব খুব ক্ষীণ প্রকৃতির।

আবিষ্কার[সম্পাদনা]

১৭৯১ সালে পাহাড়ি উপকত্যার স্রোত থেকে উইলিয়াম গ্রেগর এটি আবিষ্কার করেন। এই এলাকাটি মানাকানের একটি গ্রামে অবস্থিত।[৭]

রাশিয়ার ইলমেনেস্কি পর্বতশ্রেণীতে ইলমেনাইট আবিষ্কৃত হয়। জায়গাটির নামানুসারে এর নাম হয় ইলমেনাইট।

খনিজ বৈশিষ্ট্য[সম্পাদনা]

নরওয়ে থেকে পাওয়া একটি ইলমেনাইটঃ ৪.১ x ৪.১ x ৩.৮ সেমি

বেশিরভাগ ইলমেনাইটে অধিক পরিমাণে ম্যাগনেশিয়াম এবং ম্যাঙ্গানিজ পাওয়া যায়। এদের রাসায়নিক সংকেত (Fe,Mg,Mn,Ti)O3l কুইকেলাইট এবং পাইরোফানাইটের সাথে যুক্ত হয়ে এটি এক ধরনের কঠিন পদার্থ তৈরি করে যা ম্যাগনেশিয়ান এবং মাংগানিফেরাস প্রকৃতির।

ইলমেনাইট পরিবর্তিত হয়ে খনিজ লিউকোক্সিন তৈরি করে। এটিও টাইটানিয়ামের একটি উৎস।

পৃথিবীতে যত জায়গায় ইলমেনাইট পাওয়া গিয়েছে সবক্ষেত্রেই আয়রন-টাইটানিয়ামই ছিল প্রধান যৌগ। তবে অল্প পরিমাণে ম্যাঙ্গানিজ এবং ম্যাগনেশিয়ামের পরিমাণও কিছুটা থাকে। কিম্বারলিটিক ইলমেনাইটে ব্যতিক্রম লক্ষ্য করা যায়। এখানে, জেইকেলাইট যৌগও উল্লেখযোগ্য পরিমাণে থাকে। ফেলসিক শিলায় যে ইলমেনাইট পাওয়া যায়, সেখানেও পাইরোফানাইটও থাকে।

প্যারাজেনেসিস[সম্পাদনা]

রূপান্তরিত শিলা এবং অগ্নেয় শিলা থেকে ইলমেনাইট পাওয়া যায়। ভূত্বকের ঘন স্তরগুলো থেকে এটি পাওয়া যায়।

ম্যাগনেসিয়ান ইলমেনাইট প্যারাজেনেসিসকে নির্দেশ করে। গ্রানিটিক শিলায় ম্যাগনেফেরাস ইলমেনাইট খুঁজে পাওয়া যায়। এতে থাকে এনোমেলাস নিবিয়াম।

প্রকৃয়াজাতকরণ এবং ব্যবহার[সম্পাদনা]

টাইটানিয়াম অক্সাইড উৎপাদনই, ইলমেনাইট খননের প্রধান উদ্দেশ্য।[৮] ২০১১ সালে, মোট ইলমেনাইট খননের ৪৭% ছিল শুধুমাত্র টাইটানিয়াম অক্সাইড তৈরির জন্য।[৯] আবার, ইলমেনাইট বা টাইটানিয়াম অক্সাইড থেকে টাইটানিয়াম তৈরি করা হয় যা অত্যন্ত মূল্যবান একটি ধাতু।[১০][১১]

রং-এর শিল্পে টাইটানিয়াম অক্সাইডের গুরুত্ব অনেক বেশি। এছাড়াও উপরের স্তর রঙ করার ক্ষেত্রে, প্লাস্টিক, কাগজ শিল্পেও এর ব্যবহার রয়েছে। চিনে মাথাপিছু TiO2 এর পরিমাণ ১.১ কিলোগ্রাম। তুলনামূলকভাবে ইউরোপ এবং যুক্তরাষ্ট্র থেকে এটি অনেক কম। কারণ ইউরোপে মাথাপিছু TiO2 খরচের পরিমাণ ২.৭ কিলোগ্রাম।[১২]

চাঁদের ইলমেনাইট[সম্পাদনা]

চাঁদের মাটিতেও ইলমেনাইট খুঁজে পাওয়া গেছে।[১৩] চাঁদের ইলমেনাইটেও ম্যাগনেশিয়ামের পরিমাণ ছিল অনেক বেশি।[১৪] ২০০৫ সালে নাসা হাবল স্পেস টেলিস্কোপ ব্যবহার করে চাঁদের কোন কোন জায়গায় ইলমেনাইটের আধিক্য রয়েছে তা খুঁজে বের করার চেষ্টা করেছে। কারণ পরবর্তীতে সেখানে বসতি স্থাপনের ক্ষেত্রে এটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। যেহেতু আয়রন এবং টাইটানিয়াম দিয়ে স্থাপনা তৈরি করা হয়। এর দুটোই ইলমেনাইটে পাওয়া যায়।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

টেমপ্লেট:Titanium minerals টেমপ্লেট:Titanium compounds টেমপ্লেট:Ores টেমপ্লেট:Iron compounds

  1. Webmineral data
  2. Mineral Handbook
  3. Ilmenite on Mindat.org
  4. Heinz Sibum, Volker Günther, Oskar Roidl, Fathi Habashi, Hans Uwe Wolf, "Titanium, Titanium Alloys, and Titanium Compounds" in Ullmann's Encyclopedia of Industrial Chemistry 2005, Wiley-VCH, Weinheim. ডিওআই:10.1002/14356007.a27_095
  5. "Sachtleben RDI-S" (PDF) 
  6. "Products"Mineral Commodities Ltd। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০৮-০৮ 
  7. Gregor, William (1791) "Beobachtungen und Versuche über den Menakanit, einen in Cornwall gefundenen magnetischen Sand" (Observations and experiments regarding menaccanite [i.e., ilmenite], a magnetic sand found in Cornwall), Chemische Annalen …, 1, pp. 40–54, 103–119.
  8. "Industry Fundamentals"Mineral Commodities Ltd। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০৮-০৮ 
  9. Market Study Titanium Dioxide, published by Ceresana, February 2013
  10. Kroll, W (১৯৪০)। "The production of ductile titanium"। Transactions of the Electrochemical Society78: 35–47। ডিওআই:10.1149/1.3071290 
  11. Seki, Ichiro (২০১৭)। "Reduction of titanium dioxide to metallic titanium by nitridization and thermal decomposition"Materials Transactions58 (3): 361–366। ডিওআই:10.2320/matertrans.MK201601অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  12. "Titanium Dioxide Chemical Economics Handbook" 
  13. Bhanoo, Sindya N. (২৮ ডিসেম্বর ২০১৫)। "New Type of Rock Is Discovered on Moon"New York Times। সংগ্রহের তারিখ ২৯ ডিসেম্বর ২০১৫ 
  14. http://news.bbc.co.uk/1/hi/magazine/4177064.stm How to set up a moonbase. NASA